ধর্মের ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ধর্ম ইতিহাস

উৎপত্তিগত ক্রমবিন্যাস

নৃবিদ্যা

প্রাগৈতিহাসিক

প্রাচীন নিকট পূর্ব

*প্রাচীন মিশর

*সেমিটিক

ইন্দো-ইউরোপীয়

*বৈদিক হিন্দুধর্ম

*গ্রিকো রোমান

*সেল্টিক

*জার্মান

অক্ষীয় বয়স

*বেদান্ত *শ্রমতা

*ধর্ম *তাও

*হেলেনিজম

*মনস্তত্ত্ব *দ্বৈতবাদ

*একেশ্বরবাদ

খ্রিস্টিয়করণ

ধর্মীয়করণ (হিন্দু-বৌদ্ধ ভারতীয়ীকরণ)

ইসলামীকরণ

রেনেসাঁ সংস্কার

কারণ যুগ

নতুন ধর্মীয় আন্দোলন

*মহা জাগ্রতকরণ

মৌলবাদ

নতুন যুগ

উত্তর-আধুনিকাকতাবাদ

আব্রাহামিক

*ইহুদীধর্ম

*খ্রিস্টধর্ম

*ইসলাম

*বাহী বিশ্বাস

ইন্ডিক

*হিন্দুধর্ম

*বৌদ্ধধর্ম

*জৈন ধর্ম

*শিখবাদ

দূর প্রাচ্য

*তাওইজম

*কনফুনিয়াইজম

*শিন্টো

নিওপ্যাগান

উইক্কা

ধর্মের ইতিহাস বলতে বুঝায় মানুষের ধর্মীয় অভিজ্ঞতা এবং ধারনাগুলোর লিখিতরূপ, যা বর্তমানে সংরক্ষিত রয়েছে। ধর্মীয় ইতিহাসের প্রাথমিক যুগ শুরু হয় প্রায় ৫২০০ বছর আগে (৩২০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ), যখন মানুষ লেখার পদ্ধতি আবিস্কার করে।[১] ধর্মের পূর্ব ইতিহাসের লিখিত দলিল না থাকায় তা মানুষের বিদ্যমান ধর্মীয় বিশ্বাসের গবেষণার সাথে জড়িত। ধর্মের নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে তুলনামূলক ধর্মীতত্ত্ব নিয়ে যে কেউ গবেষণা করতে পারেন। ধর্মের লিখিত রূপ লেখার সময় বা অবস্থান নির্বিশেষে ধর্মীয় গ্রন্থকে সুষম মানদণ্ডে উন্নীত করতে একটি প্রধান ভূমিকা পালন করে। এছাড়া এর মাধ্যমে প্রার্থনা ও ধর্মীয় নিয়মগুলো এর অনুসারীরা সহজে স্মরণে রাখতে পারেন। বাইবেলের ক্ষেত্রে শতাব্দীকাল পর্যন্ত একাধিক মৌখিক গ্রন্থে সংরক্ষণ করা হয়েছিলো।[২]

"ধর্ম" ধারণাটি ষোড়শ ও সপ্তদশ শতকে গঠিত হয়েছিল,[৩][৪] যদিও বাইবেল, কুরআন এবং অন্যান্য প্রাচীন পবিত্র গ্রন্থগুলোর মধ্যেও ধর্মের ধারণা ছিল না, এমনকি এই পবিত্র গ্রন্থে লিখিত বিষয়াদি বা অনুসরকারী মানুষের সংস্কৃতিতেও না।[৫][৬]

একবিংশ শতাব্দীতে ব্যবহৃত "ধর্ম" শব্দটির অ-ইউরোপীয় ভাষার মধ্যে পূর্ব-উপনিবেশিক অনুবাদ নেই। নৃতত্ত্ববিদ ড্যানিয়েল ডুবুইসন লিখেছেন, "পশ্চিমা দেশ ও ধর্মের ইতিহাসগুলো কীভাবে তার ধর্মের অধীনে 'ধর্ম' নামে অভিহিত করেছে ... যা একেবারেই অনন্য, যা শুধুমাত্র নিজের এবং নিজের ইতিহাসের জন্য উপযুক্ত হতে পারে"।[৭] "ধর্মীয়" বিষয়ের সাথে অন্যান্য সংস্কৃতির মিথষ্ক্রিয়ার ইতিহাস, যা প্রথমত ইউরোপে খ্রিস্টানদের প্রভাবের ফলে বিকশিত হয়েছিল।[৮][যাচাই করার জন্য উদ্ধৃতি প্রয়োজন]

