মধ্যযুগে ইসলামী বিশ্বে আলকেমি ও রসায়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইবনে উমাইল প্রাচীন আলকেমীয় জ্ঞানের ট্যাবলেট ধারণ করা একজন জ্ঞানী ব্যক্তির একটি মূর্তি বর্ণনা করছেন। মুহাম্মদ ইবনে উমাইল আল-তামিমির গ্রন্থ আল-মা-আল-ওয়ারাকি (দ্য সিলভারি ওয়াটার) এর বর্ণনা থেকে চিত্র, ৬০৮ হিজরি/১২১১ খ্রিষ্টাব্দে সম্ভবত বাগদাদ থেকে প্রাপ্ত ইসলামিক ক্ষুদ্রচিত্র।

'ইসলামে আলকেমি এবং রসায়ন মধ্যযুগীয় মুসলিম বিশ্বের পণ্ডিতদের দ্বারা প্রচলিত আলকেমি এবং প্রাথমিক যুগের ব্যবহারিক রসায়ন (সাধারণভাবে প্রকৃতির প্রাথমিক রাসায়নিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও পর্যবেক্ষণ) উভয় শাস্ত্রকেই সম্মিলিতভাবে বুঝায়।আলকেমিশব্দটিআরবি শব্দ كيمياء বা'কিমিয়া' থেকে উদ্ভূত।[১][২] এবং সম্ভবত চূড়ান্তভাবে প্রাচীন মিশরীয় শব্দ কেমি থেকে এসেছে, যার অর্থ কালো।

পশ্চিম রোমান সাম্রাজ্যের পতনের পরে, খিলাফত এবং ইসলামী সভ্যতাই আলকেমীয় বিকাশের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে। ইসলামিক আলকেমি সম্পর্কে আরও অনেক কিছু জানা যায়, কারণ এতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফলাফলকে ভালভাবে উপস্থাপন করা হয়েছিল যার প্রমাণ বিভিন্ন পুস্তকের মাধ্যমে এখনো বিদ্যমান; পূর্ববর্তী লেখাসমূহের যেগুলি বছরের পর বছর ধরে ক্রমাগত প্রকাশিত হয়েছিল, বেশিরভাগই আরবী অনুবাদ হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়েছিল।[৩]

সংজ্ঞা এবং মধ্যযুগীয় পাশ্চাত্য বিজ্ঞানের সাথে সম্পর্ক[সম্পাদনা]

ইসলামী বিজ্ঞানকে একটি স্বতন্ত্র, স্থানীয় বৈজ্ঞানিক প্রথা হিসেবে বিবেচনা করার জন্য "আরবি", "ইসলামিক", "আলকেমি" এবং "রসায়ন" এর মতো শব্দগুলির সংজ্ঞা দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এই নিবন্ধে আলোচিত ধারণাগুলি সম্পর্কে আরও ভাল উপলব্ধি অর্জনের জন্য এই শব্দগুলো ঐতিহাসিকভাবে কী বোঝায় তা বোঝা জরুরি। তাছাড়া এটি মধ্যযুগীয় সময়ের প্রেক্ষাপটে আলকেমি এবং বিজ্ঞানের প্রাথমিক যুগে রসায়নের মধ্যে সম্ভাব্য পার্থক্য সম্পর্কিত যে কোনও ভুল ধারণা দূর করতে সহায়তা করে। এ.আই সাবরা যেমন "আরব বিজ্ঞানের অবস্থান: স্থান বনাম গুরুত্ব" শিরোনামে তাঁর নিবন্ধে লিখেছেন, "আরব (বা ইসলামিক) বিজ্ঞান শব্দটি এমন একটি অঞ্চলে বসবাসকারী ব্যক্তির বৈজ্ঞানিক ক্রিয়াকলাপকে বোঝায় যা মোটামুটি অষ্টম শতাব্দী থেকে আধুনিক যুগের সূচনা কাল পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল এবং ভৌগোলিকভাবে আইবেরিয়ান উপদ্বীপ এবং উত্তর আফ্রিকা থেকে সিন্ধু উপত্যকা এবং দক্ষিণ আরব থেকে ক্যাস্পিয়ান সাগর পর্যন্ত - যে অঞ্চলটিকে আমরা বেশিরভাগ সময় ইসলামী সভ্যতা বলে থাকি এবং যার মধ্যে সংঘটিত পরযবেক্ষণের ফলাফলের বেশিরভাগ অংশ আরবী ভাষায় প্রকাশিত হয়েছিল"।[৪] আরব বিজ্ঞানের এই সংজ্ঞাটি একটি ধারণা প্রদান করে যে ভৌত অবস্থান, সংস্কৃতি এবং ভাষাগত সম্পর্কের দিক থেকে এর সাথে পাশ্চাত্য বিজ্ঞানের বৈপরীত্য থাকার অনেকগুলি পৃথক কারণ রয়েছে। যদিও মধ্যযুগের বিজ্ঞানীদের উদ্দেশ্যের মধ্যে বেশ কয়েকটি মিলও রয়েছে এবং উভয়ের ক্ষেত্রেই তা চিন্তার উৎস থেকেই উদ্ভূত।

