রিবা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

রিবা (আভিধানিক অর্থ বৃদ্ধি, আধিক্য, পরিবর্ধন, বেশি, স্ফীত, বিকাশ ইত্যাদি), যা উশুরি হিসেবেও পরিচিত, তা হল একটি আরবি শব্দ যা ইসলামী পরিভাষায় সুদকে বোঝায়। ইসলামী শরীয়ায় লেনদেনের ক্ষেত্রে চুক্তির শর্তানুযায়ী শরীয়াহ সম্মত কোনরুপ বিনিময় ব্যতীত মূলধনের উপর অতিরিক্ত যা কিছু গ্রহণ করা হয় তাকে সুদ বলে।

তাফসীরবিদ ইবনে-জরীর-মুজাহিদ থেকে বর্ণনা করেন, জাহেলিয়াত আমলে প্রচলিত ও কোরআনে নিষিদ্ধ 'রিবা' হলো কাউকে নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য ঋণ দিয়ে মূলধনের অতিরিক্ত নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ গ্রহণ করা। আরবরা তাই করতো এবং নির্দিষ্ট মেয়াদে ঋণ পরিশোধ করতে না পারলে সুদ বাড়িয়ে দেবার শর্তে মেয়াদ বাড়িয়ে দেয়া হতো [১]

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

(তাকাফুল বেসিক এক্সাম প্রিপারেশন অফ ইসলামিক ব্যাংকিং অ্যান্ড ফিন্যান্স ইন্সটিটিউট মালয়েশিয়া ও আনান হাসান দুই প্রকার রিবার বর্ণনা দেন যার প্রতীতির আবার আলাদা শ্রেণিবিভাগ রয়েছে।[২][৩] (এর রিবা নাসিয়াহর সংজ্ঞা অন্যান্যদের সংজ্ঞা থেকে আলাদা।):

রিবার ধরনসমূহ
রিবার ধরনসমূহ বিবরণ শ্রেণিবিভাগ বিবরণ
রিবা দুয়ুন অর্থের মূল পরিমাণের উপরে ও বাইরে অন্যায্য উপরি গ্রহণ
যে কোন প্রকার ঋণ কিংবা নগদ
রিবা কার্জ ঋণের প্রধান অঙ্কের উপর বৃদ্ধি করা (সুদ নেওয়া), যা চুক্তিভিত্তিক বোঝাপড়া করা হয়।
রিবা জাহিলিয়াহ ঋণগ্রহীতার বিলম্ব পরিশোধের অথবা ঋণ পরিশোধের ব্যর্থতার উপর অতিরিক্ত মূল্য আরোপ করা।
রিবা বুয়ু বাণিজ্য ও বিনিময় চুক্তিতে সঙ্ঘটিত হয়,
যাতে কিছু নির্দিষ্ট শ্রেণীর পণ্যের
(স্বর্ণ, রূপা, খেজুর, ইত্যাদি)
ক্ষেত্রে একই জিনিসের ও একই প্রকারের মালামালের অসম বিনিময় ঘটে।
রিবা ফজল অসম পরিমাণ বা মূল্য
রিবা নাসিয়াহ পণ্য সরবরাহের সময় বর্ধিত হবার দরুন[২]

রিবার উপর মৌলিক তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

কুরআন ও নিষেধাজ্ঞা[সম্পাদনা]

কুরআনে মত ২০টি আয়াত রয়েছে যাতে রিবার উল্লেখ রয়েছে।[৪] ,যদিও এর সবগুলো আয়াতে শব্দগতভাবে এর সরাসরি উল্লেখ নেই। শব্দটি সরাসরি আটবার কুরআনে উল্লেখিত হয়েছে, — তিনবার সূরা বাকারা(২):২৭৫ আয়াতে , এবং একবার করে বাকারা(২):২৭৬, বাকারা(২):২৭৮, আলে-ইমরান(৩):১৩০, সূরা নিসা(৪):১৬১ ও সূরা আর-রুম(৩০):৩৯ নং আয়াতে।[৫]