গবেষণার ইতিহাস[সম্পাদনা]

ধর্মের ইতিহাস বিভাগ রিলিজিওনগিসিকলি শুলা নামে পরিচিত, যা একটি জার্মান মতবাদ, এটি সামাজিক-সাংস্কৃতিক ঘটনা হিসাবে ধর্মের নিয়মানুগ নিয়ে গবেষণা শুরু করে। এটি মানব সংস্কৃতির সাথে ধর্মকে ব্যাখ্যা করে এবং এটি আদিম বহু-ঈশ্বরবাদ থেকে নৈতিক একেশ্বরবাদ পর্যন্ত চিত্রিত করেছে।

এই মতবাদ এমন একটি সময়ে আবির্ভূত হয়েছিল যখন বাইবেল এবং গির্জার ইতিহাসের বিশদ গবেষণা জার্মানি এবং অন্যান্য জায়গায় বেড়ে উঠেছিল। ধর্মের অধ্যয়ন মানবজাতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ধর্ম ও অনুরূপ ধারণাগুলো প্রায়শই সভ্যতার আইন ও নৈতিক বিষয়াদি, সামাজিক কাঠামো, শিল্প ও সঙ্গীতকে প্রভাবিত করে।

সংক্ষিপ্ত বিবরণ[সম্পাদনা]

উনবিংশ শতাব্দীতে বিভিন্ন সংস্কৃতি ও ধর্মের বিভিন্ন প্রকারের জ্ঞান এবং মানব অগ্রগতির অর্থনৈতিক ও সামাজিক ইতিহাস প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে নাটকীয় হারে বৃদ্ধি ঘটেছে। "ধর্মের ইতিহাস" এই ধর্মীয় বৈচিত্র্যের জন্য একটি বিশেষ গোষ্ঠীর সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থার সাথে সংযোগ স্থাপন করে।

সাধারণত, ধর্ম তার অগ্রগতির বিভিন্ন পর্যায়ে বিভক্ত থাকে। এটা হতে পারে সহজ থেকে জটিল সমাজের দিকে, বিশেষ করে বহু-ঈশ্বরবাদ থেকে একেশ্বরবাদী ধারণার দিকে ধাবিত হচ্ছে। কেউ কেউ ধর্মকে লিঙ্গাগ্রচর্মছেদন করার বিষয় নিয়ে শ্রেণিবিন্যাস করে থাকেন। কেউবা ধর্মান্তরিত (অন্যান্য ধর্মের মানুষকে নিজ ধর্মে রূপান্তরিত করার চেষ্টা) এবং অ-ধর্মান্তরিত হিসাবে শ্রেণীবিন্যাস করে থাকেন। আবার অনেক ধর্মে একই রকম কিছু সাধারণ বিশ্বাস থাকে।

উৎস[সম্পাদনা]