লরেন্স প্রিন্সিপ তার "আলকেমি রিস্টোরড" শীর্ষক লেখায় আলকেমি ও রসায়নের মধ্যকার সম্পর্কের বর্ণনা দিয়েছেন, যেখানে তিনি বলেছেন যে, "ধাতুকে অন্য পদার্থে রূপান্তরের জন্য অনুসন্ধান ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা - যাকে আমরা "আলকেমি "বলে থাকি, তবে এটিকে আরও সঠিকভাবে" ক্রিয়োসোপিয়া" বলা হয়। সপ্তদশ শতাব্দীর শেষভাগে সাধারণভাবে একে দেখা হয়েছিল রসায়নের সমার্থক হিসেবে।[৫] তাই তিনি প্রস্তাব করেছিলেন যে Chemistry শব্দের প্রথম দিকের বানান "Chymistry" মূলত আলকেমি এবং প্রথম দিকের রসায়নকে অন্তর্ভুক্ত করে একীভূত বিজ্ঞানকেই বোঝায়। প্রিন্সিপ যুক্তি দিয়েছিলেন যে, "[১] তাদের জৈবিক ক্রিয়াকলাপগুলি, যেমনঃ বিশ্লেষণ, সংশ্লেষণ, রূপান্তরকরণ এবং বিক্রিয়ার মাধ্যমে ভৌত পদার্থের উৎপাদন উভয়েই একটি সাধারণ প্রক্রিয়া।" সুতরাং, ১৮ শতকের গোড়ার দিকে দুটি ক্ষেত্রের মধ্যে সংজ্ঞাগত কোন বৈসাদৃশ্য নেই। যদিও প্রিন্সিপের আলোচনাটি আলকেমি ও রসায়নের পাশ্চাত্য অনুশীলন কেন্দ্রিক, তবুও এই যুক্তিটি ইসলামী বিজ্ঞানের পদ্ধতি এবং তাতেঅ্যারিস্টোটলিয়ান অনুপ্রেরণার মধ্যে সাদৃশ্য বিবেচনা করার সময় সমর্থন করা হয়, যেসব বিষয় এই নিবন্ধের অন্যান্য বিভাগে উল্লিখিত হয়েছে। শব্দতত্ত্বের দিক থেকে আলকেমি এবং প্রারম্ভিক রসায়নের মধ্যে মূলত পার্থক্য রয়েছে। যদিও শব্দের প্রাচীন ব্যবহার বোঝার মাধ্যমে আমরা আধুনিক প্রসঙ্গে সেসব শব্দের পরিবর্তিত অর্থ সত্ত্বেও ঐতিহাসিকভাবে কোন শব্দের অর্থের সংজ্ঞা আরও ভালভাবে অনুধাবন করতে পারি।