সূরা রুমের একটি মাক্কী আয়াতে সর্বপ্রথম বিষয়টি আবির্ভূত হয়:

মানুষের ধন-সম্পদে তোমাদের ধন-সম্পদ বৃদ্ধি পাবে, এই আশায় তোমরা সুদে যা কিছু দাও, আল্লাহর কাছে তা বৃদ্ধি পায় না। পক্ষান্তরে, আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় পবিত্র অন্তরে যারা দিয়ে থাকে, অতএব, তারাই দ্বিগুণ লাভ করে। (কুরআন 30:39)[৬]

অন্যান্য মাদানী আয়াতগুলো হল:

বস্তুতঃ ইহুদীদের জন্য আমি হারাম করে দিয়েছি বহু পূত-পবিত্র বস্তু যা তাদের জন্য হালাল ছিল-তাদের পাপের কারণে এবং আল্লাহর পথে অধিক পরিমাণে বাধা দানের দরুন। আর এ কারণে যে, তারা সুদ গ্রহণ করত, অথচ এ ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল এবং এ কারণে যে, তারা অপরের সম্পদ ভোগ করতো অন্যায় ভাবে। বস্তুত; আমি কাফেরদের জন্য তৈরী করে রেখেছি বেদনাদায়ক আযাব। কিন্তু যারা তাদের মধ্যে জ্ঞানপক্ক ও ঈমানদার, তারা তাও মান্য করে যা আপনার উপর অবতীর্ণ হয়েছে এবং যা অবতীর্ণ হয়েছে আপনার পূর্বে। আর যারা নামাযে অনুবর্তিতা পালনকারী, যারা যাকাত দানকারী এবং যারা আল্লাহ ও কেয়ামতে আস্থাশীল। বস্তুতঃ এমন লোকদেরকে আমি দান করবো মহাপুণ্য। (সূরা নিসা কুরআন 4:160-162)[৭]

হে ঈমানদারগণ! তোমরা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ খেয়ো না। আর আল্লাহকে ভয় করতে থাক, যাতে তোমরা কল্যাণ অর্জন করতে পারো। (সূরা আলে-ইমরান কুরআন 3:130)[৮][Note ১]

পরবর্তী পর্যায়ে সূরা বাকারায় বিস্তারিত আয়াত অবতীর্ণ হয়:

যারা সুদ খায়, তারা কিয়ামতে দন্ডায়মান হবে, যেভাবে দন্ডায়মান হয় ঐ ব্যক্তি, যাকে শয়তান আসর করে মোহাবিষ্ট করে দেয়। তাদের এ অবস্থার কারণ এই যে, তারা বলেছেঃ ক্রয়-বিক্রয় ও তো সুদ নেয়ারই মত! অথচ আল্লা’হ তা’আলা ক্রয়-বিক্রয় বৈধ করেছেন এবং সুদ হারাম করেছেন। অতঃপর যার কাছে তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে উপদেশ এসেছে এবং সে বিরত হয়েছে, পূর্বে যা হয়ে গেছে, তা তার। তার ব্যাপার আল্লাহর উপর নির্ভরশীল। আর যারা পুনরায় সুদ নেয়, তারাই দোযখে যাবে। তারা সেখানে চিরকাল অবস্থান করবে।

আল্লাহ তা’আলা সুদকে নিশ্চিহ্ন করেন এবং দান খয়রাতকে বর্ধিত করেন। আল্লাহ পছন্দ করেন না কোন অবিশ্বাসী পাপীকে।

নিশ্চয়ই যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে, সৎকাজ করেছে, নামায প্রতিষ্ঠিত করেছে এবং যাকাত দান করেছে, তাদের জন্যে তাদের পুরষ্কার তাদের পালনকর্তার কছে রয়েছে। তাদের কোন শঙ্কা নেই এবং তারা দুঃখিত হবে না।

