অঞ্চল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

অঞ্চল একটি ভৌগোলিক প্রতিশব্দ যা বিভিন্ন অর্থে ভূগোলের বিভিন্ন শাখায় ব্যবহৃত হয়। সাধারণভাবে, অঞ্চল হলো একটি মাঝারি আয়তনের স্থল বা জলভাগ বোঝায়, যা প্রতিপাদিত এলাকার সমুদয় অংশ হতে ক্ষুদ্রতর (উদাহরন সরূপ যা হতে পুরো পৃথিবী, একটি রাষ্ট্র, একটি নদীর মোহনা এবং অণ্যান্য) এবং কোন নির্দিষ্ট এলাকা হতে বৃহত্তর। একটি অঞ্চলকে অনেকগুলো ক্ষুদ্র এককের সমষ্টি হিসাবে (যেমন "নিউ ইংল্যান্ড রাজ্য") অথবা বৃহৎ এলাকার একটি অংশ (যেমন "যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইংল্যান্ড অঞ্চল") হিসাবেও বিবেচনা করা যায়।

অঞ্চল : ইংরেজি "region" শব্দটি ল্যাটিন regio (regere, to rule) থেকে উদ্ভুত, যার বাংলা প্রতিশব্দ অঞ্চল। অনেক দেশ এ শব্দটি রাষ্ট্রের উপবিভাগগুলোর প্রথাগত সত্তা হিসেবে গ্রহণ করেছে। ইংরেজিতে এ শব্দটি অন্যান্য ভাষায় রীতিসম্মত অনুবাদের সমার্থক শব্দ হিসেবেই ব্যবহৃত হয়। অনেক দেশ অঞ্চল শব্দটি প্রশাসনিক একক হিসেবে ব্যবহার করে।

অঞ্চল হচ্ছে একটি বৃহৎ ভূভাগ যা অন্যান্য এলাকা থেকে ভিন্নতর, যেমন- এটি নিজের রীতিনীতি ও বৈশিষ্ট্য, অথবা এর নির্দিষ্ট ভৌগোলিক অবয়বের কারণে দেশের অন্যান্য অঞ্চল থেকে ভিন্নতর। ব্রিটিশ ভূগোলবিদদের ধারণা অনুযায়ী, একটি বৃহৎ, অনির্দিষ্ট এবং ভূপৃষ্ঠের অবিরত অংশ বা পরিসর হচ্ছে অঞ্চল। অঞ্চল হচ্ছে এমন একটি এলাকা যাকে ভৌগোলিক, কার্মিক, সামাজিক অথবা সাংস্কৃতিক কারণে একটি একক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এটি হতে পারে দেশের একটি প্রশাসনিক এলাকা। অঞ্চল হতে পারে কর্মকাণ্ড বা আগ্রহের একটি এলাকা বা পরিমণ্ডল। অপরদিকে আমেরিকার ভূগোলবিদদের ধারণা অনুযায়ী, একটি বৃহৎ এবং পৃথিবী পৃষ্ঠের অনির্দিষ্ট অংশ হচ্ছে অঞ্চল। অঞ্চল হচ্ছে পৃথিবীর এমন একটি বিভাগ যা নির্দিষ্ট ধরনের উদ্ভিদ বা প্রাণির দ্বারা বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। অঞ্চল হচ্ছে একটি এলাকা, স্থান, পরিসর। অঞ্চল হতে পারে পৃথিবী বা মহাবিশ্বের একটি নির্দিষ্ট অংশ।

অক্সফোর্ড ডিক্সেনারি অনুযায়ী, অঞ্চল হচ্ছে এমন একটি এলাকা, বিশেষ করে একটি দেশের বা পৃথিবীর অংশবিশেষ যার রয়েছে শনাক্তযোগ্য বৈশিষ্ট্য, কিন্তু সবসময় নির্দিষ্ট সীমানা না-ও থাকতে পারে।

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

অঞ্চল বলতে প্রাকৃতিক, মানবীয় বৈশিষ্ট্যাবলি এবং মানুষ-পরিবেশ মিথষ্ক্রিয়া দ্বারা বিভক্ত ব্যাপক বিস্তৃত এলাকাকে বোঝায়। ভৌগোলিক অঞ্চল ও উপ-অঞ্চলগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রে অযথার্থভাবে নির্ধারিত এবং কখনো কখনো স্বল্পকালস্থায়ী সীমানা দ্বারা বর্ণনা করা হয়। অবশ্য, মানবীয় ভূগোলে জাতীয় সীমানার মতো অধিকারভুক্ত এলাকা আইনের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে।

বৈশ্বিক মহাদেশীয় অঞ্চলগুলো ছাড়াও রারিমণ্ডল যা মহাসাগরগুলো আবৃত করে ও বায়ুমণ্ডলীয় অঞ্চল রয়েছে, যা গ্রহমণ্ডলের স্থল ও জলভাগের উপরে পৃথক জলবায়ু অঞ্চলের সৃষ্টি করে। স্থল ও জলভাগের বৈশ্বিক অঞ্চলগুলো বিভিন্ন উপঅঞ্চলে বিভক্ত। এ উপ-অঞ্চলগুলো ভৌগোলিকভাবে ব্যাপক ভূতাত্তি¡ক অবয়ব দ্বারা সীমাবদ্ধ, যা ব্যাপকভবে বাস্তুতন্ত্রের ওপর প্রভাব বিস্তার করে থাকে।  

