পাকিস্তান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইসলামী প্রজাতন্ত্রী পাকিস্তান
اسلامی جمہوریۂ پاکستان
ইস্‌লামী জুম্‌হূরিয়াতে পাকিস্তান্‌
পতাকা রাষ্ট্রীয় এমব্লেম
নীতিবাক্যইত্তেহাদ, তানজিম, ইয়াক্বিন-ই-মুহ্‌কাম  (উর্দূ)
"একতা, নিয়মানুবর্তিতা ও বিশ্বাস"
জাতীয় সঙ্গীত: কওমী তারানা
قومی ترانہ
"The National Anthem"[১]
রাজধানী ইসলামাবাদ
৩৩°৪০′ উত্তর ৭৩°১০′ পূর্ব / ৩৩.৬৬৭° উত্তর ৭৩.১৬৭° পূর্ব / 33.667; 73.167
বৃহত্তম শহর করাচি
রাষ্ট্রীয় ভাষাসমূহ উর্দু, ইংরেজি
সরকার অর্ধ-রাষ্ট্রপতি শাসিত প্রজাতন্ত্র
 •  রাষ্ট্রপতি মামনুন হোসাইন
 •  প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ
গঠন
 •  স্বাধীনতা যুক্তরাজ্য থেকে 
 •  ঘোষিত আগস্ট ১৪ ১৯৪৭ 
 •  ইসলামী প্রজাতন্ত্র মার্চ ২৩ ১৯৫৬ 
আয়তন
 •  মোট ৮,৮১,৯১৩ কিমি (৩৬তম)
৩,৪০,৫০৯ বর্গ মাইল
 •  পানি (%) ৩.১
জনসংখ্যা
 •  ২০১৫ আনুমানিক ১৯৯,০৮৫,৮৪৭[২] (৬ষ্ঠ)
জিডিপি (পিপিপি) ২০০৭ আনুমানিক
 •  মোট $৪৭৫.৬ বিলিয়ন (২৫তম)
 •  মাথা পিছু $৩,০০৪.৫ (১২৮তম)
গিনি (২০০২) ৩০.৬
ত্রুটি: অকার্যকর গিনির মান
এইচডিআই (২০০৬) ০.৫৩৯
ত্রুটি: অকার্যকর এইচডিআই মান · ১৩৪তম
মুদ্রা রুপি (Rs.) (PKR)
সময় অঞ্চল পাকিস্তান মান সময় (ইউটিসি+৫)
 •  গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি) পর্যবেক্ষণ করা হয় না (ইউটিসি+৬)
কলিং কোড ৯২
ইন্টারনেট টিএলডি .pk
১. আজাদ কাশ্মীর এবং উত্তরাঞ্চলসমূহ ধরা হয়নি।

পাকিস্তান তথা ইসলামী প্রজাতন্ত্রী পাকিস্তান (উর্দু: اسلامی جمہوریۂ پاکستان; ইস্‌লামী জুম্‌হূরিয়াতে পাকিস্তান্‌) দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত একটি দেশ। দেশটি দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়া এবং মধ্য এশিয়ার সংযোগস্থলে অবস্থিত। পাকিস্তান ভারতীয় উপমহাদেশের অংশ। দেশটির প্রায় হাজার কিলোমিটার লম্বা সৈকতরেখা আছে। এর দক্ষিণদিকে (আরব সাগর)। পশ্চিমে রয়েছে আফগানিস্তানইরান, পূর্বে ভারত, এবং উত্তর-পূর্বে চীনের তিব্বতশিঞ্চিয়াং এলাকাগুলো। ইসলামাবাদ পাকিস্তানের রাজধানী। করাচি দেশটির বৃহত্তম শহর।

নামকরন[উৎস সম্পাদনা]

ফার্সি, সিন্ধি, ও উর্দু ভাষায়, "পাকিস্তান" নামটির অর্থ "পবিত্রদের দেশ"। নামটি আসে পাকিস্তানের তৎকালীন পশ্চিম অংশের পাঁচটি রাজ্যের নাম থেকে:

প - পাঞ্জাব
আ - আফগানিয়া (নর্থ-ওয়েস্ট ফ্রন্টির প্রভিন্স)
ক - কাশ্মীর
স - সিন্ধ
তান - বালুচিস্তান

১৯৩৪ সালে চৌধুরী রহমত আলী তাঁর "নাও অর নেভার" (Now or Never) পুস্তিকায় এই নামটির প্রস্তাব রাখেন, । [৩]

ইতিহাস[উৎস সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক এবং মধ্যযুগীয় সময়কাল[উৎস সম্পাদনা]

প্রাচীন সিন্ধু অঞ্চল যা মোটামুটি বর্তমান পাকিস্তানের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশ ছাড়া বাকিটা নিয়ে গঠিত, প্রাচীন কালে নব্য প্রস্তর যুগীয় মেহেরগড় সহ অনেক উন্নত সভ্যতার উৎপত্তিস্থল ছিল। ব্রোঞ্জ যুগে (২৮০০- ১৮০০খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) সিন্ধু সভ্যতায় হরপ্পামহেঞ্জো-দাড়ো নামে দুটি উন্নত নগর ছিল। [৪][৫]
বৈদিক যুগে (১৫০০ - ৫০০খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) ইন্দো আর্যদের মাধ্যমে এখানে হিন্দুদের গোড়াপত্তন হয়, যা পরবর্তীতে পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।[৬][৭] মুলতান শহর হিন্দুদের গুরুত্বপূর্ণ তীর্থযাত্রা কেন্দ্রে পরিণত হয়।

ঔপনিবেশিক আমল[উৎস সম্পাদনা]

স্বাধীনতা এবং আধুনিক পাকিস্তান[উৎস সম্পাদনা]

১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশ বিভাজনের মাধ্যমে ভারত ও পাকিস্তান এ' দুটি দেশের জ‌ন্ম হয়।

রাজনীতি[উৎস সম্পাদনা]

২০১৪ সালে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস ও পিউ রিসার্চ সেন্টারের করা নিয়ন্ত্রিত মতগ্রহণ জরিপের ফলাফল।
পাকিস্তানের প্রতি বিভিন্ন দেশের জনসাধারণের দৃষ্টিভঙ্গি[৮][৯]
ইতিবাচক ও নেতিবাচকের পার্থক্য অনুসারে সাজানো
দেশ ইতিবাচক নেতিবাচক নিরপেক্ষ ইতি-নেতি
টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
৫%
৮৫%
১০ -৮০
 জার্মানি
৫%
৮০%
১৫ -৭৫
 কানাডা
১০%
৭৯%
১১ -৬৯
 ব্রাজিল
৭%
৭৫%
১৮ -৬৮
 ফ্রান্স
১০%
৭৭%
১৩ -৬৭
 ইসরায়েল
২%
৬৮%
৩০ -৬৬
 স্পেন
৫%
৭১%
২৪ -৬৬
 অস্ট্রেলিয়া
১৪%
৭৭%
-৬৩
 দক্ষিণ কোরিয়া
১২%
৬৬%
২২ -৫৮
 যুক্তরাজ্য
১৮%
৭১%
১১ -৫৩
 রাশিয়া
৬%
৫৩%
৪১ -৪৭
 চিলি
১৩%
৪৯%
৩৮ -৩৬
 জাপান
৬%
৪১%
৫৩ -৩৫
 পেরু
১২%
৪৭%
৪১ -৩৫
 ভারত
১৭%
৪৯%
৩৪ -৩২
 মেক্সিকো
১৪%
৪৪%
৪২ -৩০
 কেনিয়া
২৩%
৪৫%
৩২ -২২
টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত চীন
২১%
৪১%
৩৮ -২০
 তুরস্ক
২৫%
৪১%
৩৪ -১৬
 ঘানা
৩৪%
৪১%
২৫ -৭
 নাইজেরিয়া
৪০%
৪৬%
১৪ -৬
 বাংলাদেশ
৫০%
৫০%
অনুল্লিখিত 0
 ইন্দোনেশিয়া
৪০%
৩১%
২৯
 পাকিস্তান
৪৪%
২৯%
২৭ ১৫