হে ঈমানদারগণ, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং সুদের যে সমস্ত বকেয়া আছে, তা পরিত্যাগ কর, যদি তোমরা ঈমানদার হয়ে থাক।

অতঃপর যদি তোমরা পরিত্যাগ না কর, তবে আল্লাহ ও তাঁর রসূলের সাথে যুদ্ধ করতে প্রস্তুত হয়ে যাও। কিন্তু যদি তোমরা তওবা কর, তবে তোমরা নিজের মূলধন পেয়ে যাবে। তোমরা কারও প্রতি অত্যাচার করো না এবং কেউ তোমাদের প্রতি অত্যাচার করবে না।

যদি খাতক অভাবগ্রস্থ হয়, তবে তাকে সচ্ছলতা আসা পর্যন্ত সময় দেয়া উচিত। আর যদি ক্ষমা করে দাও, তবে তা খুবই উত্তম যদি তোমরা উপলব্ধি কর। (কুরআন 2:275-280)[৯][Note ২]

হাদিস ও নিষেধাজ্ঞা[সম্পাদনা]

ফারহাদ নোমানি, আব্দুলকাদের থমাস[Note ৩] ও এম.ও. ফারুকের ন্যায় পণ্ডিতগণ দাবি করেছেন যে, প্রাথমিক যুগের পণ্ডিতগণ বিশ্বাস করতেন যে রিবাকে সংজ্ঞায়িত করার জন্য হাদিস খুবই প্রয়োজনীয় ছিল।

এম.ও. ফারুক বলেছেন যে, হাদিসে রিবার সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, এই বক্তব্যটি খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রচলিত।[১১] তাই, উক্ত বক্তব্য অনুসারে, সকল প্রকার সুদই ‘'রিবা’’ এবং তা ইসলামী আইন অনুযায়ী নিষিদ্ধ, এই কথার লিখিত প্রমাণ হাদিসের উপর ভিত্তি করে বলা হয়।[১১][১২]

উসমানী কর্তৃক উপস্থাপিত কিছু হাদিস যা ঋণের মূল পরিমাণের উপর যে কোন প্রকারের বর্ধিতকরণকে নিষিদ্ধ করেছে[১৩] তার মধ্যে কিছু হাদিস হল নিম্নরূপ:

  • "প্রত্যেক ঋণ যা লাভ প্রদান করে তা হল এক প্রকার “রিবা"।"[১৪]
  • ”যদি তুমি কাওকে ঋণ দাও এবং ঋণ গ্রহীতা যবই ঋণদাতাকে এক গামলাপূর্ণ (খাবার) প্রস্তাব করে, তবে ঋণদাতার তা গ্রহণ করা উচিৎ নয়, অথবা যদি ঋণ গ্রহীতা ঋণদাতাকে তার পশুতে চড়ে ঘুরে বেড়ানোর প্রস্তাব দেয়, ঋণদাতা যেন কখনোই সেই প্রস্তাব গ্রহণ না করে...".[১৫]

ফরহাদ নোমানির মতে, ফিকহ পাঠশালাগুলোর মধ্যে, "... প্রাচীন হানাফি পণ্ডিত, কিছু বিখ্যাত শাফি পণ্ডিত (উদাহরণ, আল-রাযি) ও মালিকি (উদাহরণ, ইবনে রুশদ) মত ব্যক্ত করেন যে, রিবা বিষয়টি কুরআনে একটি অস্পষ্ট (মুজমাল) পরিভাষার ন্যায় ছিল, শাব্দিক অর্থের মাধ্যমে এর অর্থ পরিষ্কার হচ্ছিল না, এবং তাই সে সময় মাধ্যমে এর অস্পষ্টতা পরিষ্কার করার জন্যয প্রয়োজন ছিল "প্রচলিত ঐতিহ্যের” (আরবি ভাষায় হাদিসের আরেক প্রতিশব্দ ঐতিহ্য)।"[১৬][Note ৪]