পারিসরিক এলাকা বর্ণনার ক্ষেত্রে অঞ্চলের ধারণা গুরুত্বপূর্ণ এবং ভূগোলের বিভিন্ন শাখায় এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় এবং প্রতিটি শাখায় এলাকাকে অঞ্চল হিসেবে বর্ণনা করা যেতে পারে। যেমন, পরিবেশ ভূগোলে ব্যবহৃত বাস্তুঅঞ্চল, সাংস্কৃতিক ভূগোলে সাংস্কৃতিক অঞ্চল, জীবভূগোলে জীবঅঞ্চল ইত্যাদি। ভূগোলের যে ক্ষেত্র নিজেই অঞ্চলকে সমীক্ষা করে, তাকে আঞ্চলিক ভূগোল বলা হয়।

প্রাকৃতিক ভূগোল, বাস্তুবিদ্যা, জীবভূগোল, প্রাণিভূগোল এবং পরিবশ ভূগোলের ক্ষেত্রে অঞ্চলগুলো প্রাকৃতিক অবয়ব, যেমন- বাস্তুতন্ত্র, বায়োম, নিষ্কাশন অববাহিকা, প্রাকৃতিক অঞ্চল, পর্বতমালা, মৃত্তিকার ধরন ইত্যাদির ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠে। অপরদিকে, মানবয়ী ভূগোলে অঞ্চল ও উপঅঞ্চলগুলো মানবজাতির বিবরণসম্পর্কিত (ethnography) জ্ঞানের সাথে সম্পর্কিত করে বর্ণনা করা হয় ।

একটি অঞ্চলের নিজস্ব প্রকৃতি রয়েছে, যা স্থানান্তর করা যায় না। এর প্রথম প্রকৃতিটি হচ্ছে এর প্রাকৃতিক পরিবেশ (ভূগঠন, জলবায়ু, মৃত্তিকা স্তর ইত্যাদি)। এর দ্বিতীয় প্রকৃতিটি হচ্ছে ভৌত উপাদানগুলোর যৌগ, যা অতীতে মানুষ নির্মাণ করেছিলো। তৃতীয় প্রকৃতি হচ্ছে এর সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রসঙ্গ, যা নবাগতদের দ্বারা পুনঃস্থাপন করা সম্ভব নয়।

অঞ্চলের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে প্রখ্যাত ভূগোলবিদ ‍পিটার হ্যাগেট (Peter. Haggett: 1975) বলেন, “অঞ্চল হচ্ছে ভূপৃষ্ঠের এমন একটি এলাকা যার প্রাকৃতিক কিংবা মানব সৃষ্ট বৈশিষ্ট্য চারপাশের অন্যান্য এলাকা থেকে ভিন্ন।” এ প্রসঙ্গে ডেভিট গ্রিগ (David B. Grigg: 1934)-বলেন, “অঞ্চল হলো এমন একটি এলাকা যা অন্য একটি এলাকা থেকে বৈশিষ্ট্যের দিক থেকে স্বতন্ত্র। এ স্বাতন্ত্রতা একক বা একাধিক বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।” এছাড়া, ইভা জিআর.টেইলর (Eva G.R. Taylor: 1879-1966)-এর মতে, “সমরূপ বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন সামান্য বিস্তৃত ভূপৃষ্ঠের একটি একক এলাকাকে অঞ্চল বলা হয়। অঞ্চলগুলো প্রকৃতিগতভাবে একই ধরনের এবং এগুলোর মধ্যে সামাজিক ঐক্য রয়েছে।” রিবার্ট এস. প্লেট (Ribert S. Platt: 1891-1964)-বলেন, “অঞ্চল হচ্ছে এমন একটি ভৌগোলিক এলাকা, যার নির্ধারিত ভূখণ্ড রয়েছে এবং সে এলাকার অধিবাসীদের বিশেষ বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী অঞ্চলটি গড়ে ওঠেছে।” [১]

প্রাকৃতিক অঞ্চল[সম্পাদনা]

প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চল (Natural resource regions) : প্রাকৃতিক সম্পদ প্রায়শ সহজে চিহ্নিতকরণযোগ্য অঞ্চলে উৎপত্তি হয়ে থাকে। প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চল প্রাকৃতিক ভূগোল বা পারিবেশিক ভূগোলের বিষয়বস্তু হতে পারে, কিন্তু এতে মানবীয় ভূগোল ও অর্থনৈতিক ভূগোলেরও জোড়ালো উপাদান রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, একটি কয়লা অঞ্চল হচ্ছে একটি প্রাকৃতিক বা ভূরূপতাত্তি¡ক অঞ্চল, কিন্তু এর উন্নয়ন এবং উত্তোলন একে একটি অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অঞ্চলে পরিণত করতে পারে।

