ইসলামি অপরাধ আইনশাস্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইসলামি অপরাধ আইনশাস্ত্র বা ইসলামী ফৌজদারি বিধিমালা (আরবি: فقه العقوبات‎‎) হলো শরিয়া অনুসারে ফৌজদারি আইন। কঠোর ভাবে বলতে গেলে, ইসলামী আইনের "ফৌজদারি আইন" এর আলাদা স্বতন্ত্র সংস্থা নেই। এটি অপরাধের উপর নির্ভর করে অপরাধকে তিনটি বিভাগে বিভক্ত করে - হুদুদ ("ঈশ্বরের বিরুদ্ধে অপরাধ",[১] যার শাস্তি কুরআন এবং হাদিস এর মধ্যে স্থির রয়েছে; কিসাস (এমন ব্যক্তি বা পরিবারের বিরুদ্ধে অপরাধ যার শাস্তি কুরআন ও হাদিসগুলিতে সমান প্রতিশোধ গ্রহণ); এবং তাজির (অপরাধ যাদের কুরআন ও হাদীসগুলিতে নির্দিষ্ট করা হয়নি, এবং এটি শাসক বা কাদি, অর্থাৎ বিচারকের বিবেচনার ভিত্তিতে ছেড়ে যায়।[২][৩][৪] কেউ কেউ 'সিয়াশাহ' (চতুর্থ বিভাগ) (সরকারের বিরুদ্ধে অপরাধ) যুক্ত করে,[৫] অন্যরা এটিকে হ্যাড বা তাজির অপরাধের অংশ হিসাবে বিবেচনা করে।[৬][৭]

ঐতিহ্যবাহী শরিয়া আদালত, আধুনিক পশ্চিমা আদালতের বিপরীতে, সমাজের পক্ষে জুরি বা অভিশংসক ব্যবহার করবেন না। ঈশ্বরের বিরুদ্ধে অপরাধকে রাষ্ট্র হুদ্দু অপরাধ হিসাবে বিচার করে, এবং হত্যা এবং শারীরিক আঘাত সহ অন্যান্য সমস্ত ফৌজদারি বিষয়কে শরিয়া ফিকহের ভিত্তিতে একজন ইসলামী বিচারকের সিদ্ধান্ত গ্রহণের সাথে ব্যক্তির মধ্যে বিরোধ হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যেমন হানাফি, মালেকী, শফিয়ী, হাম্বলি এবং জাফারি ইসলামী আইন অনুসারে চলে।[৮]

বাস্তবে, ইসলামী ইতিহাসের শুরু থেকেই, ফৌজদারি মামলাগুলি সাধারণত শাসক-শাসিত আদালত বা স্থানীয় পুলিশ পদ্ধতি ব্যবহার করে পরিচালনা করত এগুলি কেবল শরিয়তের সাথে সম্পর্কিত ছিল।[৯][১০] আধুনিক যুগে শরিয়া ভিত্তিক অপরাধমূলক আইনগুলি ইউরোপীয় মডেলদের দ্বারা অনুপ্রাণিত বিধি দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল, যদিও সাম্প্রতিক দশকগুলিতে বেশ কয়েকটি দেশ ইসলামী দন্ডবিধির ক্রমবর্ধমান প্রভাবের অধীনে তাদের আইনী কোডগুলিতে ইসলামিক দন্ড আইনের উপাদানগুলি পুনরায় প্রবর্তন করেছে।[১১][১২]

