ইসলামের ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইসলামের ইতিহাস বলতে ইসলাম ধর্মের উদ্ভবের পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সময়কাল পঞ্জী অনুসারে ইসলামের ইতিহাস, ইসলামী সভ্যতার রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নকে বুঝানো হয়। অধিকাংশ ঐতিহাসিক[১] স্বীকার করেন যে খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীর শুরুতে মক্কামদিনায় ইসলামের সূত্রপাত হয়। মুসলমানরা ইসলামকে ঈসা, সুলায়মান, দাউদ, মূসা, ইব্রাহিম, নূহ এবং আদমের মত নবীদের মূল বিশ্বাসের প্রত্যাবর্তন। । [২] [৩] ইসলাম ধর্মের প্রচলন সাধারত আদি কাল থেকেই অর্থাৎ পৃথিবীর প্রথম মানব আদম আলাইহিসসালাম এর সময় থেকেই ইসলাম ধর্মের প্রচলন শুরু হয়।

৬১০ খ্রিস্টাব্দে ইসলাম ধর্মের সর্বশেষ নবী মুহাম্মদ (সা.) এর কাছে আল্লহর পক্ষ থেকে কুরান নাযিল হতে থাকে যা মুসলমানরা আল্লাহর ওহী হিসাবে বিশ্বাস করে, সেখানে এক আল্লাহর কাছে নতি স্বীকার করার, আসন্ন শেষ বিচারের প্রতীক্ষা এবং গরিব ও অভাবগ্রস্তদের যত্ন নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। [৪] মুহাম্মদ (সা) এর প্রাপ্ত এই বাণী কিছু মুষ্টিমেয় অনুগামীগণ গ্রহণ করে এবং মক্কার বেশিরভাগ মানুষের ক্রমবর্ধমান বিরোধিতার মুখোমুখি হয়। [৫] ৬২২ সালে তার প্রভাবশালী চাচা আবু তালিবের মৃত্যুর ফলে নিরাপত্তা হারানোর কয়েক বছর পর মুহাম্মদ ইয়াসরিব (বর্তমানে মদিনা নামে পরিচিত) শহরে হিজরত করেন। ৬৩২ সালে মুহাম্মাদের ওফাতের পর রাশিদুন খিলাফতের সময় কে মুসলিম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন।

অষ্টম শতাব্দীর মধ্যে উমাইয়া খিলাফত পশ্চিমে আইবেরিয়া থেকে পূর্বে সিন্ধু নদ পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করে। উমাইয়া ও আব্বাসীয় খিলাফত (মধ্যপ্রাচ্যে এবং পরে স্পেনদক্ষিণ ইতালি), ফাতিমীয়, সেলযুক, আইয়ুবীয় এবং মামলুকদের দ্বারা শাসিত রাষ্ট্রগুলি বিশ্বের প্রভাবশালী শক্তি ছিল। সামানি সাম্রাজ্য, গজনভি রাজবংশ, ঘুরি সাম্রাজ্য নিজেদের প্রতিষ্ঠিত সাম্রাজ্যে উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন করেছে। ইসলামিক স্বর্ণযুগে সংস্কৃতি ও বিজ্ঞানের অনেক ক্ষেত্র বিকাশ লাভ করে এবং মধ্যযুগে উল্লেখযোগ্য পলিম্যাথ, জ্যোতির্বিদ, গণিতবিদ, চিকিৎসক এবং দার্শনিকের জন্ম হয়।

ত্রয়োদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে দিল্লী সালতানাত ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর অংশ জয় করে, যখন রুম সালতানাত ও আর্তুকলু বেইলিক এর মতো তুর্কি রাজবংশগুলি একাদশ ও দ্বাদশ শতাব্দী জুড়ে বাইজান্টাইন সাম্রাজ্য থেকে আনাতোলিয়ার বেশিরভাগ জয় করে। ত্রয়োদশ এবং চতুর্দশ শতাব্দীতে ধ্বংসাত্মক মঙ্গোলদের আক্রমণ এবং পূর্ব দিক থেকে তৈমুর লং এর আক্রমণের সাথে কালো মড়কে জনগণের প্রাণহানির ফলে পারস্য থেকে মিশর পর্যন্ত বিস্তৃত মুসলিম বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী নগরকেন্দ্রগুলিকে অত্যন্ত দুর্বল করে ফেলে, কিন্তু একই সময়ে তিমুরিদ রেনেসাঁ নবজাগরণ এবং পশ্চিম আফ্রিকার মালি সাম্রাজ্য এবং দক্ষিণ এশিয়ার বাংলা সালতানাতের মতো বড় বড় বিশ্ব অর্থনৈতিক শক্তি উদ্ভব ঘটে।[৬][৭][৮] সিসিলি আমিরাত এবং অন্যান্য ইতালীয় অঞ্চল থেকে মুসলিম মুররা বিতাড়িত ও দাসত্বে পরিনত হওয়ার ফলে[৯] রিকনকোয়েস্টার সময় ইসলামিক স্পেন ধীরে ধীরে খ্রিস্টান বাহিনী দখল করে নেয়। তা সত্ত্বেও প্রারম্ভিক আধুনিক যুগে ইসলামিক বারুদ যুগের রাষ্ট্রগুলি - উসমানীয় তুর্কি, সাফাভিয় ইরান এবং মোগল ভারত এর মতো মহান বিশ্ব শক্তি হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।

উনবিংশ ও বিংশ শতকের গোড়ার দিকে ইসলামী বিশ্বের বেশিরভাগ অংশ ইউরোপীয় "বৈশ্বিক শক্তি" এর প্রভাব বা প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। বিগত দুই শতাব্দীর পরিক্রমায় স্বাধীনতা অর্জন এবং আধুনিক রাষ্ট্র গঠনে তাদের প্রচেষ্টা আজ অবধি অব্যাহত রয়েছে, পাশাপাশি ফিলিস্তিন, কাশ্মীর, জিনজিয়াং, চেচনিয়া, মধ্য আফ্রিকা, বসনিয়া এবং মায়ানমারের মতো অঞ্চলে সংঘাতময়-অঞ্চল তৈরি হয়েছে। তেল বুম পারস্য উপসাগরের আরব রাষ্ট্রগুলিকে স্থিতিশীল করেছে, তাদেরকে বিশ্বের বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী এবং রফতানিকারক দেশে পরিনত করেছে, যা মুক্ত বাণিজ্যপর্যটনকে আকর্ষণ করে।[১০][১১]

সময়রেখা[সম্পাদনা]

নিম্নলিখিত সময়রেখাটিতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সময় পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ইসলামী বিশ্বের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ শাসনব্যবস্থা মোটামুটি ভাবে দেখানো যেতে পারে। এতে আরব, মেসোপটেমিয়া (বর্তমানে ইরাক), পারস্য (বর্তমানে ইরান), লেভান্ত (বর্তমানে সিরিয়া, লেবানন, জর্ডান এবং ইস্রায়েল/প্যালেস্টাইন), মিশর, মাগরেব (উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকা), আল আন্দালোস (আইবেরিয়া), ট্রান্সঅক্সানিয়া (মধ্য এশিয়া), হিন্দুস্তান (বর্তমানে পাকিস্তান, উত্তর ভারত এবং বাংলাদেশ সহ), এবং আনাতোলিয়া (বর্তমানে তুরস্ক) সহ পরাক্রমশালী ও সংস্কৃতির প্রধান ঐতিহাসিক কেন্দ্রস্থলগুলিকে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেহেতু কিছু অঞ্চলের শাসনক্ষমতা কখনো কখনো বিভিন্ন ক্ষমতাধরদের মধ্যে বিভক্ত হয়ে যায় এবং বৃহত্তর শাসনকর্তার কর্তৃত্ব প্রায়শই বিভিন্ন রাজবংশের কাছে বিতরণ করা হত ফলে অপরিহার্যভাবে এটির একটি সীমাবদ্ধতা রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ আব্বাসীয় খিলাফতের শেষ পর্যায়ে এমনকি রাজধানী বাগদাদও বুইয়ি ও সেলজুকদের মতো অন্যান্য বংশের দ্বারা কার্যকরভাবে শাসিত ছিল, যখন উসমানীয়রা সাধারণত বহিরাগত প্রদেশগুলিতে আলজিয়ার্স এর দাই, তিউনিসের বে এবং ইরাকের মামলুকদের মতো কার্যনির্বাহী কর্তৃত্ব স্থাপন করেছিল।