বিভিন্ন সূত্রে রিবা-সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রকারের ও বিভিন্ন সংখ্যক হাদিস উল্লেখ করা হয়েছে। ফরহাদ নমানির মতানুযায়ী, রিবা সম্পর্কে প্রধানত তিন প্রকারের মৌলিক হাদিস রয়েছে[১৮][Note ৫][২০]

  1. হাদিসের সংকলন হতে প্রাপ্ত সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য সনদ অনুযায়ী, রিবা তখনই সঙ্ঘটিত হয় যখন একই প্রকারের ছয়টি নির্দিষ্ট পণ্য অসমভাবে বিনিময় করা হয় অথবা তাৎক্ষনিকভাবে সরবরাহ করা না হয় তবে।[১৮] (দেখুন রিবা আল-ফজল)
  2. ইবনে আব্বাস হতে উদ্ধৃত ও বর্ণিত আরও একগুচ্ছ হাদিসে বলা হয়েছে, যে সকল মজুরি বা পণ্য সরবরাহতে বিলম্ব হয় তার সবই রিবা।"[১৮]
  3. তৃতীয় আরেকগুচ্ছ হাদিসে উদ্ধৃত হয়েছে যে, মুহাম্মাদ (সাঃ) তার বিদায় হজ্বের ভাষণে বলেছেন[১৮]:
"আল্লাহ তোমাদেরকে সুদ (রিবা) নিতে নিষেধ করেছেন, তাই রিবা সম্পর্কিত সকল বাধ্যবাধকতা বাতিল করা হল। এখন থেকে, তোমাদের মূলধন তোমরাই রাখবে। তোমরা জুলুম করবে না, জুলুম ভোগও করবে না। আল্লাহ জারি করেছেন যে, আর কোন সুদ থাকবে না এবং এ কারণে আব্বাস ইবনে আব্দুল মুত্তালিবের সকল সুদ রহিত করা হল।"[Note ৬]

অনুরূপভাবে, এম.এ. খান বলেন যে, রিবা সম্পর্কিত তিন গুচ্ছ হাদিস রয়েছে, যার মধ্যে রিবা আল-ফজল ও বিদায় হজ্ব অনুষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত। [Note ৭] আরেকটি উৎসে, আব্দুলকাদের থমাস বলেন যে, ছয়টি বিশুদ্ধ হাদিস রয়েছে যার মাধ্যমে আমরা রিবাকে সংজ্ঞায়িত করতে পারব।[২২][২৩] রিবা ইন হাদিস নামক গ্রন্থে, গ্লোবাল ইসলামিক ফিন্যান্সের শারিক নিসার সাতটি সাধারণ হাদিস ও রিবা আল-নাসিয়াহ এর উপর আরও ছয়টি হাদিসের তালিকা উদ্ধৃত করেন।[২৪]

জাবির,[২৫] আব্দুর রহমান ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে মাসুদ,[২৬] সহ বহু বর্ণনাকারী বলেছেন

মুহাম্মাদ (সাঃ) সুদ গ্রহীতা, সুদ দাতা, এর হিসাবরক্ষক এবং এর সাক্ষী সকলের উপরই অভিসম্পাত করেছেন এই বলে যেঃ তারা সকলেই সমান।[২৫][২৭]

ফারুক এক জোড়া হাদিস হতে উদ্ধৃতি দিয়ে উদাহরণ দেন যে, কোন নির্দিষ্ট স্থানে হাতে হাতে বিনিময় করা হলে",[২৮] আথবা অপেক্ষা (নাসি'আহ) না করা হলে”[২৯][৩০] তা রিবা হবে না — যা "রিবা আল-ফজলও সুদ বা রিবা” এই সম্পর্কিত প্রথাগত অবস্থানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক, উদাহরণঃ “হাতে হাতে” অসম পরিমাণে একই পণ্য বিনিময়।[Note ৮] (ফারুক টীকায় উদ্ধৃত করেন যে, একটি হাদিস যেখানে দুজন সাহাবা তর্ক করছেন, উবাদা বিন আল-সামিত বলছেন মুহাম্মাদ (সাঃ) রিবা আল-ফজল নিষিদ্ধ করেছেন, যেখানে আরক সাহাবী প্রথম মুয়াবিয়া তার সঙ্গে মতবিরোধ করছেন, এই বলে যে, তিনি কখন মুহাম্মাদ (সাঃ)কে এমন ব্যবসা নিষেধ করতে শোনেন নি, “এমনকি যদিও, আমরা তাকে(মুহাম্মাদ (সাঃ)কে) দেখেছি ও তার সঙ্গে থেকেছি, তবুও?”[৩৫])


