বিষয়বস্তুতে চলুন

সাইয়েদ কুতুব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(কুতুববাদ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সাইয়েদ কুতুব
سيد قطب
১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে জামাল আবদেল নাসেরের শাসনামলে সাইয়েদ কুতুবের বিচার
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম(১৯০৬-১০-০৯)৯ অক্টোবর ১৯০৬
মুশা, উসইউত, মিশর খেদিভাত
মৃত্যু২৯ আগস্ট ১৯৬৬(1966-08-29) (বয়স ৫৯)
মৃত্যুর কারণফাঁসি
ধর্মইসলাম
জাতীয়তামিশরীয়
যুগআধুনিক যুগ
ব্যবহারশাস্ত্রশাফিঈ
ধর্মীয় মতবিশ্বাসসুন্নি ইসলাম
প্রধান আগ্রহইসলাম, রাজনীতি, তাফসির
উল্লেখযোগ্য ধারণাআইয়ামে জাহেলিয়া, উবুদিয়া
উল্লেখযোগ্য কাজইসলামী সমাজ বিপ্লবের ধারা, ফি যিলালিল কুরআন
আত্মীয়মুহাম্মদ কুতুব (ভাই)
মুসলিম নেতা
যার দ্বারা প্রভাবিত

সাইয়েদ ইব্রাহিম হোসাইন কুতুব (/ˈktəb/[৪]/ˈkʌtəb/; মিশরীয় আরবি: ˈsæjjed ˈʔotˤb, আরবি: [ˈsæjjɪd ˈqʊtˤb]; আরবি: سيد قطب (৯ অক্টোবর ১৯০৬ - ২৯ আগস্ট ১৯৬৬) (যিনি সাইয়েদ কুতুব নামেও অধিক পরিচিত) হলেন একজন মিশরীয় লেখক, শিক্ষাবিদ, ইসলামী পণ্ডিত, তাত্ত্বিক, বিপ্লবী, কবি এবং ১৯৫০ ও ১৯৬০-এর দশকে মিশরীয় মুসলিম ব্রাদারহুডের একজন নেতৃস্থানীয় সদস্য। এছাড়াও তিনি মিশরের ইসলামী আন্দোলনের প্রধান সংগঠন ইখওয়ানুল মুসলিমিন দলের মুখপত্র ইখওয়ানুল মুসলিমিন এর সম্পাদক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে তিনি মিশরের রাষ্ট্রপতি জামাল আবদেল নাসেরকে হত্যার ষড়যন্ত্রের দায়ে মিথ্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন এবং ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়। তার রচিত তাফসীর "ফী যিলালিল কুরআন" বিশ্বের প্রসিদ্ধ তাফসীর সমূহের একটি এবং এটি বর্তমানে পৃথিবীর বেস্ট সেলার তাফসীর। [৫][৬]

জন্ম ও পারিবারিক পরিচিতি[সম্পাদনা]

সাইয়েদ কুতুব ১৯০৬ সালের ৯ অক্টোবর মিসরের উসইউত জিলার মুশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[৭] সাইয়েদ কুতুবের মূল নাম হল সাইয়েদ; কুতুব তার বংশীয় উপাধি। তার পূর্বপুরুষরা আরব উপদ্বীপ থেকে এসে মিশরের উত্তরাঞ্চলে বসবাস শুরু করে। তার পিতার নাম হাজী ইবরাহীম কুতুব; তিনি চাষাবাদ করতেন। তার মাতার নাম ফাতিমা হোসাইন উসমান; যিনি অত্যন্ত ধার্মিক মহিলা ছিলেন। তারা মোট দুই ভাই এবং তিন বোন ছিলেন। তার অপর ভাই হলেন: মুহাম্মাদ কুতুব এবং বোনেরা হলেন: নাফীসা কুতুব, হামিদা কুতুব এবং আমিনা কুতুব। সাইয়েদ কুতুব ছিলেন সবার বড়।[৮]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাইয়েদ কুতুবের শিক্ষা শুরু হয়। মায়ের ইচ্ছানুসারে তিনি শৈশবেই কুরআন হেফয করেন। পরবর্তীকালে তার পিতা কায়রো শহরের উপকণ্ঠে হালওয়ান নামক স্থানে বসবাস শুরু করেন। সাইয়েদ তাজহিযিয়াতু দারুল উলুম মাদ্রাসায় শিক্ষা সমাপ্ত করে কায়রোর বিখ্যাত মাদ্রাসা দারুল উলুমে ভর্তি হন। ১৯৩৩ সালে ঐ মাদ্রাসা থেকে বি.এ. ডিগ্রি লাভ করেন এবং সেখানেই অধ্যাপক নিযুক্ত হন।