দণ্ডের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

ইসলামী শরী’আতে অপরাধের শাস্তিকে তিন ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে: হুদৃদ, কিসাস ও তাষীরাত। তন্মধ্যে যেসব অপরাধের শাস্তি কুরআনসুন্নাহ নির্ধারণ করে দিয়েছে: তা হচ্ছে, হুদুদ ও কিসাস। পক্ষান্তরে যেসব অপরাধের কোনো শাস্তি কুরআন ও সুন্নাহ নির্ধারণ করেনি; বরং বিচারকদের অভিমতের উপর ন্যস্ত করেছে, সেসব শাস্তিকে শরীআতের পরিভাষায় ‘তা’যিরাত’ তথা দণ্ড বলা হয়। কুরআনুল কারীম হুদুদ ও কিসাস পূর্ণ বিবরণ ব্যাখ্যা সহকারে নিজেই বর্ণনা করে দিয়েছে। আর দণ্ডনীয় অপরাধের বিবরণকে রাসূলের বর্ণনা ও সমকালীন বিচারকদের অভিমতের উপর ছেড়ে দিয়েছে। বিশেষ বিশেষ অপরাধ ছাড়া অবশিষ্ট অপরাধসমূহের শাস্তির কোনো পরিমাণ নির্ধারণ করেনি; বরং বিচারকের অভিমতের উপর ছেড়ে দিয়েছে। বিচারক স্থান, কাল ও পরিবেশ বিবেচনা করে অপরাধ দমনের জন্য যেরূপ ও যতটুকু শাস্তির প্রয়োজন মনে করবেন, ততটুকুই দেবেন।

আলেমরা বলেন, কুরআনুল কারীম যেসব অপরাধের শাস্তিকে আল্লাহর হক হিসাবে নির্ধারণ করে জারি করেছে, সেসব শাস্তিকে ‘হুদূদ’ বলা হয় এবং যেসব শাস্তিকে বান্দার হক হিসেবে জারি করেছে, সেগুলোকে ‘কিসাস’ বলা হয়। কিসাসের শাস্তি হুদূদের মতই সুনির্ধারিত। প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ সংহার করা হবে এবং জখমের বিনিময়ে সমান জখম করা হবে। কিন্তু পার্থক্য এই যে, হুদূদকে আল্লাহর হক হিসেবে প্রয়োগ করা হয়। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ক্ষমা করলেও তা ক্ষমা হবে না। কিন্তু কিসাস এর বিপরীত। কিসাসে বান্দার হক প্রবল হওয়ার কারণে হত্যা প্রবল হওয়ার পর হত্যাকারীকে নিহত ব্যক্তির উত্তরাধিকারীর এখতিয়ারে ছেড়ে দেয়া হয়। সে ইচ্ছা করলে কেসাস হিসাবে তাকে মৃত্যুদণ্ডও করাতে পারে। যখমের কেসাসও তদ্রুপ। পক্ষান্তরে যেসব অপরাধের শাস্তি নির্ধারণ করেনি, সে জাতীয় শাস্তিকে বলা হয় ‘তা’যীর’ তথা ‘দণ্ড’। শাস্তির এ প্রকার তিনটির বিধান অনেক বিষয়েই বিভিন্ন। তন্মধ্যে তাযীর বা দণ্ডগত শাস্তিকে অবস্থানুযায়ী লঘু থেকে লঘুতর, কঠোর থেকে কঠোরতর এবং ক্ষমাও করা যায়। এ ব্যাপারে বিচারকদের ক্ষমতা অত্যন্ত ব্যাপক। কিন্তু হুদূদের বেলায় কোনো বিচারকই সামান্যতম পরিবর্তন, লঘু অথবা কঠোর করার অধিকারী নয়। স্থান ও কাল ভেদেও এতে কোনো পার্থক্য হয় না। শরী’আতে হুদুদ মাত্র পাঁচটি: ডাকাতি, চুরি, ব্যভিচার ও ব্যভিচারের অপবাদ -এ চারটির শাস্তি কুরআনে বর্ণিত রয়েছে। পঞ্চমটি মদ্যপানের হদ। এটি বিভিন্ন হাদীস, সাহাবায়ে কেরামের ইজমা তথা ঐকমত্য দ্বারা প্রমাণিত। এভাবে মোট পাঁচটি অপরাধের শাস্তি নির্ধারিত ও হুদৃদরূপে চিহ্নিত হয়েছে।[১৩]

