ইসলামি অর্থনীতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইসলামি অর্থনীতি (আরবি: الاقتصاد الإسلامي‎‎) হলো কুরআনসুন্নাহ মোতাবেক অর্থনৈতিক লেনদেন ব্যবস্থা।[১] ইসলামি কৃষ্টি ও তামাদ্দুন সমৃদ্ধ যে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে তাই ইসলামি অর্থনীতি। প্রখ্যাত সমাজ বিজ্ঞানী ইবনে খালদুন বলেন- ইসলামি অর্থনীতি হলো জনসাধারণের সাথে সম্পর্কিত বিজ্ঞান। মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর নীতি-পদ্ধতি অনুসরণে সৃষ্টির লালন-পালনের যাবতীয় জাগতিক সম্পদের সামগ্রিক কল্যাণধর্মী ব্যবস্থাপনাই ইসলামি অর্থনীতি। প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ ডঃ এম নেজাতুল্লাহ সিদ্দিকী বলেন- "ইসলামি অর্থনীতি সমকালীন অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় মুসলিম চিন্তাবিদদের জবাব"। ডঃ এম এ মান্নান বলেন- "ইসলামি অর্থনীতি হলো একটি সামাজিক বিজ্ঞান যা কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে মানুষের অর্থনৈতিক সমস্যাবলি নিয়ে আলোচনা করে"।

মাওলানা হিফযুর রহমান (র.) বলেন, "শরী'আতের পরিভাষায়, যে বিদ্যা বা জ্ঞানের মাধ্যমে এমন সব উপায় সম্বন্ধে জ্ঞাত হওয়া যায়; যার দ্বারা ধন-সম্পদ আহরণ ও ব্যয়ের উপযুক্ত ও সঠিক ,পন্থা এবং বিনষ্ট হওয়ার প্রকৃত কারণ নির্দেশ করা হয়, তাকে 'ইসলামি অর্থনীতি' (ইলমুল ইকতিসাদ) বলা হয় ।"[২]

ইসলামি অর্থনীতির গুরুত্ব, উদ্দেশ্য এবং সফলতা[সম্পাদনা]

ঈমান ও আমলের ক্ষেত্রে যেমনিভাবে আল্লাহর বিধান মেনে চলা আবশ্যক, অনুরূপভাবে অর্থ উপার্জন ও ব্যয় এবং ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনার ক্ষেত্রেও আল্লাহর বিধান মেনে চলা আবশ্যক । অর্থনৈতিক জীবনে যাতে ভারসাম্য ক্ষুণ্ন না হয় এর জন্য হালাল-হারামের বিধান প্রবর্তন করা হয়েছে । গরীব যেন অনাহারে-অর্ধাহারে মারা না যায় সেজন্য যাকাত, উশর, খারাজ ইত্যাদির বিধান রাখা হয়েছে । এমনিভাবে ধনবৈষম্য সৃষ্টিকারী শোষণমূলক সুদ, জুয়া, লটারী, কালোবাজারী, মওজুদদারী, ওজনে কম দেওয়া, ভেজাল ইত্যাদি উপার্জনের পন্থাকে হারাম করা হয়েছে । বস্তুত ইসলামি অর্থব্যবস্থায় কোনোরূপ যুলুম, শোষণ, বঞ্চনা ও বৈষম্যের অবকাশ নেই । মদীনার ইসলামি রাষ্ট্রে এর বাস্তবতা দেখা যায় । যে আরবের অধিবাসীরা একসময় বৈষম্য ও দারিদ্রের শিকার ছিল, ইসলামি অর্থনীতির স্পর্শে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই তাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থাতে এমন পরিবর্তন সাধিত হলো যে, যাকাতের অর্থ নেওয়ার মতোও কাউকে পাওয়া যেত না ।[৩]

রূপরেখা[সম্পাদনা]

ইসলামিক অর্থনীতির মৌলিক রূপরেখা হলো-

  1. কোরআনসুন্নাহর নৈতিক ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত।[৪][৫]
  2. যাকাত,জিজিয়া কর ইত্যাদির উপর নির্ভরশীল ও সুদ[৬] বর্জিত অর্থনীতি।

মূলনীতি[সম্পাদনা]