যদিও তথ্য ও অনুশীলনের এই স্থানান্তর উক্ত ধারণার বিকাশের পথ সুগম করে দেয় এবং উভয়ই অ্যারিস্টটলিয়ান যুক্তি এবং হেলেনিক দর্শনের পাশাপাশি রহস্যবাদী দিকগুলি[৬] দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল, এটিও গুরুত্বপূর্ণ যে এক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয় সীমানা থেকে গেছে। পূর্বে আলোচিত রহস্যবাদী ও ধর্মীয় উপাদানগুলি এই বিজ্ঞানের পশ্চিমা বিকাশ থেকে ইসলামী রসায়নকে পৃথক করেছে। পশ্চিমারা প্রধানত খ্রিস্টান আদর্শকে ভিত্তি করে তাদের বিশ্বাস ও ফলাফলকে গড়ে তুলেছিল এবং এর সাথে ইসলামী ঐতিহ্যের ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। কিছু ক্ষেত্রে যেমন উদ্দেশ্য পৃথক ছিল, তেমনি গণনাপদ্ধতিরও পার্থক্য ছিল, আলকেমি এবং রসায়নবিদ্যার সমসাময়িক প্রকৃতি এবং বিজ্ঞানীদের কর্তৃক তাদের বিশ্বাসকে সঞ্চারিত করার সক্ষমতার সাথে সামঞ্জস্য থাকার কারণে এদের অনুশীলন এবং বিকাশ একই রকম ছিল।

রহস্যবাদী আলকেমিতে ইসলামী আলকেমিস্টদের অবদান[সম্পাদনা]

মেরি-লুইস ভন ফ্রানজ ইবনে উমাইলের "বুক অব দ্য এক্সপ্লানেশন অব দ্য সিম্বলস - কিতাব-হাল আর-রুমাজ" এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে গিয়ে বর্ণনা করেছেনঃ ইসলামী আলকেমির অবদানগুলি নিম্নরূপঃ সপ্তম থেকে অষ্টম শতাব্দীতে, ইসলামী পণ্ডিতরা মূলত প্রাচীন হারমেটিক-নস্টিক পাঠ্যগুলি কোনরূপ পরিবর্তন না করেই কাজগুলোর অনুবাদ করার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। আস্তে আস্তে তারা তাদের বিষয়বস্তুকে 'ইসলামের ধর্মের' মুখোমুখি দাঁড় করাতে শুরু করেন "এবং" স্বতন্ত্রভাবে চিন্তাভাবনা করতে শুরু করে এবং নিজেদেরকে আলকেমির রাজ্যে পরীক্ষা করতে শুরু করেন। এভাবে তারা "একেশ্বরবাদী দৃষ্টিভঙ্গি" (তাওহিদ) এর উপর জোর প্রদান এবং আরও বেশি বেশি করে বিভিন্ন প্রাচীন ঐতিহ্যেসমূহের সংক্ষিপ্তসার তৈরি করতে শুরু করেছিলেন। সুতরাং তাদের মূলভিত্তিকে একীভূত করে ইসলামী পণ্ডিতরা এই ধারণাতে পৌঁছেছিলেন যে, আলকেমির গোপনীয়তা এবং লক্ষ্য ছিল "এক ধরণের অন্তর্জাত মানসিক অভিজ্ঞতা তথা ঈশ্বরের প্রতিচ্ছবি আনয়ন' এবং সেই দার্শনিকের পাথর, জল, প্রাইমা ম্যাটেরিয়া (প্রাথমিক উপাদান) ইত্যাদি সমস্ত কিছুর সমন্বয়ে অন্তর্নিহিত রহস্যের মধ্য দিয়ে আলকেমিস্ট অবিচ্ছিন্ন ঈশ্বরের সাথে একত্রিত হন। দ্বিতীয়ত, তারা প্রাচীন হার্মিস্টবাদীদের চেয়ে অনেক বেশি কাব্যিক ভাষা ব্যবহার করে "আবেগ অনুভূতির সুর" যুক্ত করেছিলেন এবং "পুরুষ ও স্ত্রী, সূর্য এবং চাঁদ, রাজার ও রাণীর মিলনের চিত্র ইত্যাদি" অর্থাৎ কনিয়াঙ্কটিকো মোটিফের প্রতি আরও বেশি জোর দিয়েছিলেন।[৭] ইসলামের মরমী গুরুগণ আলকেমিকে বুঝেছিলেন আলকেমিস্টের মানসিকতার একটি রূপান্তর প্রক্রিয়া হিসেবে। এই রূপান্তরকে উৎসাহিত করেছিল আগুন, যাকে ধরা হত ঈশ্বরের ভালবাসা।[৮]

আলকেমিস্টগণ এবং তাঁদের কাজ[সম্পাদনা]

খালিদ ইবনে ইয়াজিদ[সম্পাদনা]