কিছুকাল অধ্যাপনা করার পর তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্কুল ইন্সপেক্টর নিযুক্ত হন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেই তাকে আধুনিক শিক্ষা পদ্ধতি পড়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়। তিনি দু’বছরের কোর্স শেষ করে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আসেন। আমেরিকা থাকা কালেই তিনি বস্তুবাদী সমাজের দুরবস্থা লক্ষ্য করেন এবং তার দৃঢ় বিশ্বাস জন্মে যে, একমাত্র ইসলামই সত্যিকার অর্থে মানব সমাজকে কল্যাণের পথে নিয়ে যেতে পারে।

আমেরিকা থেকে দেশে ফেরার পরই তিনি ইখয়ানুল মুসলিমিন দলের আদর্শ, উদ্দেশ্য ও কর্মসূচী যাচাই করতে শুরু করেন।[৯][১০][১১][১২] ১৯৪৫ সালে তিনি ঐ দলের সদস্য হয়ে যান।[১৩][১৪] দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশ সরকার যুদ্ধ শেষে মিসরকে স্বাধীনতা দানের ওয়াদা করেন। যুদ্ধ শেষ হওয়ার সাথে সাথেই ইখওয়ান দল ব্রিটিশদের মিসর ত্যাগের দাবীতে আন্দোলন শুরু করে। এর ফলে তাদের জনপ্রিয়তা অত্যন্ত বেড়ে যায়।[৮]

গ্রেফতার[সম্পাদনা]

১৯৫৪ সালে ইখওয়ান পরিচালিত সাময়িকী-“ইখওয়ানুল মুসলিমিন”- এর সম্পাদক নির্বাচিত হন। ছ’মাস পরই কর্নেল নাসেরের সরকার পত্রিকাটি বন্ধ করে দেন। কারণ, ঐ বছর মিসর সরকার ব্রিটিশের সাথে নতুন করে যে চুক্তিপত্র সম্পাদন করেন, পত্রিকাটি তার সমালোচনা করে। পত্রিকা বন্ধ করে দেয়ার পর নাসের সরকার এ দলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। একটি হত্যা ষড়যন্ত্র মামলার অভিযোগে ইখওয়ানুল মুসলিমিন দলকে বেআইনি ঘোষণা করে দলের নেতাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত ইখওয়ান নেতাদের মধ্যে সাইয়েদ কুতুবও ছিলেন। তাকে মিসরের বিভিন্ন জেলে রাখা হয়। গ্রেফতারের সময় তিনি ভীষণভাবে জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন। সামরিক অফিসার তাকে সে অবস্থায় গ্রেফতার করেন।

১৯৬৪ সালের মাঝামাঝি ইরাকের প্রেসিডেন্ট আবদুস সালাম আরিফ মিসর যান। তিনি সাইয়েদ কুতুবের মুক্তির সুপারিশ করায় কর্নেল নাসের তাকে মুক্তি দিয়ে তারই বাসভবনে অন্তরীণাবদ্ধ করেন।[১৫]

আবার গ্রেফতার ও দন্ড[সম্পাদনা]

এক বছর যেতে না যেতেই তাকে আবার বলপূর্বক ক্ষমতা দখলের চেষ্টার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। অথচ তিনি তখনও পুলিশের কড়া পাহারাধীন ছিলেন। শুধু তিনি নন, তার ভাই মুহাম্মাদ কুতুব, বোন হামিদা কুতুব ও আমিনা কুতুবসহ বিশ হাযারেরও বেশি লোককে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এদের মধ্যে প্রায় সাত শ’ ছিলেন মহিলা।

১৯৬৫ সালে কর্নেল নাসের মস্কো সফরে থাকাকালীন এক বিবৃতিতে ঘোষণা করেন যে, ইখওয়ানুল মুসলিমিন তাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করেছিল। এবং এরপর মিসরে ইখওয়ান নেতা ও কর্মীদের ব্যাপক ধরপাকড় শুরু হয়। ১৯৬৪ সালের ২৬শে মার্চে জারীকৃত একটি নতুন আইনের বলে প্রেসিডেন্টকে যে কোন ব্যক্তিকে গ্রেফতার, তার সম্পত্তি বাজেয়াপ্তকরণ প্রভৃতি দণ্ডবিধির অধিকার প্রদান করা হয়। তার জন্যে কোন আদালতে প্রেসিডেন্টের গৃহীত পদক্ষেপের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা যাবে না বলেও ঘোষণা করা হয়।