Sultanate of RumMughal EmpireDelhi SultanateGhaznavidsvariousMongolsvariousvariousKhedivateQajarsSafavidsMongolsOttomansMamluksAyyubidsFatimidsAbbasid CaliphateUmayyadsRashidun
তারিখগুলি আনুমানিক, বিস্তারিত বিবরণের জন্য বিশেষ নিবন্ধগুলি দেখুন।

প্রাথমিক উৎস এবং ইতিহাস লিখনধারা[সম্পাদনা]

ইসলামী ইতিহাসের প্রথম দিকে সূত্রের অভাবে অধ্যয়ন জটিল হয়ে পড়েছে।[১২] উদাহরণস্বরূপ ইসলামের উৎসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক সূত্র হল আল তাবারির রচনা।[১৩] তাঁর সময় ও স্থানের মানদণ্ড অনুযায়ী আল-তাবারিকে একজন দুর্দান্ত ঐতিহাসিক হিসাবে বিবেচনা করা হলেও তিনি পৌরাণিক, কিংবদন্তি, বাঁধাধরা, বিকৃত এবং প্রাসঙ্গিক বিষয়ের বিতর্কিত উপস্থাপনার উদার ব্যবহার করেছেন - যা ইসলামিকভাবে গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হয় - এবং ইসলামের সূচনা সম্পর্কে তাঁর বর্ণনা প্রকৃত তারিখের পরবর্তী তারিখ দেওয়া, কয়েক প্রজন্মের পরের আল-তাবারি ৯২৩ সালে মারা যান।[১৪][১৫]

উপলভ্য উৎসসমূহের ভিন্ন ভিন্ন মতামতের ফলে প্রারম্ভিক ইসলামের ইতিহাস চারটি ভিন্ন পদ্ধতির দিকে পরিচালিত হয়েছে। চারটি পদ্ধতিরই আজ কিছু স্তরের সমর্থন রয়েছে।[১৬][১৭]

  • বর্ণনামূলক পদ্ধতিটি ইসলামী ঐতিহ্যের রূপরেখা ব্যবহার করেছে, যেখানে সেই উৎসসমূহের মধ্যে অলৌকিক ঘটনা ও বিশ্বাস কেন্দ্রিক কাহিনীসমূহ বিন্যস্ত করা হয়েছে।[১৮] অ্যাডওয়ার্ড গিবন এবং গুস্তাভ ওয়েল হলেন বর্ণনামূলক পদ্ধতি অনুসরণকারী প্রথম কিছু ঐতিহাসিকদের প্রতিনিধিত্বকারী।
  • উৎস সমালোচনা পদ্ধতি, উৎসসমূহে কোন তথ্য দুর্বল এবং এর উৎসের মধ্যে বৈশিষ্ট্যমূলক উপাদানের যে পার্থক্য রয়েছে তা শনাক্ত করার জন্য সমস্ত উৎসের একটি তুলনা করা হয়।[১৯] উইলিয়াম মন্টগোমেরি ওয়াট এবং উইলফার্ড মাদেলুংয়ের কাজ উৎস সমালোচনা পদ্ধতির দুটি উদাহরণ।
  • ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতিতে উৎসসমূহ অস্পষ্ট এবং লোকমুখে প্রচলিত ইতিহাসের সাথে মৌখিক ঐতিহ্যের উপর ভিত্তি করে বিশ্বাস করা হয় এবং তাই খুব সতর্কতার সাথে ব্যবহার করা হয়।[২০] ইগনাজ গোল্ডজিহর ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতির প্রবর্তক ছিলেন এবং ইউরি রুবিন সমসাময়িক কালের উদাহরণ।
  • সংশয়মূলক পদ্ধতিটি বিকৃত এবং বানোয়াট উপাদানগুলি থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া খুব কঠিন, যে কোন সম্ভাব্য ঐতিহাসিক মূল সম্পর্কে প্রচলিত উৎসসমূহের প্রায় সমস্ত উপাদানকে সন্দেহ করে।[২১] সংশয়মূলক পদ্ধতির প্রাথমিক উদাহরণ হচ্ছে জন ওয়ান্সব্রুর কাজ।

বর্তমানে বিভিন্ন পদ্ধতির জনপ্রিয়তা বিবেচনাধীন কাজের সুযোগের ক্ষেত্রে পরিবর্তিত হয়। প্রাথমিক ইসলামের ইতিহাস সাধারণভাবে বর্ণনার জন্য বর্ণনামূলক পদ্ধতিটি বেশি জনপ্রিয়। যেসকল পন্ডিতগণ গভীরভাবে ইসলামের সূচনা প্রত্যক্ষ করেন তারা উৎস সমালোচনা এবং ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতিগুলি প্রায়শই অনুসরণ করেন।[১৬]

ইসলামিক উৎস[সম্পাদনা]

মুহাম্মদের নেতৃত্বে আরব ঐক্যবদ্ধ হয়

প্রাক্তন সভ্যতার প্রেক্ষাপটে ইসলামের উত্থান হয়েছিল।[২২] ষষ্ঠ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে আরবে রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছিল এবং যোগাযোগের পথগুলি আর নিরাপদ ছিল না।[২৩] ধর্মীয় বিভাগগুলি এই সঙ্কটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।[২৪] ইহুদি ধর্ম প্রায় ৩৮০ এর পর ইয়েমেনের হিমিয়ার রাজ্যের প্রভাবশালী ধর্মে পরিণত হয় এবং তখন খ্রিস্ট ধর্ম পারস্য উপসাগরে শিকড় গাড়ছিল।[২৪] আরও একটি "ধর্মের আধ্যাত্মিক রূপ" সম্পর্কে আকুল আকাঙ্ক্ষা ছিল এবং "ধর্মের পছন্দ ক্রমবর্ধমানভাবে একটি সম্মিলিত ইস্যুর পরিবর্তে স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে।"[২৪] কিছু লোক বিদেশী বিশ্বাসে রূপান্তরিত হতে অনিচ্ছুক হলেও এই বিশ্বাসগুলি "মূল বৌদ্ধিক ও আধ্যাত্মিক তথ্যসূত্র" সরবরাহ করেছিল এবং আরামীয় থেকে প্রাপ্ত ইহুদি ও খ্রিস্টান তৎভবশব্দসমূহ উপদ্বীপের সর্বত্র আরবি ভাষার পুরানো পৌত্তলিক শব্দভাণ্ডারকে প্রতিস্থাপন করতে শুরু করেছিল।[২৪] হানিফ বা "সন্ধানকারী" বহু-ঈশ্বরবাদকে প্রতিস্থাপনের জন্য একটি নতুন ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গির সন্ধান করেছিলেন এবং "আল্লাহ সর্বশক্তিমান ঈশ্বর যাকে তারা নির্দ্বিধায় ইহুদি প্রভু এবং খ্রিস্টান যিহোবার সাথে সমান গণ্য করেছিলেন।"[২৫] তাদের দৃষ্টিতে মক্কা মূলত ইব্রাহিম প্রতিষ্ঠিত এই সত্য ধর্মের প্রতি উত্সৃষ্ট ছিল।[২৫]