গ্রন্থগ্রাহক ইবনে আল-নাদিমের মতে, প্রথম মুসলিম আলকেমিস্ট ছিলেন খালিদ ইবনে ইয়াজিদ, যিনি আলেকজান্দ্রিয়ার খ্রিস্টান মেরিয়ানোসের অধীনে আলকেমি অধ্যয়ন করেছিলেন বলে জানা যায়। এই দাবির ঐতিহাসিকতা স্পষ্ট নয়; এম. উলম্যানের মতে এটি একটি কিংবদন্তি।[৯][১০] ইবনে আল-নাদিম এবং হাজি খলিফার মতে তিনি কিতাব আল খারাজাত (মুক্তার বই বা দ্য বুক অব পার্লস), কিতাব আল-সহিফা আল-কাবির (দ্য বিগ বুক অব দ্য রোল), কিতাব আল-সহিফা আল-সগির (দ্য স্মল বুক অব রোল ), কিতাব ওয়াসিয়াতিহি ইলা বনিহি ফিস-সানা (দ্য বুক অব হিজ টেস্টামেন্ট টু হিজ সান অ্যাবাউট দ্য ক্রাফট) এবং ফিরদাউস আল-হিকমা (জ্ঞানের স্বর্গ বা দ্য প্যারাডাইস অব উইজডম) এর লেখক, কিন্তু আবার এই বইগুলির লেখক অন্য কেউও হতে পারেন।[১১]

জাবির ইবনে হাইয়ান[সম্পাদনা]

১৫শ শতাব্দীর "গ্যাবার" এর ইউরোপীয় চিত্রকর্ম

জাবির ইবন হাইয়ান ( ফার্সি: جابرحیان‎‎ , আরবি: جابر بن حیان, লাতিনঃ জেবেরাস; সাধারণত ইংরেজিতে জ্যাবার উচ্চারণ করা হয়) ৭২১ বা ৭২২ সালে ইরানের অন্তর্গত পারস্য নগর তুসে জন্মগ্রহণ করেছেন বলে ধারণা করা হয় এবং তিনি আল-আজদ গোত্রের হাইয়ানের পুত্র ছিলেন, যিনি মূলত কুফায় বসবাস করতেন ও পেশায় ছিলেন ঔষধ-বিক্রেতা। তরুণ জাবির হারবি আল-হিমাইয়ারির অধীনে আরবে পড়াশোনা করেছিলেন। পরবর্তীকালে তিনি কুফায় বসবাস শুরু করেন এবং অবশেষে বাগদাদে হারুনুর রশিদের পক্ষে আদালতের আলকেমিস্ট নিযুক্ত হন। জাবিরের বারমাকির সাথে বন্ধুত্ব ছিল। ৮০৩ সালে তিনি কুফায় ফিরে আসেন। কিছু সূত্র মতে ৮১৫ সালে তিনি তুস শহরে মারা যান।

আলকেমি সংক্রান্ত কাজের বিশাল অংশই জাবিরের নিকট ঋণী। এত বিশালভাবে ঋণী যে তিনিই যে এসকল কাজ একা করেছিলেন তা প্রায় অবিশ্বাস্য। পল ক্রাউসের তত্ত্ব অনুসারে, এর মধ্যে অনেকগুলি কাজের কৃতিত্ব পরবর্তী ইসমাইলি লেখকদের দেয়া উচিত। এর মধ্যে যেসব কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সেগুলো হলোঃ দ্য ওয়ান হান্ড্রেড এবং টুয়েলভ বুকস ; দ্য সেভেনটি বুকস; দ্য টেন বুকস অব রেকটিফিকেশনস; এবং দ্য বুক অব দ্য ব্যালেন্সেস[১২]

আবু বকর আল-রাজি[সম্পাদনা]

আবু বকর ইবন জাকারিয়া আল-রাজি (ল্যাটিন: রেইজেস), রাজি শহরের চারপাশে ৮৬৪ সালের দিকে জন্মগ্রহণ করেন, প্রধানত তিনি একজন ফার্সি চিকিৎসক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিনি সিরর আল-আসরার (লাতিন: সেক্রেটাম সিক্রেটোরিয়াম; ইংরেজি: সিক্রেট অফ সিক্রেটস ) সহ বেশ কয়েকটি আলকেমীয় গ্রন্থ রচনা করেছিলেন।[১৩][১৪]

ইবনে উমাইল[সম্পাদনা]