কিছুকাল পর বিশেষ সামরিক আদালতে তাদের বিচার শুরু হয়। প্রথমত ঘোষণা করা হয় যে, টেলিভিশনে ঐ বিচারানুষ্টানের দৃশ্য প্রচার করা হবে। কিন্তু অভিযুক্ত ব্যক্তিগণ অপরাধ স্বীকার করতে অস্বীকার এবং তাদের প্রতি দৈহিক নির্যাতনের বিবরণ প্রকাশ করায় টেলিভিশন বন্ধ করে দেয়া হয়। তারপর রুদ্ধদ্বার কক্ষে বিচার চলতে থাকে। আসামীদের পক্ষে কোন উকিল ছিল না।

অন্য দেশ থেকে আইনজীবীগণ আসামী পক্ষ সমর্থনের আবেদন করেন। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করা হয়। ফরাসী বার এসোসিয়েনের ভূতপূর্ব সভাপতি উইলিয়াম থরপ (Thorp) ও মরোক্কোর দু’জন আইনজীবী আসামী পক্ষ সমর্থনের জন্য রীতিমত আবেদন করেন। কিন্তু তা না মঞ্জুর করা হয়। সুদানের দু’জন আইনজীবী কায়রো পৌছে তথাকার বার এসোসিয়েশনে নাম রেজিষ্ট্রী করে আদালতে হাযির হন। পুলিশ তাদের আদালত থেকে করে দেয় এবং মিসর ত্যাগ করতে বাধ্য করে।

সাইয়েদ কুতুব ও অন্যান্য আসামীগণ ১৯৬৬ সালের জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে বিচার চলাকালে ট্রাইবুনালের সামনে প্রকাশ করেন যে, অপরাধ স্বীকার করার জন্যে তাদের উপর অমানুষিক দৈহিক নির্যাতন চালানো হয়।

ইংরেজি ১৯৬৬ সালের আগস্ট মাসে সাইয়েদ কুতুব ও তার দু’জন সাথীকে সামরিক ট্রাইবুনালের পক্ষ থেকে মৃত্যুদন্ডাদেশ শুনানো হয়। ২৫শে আগস্ট, ১৯৬৬ সালে ঐ দন্ডদেশ কার্যকর করা হয়।

জ্ঞান ও সাহিত্য চর্চা[সম্পাদনা]

সাইয়েদ কুতুব ছিলেন মিসরের প্রখ্যাত আলেম ও সাহিত্যকদের অন্যতম। ছোটদের জন্যে আকর্ষণীয় ভাষায় নবীদের কাহিনী লিখে তার সাহিত্যক জীবনের সূচনা। পরবর্তীকালে ‘আশওয়াক’ (কাটা) নামে ইসলামী ভাবধারাপুষ্ট একখানা উপন্যাস রচনা করেন।

রচিত গ্রন্থাবলী
  1. তাফসির ফি যিলালিল কোরআন (কুরআনের ছায়াতলে) - কোরআন মাজিদের পূর্ণাঙ্গ তাফসির।
  2. মুশাহিদুল ক্বিয়ামাহ ফিল ক্বুরআন (কুরআনের আঁকা কেয়ামতের দৃশ্য);
  3. আত্ তাসবিরূল ফান্নি ফিল ক্বুরআন (কুরআনের আলঙ্কারিক চিত্র);
  4. আল আদালাতুল ইজতিমাঈয়া ফিল ইসলাম (ইসলামের সামাজিক সুবিচার);
  5. ইসলাম ও পূজিবাদের দ্বন্দ্ব;
  6. বিশ্বশান্তি ও ইসলাম;
  7. দারাসাতিল ইসলাম (ইসলামী রচনাবলী);
  8. "ভবিষ্যৎ সংস্কৃতি" নামক পুস্তকের সমালোচনা;
  9. কুতুব ওয়া শাখসিয়াত( গ্রন্থাবলি ও ব্যক্তিত্ব);
  10. ইসলামী সমাজের চিত্র;
  11. আমি যে আমেরিকা দেখেছি;
  12. চার ভাই বোনের চিন্তাধারা: সাইয়েদ কুতুব, মুহাম্মদ কুতুব, আমিনা কুতুব ও হামিদা কুতুব;
  13. আশাতিল মাজহুল (কবিতগুচ্ছ);
  14. জীবনে কবির আসল কাজ;
  15. ইসলামী সমাজ বিপ্লবের ধারা (মা'অালিম ফিত তারিক্ব);
  16. আন নাক্বদুল আদাবি উসুলিহি ওয়া মানাহিযিহি (সাহিত্য সমালোচনার মূলনীতি ও পদ্ধতি);
  17. নবীদের কাহিনী।
  18. মরন জয়ী মুজাহিদ