ধর্মীয় ধারনাগুলোর প্রাচীনতম প্রমাণ পাওয়া যায় কয়েক হাজার বছর আগে মধ্য ও নিম্ন প্যালিলিথিক যুগে। প্রত্নতাত্ত্বিকগণ প্রায় ৩০০,০০০ বছর আগে ধর্মীয় ধারনার প্রমাণ হিসাবে হোমো স্যাপিয়েনদের কবরস্থানের কথা উল্লেখ করেছেন। ধর্মীয় ধারনার অন্যান্য প্রমাণ আফ্রিকায় পাওয়া যায়, যার মধ্যে মধ্য পাথর যুগে হস্তনির্মিত বিভিন্ন প্রতীকী অন্তর্ভুক্ত। যাইহোক, প্রাথমিক প্যালিলিথিক যুগের হস্তনির্মিত বিভিন্ন প্রতীকীর ব্যাখ্যা, যা কিভাবে ধর্মীয় ধারনা সম্পর্কিত, তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ের প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণ কিছুটা কম বিতর্কিত। বিজ্ঞানীরা সাধারণত ধর্মীয় ধারনার প্রতিনিধিত্বকারী হিসাবে উর্ধ-প্যালোলিথিক (৫০,০০০-১৩,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) যুগ থেকে পাওয়া বেশ কয়েকটি প্রত্নতাত্ত্বিক বিষয় ব্যাখ্যা করে থাকেন। সেই যুগের ধর্মীয় বিশ্বাসগুলোর সাথে সম্পর্কিত উদাহরণগুলোর মধ্যে রয়েছে সিংহের মত দেখতে মানুষ, শুক্রের মূর্তি, চাউট গুহার সমাধি, গুহা চিত্র ইত্যাদি।

উনিশ শতকের গবেষকগণ ধর্মের উত্স সম্পর্কিত বিভিন্ন তত্ত্ব প্রস্তাব করেছিলেন, যেটি খ্রিস্টান মতবাদকে বিতর্কিত করেছিলো। উদারতার আগে দাবিগুলো চ্যালেঞ্জ করেছিল। প্রারম্ভিক তত্ত্ববিদ এডওয়ার্ড বার্নেট টাইলর (১৮৩২-১৯১৭) এবং হার্বার্ট স্পেন্সার (১৮২০-১৯০৩) অ্যানিমিজমের ধারণা প্রস্তাব করেছিলেন। আর প্রত্নতত্ত্ববিদ জন লুবক (১৮৩৪-১৯১৩) শব্দটিকে "প্রতিমাবাদ" বলেন। এদিকে ধর্মীয় পণ্ডিত ম্যাক মুলার (১৮২৩-১৯০০) বলেন ধর্ম শুরু হয় হেডোনিজম থেকে। ফোকলোরিস্ট উইলহেলম মানহার্ড (১৯৩১-১৮৮০) বলেছিলেন, ধর্ম "প্রাকৃতিকতা" থেকে শুরু হয়েছিল, যার দ্বারা তিনি প্রাকৃতিক ঘটনাগুলোর পৌরাণিক ব্যাখ্যা বোঝাতে চেয়েছিলেন।[৯] এই সব তত্ত্বগুলো ব্যাপকভাবে সমালোচনা করা হয়েছে। ধর্মের উৎপত্তি সংক্রান্ত কোন বিস্তৃত ঐক্যমত্য নেই।

প্রাক-মৃৎপাত্র নিওলিথিক এ (পিপিএনএ) গোবেকলি তেপে, যা এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত প্রাচীনতম ধর্মীয় স্থান।[১০] এর মধ্যে রয়েছে বিশাল টি-আকৃতির প্রস্তর স্তম্ভ, যা বিশ্বের প্রাচীনতম মেগালিথ হিসেবে পরিচিত। [১১] এটি বিমূর্ত চিত্র, চিত্রগ্রন্থ এবং পশু ভাস্কর্য ইত্যাদি দ্বারা সজ্জিত। এটি তথাকথিত নিউলিথিক বিপ্লবের আগে নির্মিত হয়েছিল, যেমনঃ ৯০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে কৃষি ও পশুপালন শুরু হয়েছিলো। কিন্তু গোবেকলি তেপের নির্মাণে একটি উন্নত সংগঠন বুঝায়, যা এখন পর্যন্ত প্যালিওলিথিক, পিপিএনএ বা পিপিএনবি সমাজগুলোর সাথে সম্পর্কিত নয়। জায়গাটি প্রথম কৃষি সমাজের শুরুতে প্রায় পরিত্যক্ত হয়ে যায়। জায়গাটি এখনও খনন এবং বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এভাবে এই অঞ্চলের পুরনো সম্প্রদায়ের জন্য, সেইসাথে ধর্মের সাধারণ ইতিহাসের জন্য উল্লেখযোগ্য বিষয় সম্পর্কে জানা যাবে।