ঐতিহাসিক অঞ্চল[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক অঞ্চল (Historical regions) :  ঐতিহাসিক ভূগোলের ক্ষেত্রটিতে কোনো স্থান বা অঞ্চলের সাথে মানুষের ইতিহাস জড়িত থাকায়, অথবা সময়ের সাথে সাথে স্থান ও অঞ্চলগুলো কীভাবে পরিবর্তীত হয় তা সমীক্ষা করার জন্য এটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ঐতিহাসিক ভূগোলবিদ ডি.ডব্লিউ. মেইনিং (D. W. Meinig) তার `The Shaping of America: A Geographical Perspective on 500 Years of History' নামক পুস্তকে অনেকগুলো ঐতিহাসিক অঞ্চলের বর্ণান দিয়েছেন। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আমেরিকার প্রাথমিক উপনিবেশ স্থাপনের জন্য যেসব ইউরোপীয়রা প্রচেষ্টা করেছিলো, তাদের উৎস অঞ্চল শনাক্তকরণ করতে যেয়ে তিনি উত্তর-পশ্চিম ইউরোপের আটলান্টিক উপকূলের প্রটেস্টাইন ধর্মালম্বি অধ্যুষিত অঞ্চলকে চিহ্নিত এবং সেগুলোর বর্ণনা করেছেন। এ অঞ্চলগুলোর মধ্যে কতকগুলো উপাঞ্চল রয়েছে, যেমন- ‘ওয়েস্টার্ন চ্যানেল কমিউনিটি’ যার রয়েছে আরও কতিপয় উপ-উপাঞ্চল, যেমন- কর্নওয়েল, ডেভন, সমরসেট, ডরসেট প্রভৃতি।

আমেরিকার ঐতিহাসিক অঞ্চল বর্ণনা করতে যেয়ে মেইনিং নিউফাউন্ডল্যান্ড ও নিউ ইংল্যান্ড উপকূলের গ্রান্ড ব্যাঙ্কসহ মহাসাগরীয় অঞ্চলে ব্যাপক মৎস্যচারণের কথা বর্ণনা করেছেন। তিনি আমেরিকার ইতিহাস বর্ণনার ক্ষেত্রে প্রচলিত অঞ্চল, যেমন- ‘নিউ ফ্রান্স’, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ’, ‘মিডল কলোনিস’ ইত্যাদি বর্জন করেন। এর পরিবর্তে তিনি লেখেন “পৃথক উপনিবেশ এলাকা”, সম্ভবত এগুলোর নামকরণ কলোনি স্থাপনের পরে করা হয়েছিলো। এসব অঞ্চল অনেক ক্ষেত্রে রাজনৈতিক সীমানার সাথে যুক্ত ছিলো না। মেইনিং তার লেখায় “গ্রেটার নিউ ইংল্যান্ড” এবং এর প্রধান উপাঞ্চল “প্লেমাউথ”, “নিউ হ্যাভেন উপকূল” (লং আইল্যান্ডের অংশসহ), “রোড আইল্যান্ড”, “ম্যাসাচোসেট বে”, “কানেকটিকাট উপত্যকা” ইত্যাদি ঐতিহাসিক অঞ্চল সম্পর্কিত বর্ণনা তুলে ধরেছেন।

পর্যটন অঞ্চল[সম্পাদনা]

পর্যটন অঞ্চল (Tourism region) : পর্যটন অঞ্চল এক ধরনের ভৌগোলিক অঞ্চল। অঞ্চলগুলো সচরাচর সরকারী সংস্থা বা পর্যটন ব্যুরো কর্তৃক সাধারণ সাংস্কৃতিক বা পারিবেশিক বৈশিষ্ট্যসম্বলিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করে থাকে। এ অঞ্চলগুলো প্রায়শ ভৌগোলিক, ভূতপূর্ব বা বর্তমান প্রশাসনিক অঞ্চল, বা পর্যটনের জন্য আকর্ষণীয় হয় এমনভাবে নামকরণ করা হয়ে থাকে। কখনো কখনো এলাকার গুণগত মানবৃদ্ধির জন্য স্মৃতি জাগানিয়া এবং দর্শনার্থীদের পর্যটনের অভিজ্ঞতা লাভে আগ্রহী করে তুলে এরূপ নাম রাখা হয়। দেশ, রাজ্য, প্রদেশ এবং অন্যান্য প্রশাসনিক অঞ্চল প্রায়শ পর্যটকদের আকর্ষণীয় সুবিধা দিয়ে পর্যটন অঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভের জন্য ব্যাপক প্রয়াস চালিয়ে থাকে।

প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চল[সম্পাদনা]

প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চল (Natural resource regions) : প্রাকৃতিক সম্পদ প্রায়শ সহজে চিহ্নিতকরণযোগ্য অঞ্চলে উৎপত্তি হয়ে থাকে। প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চল প্রাকৃতিক ভূগোল বা পারিবেশিক ভূগোলের বিষয়বস্তু হতে পারে, কিন্তু এতে মানবীয় ভূগোল ও অর্থনৈতিক ভূগোলেরও জোড়ালো উপাদান রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, একটি কয়লা অঞ্চল হচ্ছে একটি প্রাকৃতিক বা ভূরূপতাত্তি¡ক অঞ্চল, কিন্তু এর উন্নয়ন এবং উত্তোলন একে একটি অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অঞ্চলে পরিণত করতে পারে। বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সম্পদ অঞ্চলের উদাহরণ হচ্ছে তিতাস গ্যাস ক্ষেত্র, বড় পুকুরিয়া কয়লা ক্ষেত্র ইত্যাদি।