হুদুদ জাতীয় শাস্তি যেমন কোনো শাসক ও বিচারক ক্ষমা করতে পারে না, তেমনি তাওবা করলেও ক্ষমা হয়ে যায় না। তবে খাটি তাওবা দ্বারা আখেরাতের গোনাহ মাফ হতে অব্যাহতি লাভ হতে পারে। তন্মধ্যে শুধু ডাকাতির শাস্তির বেলায় একটি ব্যতিক্রম রয়েছে। ডাকাত যদি গ্রেফতারীর পূর্বে তাওবা করে এবং তার আচার-আচরণের দ্বারাও তাওবার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়, তবে সে হদ থেকে রেহাই পাবে। কিন্তু গ্রেফতারীর পর তাওবা ধর্তব্য নয়। অন্যান্য হুদুদ তাওবা দ্বারাও মাফ হয় না, হোক সে তাওবা গ্রেফতারীর পূর্বে অথবা পরে।[১৪]

হুদুদ[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যবাহী ইসলামী আইনশাস্ত্র ঈশ্বর ও মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধকে বিভক্ত করে। প্রাক্তনদের ঈশ্বরের হুদুদ বা 'সীমানা' লঙ্ঘন করতে দেখা যায়। এই শাস্তিগুলি কুরআন দ্বারা নির্দিষ্ট করা হয়েছিল এবং কিছু ক্ষেত্রে সুন্নাহ দ্বারা নির্দিষ্ট করা হয়েছিল।[১৫][১৬] হুদুদ শাস্তিযুক্ত অপরাধগুলি হলো জিনা (বেআইনী যৌন মিলন), জিনা এর ভিত্তিহীন অভিযোগ,[১৭][১৮] মাদক সেবন, স্থলপথে ডাকাতি এবং চুরির কিছু প্রকার।[১৯][২০] আইনত ইসলামী শাসকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ হুদুদ অপরাধ কিনা তা নিয়ে ফকীহগণ ভিন্ন মত পোষণ করেছেন।[১৫][২১]

হুদুদের শাস্তি অপরাধীদের বেত্রাঘাত করা থেকে শুরু করে প্রকাশ্যে পাথর মেরে মৃত্যুদণ্ড, চুরি বা দূর্নীতি করার অপরাধে হাত কেটে ফেলা এবং ক্রুশবিদ্ধকরণ পর্যন্ত হতে পারে।[২২] হুদুদ অপরাধকে ক্ষতিগ্রস্ত বা রাষ্ট্র কর্তৃক ক্ষমা করা যায় না এবং শাস্তি জনসাধারণের কাছেই বহন করতে হবে।[২৩] যাইহোক, এই শাস্তিগুলির জন্য প্রজ্ঞাময় মানদণ্ডগুলি প্রায়শই অসম্ভবভাবে উচ্চতর ছিল এবং সেগুলি খুব কমই প্রয়োগ করা হয়েছিল।[১৬][২৪] উদাহরণস্বরূপ, জিনা এবং চুরির জন্য হুদুদ প্রয়োজনীয়তা পূরণ করা স্বীকারোক্তি ব্যতীত কার্যত অসম্ভব, যা প্রত্যাহার দ্বারা অবৈধ হতে পারে।[২৫][১৬] একটি হাদীসের উপর ভিত্তি করে ফকীহগণ এই শর্ত দিয়েছেন যে হুদুদ শাস্তি সামান্যতম সন্দেহ বা অস্পষ্টতা দ্বারা পরিহার করা উচিত (শুভুহাত)।[২৫][১৬] কঠোর হুদুদ শাস্তিগুলি হলো ঈশ্বরের বিরুদ্ধে অপরাধের গুরুতর ঘটনাকে প্রতিহত করার পরিবর্তে বাধা দেওয়ার জন্য।[১৬]

