মাদারীপুর জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাদারিপুর
জেলা
বাংলাদেশে মাদারীপুর জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে মাদারীপুর জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১০′উত্তর ৯০°০৬′পূর্ব / ২৩.১৭° উত্তর ৯০.১০° পূর্ব / 23.17; 90.10স্থানাঙ্ক: ২৩°১০′উত্তর ৯০°০৬′পূর্ব / ২৩.১৭° উত্তর ৯০.১০° পূর্ব / 23.17; 90.10
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ ঢাকা বিভাগ
আয়তন
 • মোট ১১৪৪.৯৬ কিমি (৪৪২.০৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট ১২,১২,১৯৮
 • ঘনত্ব ১১০০/কিমি (২৭০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৪৮%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট জেলা তথ্য বাতায়ন


মাদারিপুর জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ঢাকা বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। জেলার আয়তন ১,১৪৪.৯৬ বর্গকিলোমিটার।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

২৩‑০০ উত্তর অক্ষাংশ থেকে ২০-৩০ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯-৫৬ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ থেকে ৯০-২১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ পর্যন্ত এই জেলার বিস্তার। জেলার উত্তরে ফরিদপুর জেলামুন্সিগঞ্জ জেলা, পূর্বে শরিয়তপুর জেলা, পশ্চিমে ফরিদপুর জেলাগোপালগঞ্জ জেলা, এবং দক্ষিণে গোপালগঞ্জ জেলাবরিশাল জেলা

নামকরনের ইতিহাস[সম্পাদনা]

পঞ্চদশ শতাব্দীর সুফি সাধক বদর উদ্দিন শাহ মাদার (রঃ)এর নাম অনুসারে মাদারিপুর জেলার নামকরণ করা হয়।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

মাদারিপুর জেলায় ৩ টি সংসদীয় আসন , ৪ টি উপজেলা , ৫ টি থানা , ৩ টি পৌরসভা, ৫৯ টি ইউনিয়ন পরিষদ , ১০৬২ টি গ্রাম, ৪৭৯ টি মৌজা রয়েছে ।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

মোট জনসংখ্যাঃ ১২,১২,১৯৮ জন (আদমশুমারী ও গৃহায়ন - ২০১১)
  • পুরুষঃ ৫০.২৯%
  • মহিলাঃ ৪৯.৭১%

প্রধান শস্য[সম্পাদনা]

রপ্তানী পণ্য
  • পাট ও পাটজাত দ্রব্য

জলবায়ু[সম্পাদনা]

উষ্ণ ও আর্দ্র ৷

বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাতঃ ২১০৫ মিলিমিটার ৷

সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৩৫·৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১২·৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস ৷

আবহাওয়া - স্বাস্থ্যকর ৷

নদীসমূহ[সম্পাদনা]