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Benjamin, Daniel; Simon, Steven (২০০২)। The Age of Sacred Terror। New York: Random House। পৃষ্ঠা 62আইএসবিএন 978-1-58836-259-9It was Sayyid Qutb who fused together the core elements of modern Islamism: the Kharijites’ takfir, ibn Taymiyya’s fatwas and policy prescriptions, Rashid Rida’s salafism, Maududi’s concept of the contemporary jahiliyya and Hassan al-Banna’s political activism 
  2. Gumus, M. Siddik (২০১৭)। Islam's Reformers। Istanbul: Hakikat Kitabevi Publications। পৃষ্ঠা 183। Sayyid Qutb... announced his admiration for Ibn Taimiyya and Muhammad ’Abduh in almost all his books. 
  3. Walker, Simon (২০০৯)। Leading with Everything to Give। Piquant Editions Limited। পৃষ্ঠা 17। Qutb had devoured Oswald Spengler's Decline of the West, Arnold Toynbee's A Study of History and T.S. Eliot's The Waste Land, which all portrayed the West as degenerate and profane 
  4. "Qutb". Random House Webster's Unabridged Dictionary.)
  5. Manne, Robert (৭ নভেম্বর ২০১৬)। "Sayyid Qutb: Father of Salafi Jihadism, Forerunner of the Islamic State"ABC News। ১৬ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. Bolechów, Bartosz (২০২২)। "The Islamic State's Worldview as a Radical Terror Management Device"Studia Politologiczne63: 64–65। এসটুসিআইডি 248190680 Check |s2cid= value (সাহায্য)ডিওআই:10.33896/SPolit.2022.63.4 
  7. Some sources (e.g., US Library of Congress) give 1903.[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
  8. "ইসলামী সমাজ বিপ্লবের ধারা"Shibir Online Library। ২০১৪-০১-০৭। ২০১৭-০১-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৫ 
  9. "Qutb, a one-time literary critic, was not a religious fundamentalist, but a Goebbels-style propagandist for a new totalitarianism to stand side-by-side with fascism and communism." Islamism, fascism and terrorism (Part 2) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১ জুন ২০১৭ তারিখে by Marc Erikson; 8 November 2002, Asia Times Online
  10. "Others, such as Sayyid Qutb, the Muslim Brotherhood's leading intellectual, or bin Laden's first theological mentor, Abdallah Azzam, a Palestinian Sheikh who first conceptualised global jihad, have laid out the theological tenets of jihadist terrorism better than he [Osama bin Laden]." "People of the decade: From Osama to Obama", 25 December 2009, The National
  11. "About that time Sayyid Qutb accepted an appointment to head the Muslim Brothers' propaganda department, called the Propagation of the Message Section." "Sayyid Qutb: The Karl Marx of the Islamic Revolution"
  12. "It is evidence of ideological continuity with the radical Islamist propaganda coming from wartime Berlin. Qutb fused the radical anti-Semitism of modern European history with a radical anti-Semitism rooted in a detailed reading of the Koran. Qutb continued and expanded on the project of cultural fusion and selective appropriation of the traditions of Islam that Husseini and his associates in wartime Berlin had performed."2009 Nazi Propaganda for the Arab World 2009, Jeffrey Herf
  13. "Upon his return to Egypt, he formally joined the Muslim Brotherhood and became the head of its propaganda (tabligh) department." Cultural transitions in the Middle East (1994), Şerif Mardin
  14. "Sayyid Qutb (1906–66) of Egypt provides another example. He became the intellectual spokesman for the Muslim Brotherhood." Muslims: their religious beliefs and practices (2005), Andrew Rippi
  15. "ইসলামী সমাজ বিপ্লবের ধারা"Shibir Online Library। ২০১৪-০১-০৭। ২০১৭-০১-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]