সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা
সাব-সাহারান আফ্রিকার ভৌগলিক মানচিত্র টেমপ্লেট:কেন্দ্র
সাব-সাহারান আফ্রিকার ভৌগলিক মানচিত্র টেমপ্লেট:কেন্দ্র
প্রধান শহরআবিজান, আবুজা, আকরা, আদিস আবাবা, কেপ টাউন, দার এস সালাম, ডারবান, হারারে, জোহানেসবার্গ, জুবা, কাম্পালা, কিনশাসা, লাগোস, লুয়ান্ডা, লুসাকা, মোগাদিশু, নাইরোবি, প্রিটোরিয়া, উইন্ডহোক
জনসংখ্যা (২০১৮)[ক]১,০৩,৮৬,২৭,১৭৮
বিশেষণআফ্রিকান
ধর্ম (২০২০)[১]
 • খ্রিস্টান ধর্ম৬২.০%
 • ইসলাম৩১.৪%
 •  ঐতিহ্যগত বিশ্বাস৩.২%
 • কোন ধর্ম নেই৩.০%
 • অন্যান্য০.৪%
ভাষা১,০০০টিরও বেশি ভাষা
ইন্টারনেট TLD.africa
  1. Per UNHCR Global Trends in 2019, the sub-Saharan population was 1.1 billion.
আফ্রিকার জলবায়ুর সরলীকৃত মানচিত্র: সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা উত্তরে ঊষর সহিলআফ্রিকার শিং (হলুদ), ক্রান্তীয় সুদানীয় সাভানা (হালকা সবুজ), বিষুবীয় আফ্রিকার ক্রান্তীয় অতিবৃষ্টি অরণ্য (গাঢ় সবুজ), ঊষর কালাহারি মরুভূমি (হলুদ), এবং ভূমধ্যসাগরীয় জলবায়ুবিশিষ্ট দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকা নিয়ে গঠিত।

সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা (ইংরেজি: Sub-Saharan Africa) একটি ভৌগোলিক পরিভাষা, যা দিয়ে আফ্রিকা মহাদেশে সাহারা মরুভূমির দক্ষিণে সম্পূর্ণ বা অংশত অবস্থিত দেশগুলিকে বোঝানো হয়।'[২] এর মধ্যে রয়েছে মধ্য আফ্রিকা, পূর্ব আফ্রিকা, দক্ষিণ আফ্রিকা, এবং পশ্চিম আফ্রিকা

সাহারা মরুভূমির উত্তরের অঞ্চলকে উত্তর আফ্রিকা বলা হয়, যা সাংস্কৃতিকভাবে আরব বিশ্বের অন্তর্গত।


সাহারা মরুভূমির ঠিক দক্ষিণেই সহিল নামের একটি রূপান্তর-মধ্যবর্তী অঞ্চল (transitional zone) অবস্থিত, যার দক্ষিণে আছে সাভানা তৃণভূমিময় সুদান অঞ্চল। এর দক্ষিণে আছে ক্রান্তীয় অরণ্য ও সাভানা তৃণভূমির মিশ্রণ। আফ্রিকার শিং এবং সুদান রাষ্ট্রের অধিকাংশ ভৌগলিকভাবে সাহার-নিম্ন আফ্রিকার অংশ হলেও এই অঞ্চলে মধ্যপ্রাচ্যের বড় প্রভাব আছে, এবং এগুলিও আরব বিশ্বের অন্তর্ভুক্ত।

সাহারা-নিম্ন আফ্রিকা কালো আফ্রিকা নামেও পরিচিত, কেননা এখানে আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ অধিবাসীরা বাস করে। এরা মূলত খ্রিস্টধর্মের অনুসারী (অন্যদিকে উত্তর আফ্রিকাতে ইসলামের আধিপত্য নিরঙ্কুশ। ভাষাগত দিক থেকে সাহার-নিম্ন আফ্রিকার অধিকাংশ লোক নাইজার-কঙ্গো ভাষাপরিবারের অন্তর্গত কোন না কোন ভাষাতে কথা বলে।

সামগ্রিকভাবে, ইউএন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম আফ্রিকার ৫৫টি দেশের মধ্যে জিবুতি, এসএডিআর, সোমালিয়া এবং সুদান বাদে ৪৬টিতে "সাব-সাহারান" শ্রেণীবিভাগ প্রয়োগ করে।[৩]

জলবায়ু অঞ্চল এবং ইকোরিজিয়ন[সম্পাদনা]

আফ্রিকার জলবায়ু অঞ্চল, উত্তর আফ্রিকার গরম মরুভূমির জলবায়ু এবং আফ্রিকার হর্ন (লাল), সাহেলের গরম আধা-শুষ্ক জলবায়ু এবং এলাকার মধ্যে পরিবেশগত বিরতি দেখায় মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার আধা-মরুভূমি (কমলা) এবং ক্রান্তীয় জলবায়ু (নীল)। দক্ষিণ আফ্রিকার নামিবিয়া এবং বতসোয়ানাকে কেন্দ্র করে উপ-ক্রান্তীয় বা নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু (সবুজ এবং হলুদ), এবং আরও মরুভূমি বা আধা-মরু অঞ্চলে পরিবর্তন হয়েছে।

সাব-সাহারান আফ্রিকার বিভিন্ন ধরনের জলবায়ু অঞ্চল বা বায়োম আছে। দক্ষিণ আফ্রিকা এবং কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রকে বিশেষভাবে মেগা বৈচিত্র্যপূর্ণ দেশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এটি একটি শুষ্ক শীত মৌসুম এবং একটি আর্দ্র গ্রীষ্ম ঋতু আছে।

ইথিওপিয়ান হাইল্যান্ডস থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা পর্যন্ত পূর্ব আফ্রিকার উচ্চ পর্বত এবং পর্বতশ্রেণীতে স্বতন্ত্র আফ্রোমন্টেন বন, তৃণভূমি এবং ঝোপঝাড় পাওয়া যায়।

নোট[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pew-Templeton Global Religious Futures Project"। www.globalreligiousfutures.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-১১ 
  2. ecosostenibile (২০২৩-০২-০২)। "Afrotropical ecozone: boundaries, characteristics, biomes ..."An Eco-sustainable World (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৮-০৯ 
  3. "About Africa"UNDP in Africa। ১১ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০