অ-ইসলামি উপাসনালয়কে মসজিদে রূপান্তর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রাচীন কাশী বিশ্বনাথের মন্দির হিন্দু দেবতা শিবের জন্য উৎসর্গীকৃত এবং মন্দিরের শীর্ষে জ্ঞানভাপি মসজিদটি দাঁড়িয়ে আছে, যেটি ১৬৬৯ খ্রিস্টাব্দে মুসলিম সম্রাট আওরঙ্গজেব এর আদেশে মন্দির ধ্বংস করে মসজিদ তৈরি হয়।[১]
পূর্ব অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল হাজিয়া সোফিয়া ১৪৩৩ খ্রিস্টাব্দে মসজিদে রূপান্তরিত হয়।

অ-ইসলামিক উপাসনালয়কে মসজিদে রূপান্তর বলতে বোঝায় ইসলাম বহির্ভূত উপাসনালয়কে মসজিদে রূপান্তরিত (যেমন, হিন্দু মন্দির, বৌদ্ধ মন্দির, খ্রিস্টান গীর্জা, উপাসনালয় এবং জোরোস্ট্রিয়ান অগ্নি মন্দির) করাকে। পরে এ জাতীয় বেশ কয়েকটি মসজিদ অন্য ধর্মের উপাসনালয়গুলিতে পুননির্মিত হয়েছে, বা যাদুঘরে পরিণত হয়েছে। অ-ইসলামিক ভবন গুলিকে মসজিদে রূপান্তর ইসলামি স্থাপত্যের স্বতন্ত্র আঞ্চলিক শৈলীকে প্রভাবিত করে।

কুরআন-এর পবিত্র স্থানসমূহ[সম্পাদনা]

কাবা, মক্কা শহরের একটি প্রাচীন আশ্রয়স্থল এবং ইসলামের এই পবিত্রতম স্থানটি মূলত আরব মুশরিকদের উপাসনা করার স্থান ছিল। স্থানটিতে প্রায় ৩৬০ টি পবিত্র প্রতিমা স্থাপন স্থাপিত ছিল, যা মুহাম্মাদের দ্বারা শহরটি জয় করার পরে ভেঙে ফেলা হয়।

মক্কা[সম্পাদনা]

ইসলামের উত্থানের পূর্বে কাবা ও মক্কা (কুরআনে বাক্কাহ নামে পরিচিত) পবিত্র স্থান হিসাবে সম্মানিত ছিল এবং এটি তীর্থস্থান ছিল।[২] কেউ কেউ স্তোত্র ৮৪ (হিব্রু ভাষায়: בָּכָא‎) থেকে বাইবেলের "বাকের উপত্যকা" দিয়ে এটি সনাক্ত করে।[৩][৪] মুহাম্মাদের সময়ে (৫৭০-৬৩২ খ্রিস্টাব্দ), তাঁর বংশ কুরাইশ কা'আবা'র দায়িত্বে ছিল, যে সময়ে মন্দিরটি ছিল আরবীয় উপজাতি দেবতা এবং অন্যান্য ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের প্রতিনিধিত্বকারী শত শত প্রতিমা সম্বলিত একটি মন্দির। মুহাম্মাদ আদম ও ইব্রাহিমের ধর্ম (একেশ্বরবাদ) বলে দাবি করা নতুন ধর্ম ইসলামের জন্য মাজার দাবি করে তাঁর বংশের শত্রুতা অর্জন করেন। তিনি চেয়েছিলেন যে কাবা একক ঈশ্বরের উপাসনায় নিবেদিত হোক এবং সমস্ত মূর্তি উচ্ছেদ করা হয়। কাবা'র ব্ল্যাক স্টোন (আল-হাজার-উল-আসওয়াদ) এই স্থানে বিশেষভাবে উপাসনা করার বিষয় ছিল। ঐতিহ্য অনুসারে কাবা'র আশেপাশে সাত বা দশটি বিশেষভাবে সম্মানিত কবিতার পাঠ স্থগিত করা হয়।[৫]

জেরুসালেম[সম্পাদনা]

অন্যত্র[সম্পাদনা]

সিরিয়ার আল-শায়খ সাদের জব মসজিদটি আগে জব গির্জা ছিল।[৬]

ইহুদী ধর্মের দ্বিতীয় সবচেয়ে পবিত্র স্থান হেবরনের পিতৃপুরুষদের গুহার হেরোদিয়ান মাজারকে ১২৬৬ সালে মসজিদে পরিণত করার আগে ক্রুসেডের সময় একটি গির্জায় রূপান্তর করা হয় এবং এরপরে ইহুদি ও খ্রিস্টানদের জন্য এটি নিষিদ্ধ হয়। ১৯৬৭ সালে পরে এর কিছু অংশ ইসরায়েল কর্তৃক উপাসনালয় হিসাবে পুনরুদ্ধার করা হয়।

হিন্দু, জৈন এবং বৌদ্ধ মন্দির[সম্পাদনা]