ইসলামী নবী মুহাম্মদ মক্কায় ৫৭০ সালে জন্মগ্রহণ করেন।[২৬] তিনি ছিল কুরাইশ পরিবারের ছিলেন, কুরাইশরা মক্কার প্রধান জাতি এবং পশ্চিম আরবের প্রভাবশালী শক্তি ছিল।[২৭] অরাজকতা মোকাবেলায় তারা "পবিত্র মাসসমূহ" প্রতিষ্ঠা করেছিল, সেই মাসসমূহে সকল সহিংসতা নিষিদ্ধ ছিল এবং ভ্রমণ নিরাপদ ছিল।[২৮] মক্কা ও আশেপাশের বহু ঈশ্বরবাদীদের কাবা ঘর ছিল জনপ্রিয় তীর্থস্থান যা শহরের জন্য উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক আয়ের উৎসে পরিণতি হয়েছিল।[২৮][২৯]

রাশিদুন খিলাফত[সম্পাদনা]

রাশিদুন খিলাফত

মুহাম্মদ (সা.) মারা যাওয়ার পরে চারজন খলিফা ইসলামী রাষ্ট্রটি পরিচালনা করেন: আবু বকর (৬৩২-৬৩৪), উমর ইবনুল খাত্তাব (প্রথম উমর, ৬৩৪-৬৪৪), উসমান ইবনে আফফান, (৬৪৪-৬৫৬) এবং আলী ইবনে আবী তালিব (৬৫৬–৬৬১)। এই নেতাগণ সুন্নি ইসলামে "রশিদুন" বা "সঠিকভাবে পরিচালিত" খলিফা হিসাবে পরিচিত। তাঁরা পারস্য, লেভ্যান্ট, মিশর এবং উত্তর আফ্রিকার মধ্য দিয়ে অগ্রসরমান মুসলিম বিজয়ের প্রথম পর্যায়ের তত্ত্বাবধান করেন।

Muawiyah IAli ibn Abi TalibUthman ibn AffanUmar ibn al-KhattabAbu BakrMuhammadRashidunUmayyad accessionFirst FitnaRashidun CampaignsRidda warsMuhammad after the conquest of MeccaMuhammad in Medina

প্রিয় নবি মুহাম্মাদ (সা.) এর মৃত্যুর পরে তার নিকটতম সহযোগী আবু বকরকে প্রথম খলিফা (আরবি: خَليفة খলিফাহ, উত্তরসূরি) নির্বাচিত করা হয়। যদিও খলিফার কার্যালয় ধর্মীয় কর্তৃত্বের আভা ধরে রেখেছে, তবুও এটি নবুয়ত এর কোন দাবি রাখে না।[৩০] বেশ কয়েকটি উপজাতির নেতা মুহাম্মদের সাথে করা চুক্তি আবু বকরের সাথে সম্প্রসারিত করতে অস্বীকৃতি জানায়, যাকাত আদায় বন্ধ করা এবং কিছু ক্ষেত্রে তারা নিজেরাই নবী বলে দাবি করে।[৩০] রিদ্দার যুদ্ধ নামে পরিচিত একটি সফল সামরিক অভিযানে আবু বকর তার কর্তৃত্বকে দৃঢ় করেন এবং অভিযানের প্রেরণা বাইজেন্টাইনসাসানীয় সাম্রাজ্যের ভূখণ্ডে বহন করে নিয়ে যায়।[৩১] দ্বিতীয় খলিফা উমর এর রাজত্বের শেষের দিকে আরব সেনাবাহিনী শক্তিশালী-যুদ্ধ সারি পরাজিত বিদ্রোহী[৩২] এবং প্রাক্তন সাম্রাজ্যীয় সহায়ক বাহিনী দ্বারা সজ্জিত হয়[৩৩] এবং সিরিয়া এবং মিশরের বাইজেন্টাইন প্রদেশগুলি জয় করে এবং সাসানীয়রা তাদের পশ্চিমা অঞ্চলগুলি হারিয়েছিল বাকিগুলি শীঘ্রই তা অনুসরণ করে।[৩০]


বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের পূর্ব অংশ আরবরা জয় করে

উমাইয়া খিলাফত[সম্পাদনা]

উমাইয়া খেলাফত

উমাইয়া ইবনে আবদ শামস এর নামানুসারে উমাইয়া রাজবংশের নামকরণ করা হয়, তিনি প্রথম উমাইয়া খলিফার পিতামহ ছিলেন। ৬৬১ থেকে ৭৫০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত উমাইয়াদের শাসনকাল বিস্তৃত ছিল। উমাইয়া পরিবার মক্কা শহর থেকে আসলেও তাদের রাজধানী ছিল দামেস্ক। ৬৬৬ সালে আবদুল-রহমান ইবনে আবু বকরের মৃত্যুর পর[৩৪][৩৫] প্রথম মুয়াবিয়া তার ক্ষমতা দৃঢ় করে। প্রথম মুয়াবিয়া তার রাজধানী মদিনা থেকে দামেস্কে স্থানান্তরিত করে যা সাম্রাজ্যের গভীর পরিবর্তন সাধনের কারণ হয়েছিল। একইভাবে পরবর্তীতে খিলাফত দামেস্ক থেকে বাগদাদে স্থানান্তর করার ফলে একটি নতুন পরিবার ক্ষমতায় আসার চিহ্ন প্রকাশ পায়।

উকবা মসজিদ (কাইরুয়ানের মহান মসজিদ), ৬৭০ সালে উমাইয়া জেনারেল উকবা ইবনে নাফি প্রতিষ্ঠা করেন, এটি মুসলিম বিশ্বের পশ্চিম অংশের প্রাচীনতম এবং মর্যাদাপূর্ণ মসজিদ; এর বর্তমান রূপটি ৯ম শতাব্দীর, এটি তিউনিসিয়ার কাইরুয়ানে অবস্থিত।
উমাইয়া সেনাবাহিনী ইবেরীয় উপদ্বীপ জয় করার পর ফ্রান্স আক্রমণ করেছিল

ইসলামি স্বর্ণযুগ[সম্পাদনা]

আব্বাসীয় খিলাফতের সময় ইসলামী বিশ্ব[সম্পাদনা]

আব্বাসীয় খিলাফত

পূর্ববর্তী খলিফাদের অর্জন একীভূত করে ৭৫০ সালে আব্বাসীয় রাজবংশ ক্ষমতায় ওঠে। প্রাথমিকভাবে তারা বেলিরিক সহ ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ এবং পরে ৮২৭ সালে দক্ষিণ ইতালি জয় করে।[৩৬] আব্বাসীয় বিপ্লবী আবু মুসলিম দ্বারা উসকিয়ে দেওয়া উমাইয়াদের প্রতি অসন্তোষের তরঙ্গে আব্বাসীয়রা ক্ষমতায় আসে।[৩৭][৩৮] আব্বাসীয়দের অধীনে ইসলামী সভ্যতা বিকাশ লাভ করেছিল। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিল আরবি সাহিত্য এবং কবিতার বিকাশ, যা কেমব্রিজ হিস্ট্রি অফ ইসলাম এর পরিভাষায় "স্বর্ণযুগ" হিসাবে আখ্যায়িত হয়েছে।[৩৯] আব্বাসীয় খলিফা আল মনসুর (শাসনকাল ৭৫৪–৭৭৫), হারুনুর রশিদ (শাসনকাল ৭৮৬–৮০৯), আল-মামুন (শাসনকাল ৮০৯-৮১৩) এবং তাদের অব্যবহিত উত্তরসূরীদের অধীনে বাণিজ্য ও শিল্প (মুসলিম কৃষি বিপ্লব হিসাবে বিবেচিত) এবং কলা ও বিজ্ঞান (মুসলিম বৈজ্ঞানিক বিপ্লব হিসাবে বিবেচিত) বিকশিত হয়।[৪০]