উনিশ শতকে, শরিয়া ভিত্তিক অপরাধমূলক আইনগুলি আরব উপদ্বীপের মতো কিছু বিশেষত রক্ষণশীল অঞ্চল ব্যতীত ইসলামী বিশ্বের প্রায় সর্বত্র ইউরোপীয় মডেল দ্বারা অনুপ্রাণিত আইন দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল।[১১][১২][২৬] বিশ শতকের শেষের ইসলামিক পুনরুজ্জীবন শরিয়তের সম্পূর্ণ প্রয়োগের জন্য ইসলামপন্থী আন্দোলনের আহ্বান জানিয়েছিল।[১২][২৭] দলের জন্য হুদুদ শাস্তির পুনঃস্থাপনের কারণ তাদের কোরআনীয় উত্সের কারণে, এবং তাদের উকিলরা প্রায়শই তাদের আবেদনের উপর কঠোর ঐতিহ্যবাহী বিধিনিষেধ উপেক্ষা করেছেন।[১২] বাস্তবে, যে দেশগুলিতে হুদুদ ইসলামপন্থীদের চাপে আইনী সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে, স্থানীয় রাজনৈতিক জলবায়ুর উপর নির্ভর করে তাদের প্রয়োগ বিভিন্ন রকম হয়েছে এবং এগুলি প্রায়শই অল্প পরিমাণে ব্যবহৃত হয় বা আদৌ হয় না।[১২][২৬] তাদের ব্যবহৃত হুদুদ বিতর্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কিসাস[সম্পাদনা]

কিসাস হলো "চোখের জন্য চোখ" এর ইসলামিক মূলনীতি। এই বিভাগে হত্যা এবং শারীরিক নিপীড়ন এর অপরাধ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

এতে শাস্তি হয় যথাযথ প্রতিশোধ বা ক্ষতিপূরণ

কিসাসের বিষয়টি ২০০৯ সালে পশ্চিমা গণমাধ্যমে যথেষ্ট দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল যখন আমিনেহ বাহরামী, একজন অ্যাসিড আক্রমণে অন্ধ হয়ে থাকা ইরানী মহিলা দাবি করেছিলেন যে তার আক্রমণকারীকেও অন্ধ করে দেওয়া উচিত।[২৮][২৯] কিসাসের অধীনে শাস্তির ধারণা "সমাজ" বনাম "ব্যক্তি" (ভুল কর্তা) এর উপর ভিত্তি করে নয়, বরং "ব্যক্তি এবং পরিবার" (শিকার (গুলি)) বনাম (ভুল কর্তা (গুলি))।[৩০] সুতরাং ভুক্তভোগী অপরাধীকে ক্ষমা করতে এবং হত্যার ক্ষেত্রেও শাস্তি আটকে রাখার ক্ষমতা রাখে। বাহরামি তার আক্রমণকারীকে ক্ষমা করে দিয়েছিল এবং ২০১১ সালে এটি পরিচালিত হওয়ার ঠিক আগে তার শাস্তি (তার চোখে অ্যাসিডের ফোঁটা) বন্ধ করে দিয়েছে।[৩০]

দিয়াত[সম্পাদনা]

দিয়া আইনে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির উত্তরাধিকারীর জন্য ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়। আরবিতে এই শব্দের অর্থ রক্তের অর্থ এবং মুক্তিপণ উভয়ই।

কুরআন কিসাস (অর্থাৎ প্রতিশোধ) এর মূলনীতি নির্দিষ্ট করেছে, তবে নির্দেশ দিয়েছে যে কারও ক্ষতিপূরণ হিসেবে (দিয়া) চাইতে হবে এবং রেট্রিবু দাবি করা উচিত নয় "

আমি এতে তোমাদের জন্য (তাওরাত) জীবনের জন্য জীবন এবং চোখের জন্য একটি চক্ষু এবং নাকের জন্য একটি নাক, কানের জন্য একটি কান এবং দাঁতের জন্য দাঁত এবং ক্ষতের প্রতিশোধের জন্য ক্ষত নির্ধারণ করেছি;’ আর যে এটিকে ক্ষমা করে দেয়, তা তার জন্য কাফফারা, আর যে ঈশ্বর যা অবতীর্ণ করেছেন তা দ্বারা বিচার করবে না, তারাই জালেম।[৩১]

তাজির[সম্পাদনা]