মুহাম্মাদ ইবনে উমাইল আল-তামিমি ছিলেন দশম শতাব্দীর প্রতীকী-রহস্যবাদী শাখার আলকেমিস্ট। তাঁর টিকে থাকা রচনাগুলির মধ্যে একটি হল কিতাব আলমা-আল-ওয়ারাকি ওয়াল-আরদ আল-নাজমিয়া (দ্য বুক অন সিলভারি ওয়াটার অ্যান্ড স্টেরি আর্থ)। এই রচনাটি তাঁর কবিতা 'রিসালাত আল-শামস ইলিয়া আল-হিলাল (দ্য এপিসল অব দ্য সান টু দ্য ক্রিসেন্ট মুন ) এর একটি ব্যাখ্যাগ্রন্থ এবং এতে প্রাচীন লেখকদের অসংখ্য উদ্ধৃতি রয়েছে।[১৫] মধ্যযুগীয় পাশ্চাত্য (লাতিন) আলকেমিতে ইবনে উমাইলের গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ছিল[১৬]। সেখানে তাঁর এই রচনাটি বিভিন্ন নামে পাওয়া যায়, মূলত সিনিয়র বা জাদিথ নামে।[১৭] যেমনঃ তাঁর "সিলভারি ওয়াটার" মূলত আলকেমিক্যাল গ্রন্থসমূহের সংগ্রহঃ থিয়েট্রাম কেমিকাম, "কেমিক্যাল টেবিলস অব সিনিয়র জাদিথ" হিসাবে পুনরায় মুদ্রিত হয়েছিল, এবং টমাস অ্যাকুইনাসের লেখা মেরুজ্যোতি বিষয়ক গ্রন্থ সিউডো অ্যাকুইনাস তথা অরোরা কনসার্জনে এর ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। তারা উভয়ই তার একটি রাসায়নিক টেবিল ধারণের চিত্র (উপরে চিত্র দেখুন) দিয়েছিলেন।[১৮]

আল-তুঘরাই[সম্পাদনা]

আল তুঘরাই ছিলেন একাদশ দ্বাদশ শতাব্দীর পারস্য চিকিৎসক[১৯] তাঁর প্রধান গ্রন্থমাসাবিহ আল-হিকমা ওয়া-মাফাতিহ আল-রহমা (প্রজ্ঞার লণ্ঠন এবং রহমতের মূল বিষয়সমূহ/দ্য ল্যান্টারন অব উইজডম অ্যান্ড দ্য কি অব মার্সি) বিজ্ঞানের প্রাথমিক দিকের অন্যতম কাজ।

আল-জিলদাকি[সম্পাদনা]

আবুল কাসিম আইদামির আল জিলদাকির যিনি আল-জিলদাকি নামে অধিক পরিচিত, একজন ফার্সি আলকেমিস্ট ছিলেন তাঁর বইতে পরীক্ষামূলক রসায়নের প্রয়োজনীয়তার প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং তাঁর বহু পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা কানজ আল-ইখতিসাস ফি মারিফাত আল-খাওয়াস বইয়ে উল্লেখ করেছিলেন।

আলকেমীয় ও রাসায়নিক তত্ত্ব[সম্পাদনা]

জাবির কর্তৃক ব্যবহৃত পর্যায় সারণি[২০]
গরম ঠান্ডা
শুষ্ক আগুন পৃথিবী
আর্দ্র বায়ু পানি

জাবির প্রতিটি অ্যারিস্টটলীয় উপাদানকে অ্যারিস্টট্ল এর চারটি মৌলিক গুণাবলীঃ গরম ধর্ম, ঠান্ডা ধর্ম, শুষ্কতা, এবং আর্দ্রতার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্লেষণ করেন। উদাহরণস্বরূপ, আগুন এমন একটি পদার্থ যা গরম এবং শুকনো থাকে, যেমনটি টেবিলের মধ্যে দেখানো হয়েছে।[২০][২১][২২] জাবিরের মতে, প্রতিটি ধাতুতে এই গুণাবলীর দুটি অভ্যন্তরস্থ এবং দুটি বাহ্যিক ছিল। উদাহরণস্বরূপ, সীসা ছিল বাহ্যিকভাবে শীতল ও শুষ্ক তবে অভ্যন্তরীণভাবে গরম এবং আর্দ্র; অন্যদিকে, স্বর্ণ বাহ্যিকভাবে গরম এবং আর্দ্র ছিল তবে অভ্যন্তরীণভাবে শীতল এবং শুষ্ক ছিল। তিনি বিশ্বাস করতেন সালফারের (গরম এবং শুষ্ক গুণাবলী প্রদান) সঙ্গে পারদ (ঠাণ্ডা এবং আর্দ্রতা প্রদান) এর মিশ্রণেই পৃথিবীতে সকল ধাতু গঠিত হয়। তাই পারদ এবং সালফারকে সাধারণ উপাদান হিসাবে নয় বরং আদর্শ, অনুমেয় পদার্থ হিসাবে ভাবা উচিত। কোন ধাতুর গঠন পারদ এবং সালফারের বিশুদ্ধতা এবং যে অনুপাতে তারা একত্রিত হয় তার উপর নির্ভর করে। পরবর্তী আলকেমিস্ট আল-রাযী, জাবিরের পারদ-সালফার তত্ত্ব অনুসরণ করেছিলেন, তবে তৃতীয় একটি নোনতা উপাদান যুক্ত করেছিলেন।[২৩]