প্রাচীন মিশরের পিরামিড গ্রন্থ থেকে বিশ্বের প্রাচীনতম ধর্মীয় গ্রন্থ পাওয়া যায়, যা ২৪০০-২৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে লেখা হয়।[১২][১৩]

এতে সম্পূর্ণ ধর্মীয় গ্রন্থ অন্তর্ভুক্ত।

মৃত সাগরের পাণ্ডুলিপি হিব্রু তানখের সম্পূর্ণ গ্রন্থের প্রতিনিধিত্ব করে। এগুলো প্রায় ২০০০ বছর আগে অনুলিপি করা হয়।

সম্পূর্ণ হিব্রু গ্রন্থে, এছাড়াও তানখে,যা কিন্তু গ্রিক ভাষায় অনুদিত, (সেপ্টুয়াজিন্ট ৩০০-২০০ বিসি), প্রথম দিকে, বিশেষ করে প্রথম শতাব্দীতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল।

ধর্মের উপকারিতা[সম্পাদনা]

সংগঠিত ধর্ম নিম্নলিখিত উপায়ে বৃহত্তর জনসংখ্যার সামাজিক ও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রদানের মাধ্যম হিসাবে উত্থাপিত হয়েছেঃ

  • সংগঠিত ধর্ম একটি কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষকে ন্যায্যতা প্রদান করে, যার ফলে রাষ্ট্রকে সামাজিক ও নিরাপত্তা পরিষেবা প্রদানের জন্য কর আদায় করার অধিকার লাভ করে। ভারত এবং মেসোপটেমিয়ার ধর্মশাসনে বিভিন্ন বাহিনীর প্রধানগণ,রাজা, এবং সম্রাট রাজনৈতিক ও আধ্যাত্মিক নেতা হিসেবে ভূমিকা পালন করতেন।[১৪] বিশ্বব্যাপী সমস্ত রাষ্ট্রীয় সমাজে অনুরূপ রাজনৈতিক কাঠামো রয়েছে, যেখানে রাজনৈতিক কর্তৃত্ব ঐশ্বরিক অনুমোদন দ্বারা ন্যায্যতা পায়।
  • সংগঠিত ধর্ম সম্পর্কহীন ব্যক্তিদের মধ্যে শান্তি বজায় রাখার উপায় হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিলো। তবে রাষ্ট্র ও দেশগুলোতে হাজার হাজার বা কোটি কোটি মানুষ পরস্পরের সাথে সাথে সম্পর্কহীন ছিলো। জারেড ডায়মন্ড যুক্তি দেখান যে, সংগঠিত ধর্ম অন্য কোনও সম্পর্কহীন ব্যক্তিদের মধ্যে বন্ধন তৈরী করে। অন্যথায় সেখানে শত্রুতার প্রবণতা প্রকাশ পাবে। কারণ হিসেবে তিনি যুক্তি দেন যে, ব্যান্ড ও উপজাতীয় সমাজের মধ্যে মৃত্যুর একটি প্রধান কারণ হত্যাকাণ্ড। [১৫]

অক্ষীয় যুগ[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিকরা ৯০০ থেকে ২০০ বিসিইকে অক্ষীয় যুগ হিসেবে উল্লেখ করেছেন, এই শব্দটি ব্যবহার করেছেন জার্মান-সুইচ দার্শনিক কার্ল জ্যাসপার্স (১৮৮৩-১৯৬৯)। জ্যাসপার্সের মতে, ইতিহাসের এই যুগে "মানবতার আধ্যাত্মিক ভিত্তি স্বাধীনভাবে এবং একসঙ্গে গড়ে উঠে... এই ভিত্তি মানবতার মাঝে এখনও বিদ্যমান রয়েছে।" ইতিহাসবিদ পিটার ওয়াটসন এই যুগকে মানবতার দর্শনবিদ্যার গঠনের সময় হিসেবে উল্লেখ করেন, এগুলোর মধ্যে ছিল পার্সিয়া এবং কানানে একশ্বেরবাদ, গ্রীসে প্লেটোবাদ, ভারতে বৌদ্ধ ধর্ম এবং জৈন ধর্ম, চীনে তাওবাদ ও কনফুসিওবাদ। এই বিষয়গুলো কিছু সময়েই শিক্ষার বিষয় হয়ে যায়- যেমন বৌদ্ধ ধর্ম ছড়াতে আশোকার ভূমিকা, বা খ্রিস্টান ধর্ম গঠনে প্লেটোবাদের ভূমিকা।