পুরো উপমহাদেশ জুড়ে ইসলামিক বিজয় চলাকালীন ভারতে হিন্দু মন্দিরগুলি ধ্বংস করা হয় মুসলিম বিজয়ের সূচনা থেকে মুঘল সাম্রাজ্যের শেষ অবধি।

বিন্দু মাধব (নন্দ মাধো) মন্দির[সম্পাদনা]

বারাণসীতে বিন্দু-মাধব মন্দিরের মূল স্থানটির উপরে দাঁড়িয়ে আলমগীর মসজিদের কাঠামো

১৬৮২ সালে প্রাচীন ১০০ ফুট উঁচু বিন্দু মাধব (নন্দ মাধো) মন্দিরটি মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব ধ্বংস করেন এবং তার উপরে বারাণসীর আলমগীর মসজিদটি নির্মাণ করেন।[৭]

কাশী বিশ্বনাথ মন্দির[সম্পাদনা]

আসল কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরটি ষষ্ঠ মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব ধ্বংস করেন, যিনি মূল হিন্দু মন্দিরের উপরে জ্ঞানবাপি মসজিদটি নির্মাণ করেন। কাশী বিশ্বনাথ ভারতের সর্বাধিক নামী হিন্দু মন্দিরগুলির মধ্যে অন্যতম। আজও মূল মন্দিরের স্তম্ভগুলি এবং কাঠামো পরিষ্কারভাবে দেখা যায়।

আওরঙ্গজেবের মন্দিরটি ধ্বংসের বিষয়টি মন্দিরের সাথে সম্পর্কিত স্থানীয় জমিদারদের (জমির মালিকদের) বিদ্রোহের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল, যাদের মধ্যে কেউ কেউ মারাঠা রাজা শিবাজীর পলায়নকে সহায়তা করেছিল। বিশ্বাস করা হয় যে মন্দিরের নির্মাতা রাজা মন সিংহের নাতি প্রথম জয় সিং শিবাজীকে আগ্রা থেকে পালাতে সহায়তা করেন। [১১] মন্দিরটি ধ্বংস করার বিষয়টি শহরের মুঘল-বিরোধী দল এবং হিন্দু ধর্মীয় নেতাদের একটি সতর্কবার্তা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। [१२]

বাবরি মসজিদ[সম্পাদনা]

বাবরি মসজিদ (ইংরেজি: Babri Mosque, হিন্দি: बाबरी मस्जिद, উর্দু: بابری مسجد‎‎, অনুবাদ: বাবরের মসজিদ) ভারতের উত্তর প্রদেশের, ফৈজাবাদ জেলার অযোধ্যা শহরের রামকোট হিলের উপর অবস্থিত একটি প্রাচীন মসজিদ ছিল। এ বাবরি মসজিদ যে স্থানে অবস্থিত ছিল সেটাই ছিল হিন্দু ধর্মের অবতার রামের জন্মস্থান। ধারণা করা হয়, সম্রাট বাবর এই স্থানের রামমন্দিরের উপরের অংশ ধ্বংস করে তার উপরে মসজিদের মতো কাঠামো নির্মাণ করে মসজিদে রূপ দেন। এই বিষয়টি নিয়ে আঠারো শতক থেকেই হিন্দু এবং মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে বিতর্ক চলে আসছে, যা অযোধ্যা বিবাদ নামে পরিচিত। মসজিদের অভিলিখন থেকে জানা যায়, মুঘল সম্রাট বাবরের আদেশে সেনাপতি মীর বাকী ১৫২৮–২৯ (৯৩৫ হিজরি বর্ষে) এ মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন।

ধারনা করা হয়,এই মসজিদটি রামকোট ("রামের দুর্গ") হিলের উপর অবস্থিত ছিল। (যদিও তার কোন প্রমাণ নেই) হিন্দুদের মতে, মীর বাকী পূর্বে অবস্থিত রামমন্দির ধ্বংস করে তারপর মসজিদ নির্মাণ করেছে। ২০০৩ সালে ভারতের ভূমি জরিপ বিভাগের প্রতিবেদন অনুযায়ী তারা বাবরী মসজিদের নিচে একটি পুরাতন স্থাপনার অস্তিত্বের প্রমাণ পেয়েছেন।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এবং তাদের সহযোগী সংগঠনের কর্মীরা বাবরি মসজিদে কর সেবা করে। যার ফলে পুরো ভারত জুড়েই দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ে। এই দাঙ্গা পুরো ভারতজুড়ে প্রায় ২০০০ মানুষ মারা যায়, যাদের বেশিরভাগই ছিলেন হিন্দু সম্প্রদায়ের।