কিছু মুসলিম পন্ডিতের মত অনুযায়ী, মূলত সাতটি প্রধান মূলনীতি হল ইসলামি অর্থনীতির মৌলিক ভিত্তি। এই মূলনীতিগুলোর নিরিখেই অর্থনীতির সকল কর্মকৌশল, কর্মপদ্ধতি ও কর্মদ্যোগ নির্ধারিত ও পরিচালিত হয়ে থাকে। এগুলো যথাক্রমে:[৭]

  1. সকল ক্ষেত্রে আমর বিল মারুফ এবং নেহী আনিল মুনকার-এর বাস্তবায়নের মাধ্যমে তাযকিয়া (আত্মশুদ্ধি) ও তাকওয়া (আল্লাহভীরুতা) অর্জন;
  2. সকল কর্মকাণ্ডেই শরীয়াহর বিধান মান্য করা;
  3. শ্রমভিত্তিক বিনিময় ও বিনিময়ভিত্তিক শ্রম
  4. আদল (বা ন্যয়বিচার) ও ইহসান (বা কল্যাণ) - প্রয়োগ;
  5. ব্যক্তির সম্পদে সমাজের অধিকার প্রতিষ্ঠা;
  6. ভারসাম্যপূর্ন জীবন যাপনের প্রয়াস;
  7. মৌলিক মানবিক প্রয়োজন পূরন নিশ্চত করা; এবং
  8. যুগপৎ দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ অর্জন

সংজ্ঞা এবং বর্ণনা[সম্পাদনা]

হাসান রাজার মতে, ইসলামী অর্থনীতির আনুষ্ঠানিক/অনানুষ্ঠানিক অস্তিত্বের ছয় দশকেরও বেশি সময় পরেও, ইসলামী অর্থনীতির সংজ্ঞা নিয়ে এখনও কেউ ঐকমত্য হয়নি। প্রস্তাবিত কিছু সংজ্ঞা নিচে অন্তর্ভুক্ত করা হলো:

  • "that branch of knowledge which helps to realize human well-being through an allocation and distribution of scarce resources that is in conformity with Islamic teachings without unduly curbing individual freedom or creating continued macroeconomic and ecological imbalances." (Umar Chapra) (similarly, the "study of human behavior with regard to acquiring and using resources for the satisfaction of necessities, needs, and other desires," but "based on the assumptions" of the Islamic "outlook on life and humanity". (Monzer Kahf))[৮]
  • "the study of an ... economy which abides by the rules of the Shariah", i.e. an Islamic economy. (A definition used by some, according to M. Anas Zarqa)[৯]
  • একটি শৃঙ্খলা যা পশ্চিমা অর্থনীতির অনুশীলনের বাইরে চলে যায় - যা "ইতিবাচক বিশ্লেষণ" করতে চায় এবং কী কী তার একটি উদ্দেশ্যমূলক বিবরণ দিতে চায় - যা হওয়া উচিত এবং হতে পারে তার আদর্শ নীতির ব্যবস্থাপত্র প্রদান করা[১০] এবং যা "মানুষের ভিত্তি আকাঙ্ক্ষার অনুসারী থেকে উচ্চতর লক্ষ্য অর্জনের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের রূপান্তর" অর্জন করতে চায়। [১১](ফয়সাল খান [১০]বর্ণনা করছেন এমআর জামান, এমইউ চাপরা, এবং এমএন খান ও এমআই ভাট্টির ধারণা । )
  • "a discipline that is guided by the Shariah and studies all human societies" (A definition used by others, according to M. Anas Zarqa)[১২][৯]
  • "restatements of Islamic economic teachings", using "modern economic jargon". (What most of the knowledge content in the body of Islamic economics amounts to according to economist Muhammad Akram Khan)[১৩]
  • একটি আদর্শ
    • "একটি বিপ্লবী মতাদর্শ" যা "দুর্নীতিগ্রস্ত বাস্তবতা...কে একটি খাঁটি একটিতে" পরিবর্তন করতে এবং "রাজনৈতিক অর্থনীতির বিজ্ঞান নয়" বা "বিদ্যমান বাস্তবতার একটি বস্তুনিষ্ঠ বিশ্লেষণ"।(আয়াতুল্লাহ মুর্তজা মুতাহহারী)
    • বিংশ শতাব্দীর ইসলামপন্থীদের দ্বারা ( আবুল আ'লা মওদুদী, আয়াতুল্লাহ মুহাম্মাদ বাকির আল-সদর, আবোলহাসান বানিসাদর, ইত্যাদি) দ্বারা শরিয়া (ইসলামী আইন) থেকে মৌলিক ব্যবস্থাপত্র গ্রহণ এবং তাদের পদ্ধতিগত ও ধারণার ভিত্তিতে একটি "আদর্শগত গঠন" তৈরি করা হয়েছে। বিংশ শতাব্দীর দুটি ব্যবস্থা, মার্কসবাদ এবং পুঁজিবাদের মধ্যে একটি মধ্যম স্থল অফার করে সুসঙ্গত এবং কার্যকরী দল।"(সমাজ বিজ্ঞানী অলিভিয়ার রায় ) [১৪]
  • জামান (২০১৫) যুক্তি দেখান যে ইসলামী অর্থনীতির উপযুক্ত সংজ্ঞা নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে কারণ পশ্চিমা অর্থনীতির ধারণাগুলিকে ইসলামী আদর্শের সাথে মিশ্রিত করার প্রচেষ্টার কারণে, যখন দুটি বিভিন্ন মাত্রায় একে অপরের বিরোধী।তিনি সম্পূর্ণরূপে ইসলামী উৎসের উপর ভিত্তি করে একটি সংজ্ঞা প্রস্তাব করেছেন: "ইসলামী অর্থনীতি হল আমাদের ব্যক্তিগত জীবনে (মাইক্রো), আমাদের সম্প্রদায়ে (মেসো) এবং উম্মাহ (উম্মাহ) স্তরে অর্থনৈতিক বিষয় সম্পর্কিত আল্লাহর আদেশ বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা/সংগ্রাম। ম্যাক্রো)।"