তাজির এমন কোনও অপরাধ অন্তর্ভুক্ত করে যা হুদুদ বা কিসাসের সাথে খাপ খায় না এবং যার কারণে কুরআনে বর্ণিত কোন শাস্তি নেই। ইসলামী ফৌজদারী আইনশাস্ত্রে তাজির হলো সেই অপরাধগুলি যেখানে শাস্তি রাষ্ট্রের বিবেচনার ভিত্তিতে হয়, পাবলিক বা পাবলিক অর্ডারকে ধ্বংসাত্মক বলে বিবেচিত ক্রিয়াকলাপের জন্য শাসক বা কাদি, তবে শরীয়তের অধীনে হাদ বা কিসাস হিসাবে শাস্তিযোগ্য নয়।[৩২]

আরোও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dammer, Harry; Albanese, Jay (২০১১)। Comparative Criminal Justice Systems (5th সংস্করণ)। Cengage Learning.। পৃষ্ঠা 60। আইএসবিএন 9781285067865। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৫ 
  2. Criminal Law Oxford Islamic Studies, Oxford University Press (2013)
  3. Mohamed S. El-Awa (১৯৯৩)। Punishment In Islamic Law। American Trust Publications। পৃষ্ঠা 1–68। আইএসবিএন 978-0892591428 
  4. Silvia Tellenbach (২০১৫)। The Oxford Handbook of Criminal Law (Ed: Markus D. Dubber and Tatjana Hornle)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 251–253। আইএসবিএন 978-0199673599 
  5. Tabassum, Sadia (২০ এপ্রিল ২০১১)। "Combatants, not bandits: the status of rebels in Islamic law"। International Review of the Red Cross93 (881): 121–139। ডিওআই:10.1017/S1816383111000117 
  6. Omar A. Farrukh (১৯৬৯)। Ibn Taimiyya on Public and Private Law in Islam or Public Policy in Islamic Jurisprudenceওসিএলসি 55624054 
  7. M. Cherif Bassiouni (1997), Crimes and the Criminal Process, Arab Law Quarterly, Vol. 12, No. 3 (1997), pp. 269-286
  8. Knut S Vikor. Between God and the Sultan: A History of Islamic Law. Oxford University Press: 2005. pp. 281-285
  9. Calder, Norman (২০০৯)। "Law. Legal Thought and Jurisprudence"। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। 
  10. Ziadeh, Farhat J. (২০০৯c)। "Criminal Law"। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। 
  11. Rudolph Peters (২০০৯)। "Ḥudūd"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। আইএসবিএন 9780195305135 
  12. Vikør, Knut S. (২০১৪)। "Sharīʿah"। Emad El-Din Shahin। The Oxford Encyclopedia of Islam and Politics। Oxford University Press। ২০১৭-০২-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৭-০৬ 
  13. "Translation of the meanings Ayah 33 Surah Al-Mā'idah - Bengali Translation - Dr. Abu Bakr Muhammad Zakaria"The Noble Qur'an Encyclopedia (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৮-১২ 
  14. "Translation of the meanings Ayah 34 Surah Al-Mā'idah - Bengali Translation - Dr. Abu Bakr Muhammad Zakaria"The Noble Qur'an Encyclopedia (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৮-১২ 
  15. Silvia Tellenbach (2015), "Islamic Criminal Law", In The Oxford Handbook of Criminal Law (Ed: Markus D. Dubber and Tatjana Hornle), Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৯৬৭৩৫৯৯, pp. 251-253
  16. A.C. Brown, Jonathan (২০১৪)। "5. Muslim Martin Luthers and the Paradox of Tradition"। Misquoting Muhammad: The Challenge and Choices of Interpreting the Prophet's Legacyবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজনOneworld Publications। পৃষ্ঠা 180–181আইএসবিএন 978-1780744209 
  17. Z. Mir-Hosseini (2011), Criminalizing sexuality: zina laws as violence against women in Muslim contexts, SUR-International Journal on Human Rights, 8(15), pp 7-33
  18. Asifa Quraishi (২০০০)। Windows of Faith: Muslim Women Scholar-activists in North America। Syracuse University Press। পৃষ্ঠা 126। আইএসবিএন 978-0-815-628514 
  19. Otto, Jan Michiel (২০০৮)। Sharia and National Law in Muslim Countries। Amsterdam University Press। পৃষ্ঠা 663, 31। আইএসবিএন 978-90-8728-048-2 
  20. Philip Reichel and Jay Albanese (2013), Handbook of Transnational Crime and Justice, SAGE publications, আইএসবিএন ৯৭৮-১৪৫২২৪০৩৫০, pp. 36-37
  21. Campo, Juan Eduardo (2009). Encyclopedia of Islam, p.174. Infobase Publishing. আইএসবিএন ৯৭৮-০৮১৬০৫৪৫৪১.
  22. Hadd%5d Oxford Dictionary of Islam, Oxford University Press (2012) http://www.oxfordislamicstudies.com/article/opr/t125/e757 Hadd] Oxford Dictionary of Islam, Oxford University Press (2012) |ইউআরএল= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  23. Terrill, Richard J. (২০০৯) [1984]। World Criminal Justice Systems: A Comparative Survey। Routledge.। পৃষ্ঠা 629। আইএসবিএন 9781437755770। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৫ 
  24. Wael Hallaq (2009), An introduction to Islamic law, p.173. Cambridge University Press. আইএসবিএন ৯৭৮০৫২১৬৭৮৭৩৫.
  25. Wael, B. Hallaq (২০০৯)। Shariah: Theory, Practice and TransformationsCambridge University Press। পৃষ্ঠা 311। আইএসবিএন 978-0-521-86147-2 
  26. Otto, Jan Michiel (২০০৮)। Sharia and National Law in Muslim Countries: Tensions and Opportunities for Dutch and EU Foreign Policy (PDF)। Amsterdam University Press। পৃষ্ঠা 18–20। আইএসবিএন 978-90-8728-048-2 
  27. Mayer, Ann Elizabeth (২০০৯)। "Law. Modern Legal Reform"। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। 
  28. Visions of Sharia ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৯ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে| orlando sentinel
  29. "In Iran, a case of an eye for an eye"| Phillie Metro| March 29, 2009
  30. Burki, Shireen (২০১৩)। The Politics of State Intervention: Gender Politics in Pakistan, Afghanistan ..। Lexington Books.। পৃষ্ঠা 238–9। আইএসবিএন 9780739184332। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৫ 
  31. [কুরআন ৫:৪৫]
  32. Mark Cammack (2012), Islamic Law and Crime in Contemporary Courts, BERKELEY J. OF MIDDLE EASTERN & ISLAMIC LAW, Vol. 4, No.1, p. 2