আব্বাসীয়রা পারস্যট্রান্সঅক্সানিয়ায় প্রাচ্য বিষয়গুলির উপরে গুরুত্বের কারণে রাজধানী দামেস্ক থেকে বাগদাদে স্থানান্তর করে।[৪০] এই সময়ে খিলাফতে আঞ্চলিক রাজবংশের উত্থানের ফলে ফাটল দেখা দেয়। যদিও বিদ্রোহী আব্বাসীয়রা উমাইয়া পরিবারের সকল লোকদের হত্যা করে তবে উমাইয়া পরিবারের এক সদস্য প্রথম আবদুর রহমান স্পেনে পালিয়ে গিয়ে ৭৫৬ সালে সেখানে একটি স্বাধীন খেলাফত প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মাগরেব-এ হারুনুর রশিদ আরব আগলাবিদেরকে কার্যত স্বশাসিত শাসক হিসাবে নিয়োগ করেছিলেন যদিও তারা কেন্দ্রীয় কর্তৃত্বকে স্বীকৃতি অব্যাহত রেখেছিল। আগলাবিদের শাসন স্বল্পকালীন ছিল, ৯০৯ সালে শিয়া ফাতিমীয় রাজবংশ আগলাবিদের ক্ষমতাচ্যুত করে। ৯৬০ সাল নাগাদ ফাতিমীয়রা আব্বাসীয় মিশরকে জয় করে এবং ৯৭৩ সালে "আল-কাহিরাহ" (যার অর্থ "বিজয়ের গ্রহ", এটি বর্তমানে কায়রো নামে পরিচিত) নামে রাজধানী তৈরি করে। পারস্যে তুর্কি গজনভিরা আব্বাসীয়দের কাছ থেকে ক্ষমতা ছিনিয়ে নেয়।[৪১][৪২] ১০৫৫ খ্রিস্টাব্দে মহান সেলযুক সাম্রাজ্য (একটি মুসলিম তুর্কি জাতি যারা মূল ভূখণ্ড পারস্যে অভিবাসী হয়েছিল) আব্বাসীয়দের প্রভাব গ্রাস করে।[৪০]

আব্বাসীয়দের সোনালী বাগদাদ[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক মধ্যযুগ

Al-AminHarun al-RashidAl-HadiAl-MahdiAl-MansurAs-Saffah
আব্বাসীয় যুগের দ্বিতীয়ার্ধের সময়ে রচিত একটি আরবি পাণ্ডুলিপি।

আঞ্চলিক শক্তির উত্থান[সম্পাদনা]

আব্বাসীয় খিলাফত খণ্ডিত হয়ে আঞ্চলিক শক্তিসমূহের উদ্ভব ঘটে

আব্বাসীয়রা শীঘ্রই কিবতি আরব, ইন্দো-পারস্য এবং অভিবাসী তুর্কীদের ত্রিপক্ষীয় বিরোধিতার কবলে পড়ে।[৪৩] তাছাড়া একটি বিশাল সাম্রাজ্য পরিচালনার ব্যয় অত্যন্ত ব্যয়বহুল হয়ে পড়ে।[৪৪] তুর্কি, মিশরীয় এবং আরবরা সুন্নী সম্প্রদায়ের মানুষ; পারস্যের জনগোষ্ঠী, তুর্কি গোষ্ঠীর একটি বড় অংশ এবং ভারতের বেশ কয়েকজন রাজা শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত। ইসলামের রাজনৈতিক ঐক্য ভেঙে পড়তে শুরু করে। আব্বাসীয় খলিফাদের প্রভাবে মুসলিম বিশ্বে স্বাধীন রাজবংশ আবির্ভূত হয়েছিল এবং খলিফারা এ জাতীয় রাজবংশকে বৈধভাবে মুসলিম হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। প্রথমটি ছিল খোরসানে তাহিরি রাজবংশ যা খলিফা আল-মামুনের রাজত্বকালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। অনুরূপ রাজবংশগুলির মধ্যে রয়েছে সাফারিয়, সামানিয়, গজনভি এবং সেলযুক। এই সময়ে জ্যোতির্বিজ্ঞান, কবিতা, দর্শন, বিজ্ঞান এবং গণিতের ক্ষেত্রে অগ্রগতি লাভ হয়।[৪৫]

উচ্চ আব্বাসীয় বাগদাদ[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক মধ্যযুগ

Ar-RadiAl-QahirAl-MuqtadirAl-MuktafiAl-Mu'tadidAl-Mu'tamidAl-MuhtadiAl-Mu'tazzAl-Musta'inAl-MuntasirAl-MutawakkilAl-WathiqAl-Mu'tasimAl-Ma'mun

আল-আমিনের মৃত্যুর পর আল-মামুন খলিফা হন। আল-মামুনের আমলে আব্বাসীয় সাম্রাজ্যের অঞ্চল বৃদ্ধি পায় এবং বিদ্রোহীদের মোকাবেলা করা হয়।[৪৬] হারুন আল-মুমুনকে খুরসানের গভর্নর নিযুক্ত করেছিলেন এবং ক্ষমতায় আসার পরে আল-মুমুন তার আনুগত্য নিশ্চিত করার জন্য ও সামরিক সমর্থন লাভের জন্য তাহিরকে গভর্নর নিযুক্ত করেন। তাহিরি রাজবংশের ক্রমবর্ধমান শক্তি হুমকিতে পরিণত হয়, কারণ আল-মামুনের নিজস্ব নীতি তাদের এবং অন্যান্য বিরোধীদের বিদ্রোহী করে তুলে।

সমরার গ্রেট মসজিদে মিনার


উচ্চ আব্বাসীয়



</br> ন্যায়শাস্ত্র
Four constructions of Islamite law
আব্বাসীয় খিলাফতের প্রারম্ভিক সময়ের



</br> সাহিত্য এবং বিজ্ঞান

মধ্যবর্তী আব্বাসীয় বাগদাদ[সম্পাদনা]

প্রাথমিক উচ্চ মধ্যযুগ

Al-MuqtadiAl-Qa'im (Abbasid caliph at Baghdadh)Al-QadirAt-Ta'iAl-MutiAl-MustakfiAl-Muttaqi
আল মুত্তাকির দিরহাম
মধ্য আব্বাসীয় কালের উল্লেখযোগ্য মুসলিমগণ
EasyTimeline 1.90


Timeline generation failed: 4 errors found
Line 2: ====শেষ আব্বাসীয় বাগদাদ ====

- Invalid statement. Multiple '=' found.


Line 3: ''শেষ উচ্চ মধ্যযুগ''

- Invalid attribute 'উচ্চ' ignored.

 Specify attributes as 'name:value' pair(s).



Line 3: ''শেষ উচ্চ মধ্যযুগ''

- Invalid attribute 'মধ্যযুগ''' ignored.

 Specify attributes as 'name:value' pair(s).



Line 3: ''শেষ উচ্চ মধ্যযুগ''

- Invalid statement. No '=' found.