ধর্মীয় অঞ্চল[সম্পাদনা]

ধর্মীয় অঞ্চল (Religious regions) : কখনো কখনো একটি অঞ্চল একটি ধর্মের নামের সাথে সম্পর্কযুক্ত হতে পারে, যেমন- খ্রিস্টানজগৎ, শব্দটি মধ্যযুগ ও রেনেসাঁর সাথে সম্পর্কিত খ্রিষ্টবাদ, যা ছিলো খানিকটা সামাজিক ও রাজনৈতিক রাষ্ট্রব্যবস্থা। আবার মুসলিম বিশ্ব শব্দটি কখনো কখনো বিশ্বের মুসলিম প্রধান অঞ্চলগুলো বোঝানোর জন্য ব্যবহার করা হয়। এ ধরনের ব্যাপকার্থক শব্দ অঞ্চল বোঝানোর ক্ষেত্রে খুবই দ্ব্যর্থবোধক হয়ে থাকে।

কতিপয় ধর্মের মধ্যে পরিষ্কারভাবে অঞ্চল সংজ্ঞায়িত করা আছে। রোমান ক্যাথলিক চার্চ, চার্চ অব ইংল্যান্ড, ইস্টার্ন অর্থোডক্স চার্চ এবং এ ধরনের অন্যান্য গির্জাগুলোর নামের মধ্যেই যাজক সম্পর্কীয় অঞ্চল নির্ধারণ করা থাকে, যেমন- বিশপের এলাকা (diocese), ইপারচি (eparchy), যাজকীয় প্রদেশ (ecclesiastical provinces) এবং প্যারিস (parish) ইত্যাদি।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র ৩২টি রোমান যাজকীয় প্রদেশে বিভক্ত। লুথারিয়ান চার্চ মিসৌরি যাজকসভা ৩৩টি ভৌগোলিক জেলায় বিভক্ত, যেগুলো আবার অনেকগুলো আঞ্চলিক সংঘে উপবিভক্ত।

রাজনৈতিক অঞ্চল[সম্পাদনা]

মানুষ মাত্রই কোন না কোন রূপ রাজনৈতিক এলাকা বা অঞ্চলে বাস করে।রাজনৈতিক পরিচিতি বা অস্তিত্ব রয়েছে ভূপৃষ্ঠের এমন অংশবিশেষকে রাজনৈতিক অঞ্চল বলে।
রাজনৈতিক অঞ্চলের বৈশিষ্টসমূহঃ ১.অবস্থান, ২.অভিগম্যতা, ৩.আয়তন, ৪.আকৃতি, ৫.সীমানা

রাজনৈতিক অঞ্চল (Political regions) : রাজনৈতিক ভূগোলের ক্ষেত্রে অঞ্চলগুলো রাজনৈতিক এককের ভিত্তিতে গড়ে ওঠে, যেমন- সার্বভৌম রাষ্ট্র, রাষ্ট্রের ক্ষুদ্র এককসমূহ, যেমন- প্রশাসনিক অঞ্চল, প্রদেশসমূহ, অঙ্গরাজ্যসমূহ, জেলা, উপজেলা, শহর, পৌরসভা ইত্যাদি এবং নির্দিষ্ট অঞ্চল নিয়ে গঠিত বহুজাতিক গ্রুপ যেমন- ইউরোপীয় ইউনিয়ন, দক্ষিণ এশিয় জাতিসমূহের সংঘ, ন্যাটো, অনির্ধারিত অঞ্চল, যেমন- তৃতীয় বিশ্ব, পশ্চিম ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য ইত্যাদি।

ভৌগোলিক অঞ্চল[সম্পাদনা]

সামরিক ব্যবহার[সম্পাদনা]

সামরিক ক্ষেত্রে অঞ্চল হলো আর্মি গ্রুপ হতে বৃহৎ এবং আর্মি থিয়েটার হতে ক্ষুদ্রতর সামরিক ফরমেশনের সংক্ষেপ। এই ফরমেশনের পূর্ণ নাম হলো সামরিক অঞ্চল। একটি সামরিক অঞ্চল সাধারণত দুই থেকে পাঁচটি আর্মি গ্রুপ নিয়ে গঠিত। সামরিক অঞ্চলের আয়তন বিভিন্ন হতে পারে, তবে সাধারণত ১ থেকে ৩ মিলিয়ন সৈন্যের সমন্নয়ে এটি গঠিত হয়। দুই বা ততোধিক সামরিক অঞ্চল দ্বারা একটি সামরিক থিয়েটার গঠিত হতে পারে। একটি সামরিক অঞ্চলের অধিনায়কত্ব করেন প্রধানত একজন পূর্ণাঙ্গ জেনারেল (ইউএস- চার তারা), একজন ফিল্ড মার্শাল বা জেনারেল অফ দ্য আর্মি (ইউএস- পাঁচ তারা), জেনারেলিসিমো (সোভিয়েত ইউনিয়ন) বা জেনারেল অফ দ্য আর্মিস (ইউএস-ছয় তারা) বা ছয় তারা জেনারেলের সমমর্যাদার একজন জেনারেল অফিসার (যেসকল রাষ্ট্রে এই মর্যাদার জেনারেল আছেন তাদের ক্ষেত্রে)। এই ফরমেশনের বিশাল আয়তনের জন্য এর ব্যবহার দূর্লভ। সামরিক অঞ্চলের কিছু উদাহরণ হলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কালিন ইউরোপের পূর্ব. পশ্চিম ও দক্ষিণ (প্রধানত ইতালি) রনাঙ্গণ। এই ফরমেশনের (দেখুন সামরিক সংগঠনএপিপি-৬এ)সামরিক মানচিত্র প্রতীক হলো ছয়টি "X"।