আরোও পড়ুন[সম্পাদনা]

সংক্ষিপ্ত জরিপ[সম্পাদনা]

  • Ziadeh, Farhat J. (২০০৯)। "Criminal Law"। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। 
  • M. Cherif Bassiouni (1997), Crimes and the Criminal Process, Arab Law Quarterly, Vol. 12, No. 3 (1997), pp. 269-286 (via JSTOR)
  • Basic features of Islamic criminal law Christine Schirrmacher (2008), Islam Institute, Germany
  • Islamic Criminal Law and Procedure Matthew Lipman, Boston College International and Comparative Law Review, Volume XII, Issue 1, pp. 29-62
  • Silvia Tellenbach (২০১৪)। "Islamic Criminal Law"। Markus D. Dubber, Tatjana Hörnle। The Oxford Handbook of Criminal Law 

Books[সম্পাদনা]

  • Vikør, Knut S. (২০০৫)। Between God and the Sultan: A History of Islamic Law। Oxford University Press। 
  • Peters, Rudolph (২০০৬)। Crime and Punishment in Islamic Law: Theory and Practice from the Sixteenth to the Twenty-First Century। Cambridge University Press। 
  • Wael B. Hallaq (২০০৯)। Sharī'a: Theory, Practice, Transformations। Cambridge University Press।