ফিকহ ও ইসলামী অর্থনীতি[সম্পাদনা]

ফিকহ (ধর্মীয় আইন) অর্থনীতির সাথে সম্পর্কিত বেশ কিছু ঐতিহ্যগত ধারণা তৈরি করেছে।এই গুলো অন্তর্ভুক্ত করা হলো:

  • জাকাত - " মুদ্রা, স্বর্ণ বা ফসলের মতো নির্দিষ্ট সম্পদের দাতব্য কর আরোপ করা, আটটি ব্যয়ের জন্য এই কর বরাদ্দ করার লক্ষ্যে যা কুরআনে স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে, যেমন অভাবীদের সাহায্য করা।"
  • ঘরর - "অনিশ্চয়তা"।একটি চুক্তিতে অত্যধিক অনিশ্চয়তার কোনো উপাদানের উপস্থিতি নিষিদ্ধ।
  • রিবা -" সুদ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে (আধুনিক ইসলামি অর্থনীতিবিদরা ঐকমত্যে পৌঁছেছেন যে রিবা শুধুমাত্র সুদের পরিবর্তে যে কোনো ধরনের সুদ)" মা নিষিদ্ধ।

আরেকটি উৎস তালিকা "সাধারণ নিয়ম" এর মধ্যে রয়েছে রিবা, ঘরর এবং এছাড়াও কয়েকটি নিষিদ্ধ কাজ হল

  • কিমার (জুয়া) [১৫] এবং
  • তাওউনের উৎসাহ (পারস্পরিক সহযোগিতা), [১৫]
  • "বাণিজ্যিক লেনদেনে ন্যায্যতার ওভাররাইডিং মতবাদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।" [১৫]

এই ধারণাগুলি, ইসলামিক আইনের অন্যদের মতো, কুরআন এবং হাদিস অধ্যয়ন থেকে এসেছে - বা একজন পর্যবেক্ষক হিসাবে এটি ছিল,

বিচ্ছিন্ন ব্যবস্থাপত্র, উপাখ্যান, উদাহরণ, নবীর বাণীর উপর ভিত্তি করে নির্মিত, সবগুলো একত্রিত করা হয়েছে এবং ভাষ্যকারদের দ্বারা একটি ইন্ডাকটিভ, ক্যাসুস্টিক পদ্ধতিতে পদ্ধতিগতভাবে তৈরি করা হয়েছে।"

