দাওয়াত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

দা'ওয়াহ বা দাওয়াহ (আরবি: دعوة‎, প্রতিবর্ণী. "আমন্ত্রণ"‎) মানে ইসলামের প্রচার। দা'ওয়াহ আক্ষরিক অর্থে "আমন্ত্রণ" করাকে বোঝায়, ক্রিয়ার সক্রিয় অংশগ্রহণ যার অর্থ বিভিন্নভাবে "ডাকা" বা "আমন্ত্রণ জানানো"। একজন মুসলিম যিনি ধর্মীয় কর্মী হিসাবে বা স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টায় দা'ওয়াহ অনুশীলন করেন, তাকে দাঈ, বহুবচন দাওয়াত বলা হয়। এইভাবে একজন দাঈ এমন একজন ব্যক্তি যিনি মানুষকে একটি সংলাপ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইসলাম বোঝার জন্য আমন্ত্রণ জানান, এবং কিছু ক্ষেত্রে মিশনারির ইসলামিক সমতুল্য হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে, যিনি মানুষকে বিশ্বাস, প্রার্থনা বা ইসলামিক জীবনে আমন্ত্রণ জানান।[১]

ইসলামের মধ্যে সালাফি ও জামাতে ইসলামির মতো কিছু গোষ্ঠীর জন্য দাওয়াহকেও রাজনৈতিক কার্যকলাপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই দলগুলোর জন্য, দাওয়াহ প্রচার করার লক্ষ্য হচ্ছে আধুনিক যুগে ইসলামের পতন হিসাবে তারা যা উপলব্ধি করে তার বিপরীত কিছু প্রকৌশলী করা, ইসলামপন্থী মতাদর্শের নিয়মতান্ত্রিক প্রচারের মাধ্যমে এবং শেষ পর্যন্ত একটি ইসলামিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সক্ষম করা।

ইসলামের প্রাথমিক যুগে[সম্পাদনা]

কুরআনে দাওয়াত শব্দটির অন্য ভাবার্থও রয়েছে । উদাহরণস্বরূপ  সূরা ( আর রুম , ৩০ : ২৫  এ ) , এটা বোঝায় কেয়ামতের দিন মৃতদেরকে পুনরুত্থানের জন্য আল্লাহর ডাক (আদেশ) । কুরআনে এটা সাধারনত  নির্দেশ করে জীবিতদের প্রতি আল্লাহর আহ্বানকে , তাঁর ইচ্ছানুসারে ।একইভাবে , ইসলামের প্রথম শতকগুলোতে  যখন   ব্যবহৃত হত , এটা প্রায়শই  নির্দেশ করত ঐ আহ্বানকে , এবং কখনো কখনো  শরিয়া এবং দ্বীন এর সাথে বিনিময় করে ব্যবহৃত হত।

দাওয়াত কর্তব্য হিসাবেও বর্নিত হয়েছে তাদের প্রতি , " সক্রিয়ভাবে প্রণোদিত মুসলমান সাথীরা জীবনের সবোক্ষেত্রে আরও অধিক ধর্মনিষ্ঠা লাভের চেষ্টায় (পাওয়ার লক্ষে ) " , এই সংজ্ঞাটি , যেটা সমকালীন ইসলামী দর্শনের (প্রাথমিক যুগেের) কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছিল ।[২]

মুহাম্মদের যুগে[সম্পাদনা]

৬২৫ সালে[৩] আল রাজি অভিযানের সময় মুহাম্মদ বিভিন্ন উপজাতিতে মিশনারি হিসেবে কিছু লোককে প্রেরণ করেন। কিছু লোক মুহাম্মদের কাছে এসে অনুরোধ করে যে মুহাম্মদ তাদের ইসলাম শেখানোর জন্য প্রশিক্ষক পাঠান, কিন্তু খুজায়মাহের দুই উপজাতি এই লোকদের ঘুষ দেয়, যারা মুহাম্মদের অনুসারীদের দ্বারা খালিদ বিন সুফিয়ান (বানু লাহিয়ান উপজাতির প্রধান) হত্যার প্রতিশোধ নিতে চেয়েছিল।[৪] এই অভিযানে বেশ কয়েকজন মিশনারি নিহত হন, হয় আটজন অথবা অন্য একটি বিবরণ অনুযায়ী, দশজন।[৫]

