ইসমাইলি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইসমাʿইলিবাদ (আরবি: الإسماعيلية‎, প্রতিবর্ণী. al-ʾIsmāʿīlīyah‎; ফার্সি: اسماعیلیان‎, প্রতিবর্ণী. Esmâ'īliyân‎) হল শিয়া ইসলামের একটি শাখা বা উপদল।[২][৩] ইসমাʿইলিরা ইসমাইল ইবনে জাফরকে তাঁর পিতা জাফর আস-সাদিকের নিযুক্ত আধ্যাত্মিক স্থলাভিষিক্ত (ইমাম) হিসাবে গ্রহণ করার ফলে তাদের এই নাম লাভ করে, যা তাদের ইসনা আশারিয়াদের থেকে পৃথক করে যারা পক্ষান্তরে ইসমাইলের ছোট ভাই মুসা আল-কাজিমকে পরবর্তী ইমাম হিসেবে গ্রহণ করেছিল।[৪]

ইসমাইলি মতবাদ এক পর্যায়ে শিয়া ইসলামের বৃহত্তম শাখায় পরিণত হয়েছিল, দশম থেকে দ্বাদশ শতাব্দীতে ফাতিমীয় খিলাফত প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে শীর্ষবিন্দুতে পৌঁছে গিয়েছিল।[৫] ইসমাইলিরা তওহীদখতমে নবুয়তে বিশ্বাস করে এবং মুহাম্মদকে ﷺ তারা “সমগ্র মানবতার প্রতি আল্লাহর চূড়ান্ত নবী ও রসূল” হিসাবে বিবেচনা করে। ইসমাইলি ও ইসনা আশারিয়া উভয়ই অভিন্ন প্রাথমিক ছয় ইমামকে গ্রহণ করে; ইসমাইলিরা ইসমাইল ইবনে জাফরকে সপ্তম ইমাম হিসাবে গ্রহণ করে।

খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দীতে মুহম্মদ ইবনে ইসমাইলের মৃত্যুর পর ইসমাইলিবাদের শিক্ষাগুলো আরও রূপান্তরিত হয়ে আজকের বিশ্বাস ব্যবস্থায় পরিণত হয়, যা ইসলামের গভীর, গূঢ় (বাতিন) অর্থের উপর স্পষ্টভাবে গুরুত্বারোপ করে। উসুলিবাদআখবারিবাদের চূড়ান্তভাবে অধিকতর আক্ষরিকতামুখী (জাহির) বিকাশের সাথে সাথে শিয়া ইসলাম দুটি পৃথক দিকে বিকশিত হয়: রূপক ইসমাইলি, আলেভি, বেকতাশি, আলীয়ান এবং আলবীয় গোষ্ঠীগুলি ঈশ্বরের রহস্যবাদী পন্থা ও প্রকৃতি এবং এর পাশাপাশি “জমানার ইমামকে” গূঢ় সত্য এবং বোধগম্য ঐশ্বরিক বাস্তবতা প্রকাশের প্রতিনিধি হিসাবে গ্রহণের উপর মনোনিবেশ করে, অন্যদিকে অধিক আক্ষরিকতাবাদী উসুলি ও আখবারি দলগুলি দৈব আইন (শরীয়ত) এবং পথপ্রদর্শক ও ঐশী নূর মুহম্মদ ﷺ ও বারো ইমামের কর্ম ও বক্তব্যের (সুন্নত) প্রতি মনোনিবেশ করে।[৬]

ইসমাইলি চিন্তাধারা নয়াপ্লাতোবাদ দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত।[৭][৮]

সর্ববৃহৎ উপদল হল নিজারি ইসমাইলি এবং তারা চতুর্থ আগা খানকে ৪৯শ বংশানুক্রমিক ইমাম হিসাবে গণ্য করে,[৯] অন্যদিকে বাকি দলগুলি তৈয়িবি ইসমাইলি হিসাবে পরিচিত। বৃহত্তম ইসমাইলি জনগোষ্ঠী বাদাখশানে বসবাস করে,[৯] তবে মধ্য এশিয়া, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, ইয়েমেন, লেবানন, মালয়েশিয়া, সিরিয়া, ইরান, সৌদি আরব, ভারত, জর্ডান, ইরাক, পূর্ব আফ্রিকা, অ্যাঙ্গোলা, বাংলাদেশদক্ষিণ আফ্রিকায় ইসমাইলিদের বসবাস রয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তারা ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউ জিল্যান্ডত্রিনিদাদ ও টোবাগোতে প্রবসন নিয়েছে।[১০][১১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