অঞ্চলের শ্রেণিবিভাগ Classification of Region[সম্পাদনা]

আমাদের পৃথিবীকে ভালোভাবে বোঝার বা জানার প্রয়োজনে অঞ্চল তৈরি করা হয়। কথিত অঞ্চলের বিদ্যমান পরিবেশ ও সংস্কৃতির মধ্যে আমাদের জীবন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বিদ্যমান সীমারেখা সাহায্য করে থাকে।

একটি অঞ্চলকে অপর একটি অঞ্চল থেকে কতিপয় নির্দেষ্ট ও স্বাতন্ত্রসূচক বৈশিষ্ট্য দ্বারা পৃথকভাবে শনাক্ত করা হয়। একটি অঞ্চলের সীমানা কতিপয় নির্বাচিত প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট বৈশিষ্ট্যের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতির ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করা হয়। অঞ্চলগুলো আকার-আকৃতিতে পৃথক এবং সেগুলো স্থানীয় বা বিশ্বব্যাপী হতে পারে; পরস্পরকে আবৃত করতে পারে, বা পৃথক থাকতে পারে; সমগ্র পৃথিবীকে ভাগ করতে পারে, অথবা এর মধ্যে নির্বাচিত অংশে আলোকপাত করতে পারে।

অঞ্চলকে প্রধান তিনটি শ্রেণিতে ভাগ করা যায়, যথা- প্রথাগত (formal), কার্মিক (functional) ও উপলব্ধিগত বা উপভাষা (perceptual/vernacular)।

প্রথাগত বা নিয়মানুগ বা আনুষ্ঠানিক অঞ্চল[সম্পাদনা]

ভৌগোলিক দিক থেকে প্রথাগত বা নিয়মানুগ অঞ্চল হচ্ছে এমন একটি ভৌগোলিক এলাকা যার প্রাতিষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃত নির্দিষ্ট সীমানা রয়েছে। যেমন, শহর, জেলা, অঙ্গরাজ্য ও দেশের জন্য সীমানা দ্বারা প্রথাগত অঞ্চল গঠিত হয়। এ অঞ্চলগুলোকে প্রায়শ সাধারণ জ্ঞান হিসেবে গণ্য করা হয় এবং এগুলোর সীমানা স্থানীয় বা জাতীয় সরকার দ্বারা নির্ধারিত হয়। একটি অঞ্চলের রূপ দানের জন্য বিভিন্ন মানদণ্ড ব্যবহার করা হয়।  প্রাতিষ্ঠানিক অস্তিত্বের কতিপয় মানদণ্ড, যেমন- রাজনৈতিক অধিভুক্তি, জাতীয়তা, সংস্কৃতি, সাধারণ ভাষা, ধর্ম, ভৌগোলিক অবয়ব ইত্যাদি অঞ্চল সৃজনে ব্যবহার করা যেতে পারে।

প্রথাগত বা নিয়মানুগ অঞ্চলের সংজ্ঞায় এমন এলাকার কথা বলা হয়েছে যা সরকারীভাবে নির্ধারিত। একটি প্রথাগত অঞ্চলে একটি শহর, জেলা, রাজ্য বা যেকোনো ধরনের ভৌগোলিক এলাকা অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এ ধরনের অঞ্চল পরিষ্কারভাবে সীমানা দ্বারা নির্ধারিত এবং জনসাধারণের বোধগম্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

নিম্নোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্য থেকে এক বা একাধিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে প্রথাগত অঞ্চল গঠিত হয় :

১. সর্বজনীন ভাষা,

২. ধর্ম

৩. জাতীয়তা

৪. রাজনৈুতিক অধিভুক্তি

৫. সংস্কৃতি ও

৬. ভৌগোলিক অবয়ব (জলবায়ু, উদ্ভিজ্জ, উচ্চতা, ভূপ্রকৃতি ইত্যাদি)।

এক বা একাধিক সনাক্তকরণযোগ্য অবয়ব ব্যবহার করে একটি অঞ্চলকে অন্য অঞ্চল থেকে পৃথক করা যায় এবং প্রাতিষ্ঠানিক পরিচয় ব্যবহার করে সৃষ্ট অঞ্চলগুলোর সীমানা তৈরি করা যায়। কোনো ভৌগোলিক অঞ্চল নির্ধারণের সময় যখন প্রাসঙ্গিক বৈশিষ্ট্য হিসেবে জনগণের আয় বা ভাষা উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয়, তখন অঞ্চলটির প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যও গুরুত্বপূর্ণ চলক হিসেবে বিবেচনা করতে হয়। নদনদী, পর্বতমালা, উপত্যকা এবং হ্রদগুলোর মতো প্রাকৃতিক সীমানা প্রায়শ কোনো ভৌগোলিক অঞ্চলের সীমানা নির্দেশ করে থাকে।

