ইসলামি বিজ্ঞান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নাসির আল-দীন তুসি দ্বারা আবিষ্কারকৃত একটি গাণিতিক যন্ত্র গ্রহের গতি নির্ণয়ের জন্য উদ্ভাবিত হয়েছিল

বিজ্ঞানের ইতিহাসে ইসলামী বিজ্ঞান বলতে ৮ম শতক থেকে ১৫শ শতক পর্যন্ত, অর্থাৎ ইসলামের স্বর্ণযুগে ইসলামী সভ্যতার অধীনে বিকাশপ্রাপ্ত বিজ্ঞানকে বোঝায়। এটি আরব বিজ্ঞান নামেও পরিচিত, কেননা এই সময়ের অধিকাংশ পুস্তক ইসলামী সভ্যতার সার্বজনীন ভাষা আরবিতে লেখা হয়। তবে আরব ও মুসলিম বিজ্ঞানী ছাড়াও অনেক অনারব ও অ-মুসলিম বিজ্ঞানীও ইসলামী সভ্যতার বিজ্ঞানে অবদান রাখেন।[১]

মুসলিম বিজ্ঞানীদের মধ্যে বিভিন্ন এলাকার জাতিগোষ্ঠীর শাসিত ছিল। সর্বাধিক ছিলেন পারস্যদেশনিবাসীগণ,[২][৩][৪][৫] অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন মুর, বার্বাস, আসিরিয়ান, আরবীয়[৪] এবং মিশরীয়। এছাড়াও তারা বিভিন্ন ধর্মীয় পটভূমি থেকে এসেছিলেন। তাদের মধ্যে অধিকাংশ মুসলমান ছিলেন,[৬][৭][৮] কিন্ত এছাড়াও কিছু খৃস্টানও ছিলেন,[৯] ইহুদি[৯][১০] এবং নাস্তিক।[১১][১২]

পটভূমি[সম্পাদনা]

৬২২ সালে ইসলামী যুগের সূচনা হয়। ইসলামিক সৈন্যরা আরব, মিশর এবং মেসোপটেমিয়া জয় করে, অবশেষে পারস্যবাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যকে এই অঞ্চল থেকে স্থানচ্যুত করে। এক শতাব্দীর মধ্যে ইসলাম পশ্চিমের বর্তমান পর্তুগাল এবং পূর্বে মধ্য এশিয়ার এলাকায় পৌঁছেছিল। ইসলামী স্বর্ণযুগ (মোটামুটিভাবে ৭৮৬ থেকে ১২৫৮ সালের মধ্যে) আব্বাসীয় খিলাফতের (৭৫০-১২৫৮) সময়কালে বিস্তৃত ছিল, স্থিতিশীল রাজনৈতিক কাঠামো এবং সমৃদ্ধ বাণিজ্যের সাথে। ইসলামী সাম্রাজ্যের প্রধান ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক রচনা আরবি এবং মাঝে মাঝে ফার্সি ভাষায় অনূদিত হয়। ইসলামী সংস্কৃতি গ্রিক, ইন্ডিক, আসিরীয় এবং পারস্য প্রভাব উত্তরাধিকার সূত্রে লাভ করে। ইসলামের উপর ভিত্তি করে একটি নতুন সাধারণ সভ্যতা গঠিত হয়েছে। জনসংখ্যা এবং শহরগুলিতে দ্রুত বৃদ্ধির সাথে সাথে উচ্চ সংস্কৃতি এবং উদ্ভাবনের একটি যুগ শুরু হয়েছিল। গ্রামাঞ্চলে আরব কৃষি বিপ্লব আরও ফসল এবং উন্নত কৃষি প্রযুক্তি, বিশেষ করে সেচ নিয়ে আসে। এটি বৃহত্তর জনসংখ্যাকে সমর্থন করেছিল এবং সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করতে সক্ষম করেছিল।[১৩][১৪] নবম শতাব্দী থেকে আল-কিন্দির[১৫] মতো পণ্ডিতরা ভারতীয়, আসিরীয়, সাসানিয়ান (ফার্সি) এবং গ্রিক জ্ঞান, যার মধ্যে অ্যারিস্টটলের কাজও ছিল, আরবি ভাষায় অনুবাদ করেন। এই অনুবাদগুলি ইসলামিক বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানীদের অগ্রগতিকে সমর্থন করেছিল।[১৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Robinson (editor), Francis (১৯৯৬)। The Cambridge Illustrated History of the Islamic World। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 228–229। 
  2. William Bayne Fisher, et al, The Cambridge History of Iran 4, Cambridge University Press, 1975, p. 396
  3. Shaikh M. Ghazanfar, Medieval Islamic economic thought: filling the "great gap" in European economics, Psychology Press, 2003 (p. 114-115)
  4. Ibn Khaldun, Franz Rosenthal, N. J. Dawood (1967), The Muqaddimah: An Introduction to History, p. 430, Princeton University Press, আইএসবিএন ০-৬৯১-০১৭৫৪-৯.
  5. Joseph A. Schumpeter, Historian of Economics: Selected Papers from the History of Economics Society Conference, 1994, y Laurence S. Moss, Joseph Alois Schumpeter, History of Economics Society. Conference, Published by Routledge, 1996, আইএসবিএন ০-৪১৫-১৩৩৫৩-X, p.64.
  6. Howard R. Turner (1997), Science in Medieval Islam, p. 270 (book cover, last page), University of Texas Press, আইএসবিএন ০-২৯২-৭৮১৪৯-০
  7. Hogendijk, Jan P. (January 1999), Bibliography of Mathematics in Medieval Islamic Civilization ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ এপ্রিল ২০১০ তারিখে
  8. A. I. Sabra (১৯৯৬)। "Greek Science in Medieval Islam"। Ragep, F. J.; Ragep, Sally P.; Livesey, Steven John। Tradition, Transmission, Transformation: Proceedings of Two Conferences on Pre-modern Science held at the University of OklahomaBrill Publishers। পৃষ্ঠা 20। আইএসবিএন 90-04-09126-2 
  9. Bernard Lewis, The Jews of Islam, 1987, p.6
  10. Salah Zaimeche (2003), Introduction to Muslim Science.
  11. Hogendijk 1989
  12. Bernard Lewis, What Went Wrong? Western Impact and Middle Eastern Response
  13. Hodgson, Marshall G. S. (Marshall Goodwin Simms) (১৯৭৭)। The venture of Islam : conscience and history in a world civilization। Internet Archive। Chicago ; London : University of Chicago Press। পৃষ্ঠা ২৩৩-২৩৮আইএসবিএন 978-0-226-34683-0 
  14. McClellan, James E., III (২০০৬)। Science and technology in world history : an introduction। Harold Dorn (2nd ed সংস্করণ)। Baltimore: Johns Hopkins University Press। পৃষ্ঠা ১০৩–১০৫। আইএসবিএন 0-8018-8359-8ওসিএলসি 61687847 
  15. Adamson, Peter (২০২০)। Zalta, Edward N., সম্পাদক। The Stanford Encyclopedia of Philosophy (Spring 2020 সংস্করণ)। Metaphysics Research Lab, Stanford University। 
  16. Schultz, Warren C.; Robinson, Francis (১৯৯৯)। "The Cambridge Illustrated History of the Islamic World"Journal of the American Research Center in Egypt36: 174। আইএসএসএন 0065-9991ডিওআই:10.2307/40000215 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

অ্যাকাডেমিক প্রতিষ্ঠান
অন্যান্য