কুরআন এবং হাদিস ছাড়াও, কখনও কখনও অন্যান্য উত্স যেমন আল-উরফ (কাস্টম), বা আল- ইজমা ( আইনবিদদের ঐক্যমত) ব্যবহার করা হয়, [১৬] এমন আইন তৈরি করতে যা নির্ধারণ করে যে কাজগুলি নিষিদ্ধ, নিরুৎসাহিত, অনুমোদিত, উত্সাহিত করা হয়েছে কিনা। এবং মুসলমানদের জন্য ফরজ ।ফিকহের বিভিন্ন মাযহাবের ( মাযহাব ) বিধানে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে।

অন্যান্য কাজগুলি ফিকহের বিষয়গুলিকে চারটি "চতুর্থাংশে" ভাগ করেছে: [১৭] সাধারণত উপাসনা (আল-ইবাদাত), বিবাহ এবং পারিবারিক আইন (আল-মুনাকাহাত), ফৌজদারি আইন (জিনায়াত), বাণিজ্যিক লেনদেন আইন ( মুআমালাত )। কমপক্ষে একজন লেখক (এম কাহফ) লিখেছেন মুআমালাত ইসলামী অর্থনীতির সাথে "ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত" [১৮] (তবে ফিকাহ বিষয়গুলির" কোয়ার্টারস " বিভাগের সাথেও মুআমালাত বিবাহ বা বিবাহের পোশাক অন্তর্ভুক্ত করা হবে না (মাহর(যা কমপক্ষে প্রায়শই বিবাহ এবং পারিবারিক আইনের অধীনে আসে), বা ভিক্ষা গণনা (জাকাত, যা আল-ইবাদাত এর অধীনে আসে )).

বেশ কয়েকজন পণ্ডিত (অলিভিয়ার রায়, তৈমুর কুরান, ওমর নর্মান) ইসলামী বিশ্বের অর্থনৈতিক বিষয়গুলির প্রতিফলনের সাম্প্রতিকতা,[১৯][১৪][২০] এবং তথ্যের উপর ভিত্তি করে অর্থনীতির সামাজিক বিজ্ঞান এবং প্রকাশিত সত্যের উপর ভিত্তি করে ইসলামী আইনশাস্ত্রের মধ্যে পার্থক্য লক্ষ্য করেছেন।

সালমান আহমেদ শেখ এবং মনজার কাহফ ফিকহ এবং ইসলামী অর্থনীতির ভূমিকার মধ্যে একটি স্পষ্ট পার্থক্যের উপর জোর দিয়েছেন, শাইখ বলেছেন

অনুসন্ধানের একটি পৃথক ক্ষেত্র হিসাবে মেধাবী হওয়ার জন্য, ইসলামী অর্থনীতি শুধুমাত্র মূল নীতির উপর ভিত্তি করে অর্থনৈতিক বিষয়গুলিতে আইন ব্যাখ্যা এবং ব্যাখ্যা করার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে পারে না।যেহেতু এই ফাংশনটি ইতিমধ্যেই ইসলামী আইনশাস্ত্রের শৃঙ্খলা দ্বারা সঞ্চালিত হয়েছে।..

এম. কাহফ লিখেছেন যে মু'আমালাত এবং ইসলামী অর্থনীতি "প্রায়শই মিশে যায়", [১৮] মুআমালাত "ইসলামী অর্থনীতিতে অর্থনৈতিক ও আর্থিক সম্পর্কের জন্য আচরণের শর্তাবলী সেট করে" এবং "নতুন যন্ত্রের ভিত্তি" প্রদান করে। ইসলামিক অর্থায়ন বিকশিত হয়েছে, [১৮] কিন্তু যে " ফিকহের প্রকৃতি পৃথক লেনদেন এবং তাদের ক্ষুদ্র আইনগত বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে একটি উদ্বেগ আরোপ করে", যাতে ফিকহের পরিপ্রেক্ষিতে ইসলামী অর্থনীতি বিশ্লেষণ করা "একটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক তত্ত্ব প্রদান করার ক্ষমতা" হারানোর ঝুঁকি রাখে। [১৮]