প্রথাগত অঞ্চল বৈশিষ্ট্যসূচকভাবে এক বা একাধিক নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য দ্বারা নির্ধারিত হয়, যেগুলো একে চারপাশের এলাকা থেকে পৃথক করে থাকে। স্থানীয় মানুষের সাথে সম্পর্কিত বৈশিষ্ট্য ভাষা, আয়, ধর্ম ছাড়াও প্রথাগত অঞ্চল ভ‚প্রকৃতি, জলবায়ু, উদ্ভিজ্জ প্রভৃতি বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠতে পারে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, সমুদ্র দ্বারা বেষ্টিত থাকার কারণে দ্বীপগুলোর রয়েছে প্রাকৃতিক সীমারেখা।

প্রথাগত অঞ্চল প্রকৃতির দিক থেকে গতিশীল হতে পারে, বলা যেতে পারে এগুলো রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত, বিশ্বায়ন, বা বাস্তুতন্ত্রের প্রাকৃতিক স্থানান্তরের কারণে পরিবর্তনের ভিতর দিয়ে যেতে পারে।

মানদণ্ড নির্বাচনের ওপর একটি প্রথাগত বা আনুষ্ঠানিক অঞ্চল নির্ধারণ সহজ বা কঠিন হতে পারে। যখন একটি ভৌগোলিক অঞ্চল ভূভাগের স্থির অবয়বের বদলে অধিক পরিবর্তনশীল মানবীয় উপাদানের (যেমন- ভাষা) ওপর নির্ভর করে, সেখানে অঞ্চল নির্ধারণ কঠিন হতে পারে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, একটি অঞ্চলের প্রতিবেশীদের মধ্যে ৫০% ইংরেজিতে কথা বলে, এ জনসংখ্যা সারা বছরই একই ধরনের না-ও থাকতে পারে, বরং সময়ে সময়ে পরিবর্তিত হয়ে কম-বেশি হতে পারে। তবু, নীতিগতভাবে, প্রতিটি প্রথাগত অঞ্চল কতিপয় গণনাযোগ্য চলকের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হয়।

প্রথাগত বা নিয়মানুগ অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য Ch[সম্পাদনা]

১. প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য (Physical Characteristics) : যেকোনো প্রথাগত অঞ্চলকে প্রাথমিকভাবে প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে চিহ্নিত করা হয়। যেমন- সুন্দরবন, ভ‚মধ্যসাগরীয় অঞ্চল।

২. সমরূপতা (Uniformity) :  কোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে প্রথাগত অঞ্চলের সর্বত্র একই ধরনের বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়। যেমন- কোনো অঞ্চলে জলবায়ু বা ভূপ্রকৃতি সমরূপভাবে বজায় থাকে।

৩. অবিচ্ছিন্নতা (Continuous land mass) : প্রথাগত অঞ্চল প্রাকৃতিক বা মানব সৃষ্ট বৃহৎ কোনো প্রতিবন্ধক দ্বারা ব্যবিচ্ছন্ন হয় না। অর্থাৎ, এটি একটি একক এলাকা যাতে ভূপ্রাকৃতিক সমতা বজায় থাকে।

৪. সদৃশ্যতা (Homogeneous) : সমসত্ব আঞ্চলিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে গড়ে ওঠে বলে একে সদৃশ্য বৈশিষ্ট্যের অঞ্চল বলা হয়।

৫. অর্থনৈতিক বৈশিষ্ট্য (Economic Characteristics) : সাম্প্রতিককালে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের ভিত্তিতে প্রথাগত অঞ্চল নির্ণয় করার প্রবণতা লক্ষ্যণীয়। অর্থনৈতিক প্রথাগত অঞ্চল চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে আয় স্তর, বেকারত্বের হার, জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ইত্যাদি পরামিতিগুলো ব্যবহৃত হয়।

৬. সামাজিক বৈশিষ্ট্য (Social Characteristics) : স্বাভাবিকভাবে বিভিন্ন সামাজিক গোষ্ঠীর সমন্বয়ে গড়ে উঠা অঞ্চলগুলোকে প্রথাগত অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। যেমন- একটি উপজাতীয় এলাকা।

৭. রাজনৈতিক বৈশিষ্ট্য (Political Characteristics) : রাজনৈতিক কারণে বিশেষ কোনো অঞ্চল মূল ভূখণ্ডের বাইরে বিচ্ছিন্ন হিসেবে অবস্থান করতে পারে। এসব অঞ্চলের অধিবাসীদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বৈশিষ্ট্যসহ রাজনৈতিক মতাদর্শ সমরূপ হয়ে থাকে। যেমন- সমাজতান্ত্রিক দেশগুলো।

কার্মিক বা প্রায়োগিক বা ক্রিয়ামূলক অঞ্চল Functional regions[সম্পাদনা]

