জিজিয়া কর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

জিজিয়া (আরবি ভাষায়: جزيةǧizyah আইপিএ: [dʒizja]; হলো ইসলামি রাষ্ট্রে ইসলামি আইনে অনুকূলে স্থায়ীভাবে বসবাসরত অমুসলিমদের জন প্রতি বাৎসরিক ধার্যকৃত কর।[১][২][৩] মুসলিম ফকীহগণের অভিমত এই যে অমুসলীমদের মধ্যে করদাতাকে প্রাপ্তবয়স্ক, স্বাধীন, বিবেকী পুরুষ হতে হবে।[৪] কিন্তু মহিলা, শিশু, বয়স্ক, বিকলাঙ্গ বা প্রতিবন্ধী, অসুস্থ, উন্মাদ, সন্ন্যাসী, দাসদের নিস্কৃতি দেওয়া হয়েছে।[৫][৬][৭][৮][৯] পাশাপাশি মুসতামিনস —অমুসলিম বিদেশী যে অস্থায়ী মুসলিম দেশে আশ্রয় নেয়[৫][১০]এবং যে অমুলিমরা সামরিক বাহিনীতে যোগদান করতে তাদের চায় [১][৬][১১][১২][১৩] এবং যদি তারা দিতে অসমর্থ তবে তাদের এই কর থেকে নিস্কৃতি দেওয়া হয়েছে।[৬][১৪][১৫]

হাদিসেও জিজিয়া কর সম্পর্কে উল্লেখ আছে, কিন্তু পরিমাণ উল্লেখ নেই।[১৬]যাইহোক ফকীহগণ এই বিষয়ে একমত যে পূর্বে মুসলিম শাসকরা যেমন বাইজেন্টাইন এবং সাসানীয় সাম্রাজ্যে এটি আদায় করতেন।[১০][১৭][১৮][১৯][২০]

ইসলামি ইতিহাসে এর প্রয়োগ বিভিন্ন রকম দেখা যায়। অনেক সময় জিজিয়াকে খারাজ এর সাথে সাধারণ কর হিসাবে আদায় করা হয়েছে।[২১][২২][২৩]এবং ইসলামি রাজনীতিতে রাজস্ব আদায়ের প্রধান উৎস ছিল।[২৪]জিজিয়া কর কর দাতার সামর্থ্য অনুসারে বাৎসরিকভাবে নির্ধারিত হতো।[২৫]বিভিন্ন সময় স্থান,কাল ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে ভিন্ন সময় ধার্যকৃত কর এর পরিমাণ ভিন্ন হয়েছে।[২৬][১][২৭][২৮][২৯]


এ প্রসঙ্গে কোরানের সুরা তওবা’র ২৯ আয়াতে বলা হয়েছে, “যাদের ওপর কিতাব (কুরআন) অবতীর্ণ হয়েছে তাদের মধ্যে যারা আল্লাহর বিশ্বাস করে না ও পরকালেও না, এবং আল্লাহ ও তার রসুল যা হারাম করেছেন তা হারাম মনে করে না ও সত্যধর্ম অনুসরণ করে না, তাদের সাথে যুদ্ধ করবে যে পর্যন্ত না তারা বশ্যতা স্বীকার করত: আনুগত্যের নিদর্শন স্বরূপ স্বেচ্ছায় জিজিয়া দেয়”।।[৩০][কুরআন 9:29][৩১]