২০১০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর এলাহাবাদ হাইকোর্ট বাবরী মসজিদ যে স্থানে ছিল সেই ভূমি সম্পর্কিত রায় দেয়। এলাহাবাদ হাইকোর্টের তিন জন বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ তাদের রায়ে ২.৭৭ বা ১.১২ হেক্টর ভূমি সমান তিনভাগে ভাগকরার রায় প্রদান করেন। যার এক অংশ পাবে হিন্দু মহাসভা রাম জন্মভূমিতে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য, দ্বিতীয় অংশ পাবে ইসলামিক সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড এবং বাকি তৃতীয় অংশ পাবে নির্মোহী আখরা নামে একটি হিন্দু সংগঠন। যদিও ধ্বংসপ্রাপ্ত বাবরি মসজিদ কোন মন্দির কে ধ্বংস করে তার উপরে করে উঠছে কিনা এই বিষয়ে তিনজন বিচারক একমত হতে পারেননি, তারা শুধুমাত্র একমত হতে পেরেছেন, মসজিদের নিচে মন্দির অথবা মন্দিরের মতো কোনো স্থাপনার অস্তিত্ব ছিল। ভারতের পুরাতত্ত্ব বিভাগ কর্তৃক করা খননকার্যের জরিপ আদালত দ্বারা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়েছিল এবং তারা মনে করেছে যে স্থাপনাটির অস্তিত্ব মসজিদ নির্মাণের পূর্বে থেকে ছিল সে স্থাপনাটি একটি বিশাল হিন্দু মন্দির ছিল।

২০১৯ সালের অক্টোবর থেকে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত এই মামলার শুনানি করে। ৯ নভেম্বর ২০১৯ সালে ৫ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত একটি বেঞ্চ এই নির্দেশ দেয় ২.৭৭ একরের সে জমিটি মন্দির নির্মাণের জন্য কোন ট্রাস্টকে হস্তান্তর করতে হবে। আদালত সরকারকে এটাও নির্দেশ দেয় যে, মসজিদ নির্মাণের জন্য সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড কে ৫ একরের একটি জায়গা দিতে হবে।

মিনারগুলি ঐতিহ্যগতভাবে ইন্দোনেশিয় মসজিদের কোনও স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য নয়, পরিবর্তে মেনারা কুদ্দুস মসজিদে একটি হিন্দু-বৌদ্ধ মন্দিরের মতো কাঠামো নিযুক্ত করা হয়েছিল যাতে নামাজ পড়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। [১৪][৮]

ইন্দোনেশিয়ার অন্যতম বিখ্যাত মসজিদ মেনারা কুদ্দুস তার পূর্ববর্তী হিন্দু বৈশিষ্ট বেশিরভাগ অংশ ধরে রেখেছে।

পার্সি আগুন মন্দির[সম্পাদনা]

পার্সিয়ায় ইসলামিক বিজয়ের পরে পার্সি (জোরোস্ট্রিয়ান) অগ্নি মন্দিরগুলিতে চারটি অক্ষীয় খিলান স্থাপনের সাথে সাধারণত মসজিদে পরিণত করা হয়, শুধুমাত্র ক্বিবলা'র (মক্কার দিকে) নিকটে অবস্থিত খিলানের স্থানে একটি মিহরাব (প্রার্থনা কুলুঙ্গি) স্থাপন করা হয়। এই প্রথাটি অসংখ্য মুসলিম উৎস দ্বারা বর্ণিত; তবে প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণ নিশ্চিত করে এটি এখনও দুর্লভ। জোরোস্ট্রিয়ান মন্দিরগুলি মসজিদে রূপান্তরিত হয়েছিল বুখারা, পাশাপাশি ইস্তখর এবং ইরানের অন্যান্য শহরগুলিতে এবং এর কাছাকাছি স্থানে,[৬] যেমন: তারিখনেহ মন্দির, কাজভিনের জামে মসজিদ, কাজভিনের হেইদারিয়া মসজিদ, ইসফাহানের জামে মসজিদ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. https://archive.org/stream/narrativeofjourn01hebe#page/258/mode/2up
  2. Britannica 2002 Deluxe Edition CD-ROM, "Ka'bah."
  3. Daniel C. Peterson (২০০৭)। Muhammad, prophet of God। Wm. B. Eerdmans Publishing। পৃষ্ঠা 22–25। আইএসবিএন 978-0-8028-0754-0 
  4. Psalms 84:6, King James Version
  5. Amnon Shiloah (২০০১)। Music in the World of Islam: A Socio-Cultural Study। Wayne State University Press। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 9780814329702 
  6. Hillenbrand, R। "Masdjid. I. In the central Islamic lands"। P.J. Bearman; Th. Bianquis; C.E. Bosworth; E. van Donzel; W.P. Heinrichs। Encyclopaedia of Islam Online। Brill Academic Publishers। আইএসএসএন 1573-3912 
  7. Crowther, Geoff; Raj, Prakash A.; Wheeler, Tony (১৯৮৪)। India, a Travel Survival Kitবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Lonely Planet। 
  8. Schoppert, P., Damais, S., Java Style, 1997, Didier Millet, Paris, p. 207, আইএসবিএন ৯৬২-৫৯৩-২৩২-১

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]