তাকি উসমানী দাবি করেন যে, রিবা সম্পর্কিত আয়াত ও হাদিসগুলো অস্পষ্ট হতে পারে না কারণ আল্লাহ এমন কোন চর্চার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করবেন না, যার প্রকৃত স্বরূপ মুসলিমদের জানা থাকবে না। তার মতে, একমাত্র সেই আয়াতগুলোই অস্পষ্ট হতে পারে, যেগুলোর জন্য কোন ব্যবহারিক সমস্যা এর জ্ঞানের উপর নির্ভর করে না।[৩৬]

মূলধারার মুসলিমগণ সুদ খাওয়ার পাপের ভয়াবহতা তুলে ধরার জন্য বেশ কিছু হাদিসকে নির্দেশ করেন। আবু হুরায়রা হতে বর্ণিত হয়েছে যে:

নবী (সাঃ) বলেন, “ছয়টি ধ্বংসাত্মক পাপ (কবিরা গুনাহ) থেকে বেঁচে থাকো।” লোকজন জিজ্ঞেস করলো, “হে আল্লাহর রাসুল (সাঃ)! কি সেগুলো? “তিনি বললেন, “ আল্লাহর সাথে অন্য কাওকে ইবাদতে শরীক করা, জাদুবিদ্যার চর্চা করা, (ইসলামী আইন অনুযায়ী) সৎ কারণ ব্যতিরেকে কাওকে হত্যা করা, সুদ খাওয়া, এতিমের সম্পদ খাওয়া, যুদ্ধের ময়দানে লড়াইয়ের সময় শত্রুর কাছ থেকে পিঠ দেখিয়ে পলায়ন করা, সতী-সাধ্বী নারী - যারা কখনো অশ্লীল কোন কিছু চিন্তাও করে না এবং উত্তম মুমিনদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনয়ন করা।" [Note ৯]

সুনান ইবনে মাজাহ অনুযায়ী, ইসলামিক নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) রিবাকে নিজ মায়ের সাথে ব্যাভিচার করার চেয়েও নিকৃষ্ট বলে ঘোষণা করেন।[৩৭]

রিবার শর্ত[সম্পাদনা]

