ইবাদাত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(ইবাদত থেকে পুনর্নির্দেশিত)

ইবাদাত আরবি আবদ শব্দ থেকে এসেছে। এর অর্থ হলো আনুগত্য, দাসত্ব, গোলামী, বন্দেগি ইত্যাদি। সুতরাং ইবাদাত মানে হচ্ছে বন্দেগি বা গোলামী করা। ইসলামি পরিভাষায় দৈনন্দিন জীবনের সব কাজ-কর্মে আল্লাহর বিধি-বিধান মেনে চলাকে ইবাদত বলা হয়।[১] আল্লাহ কুরআনে ইরশাদ করেন- وَمَا خَلَقْتُ الْجِنَّ وَالْإِنسَ إِلَّا لِيَعْبُدُونِ অর্থাৎ আমি জিন ও মানবজাতিকে কেবল আমারই ইবাদত ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করিনি। (সূরা যারিয়াত : আয়াত ৫৬)[২][৩]

ইবাদতের মূলনীতি[সম্পাদনা]

ইবাদত হলো সম্পূর্ণরূপে কুরআন-সুন্নাহ নির্ভর বিষয়। আল্লাহ কিভাবে কোন পদ্ধতিতে তাঁর দাসত্ব তথা ইবাদত পছন্দ করেন, তা কেবল কুরআন ও রাসুলুল্লাহ সুন্নাহ ব্যতীত অন্য কোনো মাধ্যমে জানা কারও পক্ষে সম্ভব নয়। তাই ইবাদাতের ক্ষেত্রে নব-উদ্ভাবন বা মনগড়া পদ্ধতির কোনো অবকাশ নেই। কেননা কিভাবে ইবাদত করলে আল্লাহ খুশি ও সন্তুষ্ট হবেন তা কুরআন ও সুন্নাহর মাধ্যমেই আল্লাহ তাঁর বান্দাদেরকে পরিপূর্ণরূপে জানিয়ে দিয়েছেন। তাই কুরআন ও সুন্নাহর পরিপূর্ণ অনুসরণই হলো ইবাদতের মূলনীতি।

ইবাদত[সম্পাদনা]

ইবাদাত (عبادات) হলো ইবাদতের বহুবচন। [৪] ইবাদহ একাধিক অর্থ থাকলেও এটি ইসলামে উপাসনা পরিচালনার বিধি[৫] বা সমস্ত মুসলমানের নির্ধারিত বয়সের পরে ধর্মীয় উপাসনা কর্তব্য সম্পর্কে ইসলামী আইনশাস্ত্র (ফিকাহ) মেনে তাদের দেহ ও মন পরিচালিত কার

ইসলাম ধর্মে ইবাদত এর পাঁচটি স্তম্ভ রয়েছে। এই পাঁচটি বিষয়ের উপর দৃঢ় বিশ্বাস স্থাপন করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য ফরজ।[৬]

  • কালেমা শাহাদাত: কালেমা শাহাদাত বলতে বুঝানো হয়েছে কালেমায়ে শাহাদাত মুখে বলা (সাক্ষ্য দেওয়া) ও অন্তরে বিশ্বাস করা (বিশ্বাস)৷ এই বিশ্বাসকে বলা হয় "ঈমান"৷[৬]
  • সালাত: নামাজ বা সালাত হল ইসলাম ধর্মের প্রধান ইবাদাত। প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা প্রত্যেক মুসলিমের জন্য আবশ্যক। ঈমান বা বিশ্বাসের পর নামাযই ইসলামের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ।[৬]
  • যাকাত: মুসলমানদের নির্ধারিত সীমার অধিক সম্পত্তি অর্জিত হলে তা হিজরি সনের ১ বছর ধরে সংরক্ষিত থাকলে মোট সম্পত্তির ২.৫ শতাংশ (২.৫%) বা ১/৪০ অংশ গরীব-দুঃস্থদের মাঝে বিতরণ করাই হলো যাকাত। [৬]
  • রোজা: সুবহে সাদেক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার পানাহার, পাপাচার, কামাচার এবং সেই সাথে যাবতীয় ভোগ-বিলাস থেকেও বিরত থাকার নাম রোযা। ইসলামী বিধান অনুসারে, প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্ক মুসলমানের জন্য রমজান মাসের প্রতি দিন রোজা রাখা ফরজ।[৬]
  • হজ্জ: শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য জীবনে একবার হজ্জ্ব সম্পাদন করা ফরজ বা আবশ্যিক। আরবি জিলহজ্জ্ব মাসের ৮ থেকে ১২ তারিখ হজ্জ্বের জন্য নির্ধরিত সময়।[৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইসলাম ও নৈতিকশিক্ষা"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "ইবাদাতের মর্মকথা"জাগো নিউজ টোয়েন্টিফোর। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. Tariq al-Jamil (২০০৯)। "Ibadah"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন। John L. Esposito। The Oxford Encyclopedia of the Islamic World। Oxford: Oxford University Press। 
  4. Wehr, Hans। "Mawrid Reader. Hans Wehr, A Dictionary of Modern Written Arabic, 4th ed. (hw4)"ejtaal.net। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-০৯ 
  5. Bowker, John। "The Concise Oxford Dictionary of World Religions"oxfordreference.com। Oxford University Press। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৭ 
  6. "Ibadah - Oxford Islamic Studies Online"www.oxfordislamicstudies.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-০৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]