তিউনিসিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তিউনিসীয় প্রজাতন্ত্র
الجمهورية التونسية
আল্‌জুম্‌হুরিয়্যাত্তূনিসিয়্যা
পতাকা Coat of Arms
নীতিবাক্যHurriya, Nidham, 'Adala
"Liberty, Order, Justice"
" স্বাধীনতা, ধারা, সুবিচার "
জাতীয় সঙ্গীত: হুমাত আল-হিমা
রাজধানী
এবং বৃহত্তম নগরী
তিউনিস
৩৬°৫০′ উত্তর ১০°৯′ পূর্ব / ৩৬.৮৩৩° উত্তর ১০.১৫০° পূর্ব / 36.833; 10.150
রাষ্ট্রীয় ভাষাসমূহ আরবি
জাতীয়তাসূচক বিশেষণ তিউনিসিয়ান
সরকার প্রজাতন্ত্র
 •  রাষ্ট্রপতি Moncef Marzouki
 •  প্রধানমন্ত্রী Mehdi Jomaa
স্বাধীনতা
 •  ফ্রান্স থেকে মার্চ ২০ ১৯৫৬ 
 •  পানি (%) ৫.০
জনসংখ্যা
 •  জুলাই ২০০৯ আনুমানিক ১০,৪৩২,৫০০[১] (৭৮তম)
 •  ১৯৯৪ আদমশুমারি ৮,৭৮৫,৭১১
জিডিপি (পিপিপি) ২০০৯ আনুমানিক
 •  মোট $ ৮৬.৪০৩ বিলিয়ন[২] (৬০তম)
 •  মাথা পিছু $৮,২৮৪.৮২ (৭৩তম)
গিনি (২০০০) ৩৯.৮
ত্রুটি: অকার্যকর গিনির মান
এইচডিআই (২০০৭) বৃদ্ধি ০.৭৬৯[৩]
ত্রুটি: অকার্যকর এইচডিআই মান · ৯১তম
মুদ্রা দিনার (TND)
সময় অঞ্চল CET (ইউটিসি+১)
 •  গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি) CEST (ইউটিসি+২)
কলিং কোড ২১৬
ইন্টারনেট টিএলডি .tn

তিউনিসিয়া (আরবি: تونس তূনিস্‌), সরকারী নাম তিউনিসীয় প্রজাতন্ত্র (الجمهرية التونسية আল্‌জুম্‌হুরিয়্যাত্তূনিসিয়্যা) আফ্রিকার উত্তর উপকূলে ভূমধ্যসাগরের তীরে অবস্থিত রাষ্ট্র। দেশটির মধ্য দিয়ে অ্যাটলাস পর্বতমালা চলে গেছে এবং দেশটিকে উত্তরের উর্বর সমভূমি ও দক্ষিণের শুষ্ক, উষ্ণ মরুময় অঞ্চলে ভাগ করেছে। ধারণা করা হয় যে, তিউনিস নামটি বার্বার জাতির ভাষা থেকে এসেছে, যার অর্থ "শৈলান্তরীপ" অথবা "রাত কাটাবার স্থান"। দেশটির পূর্ব উপকূলে অবস্থিত তিউনিস দেশের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। আয়তনের দিক থেকে তিউনিসিয়া অন্যান্য উত্তর আফ্রিকান রাষ্ট্রগুলির তুলনায় খর্বাকৃতির। তিউনিসিয়া আফ্রিকার উত্তরতম দেশ। এর উত্তরে ও পূর্বে রয়েছে ভূমধ্যসাগর। এর পশ্চিমে আলজেরিয়া এবং দক্ষিণ-পূর্বে লিবিয়া। উত্তর আফ্রিকার অধিকাংশ এলাকা জুড়ে অবস্থিত সাহারা মরুভূমি দক্ষিণ তিউনিসিয়া থেকে শুরু হয়েছে। দেশটির ৪৫% জায়গা সাহারা মরুভূমিতে পড়েছে। সামরিক কৌশলগত অবস্থানের কারণে উত্তর আফ্রিকা নিয়ন্ত্রণে অভিলাষী বহু সভ্যতার সাথে তিউনিসিয়ার সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে। এদের মধ্যে আছে ফিনিসীয় জাতি, কার্থেজীয় জাতি, রোমান জাতি, আরব জাতি এবং উসমানীয় তুর্কি জাতি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৮১ সাল থেকে তিউনিসিয়া ফ্রান্সের একটি উপনিবেশ ছিল। ১৯৫৬ সালে এটি স্বাধীনতা লাভ করে। আধুনিক তিউনিসিয়ার স্থপতি হাবিব বুর্গিবা দেশটিকে স্বাধীনতায় নেতৃত্ব দেন এবং ৩০ বছর ধরে দেশটির রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পর তিউনিসিয়া উত্তর আফ্রিকার সবচেয়ে স্থিতিশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়। ইসলাম এখানকার রাষ্ট্রধর্ম; প্রায় সব তিউনিসীয় নাগরিক মুসলিম। কিন্তু সরকার ইসলামী মৌলবাদীদের রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত হওয়ার ক্ষেত্রে বাধার সৃষ্টি করেছে।

বর্তমানে তিউনিসিয়া পর্যটকদের একটি জনপ্রিয় গন্তব্যস্থল। এর রৌদ্দ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া, নয়নাভিরাম বেলাভূমি, বিচিত্র ভূ-প্রাকৃতিক দৃশ্যাবলী, সাহারার মরূদ্যান, এবং সুরক্ষিত প্রাচীন রোমান প্রত্নস্থলগুলি বিখ্যাত।

রাজনীতি[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[সম্পাদনা]

ভূগোল[সম্পাদনা]

তিউনিসিয়া উত্তর আফ্রিকা, আটলান্টিক মহাসাগরের নীল নদের বদ্বীপ এবং ভূমধ্য উপকূলের মধ্যে অবস্থিত।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

এখানকার উত্তর অংশের জলবায়ু নাতিশীতোষ্ণ। শীতকালে হালকা বৃষ্টি এবং গরমকাল শুষ্ক। দেশটির দক্ষিণে মরুভূমি।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "National Statistics Online"। National Statistics Institute of Tunisia। জুলাই ২০০৯। সংগৃহীত ৭ জানুয়ারি ২০০৯  |dateformat= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য) (আরবি)
  2. "Tunisia"। International Monetary Fund। সংগৃহীত ২০০৯-১০-০১ 
  3. "Human Development Report 2009. Human development index trends: Table G"। The United Nations। সংগৃহীত ২০০৯-১০-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]