১) লেনদেন ঋণ সংক্রান্ত বিষয় হওয়া। ২) মূলধনের পরিমাণ নির্দিষ্ট থাকা। ৩) ঋণ পরিশোধের সময়সীমা নির্দিষ্ট থাকা। ৪) ঋণ দানের শর্ত হিসেবে মূলধনের অতিরিক্ত কোনকিছু আদায় করা। ৫) অতিরিক্ত যা কিছু আদায় করা হয় তার শরীয়াহ সম্মত কোন বিনিময় না থাকা। ৬) অতিরিক্ত অংশের পরিমাণ পূর্ব নির্ধারিত হারে আদায় করা। ৭) সময়ের অনুপাতে মূলধনের অতিরিক্ত অংশের পরিমাণ নির্ধারিত হওয়া। ৮) উপরের শর্তগুলোকে লেনদেনের শর্ত হিসেবে গণ্য করা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ( তফসীরে ইবনে জরীর, ৩য় খন্ড,৬২ পৃষ্ঠা )
  2. "CHAPTER A1, INTRODUCTION TO ISLAMIC MUAMALAT" (PDF)Takaful Basic Examination, IBFIM। পৃষ্ঠা 9–10। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৭ 
  3. Aznan Hasan, Fundamentals of Shariah in Islamic Finance, pp. 33 - 34 as cited in "CHAPTER A1, INTRODUCTION TO ISLAMIC MUAMALAT" (PDF)Takaful Basic Examination, IBFIM। পৃষ্ঠা 9–10। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৭ 
  4. Khan, What Is Wrong with Islamic Economics?, 2013: p.132-3
  5. Siddiqi, Riba, Bank Interest, 2004: p.35
  6. Arberry, A. J. (translator)। "30:38"। The Koran Interpreted A Translation by A. J. Arberryarchive.org। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  7. Arberry, A. J. (translator)। "4:159"। The Koran Interpreted A Translation by A. J. Arberryarchive.org। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  8. Arberry, A. J. (translator)। "3:125"। The Koran Interpreted A Translation by A. J. Arberryarchive.org। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  9. Arberry, A. J. (translator)। "2:275-280"। The Koran Interpreted A Translation by A. J. Arberryarchive.org। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  10. Thomas, Abdulkader (ed.) (2006). Interest in Islamic Economics. London: Routledge, p.127.
  11. Farooq, Riba, Interest and Six Hadiths, 2009: p.105
  12. see also: "What is ربا (Riba) according to the Quran?"Islam Stack Exchange। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১৬There is no clear-cut definition of what riba is in the Qur'an. The understanding based on the reading of verses is that, it is some form of an increase in a loan, that might end up doubling or quadrupling the debt, and that it is not to be confused with trade/sale. The ahadith are where you will find a more detailed explanation of the term. 
  13. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; MTUHJI1999:54 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  14. Usmani, Historic Judgment on Interest, 1999: para 101
  15. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; MTUHJI1999:99 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  16. Nomani, Farhad। "The Interpretative Debate of the Classical Islamic Jurists on Riba (Usury)"Loyola University Chicago। পৃষ্ঠা 2.2। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  17. Farooq, Riba, Interest and Six Hadiths, 2009: p.105-6
  18. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; FNIDCIJR2002:2.1 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  19. el-Bokhari, Les traditions islamiques, trans. O. Houdas and W. Marcais, vol.2 (Paris, 1977), 13-4, 56-59, 113-21, Qadri, Islamic, 332. For Shi`i compilation of the hadith see Muhammad Ibn al-Hasan al-Tusi, Tahdhib, trans. M.B. Behbudi, vol. 3 (Tehran, 1991), 279-81, 378-9.
  20. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; bukhari-282 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  21. Khan, What Is Wrong with Islamic Economics?, 2013: p.136-7
  22. Thomas, Abdulkader (ed.) (2006). Interest in Islamic Economics. London: Routledge.
  23. Farooq, Riba, Interest and Six Hadiths, 2009: p.107
  24. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; nisar নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  25. Sahih Muslim, Book 010, Number 3881
  26. (Sunan Abi Dawoud: 3543, hadith Hasan1)
  27. "The Book of Prescribed Punishments, no.4176"Sahihmuslim.com। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৬ 
  28. Sahih Muslim, Vol. III, #3878, Kitab al-Musaqat, Bab bay' al-ta'am mithlan bi-mithl).
  29. (Sahih Bukhari, Kitab al-Buyu', Bab Bay' al-dinar bi’l-dinar nasa’an, Vol. 3, #386
  30. Bukhari, Muhammad। "Sahih al-Bukhari. Volume 3, Book 034 "Sales and Trade" Number 386"। Usc.edu। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১৮ 
  31. Bukhari, Muhammad। "Sahih al-Bukhari. Volume 3, Book 034 "Sales and Trade" Number 294"। Usc.edu। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১৮ 
  32. See also Sahih al-Bukhari, number 405)
  33. See alsoBukhari, Muhammad। "Sahih al-Bukhari. Volume 3, Book 034 "Sales and Trade" Number 405"। Usc.edu। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১৮ 
  34. See also Sahih Muslim, Vol. III, No. 3854
  35. Sahih Muslim, Vol. III, No. 3852
  36. Usmani, Historic Judgment on Interest, 1999: para 57
  37. Abod (Sheikh), Ghazali Sheikh; Omar (Syed.) (১৯৯২)। An Introduction to Islamic finance। Quill Publishers,। পৃষ্ঠা 381। আইএসবিএন 9789839640090। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০১৫ 