সুতরাং, জাবির তাত্ত্বিকভাবে বলেছিলেন, একটি ধাতুর গুণাবলীর পুনর্বিন্যাসের মাধ্যমে একটি নতুন পৃথক ধাতু তৈরি করা সম্ভব।[২৪] এই যুক্তি দিয়ে পশ্চিমা আলকেমিতে দার্শনিকের পাথরের সন্ধানের প্রবর্তন হয়েছিল।[২৫][২৬] জাবির একটি বিস্তৃত সংখ্যাবিদ্যার বিকাশ করেছিলেন যার মাধ্যমে আরবিতে কোনও পদার্থের নামের মূল অক্ষরগুলি যখন বিভিন্ন রূপান্তরের সাথে বর্ণনা করা হয় তখন তা উপাদানটির ভৌত বৈশিষ্ট্যে নির্দেশ করে।[২০]

প্রক্রিয়া এবং সরঞ্জাম[সম্পাদনা]

আল-রাযী নিম্নলিখিত রাসায়নিক প্রক্রিয়াগুলির উল্লেখ করেছেন: পাতন, ভস্মীকরণ, দ্রবণ, বাষ্পীভবন, কেলাসন, ঊর্ধ্বপাতন, পরিস্রাবণ, সংমিশ্রণ এবং সেরেশন (কঠিনকে পেস্ট বা দ্রাব্য হিসেবে তৈরির প্রক্রিয়া)। ) [২৭] কয়েকটি প্রণালী (ভস্মীকরণ, দ্রবণ, পরিস্রাবণ, স্ফটিককরণ, ঊর্ধ্বপাতন এবং নিঃসরণ) প্রাক ইসলামিক যুগে আলেকজান্দ্রিয়ান আলকেমিস্টদের দ্বারা অনুশীলন করা হয়েছিল বলে জানা যায়।[২৮]

সেক্রেটাম সেক্রেটোরিয়ামে আল-রাযী নিম্নলিখিত সরঞ্জামগুলির উল্লেখ করেছেন:[২৯]