কায়রোর আব্বাসীয় খলিফা[সম্পাদনা]

কায়রোর আব্বাসীয় "ছায়া" খলিফা
শেষ মধ্যযুগ

 

Ninth CrusadeEighth CrusadeAl-Mutawakkil IIIAl-Mu'tasim (Cairo)Al-Mustansir II of Cairo


ফাতিমীয় খিলাফত[সম্পাদনা]

ফাতিমীয় খিলাফত

ফাতিমীয় খলিফা[সম্পাদনা]

Tuman bay IIal-Ashraf Qansuh al-GhawriTuman bay IJanbalataz-Zahir Qansuhan-Ashraf Muhammadal-Ashraf Sayf-ad-Din Qait Bayaz-Zahir Timurbughaaz-Zahir Sayf-ad-Din Bilbayaz-Zahir Sayf-ad-Din Khushqadamal-Muayyad Shihab-ad-Din Ahmadal-Ashraf Sayf-ad-Din Inalal-Mansur Fakhr-ad-Din Uthmanaz-Zahir Sayf-ad-Din Jaqmaqal-Aziz Jamal-ad-Din YusufBarsbayas-Salih Nasir-ad-Din Muhammadaz-Zahir Sayf-ad-Din Tataral-Muzaffar Ahmadal-Muayyad Sayf-ad-Din TatarAl-Musta'in (Cairo)an-Nasir Nasir-ad-Din Farajal-Mansur Izz-ad-Din Abd-al-Azizan-Nasir Nasir-ad-Din Farajaz-Zahir Sayf ad-Din BarquqHajji IIaz-Zahir Sayf ad-Din Barquq
আরো দেখুন: কায়রোর আব্বাসীয় খলিফা (উপরে)

ক্রুসেড[সম্পাদনা]

হাত্তিনের যুদ্ধের পর সালাউদ্দিন এবং লুসিগানের গাই
ক্রুসেডের তালিকা
প্রাথমিক সময়কাল
· প্রথম ক্রুসেড ১০৯৫–১০৯৯
· দ্বিতীয় ক্রুসেড ১১৪৭–১১৪৯
· তৃতীয় ক্রুসেড ১১৮৭–১১৯২
নিম্ন সময়কাল
· চতুর্থ ক্রুসেড ১২০২–১২০৪
· পঞ্চম ক্রুসেড ১২১৭–১২২১
· ষষ্ঠ ক্রুসেড ১২২৮–১২২৯
শেষ সময়কাল
· সপ্তম ক্রুসেড ১২৪৮–১২৫৪
· অষ্টম ক্রুসেড ১২৭০
· নবম ক্রুসেড ১২৭১–১২৭২


আইয়ুবীয় রাজবংশ[সম্পাদনা]

আইয়ুবীয় সাম্রাজ্য


মিশরের সুলতানগণ[সম্পাদনা]

Seventh CrusadeSixth CrusadeFifth CrusadeFourth CrusadeThird CrusadeKingdom of JerusalemAl-Ashraf MusaAl-Muazzam TuranshahAs-Salih AyyubAl-Adil IIAl-KamilAl-AdilAl-Mansur MuhammadAl-Aziz UthmanSaladin

দামেস্কের সুলতান এবং আমিরগণ[সম্পাদনা]

Seventh CrusadeSixth CrusadeFifth CrusadeFourth CrusadeThird CrusadeKingdom of JerusalemAn-Nasir YusufAl-Muazzam TuranshahAs-Salih AyyubAl-Salih IsmailAs-Salih AyyubAl-Adil IIAl-KamilAs-Salih IsmailAl-AshrafAn-Nasir DawudAl-Mu'azzamAl-AdilAl-Afdal ibn Salah al-DinSaladin

আলেপ্পোর আমিরগণ[সম্পাদনা]

Seventh CrusadeSixth CrusadeFifth CrusadeFourth CrusadeThird CrusadeKingdom of JerusalemAn-Nasir YusufAl-Aziz MohammadAz-Zahir GhaziSaladin

মঙ্গোল সময়কাল[সম্পাদনা]

মঙ্গোল আক্রমণ[সম্পাদনা]

মঙ্গোল শাসক, গাজান কুরআন পাঠ করছেন।

ইসলামী মঙ্গোল সাম্রাজ্য[সম্পাদনা]

তৈমুরি রেনেসাঁ[সম্পাদনা]

সমরখন্দের রেগিস্তান এবং এর তিনটি মাদ্রাসা। বাম থেকে ডানে: উলুগ বেগ মাদ্রাসা, তিলইয়া-কুরি মাদ্রাসা ও শের-দুর মাদ্রাসা।
আমির তৈমুর উদ্ভাবিত তেমরলেন দাবা। দাবার টুকরোগুলি আনুমানিক চতুর্দশ শতাব্দীতে পারস্যে প্রচলিত ছিল।

মামলুক সালতানাত[সম্পাদনা]

মামলুক সাম্রাজ্য এবং মঙ্গোল ইলখানাতে

বাহরি সুলতানগণ[সম্পাদনা]

Ninth CrusadeEighth CrusadeHajji IIBarquqas-Salih Salah-ad-Din Hajji Ial-Mansur Ala'a-ad-Din Alial-Ashraf Zayn-ad-Din Abu al-Mali Shabanal-Mansur Salah-ad-Din Muhammadan-Nasir Nasir-ad-Din al-Hasanas-Salih Salah-ad-Din bin Muhammadan-Nasir Badr-ad-Din Abu al-Mali al-Hasanal-Muzaffar Sayf-ad-Din Hajji Ial-Kamil Saif ad-Din Shaban Ias-Salih Imad-ad-Din IsmailShihab ad-Din AhmadKujukSaif ad-Din Abu-Bakran-Nasir Nasir-ad-Din MuhammadBaibars IIan-Nasir Nasir-ad-Din MuhammadLajinal-Adil Kitbughaan-Nasir Nasir-ad-Din Muhammadal-Ashraf Salah-ad-Din KhalilQalawunSolamishAl-Said BarakahBaibarsal-Muzaffar Sayf ad-Din QutuzAl-Mansur Alial-Ashraf Muzafar ad-Din Musaal-Muizz Izz-ad-Din AybakShajar al-Durr

বুর্জি সুলতানগণ[সম্পাদনা]

Tuman bay IIal-Ashraf Qansuh al-GhawriTuman bay IJanbalataz-Zahir Qansuhan-Ashraf Muhammadal-Ashraf Sayf-ad-Din Qait Bayaz-Zahir Timurbughaaz-Zahir Sayf-ad-Din Bilbayaz-Zahir Sayf-ad-Din Khushqadamal-Muayyad Shihab-ad-Din Ahmadal-Ashraf Sayf-ad-Din Inalal-Mansur Fakhr-ad-Din Uthmanaz-Zahir Sayf-ad-Din Jaqmaqal-Aziz Jamal-ad-Din YusufBarsbayas-Salih Nasir-ad-Din Muhammadaz-Zahir Sayf-ad-Din Tataral-Muzaffar Ahmadal-Muayyad Sayf-ad-Din TatarAl-Musta'in (Cairo)an-Nasir Nasir-ad-Din Farajal-Mansur Izz-ad-Din Abd-al-Azizan-Nasir Nasir-ad-Din Farajaz-Zahir Sayf ad-Din BarquqHajji IIaz-Zahir Sayf ad-Din Barquq
আরো দেখুন: ইসলামিক মিশরের গভর্নর, মামলুক যুগ

আল-আন্দালুস[সম্পাদনা]

স্পেনের গ্রানাদার আলহাম্বরার অভ্যন্তর আরবি নকশায় সজ্জিত।


আল-আন্দালুসের আমিরগণ[সম্পাদনা]