এরপর ৬২৫ জুলাই[৬] বীর মাওনা অভিযানের সময় মুহাম্মদ বানু আমির উপজাতির কিছু ব্যক্তির অনুরোধে কিছু মিশনারি প্রেরণ করেন,[৭] কিন্তু মুহাম্মদের অনুসারীদের দ্বারা খালিদ বিন সুফিয়ানহত্যার প্রতিশোধ নিতে মুসলমানদের আবার হত্যা করা হয়। এই অভিযানের সময় ৭০ জন মুসলমান নিহত হন।

৬৩০ সালের জানুয়ারি মাসে[৮] খালিদ ইবনে আল ওয়ালিদ (বানু জাধিমা) অভিযানের সময় মুহাম্মদ খালিদ ইবনে ওয়ালিদকে বানু জাধিমা উপজাতিকে ইসলামে আমন্ত্রণ জানাতে পাঠান। এ বিষয়ে সুন্নি হাদিহ সহিহ আল-বুখারিতে উল্লেখ করা হয়েছে,সহীহ বুখারী, ৫:৫৯:৬২৮ (ইংরেজি)

৬২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মুস'ব ইবনে উমাইর প্রথম মুসলিম দূত ছিলেন। তাকে ইয়াথরিবে (বর্তমানে মদিনা) পাঠানো হয়েছিল যাতে তারা জনগণকে ইসলামের মতবাদ শিক্ষা দেয় এবং তাদের পথনির্দেশ দেয়।

৬৩২ সালে মুহাম্মদের মৃত্যুর পর, উপলব্ধ ঐতিহাসিক প্রমাণ থেকে, মনে হয় যে মুহাম্মদের মৃত্যুর পরে মুসলমানরা তাৎক্ষণিকভাবে দাওয়া কার্যক্রম শুরু করেনি- বাইজেন্টাইন এবং পারস্য ভূমির দ্রুত বিজয়ের সময় এবং পরে, তারা স্থানীয় অমুসলিমদের কাছে প্রচার করার জন্য আদৌ সামান্য উদ্যোগী হয়েছিল। ৭২০-এর দশকে তৎকালীন ক্ষমতাসীন উমাইয়া গোত্রের বিরুদ্ধে আব্বাসীয় প্রচারণার পরিপ্রেক্ষিতে মুহাম্মদের মৃত্যুর প্রায় একশ বছর পর দাওয়া ব্যাপক ভাবে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আব্বাসীয়রা ক্ষমতায় আসার সাথে সাথে 'আব্বাসীয় দাওয়া' বন্ধ হয়ে যায়— এই সত্যটি তার রাজনৈতিক প্রকৃতির সত্যতা প্রমাণ করে। দাওয়া সত্যিকারের মিশনারি কার্যকলাপ হিসাবে, যদিও এখনও মুসলিম উম্মার মধ্যে রয়েছে, নবম থেকে ত্রয়োদশ শতাব্দীর ইসমাইলি দা'ওয়া আকারে আবির্ভূত হয়েছিল। ইসমাইলিসকে অনেক দিক থেকে সংগঠিত মুসলিম মিশনারি কার্যক্রমের পথিকৃৎ হিসেবে দেখা যেতে পারে: তাদের অত্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক এবং অত্যাধুনিক দাওয়া কাঠামোর পুনরাবৃত্তি আজ পর্যন্ত খুব কমই হয়েছে। উপরন্তু, ইসমাঈলিসের জন্য, দা'ওয়া একটি রাষ্ট্রীয় অগ্রাধিকার ছিল। ইসমাইলি দা'ওয়া অতিরিক্ত এবং আন্তঃ-উম্মেটিক ফর্মগুলি পরিবেষ্টিত করে এবং ধর্মতত্ত্ব এবং রাজনীতি উভয়কেই মিশ্রিত করে।

উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

ইসলামী ধর্মতত্ত্বে (আকিদা), দা'ওয়াহের উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষ, মুসলমান ও অমুসলিমদের আমন্ত্রণ জানানো, কুরআনে প্রকাশিত আল্লাহর উপাসনা ও নবী মুহাম্মদের সুন্নাহ বোঝা এবং মুহাম্মদ সম্পর্কে অবহিত করা।