ভারতে বিসিই ৯ম শতাব্দীতে জৈন ধর্মের উৎপত্তি হয় সাথে পার্শবানাথ এবং এটির অহিংস দর্শন গড়ে উঠে।[১৬][১৭]টেমপ্লেট:Qn

মধ্যযুগ[সম্পাদনা]

মধ্যযুগীয় বিশ্বে ধর্ম

বিশ্ব ধর্মের বর্তমান দিনের সর্বত্র নিজেদের প্রতিষ্ঠিত ইউরেশিয়া সময় মধ্যযুগ দ্বারা:

  • পাশ্চাত্য বিশ্বের খ্রিস্টিয়করণ
  • বৌদ্ধদের পূর্ব এশিয়ায় প্রেরণ
  • ভারতীয় উপমহাদেশে বৌদ্ধধর্মের পতন
  • মধ্য প্রাচ্য, কেন্দ্রীয় এশিয়া, উত্তর আফ্রিকা এবং ভারত ও ইউরোপের কিছু অঞ্চলে ইসলামের প্রচার

মধ্য যুগে, মুসলিম এবং জরাথুস্ট্রদের সাথে লড়াই হয় মুসলিমদের পারস্য বিজয় (৬৩৩-৬৫৪) এর সময়; আরব-বাইজেন্টাইন যুদ্ধ (৭ থেকে ১১শতাব্দী) এর সময় খ্রিষ্টাব্দ মুসলিমদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে করে, ১০৯৫এর ধর্মযুদ্ধ, ৭১৮-১৪৯২ এর রিকোনকুয়েস্টা, ১৩শতাব্দীতে ইউরোপে অত্তোমান যুদ্ধ এবং বিচার; মঙ্গল যুদ্ধের সময় (১২০৬-১৩৩৭) ওঝাদের সাথে বৌদ্ধ, তাও, মুসলিম এবং খ্রিস্টানদের দ্বন্দ্ব ছিল; আর মুসলিমদের ভারত উপমাহদেশ বিজয়ের সময় (৮ থেকে ১৬শতাব্দী) মুসলিমদের সাথে হিন্দু এবং শিখদের লড়াই হয়।

মধ্যযুগের অনেক ধর্মীয় কার্যক্রম রহস্যবাদকে আরও জোরদার করেছে, যেমন ক্যাথারবাদ এবং পশ্চিমে এই ধরনের আন্দোলন, স্পেনে ইহুদি, ভারতে ভক্তি আন্দোলন এবং ইসলামে সুফিবাদ। খ্রিস্টানদের খ্রিস্টানবাদ এবং ইসলামের তওহীদ এ একেশ্বরবাদকে উল্লেখ করা হয়েছে। হিন্দু ব্রাহ্মণদের মাঝে একেশ্বর বিশ্বাস শুরু হয় আদি শঙ্কর এর শিক্ষার মাধ্যমে (৭৮৮-৮২০)।

আধুনিক সময়[সম্পাদনা]

১৫ থেকে ১৯শতকে ইউরোপিয় উপনিবেশ স্থাপনের কারণে সাহরাণ আফ্রিকাসহ আমেরিকাতে, অস্ট্রেলিয়া এবং ফিলিপাইনে খ্রিস্টান ধর্ম ছড়িয়ে যায়। ১৫শতকে প্রিন্টিং প্রেসের আবিষ্কার মার্টিন লুথার (১৪৮৩-১৫৪৬) এবং জন ক্যালভিন (১৫০৯-১৫৬৪) এর নেতৃত্বে হওয়া খ্রিস্টধর্ম-সংস্কার আন্দোলন ছড়াতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। ধর্মের যুদ্ধ হয়, যা কেন্দ্রীয় ইউরোপে ১৬১৮ এবং ১৬৪৮সালের মাঝে ৩০বছর ধরে সংঘটিত হয়েছে। ১৮শতকে ইউরোপে ধর্মনিরপেক্ষতা দেখা যায়, যা ১৭৮৯সালের ফরাসি বিপ্লব এর পরে শুরু হয়। ২০শতকের পরে ইউরোপের বেশি দেশে ধর্মের পতন ঘটে।[১৮]