কার্মিক অঞ্চল হচ্ছে এমন একটি অঞ্চল যা অন্যান্য এলাকা থেকে নির্দিষ্ট মানদণ্ড অনুসারে ভিন্নতর। অন্য কথায়, এটি এমন একটি এলাকা যা প্রাকৃতিক, সাংস্কৃতিক দিক থেকে সমসত্ববিশিষ্ট, যেমন- ক্রান্তীয় অঞ্চল, মেরু অঞ্চল, মেরু অঞ্চল ইত্যাদি। এখানে জলবায়ুকে মানদণ্ড ধরে দুটি এলাকা পৃথকভাবে শনাক্ত করা যায়। কার্মিক অঞ্চল প্রায়শ নুড বা গ্রন্থি নামে পরিচিত একটি কেন্দ্রীয় বিন্দুর চারদিকে গড়ে ওঠে। উদাহরণ হিসেবে একটি সপিং সেন্টার চারদিকে প্রতিবেশিদের দ্বারা ঘেরাও থাকে, অথবা উপশহরগুলো একটি শহরকে চারদিক থেকে ঘেরাও করে থাকে। কার্মিক অঞ্চলের ধারণা মানুষের মধ্যে পারস্পরিক নির্ভরশীলতার যে সংযোগ ও প্রবাহ সৃষ্টি হয়, সেগুলো পরীক্ষানিরীক্ষার পথ প্রদর্শন করে থাকে।

ফোবার্গ, মর্ফি এবং দ্য ব্লিজের মতে, ‘একটি নির্দিষ্ট সেট কর্মকাণ্ডের দ্বারা অথবা, এগুলোর মধ্যে উদ্ভুত মিশস্ক্রিয়া দ্বারা কার্মিক অঞ্চল নির্দিষ্ট করে দেখানো যায়।' সুতরাং, নিম্নোক্তগুলোকে কার্মিক অঞ্চল বিবেচনা করা যায় :

১. বৃষ্টিবহুল অরণ্য, যেখানে বৃক্ষ, পাখি ও স্তন্যপায়ী স¤প্রদায় বহু শতাব্দিব্যাপী অবিরতভাবে বসবাস করছে।

২.একটি কৃষিজীবী সম্প্রদায়কে কৃষিভিত্তিক জীবনযাপন এবং সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার দ্বারা নির্দিষ্ট করা যায়।

৩. একটি কর্পোরেট প্রধান কার্যালয়, যেখানে একটি সংগঠিত জনসংখ্যা উৎপাদন বা সেবার সাধারণ লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করে।

একটি কার্মিক বা প্রায়োগিক অঞ্চল একটি কেন্দ্রস্থল বা কেন্দ্রবিন্দুর চারদিক ঘিরে গড়ে ওঠে। চারপাশের এলাকা নির্ভর করে কেন্দ্রস্থলের রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক বন্ধন, যেমন- বাণিজ্য পথ, রেডিও, টেলিভিশন নেটওয়ার্ক, ইনটানেট সংযোগ ও পরিবহনব্যবস্থার উন্নয়নের ওপর। একটি কার্মিক অঞ্চলের শ্রেণিভুক্ত হওয়ার জন্য সমগ্র এলাকায় অবশ্যই একটি সাধারণ বৈশিষ্ট্যপূর্ণ কর্মকাণ্ড প্রচলিত থাকতে হবে। এসব কর্মকাণ্ড সর্বাধিক সংঘটিত হবে অঞ্চলটির কেন্দ্রবিন্দুতে এবং এবং কেন্দ্র থেকে দূরবর্তী অঞ্চলে পর্যায়ক্রমে কর্মকাণ্ডের প্রগাঢ়তা কমে আসতে থাকবে। কার্মিক অঞ্চলের কেন্দ্রবিন্দু থেকে অবিরত ধারা এর চারপাশের অঞ্চলে প্রবাহিত হয়। এরূপ অবস্থায় নির্দিষ্ট কর্মকাণ্ড সংশ্লিষ্ট সমগ্র এলাকাটিই একটি ইউনিটের মতো আচরণ করবে।

কার্মিক অঞ্চলের সীমানা এলাকাটির অবকাঠামো এবং সেবার উন্নয়নের ওপর ভিত্তি করে সময় সময়ে পরিবর্তিত হয়। ভূগোলে পৃথিবীকে বিভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়। এসব অঞ্চলের রয়েছে কৃত্রিম সীমানা, যা সীমানার বাইরের অপেক্ষা ভিতরের অধিক প্রাধান্যবিশিষ্ট গুণাবলিকে পৃথক করার জন্য ব্যবহার করা হয়।   তিন ধরনের অঞ্চল রয়েছে, যথা- প্রথাগত বা নিয়মানুগ, কার্মিক বা প্রায়োগিক এবং ভ্যানাকিউলার বা উপলব্ধিগত। প্রথাগত অঞ্চলগুলোর অফিসিয়াল সীমানা রয়েছে, যেমন- দেশের, রাজ্যের, শহরের সীমানা। উপলব্ধিগত অঞ্চল বলতে বোঝায় কোনো নির্দিষ্ট অঞ্চলের সাংস্কৃতিক উপস্থাপন এবং যা মানুষের মতামতের ওপর প্রতিষ্ঠিত।[২]

কার্মিক অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য Characteristics of Functional Region[সম্পাদনা]