  • পদার্থ গলাতে (লি-তাদউয়িব) ব্যবহার্য সরঞ্জাম: আখা (কুর), হাপর (মিনফাখ বা যিক্ক), অগ্নিপরীক্ষা (বাওতাকা), বুত বার বুত (আরবি-ফারসি থেকে) অথবা বোটাস বারবাটাস (ল্যাটিন), হাতা (মিঘরাফা বা মিলআকা), চিমটা (মাসিক বা কালবাতান), কাঁচি (মিকতা), হাতুড়ি (মুকাসসির), রেতি (মিরবাদ)।
  • ওষুধ প্রস্তুত করার সরঞ্জাম (লি-তদবির আল-আকাকির ): লাউ এবং এখনও নির্গমন নল (কারা বাআনাবিক ধু খাতম), গ্রাহক গদি (ক্বিবিলা ), স্টিলের পাত্র (নির্গমন নলবিহীন) (আল-আনবাক আল-আরাম ), আলুদেল (আল-উসাল), পানপাত্র (গাদাহ), ফ্লাস্ক (কারুয়া, বহুবচন কুওয়ারির), গোলাপ-জল ফ্লাস্ক (মা 'ওয়ারদিয়া), কড়াই (মারজাল বা তানজির), মাটির পাত্র, তাদের চোখের সঙ্গে ভিতরে বার্নিশ করা (কুদুর এবং মাকাব্বাত), জল স্নান বা বালি স্নান (কিদর), চুলা (আরবি ভাষায় আল-তান্নুর, ল্যাটিনে আথানোর), আলুদেল গরম করার জন্য ছোট বেলনাকৃতির চুলা (মুস্তাকিদ), ফানেল, আটা চালার চালুনি, ফিল্টার ইত্যাদি।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "alchemy", entry in The Oxford English Dictionary, J. A. Simpson and E. S. C. Weiner, vol. 1, 2nd ed., 1989, আইএসবিএন ০-১৯-৮৬১২১৩-৩.
  2. p. 854, "Arabic alchemy", Georges C. Anawati, pp. 853-885 in Encyclopedia of the history of Arabic science, eds. Roshdi Rashed and Régis Morelon, London: Routledge, 1996, vol. 3, আইএসবিএন ০-৪১৫-১২৪১২-৩.
  3. Burckhardt, Titus (১৯৬৭)। "Alchemy: science of the cosmos, science of the soul"। Stuart & Watkins: 46। 
  4. Sabra 1996, P. 655
  5. Principe 2011, P. 306
  6. Marie-Louise von Franz (CALA IA) 2006, p. 26
  7. Marie-Louise von Franz (CALA IA) 2006, p. 26-27.
  8. Marie-Louise von Franz (CALA IA) 2006, p. 39.
  9. pp. 63-66, Alchemy, E. J. Holmyard, New York: Dover Publications, Inc., 1990 (reprint of 1957 Penguin Books edition), আইএসবিএন ০-৪৮৬-২৬২৯৮-৭.
  10. M. Ullmann, "Ḵh̲ālid b. Yazīd b. Muʿāwiya, abū hās̲h̲im.", in Encyclopedia of Islam, second edition, edited by P. Bearman, Th. Bianquis, C. E. Bosworth, E. van Donzel, and W.P. Heinrichs, Brill, 2011. Brill Online. Accessed 20 January 2011. <http://www.brillonline.nl/subscriber/entry?entry=islam_SIM-4151[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]>
  11. Anawati 1996, p. 864.
  12. pp. 68-82, Holmyard 1990.
  13. pp. 867-879, Anawati 1996.
  14. pp. 86-92, Holmyard 1990.
  15. pp. 870-872, Anawati 1996.
  16. Marie-Louise von Franz (CALA IA) 2006, chapter: "Life and Work of Muḥammad ibn Umail", p. 55
  17. Julius Ruska, "Senior Zadith = Ibn Umail." Orientalistische Literaturzeitung 31, 1928, pp. 665-666
  18. Theodor Abt: "The Transmission of Ibn Umail's Vision to the Occident" in: Book of the Explanation of the Symbols - Kitāb Hall ar-Rumūz by Muhammad ibn Umail. Psychological Commentary by Theodor Abt. Corpus Alchemicum Arabicum (CALA) IB, Living Human Heritage Publications, Zurich 2009, p. 59-64.
  19. El Khadem, H. S. (১৯৯৫)। "A Lost Text By Zosimos Reproduced in an Old Alchemy Book": 774। ডিওআই:10.1021/ed072p774 
  20. pp. 74-82, Holmyard 1990.
  21. Holmyard 1990, pp. 21-22.
  22. Aristotle, On Generation and Corruption, II.3, 330a-330b.
  23. Holmyard 1990, p. 88.
  24. Burckhardt, Titus (১৯৬৭)। "Alchemy: science of the cosmos, science of the soul"। Stuart & Watkins: 29। 
  25. Ragai, Jehane (১৯৯২)। "The Philosopher's Stone: Alchemy and Chemistry"। Journal of Comparative Poetics: 58–77। জেস্টোর 521636ডিওআই:10.2307/521636 
  26. Holmyard, E. J. (১৯২৪)। "Maslama al-Majriti and the Rutbatu'l-Hakim": 293–305। ডিওআই:10.1086/358238 
  27. p. 89, Holmyard 1990.
  28. p. 23, A short history of chemistry, James Riddick Partington, 3rd ed., Courier Dover Publications, 1989, আইএসবিএন ০-৪৮৬-৬৫৯৭৭-১.
  29. Anawati 1996, p. 868

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]