Abd ar-Rahman IIIAbdallah ibn Muhammadal-Mundhir of CórdobaMuhammad I of CórdobaAbd ar-Rahman IIal-Hakam IHisham IAbd ar-Rahman I
মেজকুইটার বাইরের কারুকার্য্য

আল-আন্দালুসের খলিফাগণ[সম্পাদনা]

Hisham IIIMuhammad III of CórdobaAbd ar-Rahman VAbd ar-Rahman IVSulayman ibn al-HakamHisham IISulayman ibn al-HakamMohammed IIHisham IIAl-Hakam IIAbd ar-Rahman III

আলমোরাভি ইফ্রিকিয়া ও আইবেরিয়া[সম্পাদনা]

Ishaq ibn AliIbrahim ibn TashfinTashfin ibn AliAli ibn YusufYusuf ibn TashfinAbu-Bakr Ibn-UmarAbdallah ibn Yasin
     ইফ্রিকিয়া,      আইবেরিয়

আলমোহাদ খলিফা[সম্পাদনা]

Idris IIUmarAliAbd al-Wahid IIIdris IYahyaAbdallah al-AdilAbd al-Wahid IAbu Ya'qub Yusuf IIMuhammad an-NasirAbu Yusuf Ya'qub al-MansurAbu Ya'qub Yusuf IAbd al-Mu'minIbn Tumart

আফ্রিকায় ইসলাম[সম্পাদনা]

মাগরেব[সম্পাদনা]

The Great Mosque of Kairouan also known as the Mosque of Uqba was established in 670 by the Arab general and conqueror Uqba ibn Nafi, it is the oldest mosque in the Maghreb, situated in the city of Kairouan, Tunisia.


আফ্রিকার শিং[সম্পাদনা]

জেইলা (সায়লাক) এর ধ্বংসাবশেষ, সোমালিয়া।


গ্রেট হ্রদ[সম্পাদনা]

কিলওয়ার গ্রেট মসজিদ

পূর্ব এশিয়ায় ইসলাম[সম্পাদনা]

ভারতীয় উপমহাদেশে[সম্পাদনা]

কুতুব মিনার বিশ্বের উচ্চতম ইটদ্বারা নির্মিত মিনার, দাস রাজবংশের প্রতিষ্ঠাত কুতুবুদ্দিন আইবেক এটি নির্মান করেন; এটি দিল্লী সালতানাতের প্রথম রাজবংশ।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়[সম্পাদনা]

জাভায় প্রথম মুসলিম রাজ্য দেমাকের গ্র্যান্ড মসজিদ

চীন[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক আধুনিক কাল[সম্পাদনা]


উসমানীয় সাম্রাজ্য[সম্পাদনা]

উসমানীয় সাম্রাজ্য

সাফাভি সাম্রাজ্য[সম্পাদনা]

সাফাভি সাম্রাজ্য

মুঘল সাম্রাজ্য[সম্পাদনা]

মুঘল সাম্রাজ্য এর সর্বোচ্চ ব্যাপ্তি, মুহাম্মদ আওরঙ্গজেব আলমগীরের সময়ে।

আধুনিক সময়কাল[সম্পাদনা]

"কেন মুসলিম দেশগুলির তুলনায় অতীতে দুর্বল থাকা খ্রিস্টান দেশগুলি আধুনিক যুগে এতগুলি ভূখণ্ডে আধিপত্য বিস্তার করতে শুরু করে এবং এমনকি একসময় বিজয়ী অটোমান সেনাবাহিনীকেও পরাস্ত করে?"..."কারণ তাদের আইন-কানুন রয়েছে এবং প্রয়োজনসমূহ আবিষ্কার করেছে।"

ইব্রাহিম মুতেফেরিকা, রাষ্ট্রের রাজনীতির যুক্তিযুক্ত ভিত্তি (১৭৩১)[৪৭]

আধুনিক যুগ ইউরোপে প্রযুক্তিগত ও সাংগঠনিক পরিবর্তন এনেছে, যখন ইসলামিক অঞ্চলটি পূর্ব শতাব্দীর রীতি অব্যাহত রেখেছে। ইউরোপীয় বৃহৎ শক্তি অর্থনৈতিকভাবে বিশ্বায়িত হয়েছিল এবং বেশিরভাগ অঞ্চলে উপনিবেশ স্থাপন করেছিল।

উসমানীয় সাম্রাজ্য বিভাজন[সম্পাদনা]

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে উসমানীয় সেনাবাহিনী

আরব-ইসরায়েলি সংঘাত[সম্পাদনা]

অন্যান্য ইসলামিক বিষয়[সম্পাদনা]

আধুনিক ইসলামী বিশ্ব
আধুনিক বিশ্বে ইসলাম

১৯৭৯ সালে ইরানি বিপ্লবের পর একজন শিয়া ধর্মীয় নেতা ও মারজা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনীর শাসনামলে ইরান একটি সাংবিধানিক রাজতন্ত্র থেকে জনপ্রিয় ঈশ্বরতান্ত্রিক ইসলামি প্রজাতন্ত্রে রূপান্তরিত হয়। বিপ্লবের পরে একটি নতুন সংবিধান অনুমোদিত হয় এবং একটি গণভোটে সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়, রুহুল্লাহ খোমেনি সর্বোচ্চ নেতা হিসাবে নির্বাচিত হন। পরবর্তী দু'বছরে উদারপন্থী, বামপন্থী এবং ইসলামী গোষ্ঠী একে অপরের সাথে লড়াই করে এবং ইসলামপন্থীরা ক্ষমতা দখল করে।