টীকা[সম্পাদনা]

  1. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ لاَ تَأْكُلُواْ الرِّبَا أَضْعَافًا مُّضَاعَفَةً وَاتَّقُواْ اللّهَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ (কুরআন 3:129-130)
  2. ذَٰلِكَ بِأَنَّهُمْ قَالُوا إِنَّمَا الْبَيْعُ مِثْلُ الرِّبَا ۗ وَأَحَلَّ اللَّهُ الْبَيْعَ وَحَرَّمَ الرِّبَا (from কুরআন 2:276)
  3. “The Qur’an does not explicitly define riba as one type of transaction or another. ... The efforts of the fuqaha’ or judicial scholars like Sh. Zuhayli and the examples of the hadith allow us to determine a clear idea of what is riba”.[১০]
  4. Others agree. Non-orthodox scholar Mohammad Omar Farooq says, "it is broadly agreed that the Qur’an does not define riba", and quotes orthodox scholar Abdulkader Thomas, “the Qur’an does not explicitly define riba as one type of transaction or another. The efforts of the fuqaha’ or judicial scholars like Sheikh Zuhayli and the examples of the hadith allow us to determine a clear idea of what is riba”.[১০][১৭]
  5. According to Farhad Nomani, "There are also other reports recorded in the hadith texts on other commodities such as meats, fruits, and slaves that indirectly refer to illicit "increases" [১৯]. In general, however, except for the aforementioned three types of reports of the sayings of the Prophet, other reports are not unanimous and are not equally relied on by jurists."[১৮]
  6. Last Sermon of Muhammad given on 10 Dul-hajj 10 hijra, mentioned in all book of Hadith. Sahih Bukhari mentions parts of it. Musnad Imam Ahmed recorded the longest and complete speech.
    أَلَا إِنَّ كُلَّ رِبًا كَانَ فِي الْجَاهِلِيَّةِ، مَوْضُوعٌ عَنْكُمْ كُلُّهُ، لَكُمْ رُؤُوسُ أَمْوَالِكُم لَا تَظْلِمُونَ وَلَاتُظْلَمُونَ، وَأَوَّلُ رِبًا مَوْضُوعٍ، رِبَا الْعَبَّاسِ بْنِ عَبْدِالْمُطَّلِبِ مَوْضُوعٌ كُلُّه
    1. Those that deal with riba that arises in the exchange of commodities (riba al-fadl).
    2. those that define riba as something that accrues in loan or deferred payment transactions (riba al-nasi'ah);
    3. those including Muhammad's sermon during his Last Pilgrimage that condemn the giving and taking of riba;[২১]
  7. such as: "Narrated Abu Said: We used to be given mixed dates (from the booty) and used to sell (barter) two Sas (of those dates) for one Sa (of good dates). The Prophet said (to us), "No (bartering of) two Sas [about six liters] for one Sa nor two Dirhams for one Dirham is permissible", (as that is a kind of usury)".[৩১][৩২][৩৩][৩৪]
  8. সহীহ মুসলিম: ২৭২, আরবিতে:
    أخرج البخاري ومسلم وأبو داود والنسائي عن أبي هريرة رضي الله عنه أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال اجتنبوا السبع الموبقات , قيل يا رسول الله وما هن ؟ قال الشرك بالله , والسحر , وقتل النفس التي حرم الله إلا بالحق , وأكل مال اليتيم , وأكل الربا , والتولي يوم الزحف , وقذف المحصنات الغافلات المؤمنات