পাকিস্তানের রাজনীতি বর্তমানে একটি অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত যুক্তরাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র কাঠামোয় সম্পাদিত হয়, যদিও অতীতে বিভিন্ন সময়ে সংসদীয় ও রাষ্ট্রপতি শাসিত ব্যবস্থার প্রচলন ছিল। রাষ্ট্রপতি হলেন রাষ্ট্রের প্রধান। সরকারপ্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী। রাষ্ট্রের নির্বাহী ক্ষমতা সরকারের উপর ন্যস্ত। আইন প্রণয়নের ক্ষমতা প্রধানত আইনসভার উপর ন্যস্ত।
২০১৩ সালের মে মাসের ১১ তারিখে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হন বর্তমান ক্ষমতাসীন নওয়াজ শরীফ।[১০] একই বছরের জুলাইয়ের ৩০ তারিখ হতে পাকিস্তানের বর্তমান রাষ্ট্রপতি মামনুন হোসাইন । [১১]

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[উৎস সম্পাদনা]

পাকিস্তানের মূল ভূখণ্ডটি কয়েকটি প্রশাসনিক অঞ্চলে বিভক্ত। যথা-

ভূগোল[উৎস সম্পাদনা]

পাকিস্তানকে তিনটি প্রধান ভৌগোলিক অঞ্চলে ভাগ করা যায়: উত্তরের উচ্চভূমি, সিন্ধু নদের অববাহিকা (যেটিকে পাঞ্জাব ও সিন্ধু প্রদেশে উপবিভক্ত করা যায়) এবং বেলুচিস্তান মালভূমি।

অর্থনীতি[উৎস সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[উৎস সম্পাদনা]

ভাষাসমূহ[উৎস সম্পাদনা]

পাকিস্তানে প্রচলিত ভাষাসমূহ
ইন্দো-আর্য ভাষা ইরানীয় ভাষা দ্রাবিড় ভাষা
দার্দীয় ভাষা চীনা-তিব্বতী ভাষা বিচ্ছিন্ন ভাষা

পাকিস্তানের সরকারি ভাষা ইংরেজি এবং জাতীয় ভাষা উর্দু। এছাড়াও দেশটিতে পাঞ্জাবি, সিন্ধি, সারাইকি, পাশতু, বেলুচি, ব্রাহুই ইত্যাদি ভাষা প্রচলিত। অনেক ভাষাই ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাপরিবারের বিভিন্ন শাখার অন্তর্গত। উর্দু, পাঞ্জাবি ও সিন্ধি -আর্য ভাষাসমূহ, পশতু ও বেলুচি ইরানীয় ভাষাসমূহ, ব্রাহুই দ্রাবিড় ভাষাসমূহের অন্তর্গত। এছাড়া উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে বিভিন্ন দার্দীয় ভাষা যেমন খোওয়ার ও শিনা প্রচলিত।

জাতীয় পতাকা[উৎস সম্পাদনা]

FIAV 011000.svg অনুপাত: ২:৩

পাকিস্তানের জাতীয় পতাকার নকশা প্রণয়ন করেন সৈয়দ আমিরুদ্দিন কেদোয়াই। এই নকশাটি অল ইন্ডিয়া মুসলিম লীগের ১৯০৬ সালের পতাকার উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়। পাকিস্তান স্বাধীনতা লাভ করার ৫ দিন আগে ১৯৪৭ সালের ১১ই আগস্ট তারিখে এই পতাকাটির নকশা গৃহীত হয়।