দুটি বিপরীত প্রান্তের বিকাশ, শিয়া ইসলামের দ্বাদশবাদী শিয়া সংস্করণে ইরানের সাফাভিবাদের রূপান্তর এবং সৌদি আরবের ইরানি বিপ্লব ও সালাফির দ্বারা এর শক্তিবৃদ্ধি, ইরানের সাথে সৌদি আরবের সম্পর্কের ফলে এই সরকারগুলি তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ বাড়াতে সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ্বকে ব্যবহার করেছিল।[৪৮][৪৯] সৌদি আরব এবং কুয়েতের মতো উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলি (ইরাকের শত্রু হওয়া সত্ত্বেও) সাদ্দাম হুসেনকে ইরান আক্রমণ করতে উৎসাহিত করেছিল[৫০] যার ফলে ইরান-ইরাক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে, এর কারণ হলো তারা আশঙ্কা করেছিল যে তাদের নিজস্ব সীমানায় একটি ইসলামী বিপ্লব ঘটতে পারে। কিছু নির্বাসিত ইরানী সাদ্দামকে বোঝাতেও সহায়তা করেছিল যে তিনি আক্রমণ করলে নতুনভাবে বর্ধমান ইসলামী প্রজাতন্ত্রটি দ্রুত ভেঙে পড়বে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Watt, William Montgomery (২০০৩)। Islam and the Integration of Society। Psychology Press। পৃষ্ঠা 5আইএসবিএন 978-0-415-17587-6 
  2. Esposito, John (১৯৯৮)। Islam: The Straight Path (3rd ed.)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 9, 12। আইএসবিএন 978-0-19-511234-4 
  3. Peters, F.E. (২০০৩)। Islam: A Guide for Jews and Christians। Princeton University Press। পৃষ্ঠা 9আইএসবিএন 978-0-691-11553-5 
  4. "Key themes in these early recitations include the idea of the moral responsibility of man who was created by God and the idea of the judgment to take place on the day of resurrection. [...] Another major theme of Muhammad's early preaching, [... is that] there is a power greater than man's, and that the wise will acknowledge this power and cease their greed and suppression of the poor." F. Buhl & A.T. Welch, Encyclopaedia of Islam 2nd ed., "Muhammad", vol. 7, p. 363.
  5. "At first Muhammad met with no serious opposition [...] He was only gradually led to attack on principle the gods of Mecca. [...] Meccan merchants then discovered that a religious revolution might be dangerous to their fairs and their trade." F. Buhl & A.T. Welch, Encyclopaedia of Islam 2nd ed., "Muhammad", vol. 7, p. 364.
  6. Nanda, J. N (2005). Bengal: the unique state। Concept Publishing Company. p. 10.। ২০০৫। আইএসবিএন 978-81-8069-149-2Bengal [...] was rich in the production and export of grain, salt, fruit, liquors and wines, precious metals and ornaments besides the output of its handlooms in silk and cotton. Europe referred to Bengal as the richest country to trade with. 
  7. Lex Heerma van Voss; Els Hiemstra-Kuperus; Elise van Nederveen Meerkerk (২০১০)। "The Long Globalization and Textile Producers in India"The Ashgate Companion to the History of Textile Workers, 1650–2000। Ashgate Publishing। পৃষ্ঠা 255। আইএসবিএন 9780754664284 
  8. Imperato, Pascal James; Imperato, Gavin H. (২৫ এপ্রিল ২০০৮)। Historical Dictionary of Mali (ইংরেজি ভাষায়)। Scarecrow Press। পৃষ্ঠা 201। আইএসবিএন 9780810864023 
  9. Julie Taylor, Muslims in Medieval Italy: The Colony at Lucera, (Rowman & Littlefield Inc., 2003), 18.
  10. Sampler & Eigner (২০০৮)। Sand to Silicon: Going Global। UAE: Motivate। পৃষ্ঠা 15আইএসবিএন 9781860632549 
  11. "International – U.S. Energy Information Administration (EIA)"eia.gov 
  12. Donner 2010, পৃ. 628।
  13. Robinson 2010, পৃ. 6।
  14. Robinson 2010, পৃ. 2।
  15. Hughes 2013, পৃ. 56।
  16. Donner 2010, পৃ. 633।
  17. See also Hughes 2013, পৃ. 6 & 7, who links the practice of source and tradition (or form) criticism as one approach.
  18. Donner 2010, পৃ. 629, 633।
  19. Donner 2010, পৃ. 630।
  20. Donner 2010, পৃ. 631।
  21. Donner 2010, পৃ. 632।
  22. Robinson 2010, পৃ. 9।
  23. Christian Julien Robin (২০১২)। Arabia and Ethiopia. In The Oxford Handbook of Late Antiquity। OUP USA। পৃষ্ঠা 297–99। আইএসবিএন 9780195336931 
  24. Christian Julien Robin (২০১২)। Arabia and Ethiopia. In The Oxford Handbook of Late Antiquity। OUP USA। পৃষ্ঠা 302। আইএসবিএন 9780195336931 
  25. Rogerson 2010
  26. "The very first question a biographer has to ask, namely when the person was born, cannot be answered precisely for Muhammad. [...] Muhammad's biographers usually make him 40 or sometimes 43 years old at the time of his call to be a prophet, which [...] would put the year of his birth at about 570 A.D." F. Buhl & A.T. Welch, Encyclopaedia of Islam 2nd ed., "Muhammad", vol. 7, p. 361.
  27. Christian Julien Robin (২০১২)। Arabia and Ethiopia. In The Oxford Handbook of Late Antiquity। OUP USA। পৃষ্ঠা 287। আইএসবিএন 9780195336931 
  28. Christian Julien Robin (২০১২)। Arabia and Ethiopia. In The Oxford Handbook of Late Antiquity। OUP USA। পৃষ্ঠা 301। আইএসবিএন 9780195336931 
  29. Irving M. Zeitlin (১৯ মার্চ ২০০৭)। The Historical Muhammad। Polity। পৃষ্ঠা 49। আইএসবিএন 978-0-7456-3999-4 
  30. Albert Hourani (২০০২)। A History of the Arab Peoples। Harvard University Press। পৃষ্ঠা 22–23। আইএসবিএন 9780674010178 
  31. "The immediate outcome of the Muslim victories was turmoil. Medina's victories led allied tribes to attack the non-aligned to compensate for their own losses. The pressure drove tribes [...] across the imperial frontiers. The Bakr tribe, which had defeated a Persian detachment in 606, joined forces with the Muslims and led them on a raid in southern Iraq [...] A similar spilling over of tribal raiding occurred on the Syrian frontiers. Abu Bakr encouraged these movements [...] What began as inter-tribal skirmishing to consolidate a political confederation in Arabia ended as a full-scale war against the two empires."Lapidus (2002, p. 32)
  32. "In dealing with captured leaders Abu Bakr showed great clemency, and many became active supporters of the cause of Islam." W. Montgomery Watt, Encyclopaedia of Islam 2nd ed., "Abu Bakr", vol. 1, p. 110. "Umar's subsequent decision (reversing the exclusionary policy of Abu Bakr) to allow those tribes whichhad rebelled during the course of the Ridda wars and been subdued to participate in the expanding incursions into and attacks on the Fertile Crescent [...] incorporated the defeated Arabs into the polity as Muslims." Berkey (2003, p. 71)
  33. [N]on-Muslim sources allow us to perceive an additional advantage, namely, that Arabs had been serving in the armies of Byzantium and Persia long before Islam; they had acquired valuable training in the weaponry and military tactics of the empires and had become to some degree acculturated to their ways. In fact, these sources hint that we should view many in Muhammad’s west Arabian coalition, its settled members as well as its nomads, not so much as outsiders seeking to despoil the empires but as insiders trying to grab a share of the wealth of their imperial masters.Hoyland (2014, p. 227)
  34. The Succession to Muhammad: A Study of the Early Caliphate by Wilferd Madelung. p. 340.
  35. Encyclopaedic ethnography of Middle-East and Central Asia: A-I, Volume 1 edited by R. Khanam. p. 543
  36. J. Jomier. Islam: Encyclopaedia of Islam Online. accessdate=2007-05-02
  37. Lewis 1993, পৃ. 84
  38. Holt 1977a, পৃ. 105
  39. Holt 1977b, পৃ. 661–63
  40. "Abbasid Dynasty", The New Encyclopædia Britannica (2005)
  41. "Islam", The New Encyclopædia Britannica (2005)
  42. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; AHGC নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  43. Nasr 2003, পৃ. 121–22
  44. Lapidus 1988, পৃ. 129
  45. Thomas Spencer Baynes (১৮৭৮)। The Encyclopædia Britannica: a dictionary of arts, sciences, and general literature। A. and C. Black। পৃষ্ঠা 578–। 
  46. Hindu rebellions in Sindh were put down, and most of Afghanistan was absorbed with the surrender of the leader of Kabul. Mountainous regions of Iran were brought under a tighter grip of the central Abbasid government, as were areas of Turkestan. There were disturbances in Iraq during the first several years of Al-Ma'mun's reign. Egypt continued to be unquiet. Sindh was rebellious, but Ghassan ibn Abbad subdued it. An ongoing problem for Al-Ma'mun was the uprising headed by Babak Khorramdin. In 214 Babak routed a Caliphate army, killing its commander Muhammad ibn Humayd.
  47. "The 6 killer apps of prosperity"Ted.com। ১১ আগস্ট ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৭ 
  48. Heather S. Gregg; Hy S. Rothstein; John Arquilla (২০১০)। The Three Circles of War: Understanding the Dynamics of Conflict in Iraq। Potomac Books, Inc.। পৃষ্ঠা 66–। আইএসবিএন 978-1-59797-499-8 
  49. Said Amir Arjomand (২০০৯)। After Khomeini: Iran Under His Successors। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 195–। আইএসবিএন 978-0-19-974576-0 
  50. Farrokh, Kaveh. Iran at War: 1500–1988. Oxford: Osprey Publishing. আইএসবিএন ৯৭৮-১-৭৮০৯৬-২২১-৪.