উসমানীয় তুরস্কে ১৯শ শতকের মধ্যভাগ পর্যন্ত জিজিয়া বলবৎ ছিল। মুসলমানদের বাধ্যতামূলকভাবে সামরিক বিভাগে যোগদান করতে হতো বলে তার পরিবর্তে অমুসলমানদের ওপর একটি কর ধার্য করা হয়। কিন্তু সকল ধর্মের নাগরিকদের জন্য বাধ্যতামূলক সামরিক পেশা প্রবর্তিত হওয়ার পর এই করেরও বিলোপ হয়। মধ্য যুগে পৃথিবীর অন্যান্য মুসলিম শাসিত দেশেও অমুলমানদের ওপর জিজিয়া কর ধার্য করা হয়। ভারতীয় উপমহাদেশে আকবর এটা রহিত করেন, কিন্তু সম্রাট আওরঙ্গজেবের আমলে এটা পুনঃপ্রবর্তিত হয়।[৩২][৩৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Abdel-Haleem, Muhammad (২০১০)। Understanding the Qur'ān: Themes and StyleI. B. Tauris & Co Ltd। পৃ: 70, 79। আইএসবিএন 978-1845117894 
  2. Abou Al-Fadl 2002, পৃ. 21।
  3. Jizyah The Oxford Dictionary of Islam (2010), Oxford University Press
  4. M. Zawati, Hilmi (২০০২)। Is Jihād a Just War?: War, Peace, and Human Rights Under Islamic and Public International Law (Studies in religion & society)। Edwin Mellen Press। পৃ: 63–4। আইএসবিএন 978-0773473041 
  5. Wael, B. Hallaq (২০০৯)। Sharī'a: Theory, Practice and TransformationsCambridge University Press। পৃ: 332–3। আইএসবিএন 978-0-521-86147-2 
  6. Ellethy 2014, পৃ. 181।
  7. Alshech, Eli (২০০৩)। "Islamic Law, Practice, and Legal Doctrine: Exempting the Poor from the Jizya under the Ayyubids (1171-1250)"। Islamic Law and Society 10 (3)। 
  8. Rispler-Chaim, Vardit (২০০৭)। Disability in Islamic law। Dordrecht, the Netherlands: Springer। পৃ: ৪৪। আইএসবিএন 1402050526 
  9. Majid Khadduri, War and Peace in the Law of Islam, pp. 192-3.
  10. Mirza, editor, Gerhard Bowering ; associate editors, Patricia Crone ... [et al.] ; assistant editor, Mahan (২০১৩)। The Princeton encyclopedia of Islamic political thought। Princeton, N.J.: Princeton University Press। পৃ: ২৮৩.। আইএসবিএন 0691134847 
  11. Mapel, D.R. and Nardin, T., eds. (1999), International Society: Diverse Ethical Perspectives, p. 231. Princeton University Press. আইএসবিএন ৯৭৮০৬৯১০৪৯৭২৪
  12. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; ArnoldPoI নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  13. Shah 2008, পৃ. 19–20।
  14. Ghazi, Kalin এবং Kamali 2013, পৃ. 240–1।
  15. Abdel-Haleem 2012, পৃ. 75–6, 77।
  16. Sabet, Amr (2006), The American Journal of Islamic Social Sciences 24:4, Oxford; pp. 99–100.
  17. Bravmann 2009, পৃ. 199–201, 204–5, 207–12।
  18. Mohammad, Gharipour (২০১৪)। Sacred Precincts: The Religious Architecture of Non-Muslim Communities Across the Islamic WorldBRILL। পৃ: XV। আইএসবিএন 9004280227 
  19. Shah 2008, পৃ. 20।
  20. Walker Arnold, Thomas (১৯১৩)। Preaching of Islam: A History of the Propagation of the Muslim FaithConstable & Robinson Ltd। পৃ: ৫৯ ff।  লেখা ")" উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য) (online)
  21. Morony, Michael (২০০৫)। Iraq after the Muslim conquest। NJ, USA: Gorgias Press। পৃ: 109, 99–134। আইএসবিএন 978-1-59333-315-7 
  22. Levy, Reuben (২০০২)। The social structure of Islam। London New York: Routledge। পৃ: 310–1। আইএসবিএন 978-0-415-20910-6 
  23. Satish Chandra (1969), Jizyah and the State in India during the 17th Century, Journal of the Economic and Social History of the Orient, Vol. 12, No. 3, pp. 322–40, quote="Although kharaj and jizyah were sometimes treated as synonyms, a number of fourteenth century theological tracts treat them as separate"
  24. Oded Peri; Gilbar (Ed), Gad (১৯৯০)। Ottoman Palestine, 1800-1914 : Studies in economic and social history। Leiden: E.J. Brill। পৃ: 287। আইএসবিএন 978-90-04-07785-0। "the jizya was one of the main sources of revenue accruing to the Ottoman state treasury as a whole." 
  25. Abu Khalil, Shawkiy (২০০৬)। al-Islām fī Qafaṣ al-ʾIttihām (আরবি ভাষায়)। Dār al-Fikr। পৃ: ১৪৯। আইএসবিএন 1575470047  (online)
  26. Charles Hamilton (1957), Hedaya, Lahore
  27. Ghazi, Kalin এবং Kamali 2013, পৃ. 82–3।
  28. The French scholar Gustave Le Bon writes "that despite the fact that the incidence of taxation fell more heavily on a Muslim than a non-Muslim, the non-Muslim was free to enjoy equally well with every Muslim all the privileges afforded to the citizens of the state." Mun'im Sirry (2014), Scriptural Polemics: The Qur'an and Other Religions, p. 179. Oxford University Press. আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৯৩৫৯৩৬৩.
  29. Abu Zahra, MuhammadZahrat al-Tafāsīr (আরবি ভাষায়)। Cairo: Dār al-Fikr al-ʿArabī। পৃ: 3277–8। 
  30. তাফসির
  31. Nasr, Seyyed Hossein; Dagli, Caner K.; Dakake, Maria Massi; Lumbard, Joseph E.B.; Rustom, Mohammed (২০১৫)। The Study Quran: A New Translation and Commentary। HarperCollins। 
  32. ইহুদি-খ্রিস্টানদের জন্যও আরব ভূমির অধিকার সঙ্কুচিত করার নির্দেশ
  33. হজরত উমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ.

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]