অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল
Amnesty International logo.svg
ধরন অ-রাজনৈতিক, আগ্রহী সংস্থা
সংস্থাপিত পিটার বেনেনসন (জুলাই, ১৯৬১)
সদর দপ্তর বৈশ্বিক, সদর দপ্তর লন্ডনে
গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি সলিল শেঠি, মহাসচিব
পরিষেবা গণমাধ্যমে দৃষ্টি আকর্ষণ, সরাসরি প্রচারণা, গবেষণা
পদ্ধতি মানবাধিকার সুরক্ষিতকরণ
সদস্য ৩ মিলিয়ন সদস্য এবং সমর্থক[১]
নীতিবাক্য It is better to light a candle than to curse the darkness.[২]
ওয়েবসাইট http://www.amnesty.org

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল (ইংরেজি: Amnesty International) একটি মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক বেসরকারী সংস্থা। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মানবাধিকার বিষয়ের উত্তরণ ও মর্যাদা রক্ষায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গৃহীত সার্বজনীন মানব অধিকার সংক্রান্ত ঘোষণাপত্র বাস্তবায়নে সংস্থাটি একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। সংস্থাটি ১৯৬১ সালে যুক্তরাজ্যে স্থাপিত হয়। এর সদর দপ্তর লন্ডনে অবস্থিত।

সংস্থাটিকে ১৯৭৭ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার এবং ১৯৭৮ সালে জাতিসংঘ মানবাধিকার পুরস্কার দেওয়া হয়।

মহাসচিব[সম্পাদনা]

নাম মেয়াদকাল দেশ
Peter Benensonযুক্তরাজ্য পিটার বেনেনসন ১৯৬১-১৯৬৬ ব্রিটেন
Eric Bakerযুক্তরাজ্য এরিক বেকার ১৯৬৬-১৯৬৮ ব্রিটেন
Martin Ennalsযুক্তরাজ্য মার্টিন ইনালস্‌ ১৯৬৮-১৯৮০ ব্রিটেন
Thomas Hammarbergসুইডেন থমাস হ্যামারবার্গ ১৯৮০-১৯৮৬ সুইডেন
Avery Brundageযুক্তরাজ্য ইয়ান মার্টিন ১৯৮৬-১৯৯২ ব্রিটেন
Pierre Sanéসেনেগাল পিয়েরে সেনে ১৯৯২-২০০১ সেনেগাল
Irene Zubaida Khanবাংলাদেশ আইরিন খান ২০০১-২০১০ বাংলাদেশ
Salil Shettyভারত সলিল শেঠি ২০১০-বর্তমান ভারত

উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

প্রধান কতকগুলো বিষয়াবলীকে ঘিরে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বিশ্বব্যাপী কাজ করে যাচ্ছে।[৩] সেগুলো হচ্ছে -

পুরস্কার ও সম্মননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Who we are"। Amnesty International। সংগৃহীত 2 June 2011 
  2. "History – The Meaning of the Amnesty Candle"। Amnesty International। 18 June 2008-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত 4 June 2008 
  3. Amnesty International. "About Amnesty International." http://www.amnesty.org/en/who-we-are/about-amnesty-international (accessed November 10, 2010).

আরো দেখুন[সম্পাদনা]