১. আন্তঃনির্ভরশীলতা (Inter-dependence) : কার্মিক অঞ্চলসমূহের পরস্পরের আন্তঃনির্ভরশীলতা একান্ত প্রয়োজন। অর্থাৎ, কার্মিক অঞ্চল আন্তঃনির্ভরশীল কর্মকাণ্ডের সমন্বয়ে গঠিত হয়। আবার বিভিন্ন কার্মিক অঞ্চলের মধ্যে আন্তঃনির্ভরশীলতা দেখা যায়।

২. কার্মিক সুসঙ্গতি (Functional Coherence) : কার্মিক অঞ্চলে যেসব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয়, তাদের মধ্যে এক ধরনের সামঞ্জস্য বজায় থাকে। অর্থাৎ কোনো কর্মকাণ্ড অপর কর্মকাণ্ডের জন্য ক্ষতিকর নয়, বরং সহায়ক। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এসব কর্মকাণ্ড একে অপরের পরিপূরক।

৩. ক্রমোচ্চতা সম্পর্ক (Hierarchial relationship) : পারস্পরিক সম্পর্কের ভিত্তিতে কার্মিক অঞ্চলগুলো সাম্প্রতিক হয় বলে এদের মধ্যে একটি শ্রেণিক্রম (hierarchy) লক্ষ্য করা যায়। অর্থাৎ  ক্রম এর আকারের ভিত্তিতে ক্রিয়ামূলক অঞ্চলগুলো ছোট থেকে বড় একটি পর্যায় ক্রমিকধারা সৃষ্টি করে।

৪. আন্তঃসম্পর্ক (Inter-relation) : আন্তঃসম্পর্কযুক্ত (মিথষ্ক্রিয়া) কর্মকাণ্ডের সমন্বয়ে একটি কার্মিক অঞ্চল গড়ে ওঠে। অর্র্থাৎ কার্মিক অঞ্চলের সীমানা মূলত পরস্পর সম্পর্কযুক্ত কর্মকাণ্ডের এলাকা নিয়ে গঠিত হয়। আবার বিভিন্ন কার্মিক অঞ্চলের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক দেখা যায়। অন্যদিকে দেখা যায়, একটি অঞ্চলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটলে পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে গ্রন্থি সৃষ্টি হয় এবং ক্রমান্বয়ে সম্প্রসারিত হয়।

৫. অসমরূপতা (Heterogeneous) : কার্মিক অঞ্চলের মধ্যে সমস্ত স্থানের অর্থনৈতিক বৈশিষ্ট্যে বৈচিত্র্য দেখা যায়। অর্থাৎ এ অঞ্চলে অসংখ্য ভিন্ন প্রকৃতির কর্মকাণ্ড বিভিন্ন স্থানে পরিচালিত হয়। এটা যেমন কর্মকাণ্ডের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য তেমনি অধিবাসীদের আয়ের সমতা, জীবনযাত্রার মান ইত্যাদির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

৬. গ্রন্থিবহুল (Nodal) : ক্রিয়ামূলক অঞ্চলের মধ্যে বিভিন্ন বিন্দু বা গ্রন্থি গড়ে ওঠতে পারে।

উপলব্ধিগত/উপভাষা অঞ্চল (Perceptual/vernacular regions) : উপলব্ধিগত অঞ্চলকে কখনো কখনো উপভাষা অঞ্চলও বলা হয়। যদিও অনেক ভ‚গোলবিদ এ শব্দগুলোকে পরস্পরের পরিবর্তে ব্যবহার করেন না, বরং ভিন্ন ভিন্ন ধারণা নির্দেশের জন্য এগুলোকে ব্যবহার করে থাকেন। যেখানে একটি উপভাষা অঞ্চল কোনো এলাকার লোকজনের মধ্যে বিভিন্ন পদ্ধতিতে যোগাযোগের ওপর নির্ভর করে, সেখানে উপলব্ধিগত অঞ্চল প্রায়শ একটি নির্দিষ্ট এলাকার লোকদের নিশ্চিত বিশ্বাস/অনুভ‚তি/মনোভাবের ওপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে।

উপভাষা/উপলব্ধিগত অঞ্চল মনোভাব, উপলব্ধি এবং যোগাযোগের পদ্ধতির ওপর নির্ভরশীল, একারণে তারা প্রাকৃতিক ভৌগোলিক অবয়বভিত্তিক অঞ্চলের সাথে এর পরিবর্তন করতে অধিক পছন্দ করে থাকেন। ঢাকা উত্তরাঞ্চল, ঢাকা দক্ষিণাঞ্চল, পূর্ব ইউরোপ, পশ্চিম ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য, দূরপ্রাচ্য ইত্যাদি উপলব্ধিগত অঞ্চলের উদাহরণ।

তথ্যসূত্র :

  1. দত্ত, কুন্তলা লাহড়ী (২০০২)। ভূগোল চিন্তার বিকাশ। কলকাতা, ভারত: ওয়ার্ল্ড প্রেস। 
  2. তাহা, আবু (২০০০)। পৃথিবীর আঞ্চলিক ধরন। রাজশাহী, বাংলাদেশে: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পাঠ্যপুস্তক অনুবাদ ও প্রকাশনা বোর্ড।