উৎস[সম্পাদনা]

বই, নিবন্ধ এবং জার্নালসমূহ

  • al-Balādhurī, A. Y.; Hitti, P. K. (১৯১৬)। The origins of the Islamic state: Being a translation from the Arabic accompanied with annotations, geographic and historic notes of the Kitâbfutûḥ al-buldân of al-Imâm abu l'Abbâs Aḥmad ibn-Jâbir al-Balâdhuri। New York। 
  • Ankerl, Guy (২০০০)। Coexisting Contemporary Civilizations: Arabo-Muslim, Bharati, Chinese, and Western। INUPress। আইএসবিএন 978-2-88155-004-1 
  • Armstrong, Karen (২০০০)। Islam: A Short History। Modern Library। আইএসবিএন 978-0-679-64040-0 
  • Bentley, Jerry H.; Ziegler, Herbert F. (২০০৬)। Traditions and Encounters: A Global Perspective on the Past। New York: McGraw-Hill 
  • Berkey, Jonathan Porter (২০০৩)। The Formation of Islam: Religion and Society in the Near East, 600–1800বিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Cambridge University Press। 
  • Bloom; Blair (২০০০)। Islam:A Thousand Years of Faith and Power 
  • Bleeker, C.J. (১৯৬৮), Fasting in the Koran, BRILL Archive 
  • Donner, Fred M. (২০১০)। "Modern approaches to early Islamic history"। Robinson, Chase F.। The New Cambridge History of Islam। Volume 1: The Formation of the Islamic World, Sixth to Eleventh Centuries। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 625–47। আইএসবিএন 9780521838238 
  • Esposito, John (২০০০)। Oxford History of Islam। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-510799-9 
  • Hart, Michael (১৯৭৮)। The 100:Ranking of the most influential persons in historyবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। New York: Carol Publishing Group। আইএসবিএন 978-0-8065-1057-6 
  • Hazleton, Lesley (২০১৩), The First Muslim: The Story of Muhammad, Atlantic Books 
  • P. M. Holt, Bernard Lewis (১৯৭৭a)। Cambridge History of Islam, Vol. 1। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-0-521-29136-1 
  • P. M. Holt, Ann K. S. Lambton, Bernard Lewis (১৯৭৭b)। Cambridge History of Islam, Vol. 2। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-0-521-29137-8 
  • Albert Hourani, Malise Ruthven (২০০৩)। A History of the Arab Peoples। Belknap Press; Revised edition। আইএসবিএন 978-0-674-01017-8 
  • Hourani, Albert (২০০২)। A History of the Arab Peoples। Faber & Faber। আইএসবিএন 978-0-571-21591-1 
  • Hoyland, Robert G. (২০১৪)। In Gods Path: The Arab Conquests and the Creation of an Islamic Empire। Oxford University Press। 
  • Hughes, Aaron W. (২০১৩)। Muslim Identities : an Introduction to Islam। New York: Columbia University Press। আইএসবিএন 9780231161473 
  • Irving, W. (১৮৬৮)। Mahomet and his successors। New York: Putnam। 
  • Khaddūrī, Majīd (২০০২)। The Islamic Law of Nations: Shaybani's Siyar। JHU Press। পৃষ্ঠা 19–20। আইএসবিএন 9780801869754 
  • Koprulu, Mehmed Fuad; Leiser, Gary (১৯৯২)। The Origins of the। SUNY Press। আইএসবিএন 978-0-7914-0819-3 
  • Lapidus, Ira M. (২০০২)। A History of Islamic societies। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-0-521-77056-9 
  • Le, S. G. (১৯০০)। Baghdad during the Abbasid caliphate: From contemporary Arabic and Persian sources। Oxford: Clarendon Press। 
  • Lewis, B. (১৯৯৩)। The Arabs in Historyবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-285258-8 
  • Muir, Sir William (১৮৭৭)। The life of Mahomet: from original sources। Smith, Elder, & Co.। 
  • Nasr, Seyyed Hossein (২০০৩)। Islam:Religion, History and Civilization। New York: HarperCollins Publishers। আইএসবিএন 978-0-06-050714-5 
  • Rahman, F. (১৯৮২)। Islam & Modernity: Transformation of an Intellectual Tradition। University of Chicago Press। আইএসবিএন 978-0-226-70284-1 
  • Rahman, H. U. (১৯৯৯)। A Chronology of Islamic History। Ta-Ha। আইএসবিএন 9781897940815 
  • Robinson, Chase F. (২০১০)। "Introduction / The rise of Islam, 600 705"। Robinson, Chase F.। The New Cambridge History of Islam। Volume 1: The Formation of the Islamic World, Sixth to Eleventh Centuries। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 1–15, 173–225। আইএসবিএন 9780521838238 
  • Rogerson, Barnaby (২০১০), The Prophet Muhammad: A Biography, Hachette UK 
  • Rosenthal, Franz (১৯৬৮)। A history of Muslim historiography। Brill Archive। 
  • Sale, G.; Psalmanazar, G.; Bower, A.; Shelvocke, G.; Campbell, J.; Swinton, J. (৭৭৯)। A universal history: From the earliest accounts to the present time21। London: C. Bathurst। 
  • Sonn, Tamara (২০০৪)। A Brief History of Islamবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Blackwell Publishing Ltd। আইএসবিএন 978-1-4051-0900-0 
  • Williams, H. S., সম্পাদক (১৯০৪)। The historians' history of the world: Parthians, Sassanids, and Arabs. The crusades and the papacy। New York: The Outlook Company। 
  • Zaydān, J.; Margoliouth, D. S. (১৯০৭)। "Being the fourth part of Jurjí Zaydán's history of Islamic civilization."। Umayyads and ʻAbbásids। Leyden: E.J. Brill, imprimerie orientale। 
  • "Islam Aflame with Revolt"The World's work। New York: Doubleday, Page & Co। ১৯০০। 

এনসাইক্লোপিডিয়া

  • P. J. Bearman; Th. Bianquis; C. E. Bosworth; E. van Donzel; W. P. Heinrichs (সম্পাদকগণ)। Encyclopaedia of Islam Online। Brill Academic Publishers। আইএসএসএন 1573-3912 
  • P. J. Bearman; Th. Bianquis; C. E. Bosworth; E. van Donzel; W. P. Heinrichs (সম্পাদকগণ)। Encyclopaedia of Islam, New Edition (1954-2005)। Brill Academic Publishers। 
  • Berkshire Encyclopedia of World Historyবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন4। Berkshire Publishing Group। ২০০৫। আইএসবিএন 978-0-9743091-0-1 
  • The New Encyclopædia Britannica। Encyclopædia Britannica, Incorporated; Rev Ed edition। ২০০৫। আইএসবিএন 978-1-59339-236-9 
  • Baynes, T. S. (1888). The Encyclopædia Britannica: A dictionary of arts, sciences, and general literature. New York, N.Y: H.G. Allen. pp. 545–606 .
  • In Pace, E. A. (1922). The Catholic Encyclopedia: An International Work of Reference on the Constitution, Doctrine, Discipline and History of the Catholic Church. New York: Encyclopedia Press. "Mohammed and Mohammedanism.". pp. 424–28

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]