পতাকাটিকে পাকিস্তানে সাব্‌জ হিলালি পারচাম বলা হয়। উর্দু ভাষার এই বাক্যটির অর্থ হলো "নতুন চাঁদ বিশিষ্ট সবুজ পতাকা"। এছাড়াও এটাকে "পারচাম-ই-সিতারা আও হিলাল" অর্থাৎ "চাঁদ ও তারা খচিত পতাকা" বলা হয়ে থাকে।

তাৎপর্য[উৎস সম্পাদনা]

পতাকাটির খুঁটির বিপরীত দিকের গাঢ় সবুজ অংশটি ইসলাম ধর্মের প্রতীক। খুঁটির দিকে সাদা অংশ রয়েছে, যা পাকিস্তানে বসবাসরত সংখ্যালঘু অমুসলিমদের প্রতীক। পতাকার মধ্যস্থলে রয়েছে একটি সাদা নতুন চাঁদ, যা প্রগতির প্রতীক; এবং একটি পাঁচ কোনা তারকা, যা ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের প্রতীক।

আকার ও ব্যবহার[উৎস সম্পাদনা]

আকার[উৎস সম্পাদনা]

  • বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ব্যবহারের জন্য. ২১' x ১৪', ১৮' x ১২', ১০' x ৬-২/৩' বা ৯' x ৬ ১/৪.
  • ভবনে ব্যবহারের জন্য. ৬' x ৪' or ৩' x ২'.
  • গাড়িতে ব্যবহারের জন্য ১২" x ৮".
  • টেবিলে ব্যবহারের জন্য ৬ ১/৪" x ৪ ১/৪".

যেসব অনুষ্ঠানে পতাকা উড্ডয়ন করা হয়[উৎস সম্পাদনা]

যেসব দিনে পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয[উৎস সম্পাদনা]

সংস্কৃতি[উৎস সম্পাদনা]

পবিত্র-ঈদুল-ফিতর পবিত্র-ঈদুল-আযহা

তথ্যসূত্র[উৎস সম্পাদনা]

  1. "National Symbols and Things of Pakistan"Government of Pakistanআসল থেকে ১৩ এপ্রিল ২০১৪-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ২৭ মে ২০১৪ 
  2. "U.S. and World Population Clock"United States Census Bureau 
  3. Text of the Now or Never pamphlet, issued on January 28, 1933
  4. Robert Arnett (১৫ জুলাই ২০০৬)। India Unveiled। Atman Press। পৃ: 180–। আইএসবিএন 978-0-9652900-4-3। সংগৃহীত ২৩ ডিসেম্বর ২০১১ 
  5. Meghan A. Porter। "Mohenjo-Daro"। Minnesota State University। আসল থেকে ২২ ডিসেম্বর ২০১১-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ১৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  6. Marian Rengel (২০০৪)। Pakistan: a primary source cultural guide। New York, NY: The Rosen Publishing Group Inc। পৃ: 58–59,100–102। আইএসবিএন 0-8239-4001-2। সংগৃহীত ২৩ অক্টোবর ২০১১ 
  7. "Britannica Online – Rigveda"। Encyclopædia Britannica। সংগৃহীত ১৬ ডিসেম্বর ২০১১ 
  8. "2014 BBC World Service poll" 
  9. Street, 1615 L.; NW; Washington, Suite 800; Inquiries, DC 20036 202 419 4300 | Main 202 419 4349 | Fax 202 419 4372 | Media। "Chapter 4: How Asians View Each Other"Pew Research Center's Global Attitudes Project। সংগৃহীত ২০১৬-০৪-০৪ 
  10. আমারদেশ অনলাইন। "তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হলেন নওয়াজ শরীফ"। সংগৃহীত ১২ মে ২০১৩ 
  11. দৈনিক যুগান্তর। "পাকিস্তানের নতুন প্রেসিডেন্ট মামনুন হোসাইন"। সংগৃহীত ৩১ জুলাই ২০১৩ 

আরও দেখুন[উৎস সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[উৎস সম্পাদনা]