অর্থনীতিবিদ মুহাম্মদ আকরাম খানের মতে ইসলামী অর্থনীতির "প্রধান তত্ত্ব" হল "রিবা তত্ত্ব", যেখানে "আরেকটি ল্যান্ডমার্ক" হল জাকাত, সম্পদ এবং আয়ের উপর কর। [২১] অন্য একজন সমসাময়িক লেখক সালাহ আল-শেখের মতে, "ইসলামী অর্থনৈতিক নীতি" (যাকে তিনি "ফিকহি অর্থনৈতিক মডেল" বলে) সমর্থনকারী উপাদান হিসেবে ফকিহ (ইসলামী আইনশাস্ত্র) ব্যবহার করে, কিন্তু কু' -এর মধ্যে নৈতিক শিক্ষার উপর ভিত্তি করে। রানশরীয়াহর মৌলিক নীতিগুলোর মধ্যে রয়েছে ঘরর এবং (ফাদল মাল বিলা ইওয়াদ)।ঘারার জোর দিয়ে বলেন যে দুই ব্যক্তি একটি লেনদেন সম্পূর্ণ করার আগে একটি বাণিজ্য বা লেনদেন সম্পর্কে সমস্ত জ্ঞান জানা যায় এবং (ফাদল মাল বিলা 'ইওয়াদ) বাণিজ্য ও ব্যবসার মাধ্যমে অযৌক্তিক সমৃদ্ধির বিরুদ্ধে সতর্ক করে।এই নীতিগুলি "প্রথম অর্থনৈতিক বিধিগুলির মধ্যে" ছিল এবং তাদের দর্শন আজ আধুনিক পুঁজিবাদে দেখা যায়।শরীয়াহর মধ্যে, এল-শেখ বলে, ঘরর অসমমিত তথ্যের বিরুদ্ধে একটি ঐশ্বরিক প্রতিবন্ধক হিসাবে কাজ করে এবং বাণিজ্যকে সমৃদ্ধ করতে দেয়।রিবা, নিশ্চিত করে যে প্রতিটি লেনদেন একটি ন্যায্য মূল্যে পরিচালিত হয়, একটি পক্ষকে অতিমাত্রায় লাভবান হতে দেয় না, যা কার্ল মার্কস "দাস ক্যাপিটাল" এর সাথে একটি সমান্তরাল দর্শন শেয়ার করে: সম্প্রদায়ের জন্য একটি বৃহত্তর ফলাফল চাওয়া।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mat, Ismail; Ismail, Yusof। "A Review of Fiqh al-Mua'malat Subjects in Economics and Related Programs at International Islamic University Malaysia and University of Brunei Darussalam" (PDF)kantakji.com। পৃষ্ঠা 1। ২৩ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৫ 
  2. ইসলাম কা ইকতিসাদী নিযাম, মাওলানা হিফযুর রহমান (র.), পৃষ্ঠা. ১৭।
  3. দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, দশম সংস্করন : ফেব্রুয়ারি ২০১২, ফাল্গুন ১৪১৮, রবিউল আউয়াল : ১৪৩৩ , পৃষ্ঠা : ৪৬২ আইএসবিএন ৯৮৪-০৬-০৫৬০-৭
  4. The economic system in contemporary Islamic thought: Interpretation and assessment ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ মে ২০১৬ তারিখে, by Timur Kuran, International Journal of Middle East Studies, 18, 1986, pp. 135–64
  5. Karim, Shafiel A. (২০১০)। The Islamic Moral Economy: A Study of Islamic Money and Financial Instruments। Boca Raton, FL: Brown Walker Press। আইএসবিএন 978-1-59942-539-9 
  6. কুরআন ২:২৭৬
  7. হাবীবুর রহমান, শাহ্‌ মুহাম্মদ (এপ্রিল ২০০৫)। ইসলামি অর্থনীতি নির্বাচিত প্রবন্ধ। বিনোদপুর বাজার, রাজশাহী-৬২০৬: দি রাজশাহী স্টুডেন্ট’স ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন। পৃষ্ঠা পৃষ্ঠা নং– ১০। 
  8. Kahf 2003, পৃ. 25।
  9. Khan 2013, পৃ. 4।
  10. Khan 2015
  11. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Zaman 2008 28 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  12. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; zarqa-2008-30 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  13. Khan 2013, পৃ. xv।
  14. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; roy-133 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  15. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; tabari নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  16. Schirazi 1997
  17. Jaliz, Ramli এবং Shahwan 2014
  18. Kahf 2003
  19. Kuran 2004, পৃ. x।
  20. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; norman-74 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  21. Khan 2013


টেমপ্লেট:ইসলামি ব্যাংকিং ও অর্থসংস্থান