"আল্লাহর প্রতি আহ্বান" হিসাবে দা'ওয়াহ হল সেই উপায় যার মাধ্যমে মুহাম্মদ মানবজাতির কাছে কুরআনের বার্তা ছড়িয়ে দিতে শুরু করেছিলেন। মুহাম্মদের পর তাঁর অনুসারীও উম্মাহ (মুসলিম সম্প্রদায়) এর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। কেন এবং কিভাবে কুরআন একেশ্বরবাদ প্রচার করে সে সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে তারা কুরআনের বার্তা পৌঁছে দেয়। মুহাম্মদ ইসলামকে পূর্ববর্তী সকল নবীদের প্রকৃত ধর্ম ও মিশন হিসেবে দেখেছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে তাদের আহ্বান তাদের নিজের লোকদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল তবে তার সার্বজনীন ছিল। চূড়ান্ত নবী হিসেবে তার লক্ষ্য ছিল ইসলামের প্রতি এই আহ্বান ও আমন্ত্রণ (দাওয়া) সমগ্র বিশ্বের কাছে পুনরাবৃত্তি করা। মুহাম্মদ বিভিন্ন অমুসলিম শাসকদের কাছে চিঠি লিখে ধর্মান্তরিত হওয়ার আমন্ত্রণ জানান।

দাওয়াত এর গুরুত্ব[সম্পাদনা]

দাওয়াত এর গুরুত্ব সমন্ধে কুরআনে বহুবার জোর দেওয়া হয়েছে  :

যখন  নবী (সা :) মু‘য়ায ইবনে জাবাল -কে ইয়ামানে পাঠালেন, তখন তিনি তাঁকে বললেন, " তুমি আহলে কিতাবদের একটি কাওমের কাছে যাচ্ছ। অতএব, তাদের প্রতি তোমার প্রথম আহবান হবে- তারা যেন আল্লাহর একত্ববাদকে মেনে নেয়। তারা তা জেনে নিলে তাদেরকে জানিয়ে দাও যে, আল্লাহ্ দিনে রাতে তাদের প্রতি পাঁচ বার সালাত ফরজ করে দিয়েছেন। যখন তারা সালাত আদায় করবে, তখন তুমি তাদেরকে জানিয়ে দাও যে, তাদের ধন-সম্পদে আল্লাহ্ তাদের প্রতি যাকাত ফরজ করেছেন। তা তাদেরই ধনশালীদের থেকে গ্রহণ করা হবে। আবার তাদের ফকীরদেরকে তা দেয়া হবে। যখন তারা স্বীকার করে নেবে, তখন তাদের থেকে গ্রহণ কর। তবে লোকজনের ধন-সম্পদের উত্তম অংশ গ্রহণ করা থেকে বেঁচে থাক। "[৯]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "Oxford Islamic Studies Online"। Oxfordislamicstudies.com। ২০০৮-০৫-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৯-১৯ 
  2. See entry for da‘wah in the Encyclopaedia of Islam.
  3. "Mubarakpuri, The Sealed Nectar, p. 187"www.webcitation.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৬ 
  4. Watt, William Montgomery (১৯৮১)। Muhammad at Medina (ইংরেজি ভাষায়)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা ৩৩। আইএসবিএন 978-0-19-577307-1The common version, however, is that B. Lihyan wanted to avenge the assassination of their chief at Muhammad's instigation, and bribed two clans of the tribe of Khuzaymah to say they wanted to become Muslims and ask Muhammad to send instructors. 
  5. محمد, حواري، مصعب (২০০৭)। رحلة النبوة في سلمها وحربها: نظرات عملية في تطبيق الأحكلم الإلهية (আরবি ভাষায়)। دار الضياء،। আইএসবিএন 978-9957-05-164-8 
  6. Tabari, Muhammad ibn Yarir al-; ?abar?; a?- ?abar?, Mu?ammad Ibn-?ar?r (১৯৮৭-০১-০১)। The History of al-Tabari Vol. 7: The Foundation of the Community: Muhammad At Al-Madina A.D. 622-626/Hijrah-4 A.H. (ইংরেজি ভাষায়)। SUNY Press। পৃষ্ঠা ১৫১। আইএসবিএন 978-0-88706-344-2 
  7. "Mubarakpuri, The Sealed Nectar, p. 188"www.webcitation.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৬ 
  8. Atlas of the Prophet's Biography: Places, Nations, Landmarks (ইংরেজি ভাষায়)। Darussalam। ২০০৪। পৃষ্ঠা ২২৬। আইএসবিএন 978-9960-897-71-4 
  9. সহীহ বুখারী , খন্ড ৯, পৃষ্ঠা , ৩৪৮–৯; #৭৩৭১ এবং সহীহ মুসলিম , খন্ড ১, পৃষ্ঠা 15, #২৮ .

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]