স্থলাভিষেক সংকট[সম্পাদনা]

কারবালা ও তৎপরবর্তীকাল[সম্পাদনা]

কারবালার যুদ্ধ[সম্পাদনা]

ইসমাইলি দাওয়াহ কার্যক্রমের সূত্রপাত[সম্পাদনা]

দাঈদের উত্তরণ[সম্পাদনা]

করামিতা[সম্পাদনা]

ফাতিমীয় খিলাফত[সম্পাদনা]

ফাতিমীয় খিলাফতের উত্থান[সম্পাদনা]

ফাতিমীয় শাসনাধীন মধ্যপ্রাচ্য[সম্পাদনা]

খিলাফতের পতন[সম্পাদনা]

আলামুত[সম্পাদনা]

হাসান সাব্বাহ[সম্পাদনা]

হাশাশীন[সম্পাদনা]

ইমামতের দোরগোড়া[সম্পাদনা]

মঙ্গোলদের দ্বারা বিনাশ[সম্পাদনা]

পরিণাম[সম্পাদনা]

ইসমাইলি ইতিহাস লিখনধারা[সম্পাদনা]

বিশ্বাস[সম্পাদনা]

সপ্তস্তম্ভ[সম্পাদনা]

বেলায়াত[সম্পাদনা]

তাহারাত[সম্পাদনা]

নামাজ[সম্পাদনা]

জাকাত[সম্পাদনা]

রোজা[সম্পাদনা]

হজ[সম্পাদনা]

জিহাদ[সম্পাদনা]

কুরআন বিষয়ক দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

পুনর্জন্ম[সম্পাদনা]

সংখ্যাতত্ত্ব[সম্পাদনা]

ইমামত[সম্পাদনা]

পীর ও দাওয়াহ[সম্পাদনা]

জাহির[সম্পাদনা]

বাতিন[সম্পাদনা]

আকল[সম্পাদনা]

শাখা[সম্পাদনা]

নিজারি[সম্পাদনা]

তৃতীয় আগা খানের সংস্কার[সম্পাদনা]

মুমিনি[সম্পাদনা]

মুস্তালি[সম্পাদনা]

দাউদি বোহরা[সম্পাদনা]

সুলায়মানি[সম্পাদনা]

আলবি বোহরা[সম্পাদনা]

হিবতিয়া বোহরা[সম্পাদনা]

আতবা-এ-মলক[সম্পাদনা]

প্রগতিশীল দাউদি বোহরা[সম্পাদনা]

দ্রুজ[সম্পাদনা]

সৎপন্থ[সম্পাদনা]

লুপ্ত উপদল[সম্পাদনা]

বোজোর্মেনি[সম্পাদনা]

হাফিজি[সম্পাদনা]

সপ্তমী[সম্পাদনা]

আম্মান বার্তা ও মুসলিম উম্মাহে অন্তর্ভুক্তি[সম্পাদনা]

শিয়া মুসলিম জগতে ইসমাইলিবাদ[সম্পাদনা]

প্রধান শাখাগুলোর বিকাশের রূপরেখা[সম্পাদনা]

ইন্টারনেটের যুগে ইসমাইলিরা[সম্পাদনা]

ওয়েবসাইট[সম্পাদনা]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম[সম্পাদনা]

ইসমাইলি ম্যাগাজিন[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Badruddīn, Amir al-Hussein bin (20th Dhul Hijjah 1429 AH)। The Precious Necklace Regarding Gnosis of the Lord of the Worlds। Imam Rassi Society।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. Spencer C. Tucker ও Priscilla Roberts 2008, পৃ. 917।
  3. "Ismaʿili". Random House Webster's Unabridged Dictionary.
  4. "ISMAʿILISM" 
  5. "Religion of My Ancestors"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৪-২৫ 
  6. "Shaykh Ahmad al-Ahsa'i"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৪-২৫ 
  7. "Ismaili Philosophy | Internet Encyclopedia of Philosophy"www.iep.utm.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০১ 
  8. "Early Philosophical Shiism"Cambridge University Press। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০১ 
  9. Aga Khan IV ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ নভেম্বর ২০১১ তারিখে
  10. Dr. Sarfaroz Niyozov, University of Toronto "Shiʻa Ismaili Tradition in Central Asia – Evolution, and Continuities and Changes"। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৩-২০ 
  11. Daftary, Farhad (১৯৯৮)। A Short History of the Ismailis। Edinburgh, UK: Edinburgh University Press। পৃষ্ঠা 1–4। আইএসবিএন 0-7486-0687-4