২০০১সাল হতে লোকজন তাদের ধর্মীয় বিশ্বাসকে আবিষ্কার ও প্রমাণের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার শুরু করে। ২০০০সালের জানুয়ারিতে, বিলিফনেট ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠিত হয়, আর পরের বছর, প্রতি মাসে এটির প্রায় ১.৭মিলিয়ন পরিদর্শক ছিল।[১৯]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহুঈশ্বরবেদ[সম্পাদনা]

বহুদেববাদ[সম্পাদনা]

একেশ্বরবাদ[সম্পাদনা]

অদ্বৈতবাদ[সম্পাদনা]

দ্বৈতবাদ[সম্পাদনা]

নতুন ধর্মীয় আন্দোলন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Origins of Writing | Essay | Heilbrunn Timeline of Art History | The Metropolitan Museum of Art"। Metmuseum.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-১১ 
  2. Humayun Ansari (২০০৪)। The Infidel Within: Muslims in Britain Since 1800। C. Hurst & Co.। পৃষ্ঠা 399–400। আইএসবিএন 978-1-85065-685-2 
  3. Nongbri, Brent (২০১৩)। Before Religion: A History of a Modern Concept। Yale University Press। পৃষ্ঠা 152। আইএসবিএন 978-0300154160 
  4. Harrison, Peter (১৯৯০)। 'Religion' and the Religions in the English Enlightenment। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 1। আইএসবিএন 978-0521892933 
  5. Nongbri, Brent (২০১৩)। "2. Lost in Translation: Inserting "Religion" into Ancient Texts"। Before Religion: A History of a Modern Concept। Yale University Press। আইএসবিএন 978-0300154160 
  6. Morreall, John; Sonn, Tamara (২০১৩)। 50 Great Myths about Religions। Wiley-Blackwell। পৃষ্ঠা 13। আইএসবিএন 9780470673508 
  7. Daniel Dubuisson. The Western Construction of Religion. 1998. William Sayers (trans.) Baltimore: Johns Hopkins University Press, 2003. p. 90.
  8. Timothy Fitzgerald. Discourse on Civility and Barbarity. আইএসবিএন ৯৭৮০১৯০২৯৩৬৪২. Oxford University Press, 2007. pp.45-46.
  9. "Religion". Encyclopedia Universal Ilustrada Europeo-Americana, 70 vols. Madrid. 1907-1930.
  10. "The World's First Temple"Archaeology magazine। নভে–ডিসে ২০০৮। পৃষ্ঠা 23। 
  11. Sagona, Claudia। The Archaeology of Malta (ইংরেজি ভাষায়)। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 47। আইএসবিএন 9781107006690। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  12. Budge, Wallis। An Introduction to Ancient Egyptian Literature। পৃষ্ঠা 9। আইএসবিএন 0-486-29502-8 
  13. Allen, James। The Ancient Egyptian Pyramid Textsআইএসবিএন 1-58983-182-9 
  14. Shermer, Michael। The Science of Good and Evilআইএসবিএন 0-8050-7520-8 
  15. Compare: Diamond, Jared। "chapter 14, From Egalitarianism to Kleptocracy"। Guns, Germs, and Steel: The Fates of Human Societiesআইএসবিএন 9780393609295 
  16. Dundas 2002, পৃ. 30।
  17. Zimmer 1953, পৃ. 182-183।
  18. Norris, Pippa (২০১১)। Sacred and Secular: Religion and Politics Worldwide। Cambridge University Press। 
  19. Zabriskie, Phil (২০০১-০৬-০৪)। "I Once Was Lost, but Now I'm Wired"Time Asia। খণ্ড 157 নং 22।