আলাওয়ী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আলাওয়ী
علوية
Zulfiqar with inscription.png
জুলফিকার, আলীর তরবারির এই শৈল্পিক উপস্থাপন, আলাওয়ী এবং মূলধারার শিয়া মুসলমানদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতীক
মোট জনসংখ্যা
২,৬৩০,০০০ (২০০২ সালের জরিপমতে)[১]
প্রতিষ্ঠাতা
ইবনে নুসায়ের[২] এবং আল-খাসীবী[৩]
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
 সিরিয়া৫০০,০০০[৪]
 তুরস্ক৫০০,০০০–১ মিলিয়ন[৫][৬]
 লেবানন১০০,০০০[৭][৮][৯]
 জার্মানি৭০,০০০[১০][১১]
গোলান মালভূমি৩,৯০০ (ইসরায়েলের নাগরিকত্বপ্রাপ্ত গাজারের বাসিন্দা)
 অস্ট্রেলিয়ালেবাননীয় বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলীয়দের ২%[১২]
ভাষা
আরবি, তুর্কি

আলাওয়ী (আরবি: علوية‎, প্রতিবর্ণী. Alawīyah‎) হল শিয়া ইসলামের একটি শাখা।[১৪] আলাওয়ীরা আলী ইবনে আবী তালিবকে ভক্তি করে থাকে যাঁকে দ্বাদশী শিয়া চিন্তাধারায় প্রথম ইমাম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ধারণা করা হয় যে, ৯ম শতাব্দীতে ইবনে নুসায়ের এই মতবাদ প্রবর্তন করেন। ইবনে নুসায়ের ছিলেন দ্বাদশী শিয়াদের দশম ইমাম আলী আল-হাদী এবং একাদশ ইমাম হাসান আল-আসকারীর শিষ্য ছিলেন। এই কারণে আলাওয়ীদের প্রায়শই নুসায়েরী (نصيرية) নামে অবিহিত করা হয়, যদিও এই নামটি আধুনিককালে অসম্মানজনক অর্থে ব্যবহার করা হয়। আরেকটি নাম আনসারী (انصارية) আলাওয়ীদের বোঝাতে ব্যবহৃত হয়, যা নুসায়েরী শব্দের ভুল লিপ্যন্তর বলে মনে করা হয়।

বর্তমানে সিরিয়ার জনসংখ্যার ১২% আলাউয়ি সম্প্রদায়ের সদস্য। তুরস্ক ও উত্তর লেবাননে তারা উল্লেখযোগ্য সংখ্যালঘু হিসেবে রয়েছে। অধিকৃত গোলান মালভূমির গাজার গ্রামেও আলাউয়িদের বসতি রয়েছে। তুরস্কের শিয়া আলেভি সম্প্রদায় ও আলাউয়িদের একই ধরে অনেকে ভুল করে থাকে। সিরিয়ান উপকূল এবং উপকূলবর্তী শহরে আলাউয়িরা প্রধান ধর্মীয় গোষ্ঠী।

ঐতিহাসিকভাবে আলাউয়িরা বহিরাগত ও অআলাউয়িদের কাছ থেকে তাদের বিশ্বাস গোপন করে রাখত। ফলে তাদের সম্পর্কে গুজব রটে। আলাউয়িদের সম্পর্কে আরবি বিবরণগুলোতে ভালো মন্দ উভয় লিখিত রয়েছে।[১৫]

সিরিয়ায় ফরাসি মেন্ডেট আলাউয়ি ইতিহাসের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। এর মাধ্যমে ফরাসিরা তাদের সশস্ত্র বাহিনীর জন্য সিরিয়ানদের নিয়োগ দিতে থাকে এবং সংখ্যালঘুদের জন্য আলাদা অঞ্চল গঠন করে যার মধ্যে আলাউয়ি রাষ্ট্র অন্তর্গত ছিল। আলাউয়ি রাষ্ট্র পরে বিলুপ্ত করা হয়। তবে আলাউয়িরা সিরিয়ান সেনাবাহিনীর উল্লেখযোগ্য অংশ হিসেবে থেকে যায়। ১৯৭০ সালে হাফিজ আল আসাদ ক্ষমতায় গ্রহণের পর থেকে সরকার রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী আলাউয়ি আল আসাদ পরিবার কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হতে শুরু করে। ১৯৭০ ও ১৯৮০ এর দশকে সিরিয়ায় ইসলামি উত্থানের সময় সরকার চাপের মুখে পড়ে এবং সংঘাত সিরিয়ান গৃহযুদ্ধ পর্যন্ত চলে আসে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. James B. Minahan (৩০ মে ২০০২)। Encyclopedia of the Stateless Nations: Ethnic and National Groups Around the World A-Z। ABC-CLIO। পৃষ্ঠা 79। আইএসবিএন 978-0-313-07696-1 
  2. "MOḤAMMAD B. NOṢAYR"Encyclopaedia Iranica। electricpulp.com। 
  3. "ḴAṢIBI"Encyclopaedia Iranica। electricpulp.com। 
  4. Tej K. Bhatia; William C. Ritchie (২৩ জানুয়ারি ২০০৬)। Bhatia, Tej K.; Ritchie, William C., সম্পাদকগণ। The Handbook of Bilingualismসীমিত পরীক্ষা সাপেক্ষে বিনামূল্যে প্রবেশাধিকার, সাধারণত সদস্যতা প্রয়োজন (illustrated, reprint সংস্করণ)। John Wiley & Sons। পৃষ্ঠা 859আইএসবিএন 978-0-631-22735-9 
  5. Cassel, Matthew। "Syria strife tests Turkish Alawites" 
  6. "Who are the Alawites?"The Telegraph। ৩ এপ্রিল ২০১৬। 
  7. http://www.repost.us/article-preview/#!hash=0467cbf01990a23ab00bfe1a45696310 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ আগস্ট ২০১২ তারিখে
  8. "Lebanese Allawites welcome Syria's withdrawal as 'necessary'"The Daily Star। ৩০ এপ্রিল ২০০৫। 
  9. "Lebanon's Alawi: A Minority Struggles in a 'Nation' of Sects"। Al Akhbar English। ৮ নভেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  10. "Mitgliederzahlen: Islam", in: Religionswissenschaftlicher Medien- und Informationsdienst|Religionswissenschaftliche Medien- und Informationsdienst e. V. (Abbreviation: REMID), Retrieved 13 February 2017
  11. "Anzahl der Muslime in Deutschland nach Glaubensrichtung im Jahr 2015* (in 1.000)", in: Statista GmbH, Retrieved 13 February 2017
  12. Ghassan Hage (২০০২)। Arab-Australians today: citizenship and belonging (Paperback সংস্করণ)। Melbourne University Publishing। পৃষ্ঠা 40। আইএসবিএন 0-522-84979-2 
  13. Badruddīn, Amir al-Hussein bin (20th Dhul Hijjah 1429 AH)। The Precious Necklace Regarding Gnosis of the Lord of the Worlds। Imam Rassi Society।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  14. Madeleine Pelner Cosman; Linda Gale Jones (২০০৯)। Handbook to Life in the Medieval World, 3-Volume Set। Infobase Publishing। পৃষ্ঠা 407। আইএসবিএন 978-1-4381-0907-7 
  15. Friedman, Yaron (২০১০)। The Nuṣayrī-ʻAlawīs: An Introduction to the Religion, History, and Identity of the Leading Minority in Syria। পৃষ্ঠা 68। আইএসবিএন 9004178929