মাদারীপুর জেলায় প্রায় ১০টি নদী আছে। সেগুলো হচ্ছে পদ্মা, আড়িয়াল খাঁ নদী, কুমার নদী, বিষারকান্দি নদী, তুর্কি নদী, পালাদি নদী, মাদারীপুর নদী, বিলরুট চ্যানেল নদী এবং ময়নাকাটা নদী।[২]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • শাহ মাদার (১৩-১৪শতাব্দী) - প্রখ্যাত সূফী সাধক;
  • কেদার রায় (১৫ শতাব্দী) - বার ভুঁইয়ার অন্যতম ও বিক্রমপুর পরগনার জমিদার;
  • রাজা রাম রায়চৌধুরী (১৬ শতাব্দী) - রাজৈরের খালিয়া অঞ্চলের জমিদার;
  • হাজী শরীয়তুল্লাহ (১৭৮০-১৮৪০) - ধর্মীয় সংস্কারক ও ফরায়েজী আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা;
  • মৌলোবী আব্দুল জব্বার ফরিদপুরী (১৮০১-১৮৭৬) - বিশিষ্ট উর্দু কবি ও লেখক;
  • পীর মুহসীনউদ্দীন দুদু মিয়া (১৮১৯-১৮৬২) - ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন ও ফরায়েজী আন্দোলনের অন্যতম প্রধান নেতা;
  • অম্বিকাচরণ মজুমদার (১৮৫১ -১৯২২) - বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবী; ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস সভাপতি (১৯১৬);
  • সূফী আমির শাহ (মৃত্যুঃ ১৯৪৪) - প্রখ্যাত আধ্যাত্মিক সাধক;
  • পুলিন বিহারী দাস (১৮৭৭-১৯৪৯) - ব্রিটিশ বিরোধী সন্ত্রাসবাদী আন্দোলনের অনুশীলন সমিতির প্রধান (১৯০৭-১০);
  • কিরণ চাঁদ দরবেশ (১৮৭৮-১৯৪৬) - স্বদেশী যুগের রাজনৈতিক কর্মী, কবি, গীতিকার ও সাহিত্য সাধক;
  • আবা খালেদ রশীদ উদ্দিন (১৮৮৪-১৯৫৬) - বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও রাজনীতিবিদ;
  • পূর্ণচন্দ্র দাস (১ জুন ১৮৯৯ - ৪ মে ১৯৫৬) - ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী;
  • চিত্তপ্রিয় রায়চৌধুরী (১৮৯৪-১৯১৫খ্রি.); মাদারিপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর রনাঙ্গনে সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ ৷
  • নীরেন্দ্রনাথ দাশগুপ্ত (১৮৯৫-১৯১৫খ্রি.); মাদারিপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর কারাগারে ফাঁসির মঞ্চে শহীদ ৷
  • মনোরঞ্জন সেনগুপ্ত (১৮৯৮-১৯১৫খ্রি.); মাদারিপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর কারাগারে ফাঁসির মঞ্চে শহীদ ৷
  • স্বামী প্রণবানন্দ মহারাজ (১৮৯৬-১৯৪১খ্রি.); স্বদেশী যুগের বিশিষ্ট বিপ্লবী ও বীর সাধক ৷
  • খান বাহাদুর আব্দুর রহমান খাঁ (১৮৯০-১৯৬৪খ্রি.); শিক্ষাবিদ ও সাহিত্যিক; যুক্ত বঙ্গের এডিপিআই(১৯৩৯-৪৫), জগন্নাথ কলেজ এর প্রিন্সিপাল(১৯৪৮-৫৬) ও রেক্টর(১৯৫৬) ৷
  • আলিমুদ্দিন আহম্মদ, খান সাহেব (১৮৯০ -১৯৫৭খ্রি.); মোক্তার ও বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ৷
  • ডাঃ জোহরা কাজী; ভারতীয় উপমহাদেশ এর প্রথম মহিলা চিকিৎসক ৷
  • মুন্সী মোজাহারুল হক (১৮৯৮-১৯৭৯খ্রি.); রাজনীতিবিদ ও মাদারিপুরের প্রথম লঞ্চ ব্যাবসায়ী ৷
  • ইস্কান্দার আলী খান (১৯০১-৮৩খ্রি.); বিশিষ্ট আইনজীবি ও রাজনীতিবিদ; এমএলএ ৷
  • ফণীভূষণ মজুমদার (১৯০১ -৮১খ্রি.); এমএলএ, এমপিএ, মুজিবনগর সরকারের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য, মন্ত্রী ৷
  • দ্বারকানাথ বারুরী (১৯০৬ -৮৫খ্রি.); যুক্ত বঙ্গের ও পূর্ব পাকিস্তান মন্ত্রী, পাকিস্তান কন্সটিটিউশন কমিশনের সদস্য(১৯৬০) ৷
  • ডাঃ গোলাম মাওলা (১৯২০ -৬৭খ্রি.); ভাষা সৈনিক, এমএলএ, এমএনএ একুশে পদক(২০১০) প্রাপ্ত; বিশিষ্ট চিকিৎসক ৷
  • ড. ফজলুর রহমান খান (১৯২৯-৮২খ্রি.); বিশ্ববিখ্যাত স্থপতি; আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ারিং রেকর্ডের "ম্যান অব দ্যা ইয়ার"(১৯৬৬,৬৯,৭১,৭২), মরণোত্তর স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার(১৯৯৯) প্রাপ্ত ৷
  • পদ্মা দেবী (১৯১৭ -৮৩খ্রি.); ভারতীয় বাঙালি চলচ্চিত্রাভিনেত্রী ৷
  • সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় (১৯৩৪ -খ্রি.); প্রখ্যাত কবি, ঔপন্যাসিক ও সাংবাদিক ৷
  • প্রফেসর গোলাম ওয়াহেদ চৌধুরী; রাষ্ট্রবিজ্ঞান গবেষক ও সমাজসেবী; পাকিস্থান কন্সটিটিউশন কমিশনের অনারারি উপদেষ্টা(১৯৬১) ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী(প্রাক্তন) ৷
  • রশীদ তালুকদার, (২৪শে অক্টোবর, ১৯৩৯ - ২৫শে অক্টোবর, ২০১১) বিজ্ঞান জাদুঘর (১৯৭৮) ও বিপিএস (১৯৮২) স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ফটো সাংবাদিক।
  • আভা আলম (১৯৪৭-৭৬খ্রি.); সঙ্গীত শিল্পী; মরনোত্তর একুশে পদক(১৯৭৮) স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ৷
  • ড. মুহাম্মদ আব্দুর রশীদ (১৯৩৮-৬৯খ্রি.); ভূ-তত্ত্ববিদ ও গবেষক ৷
  • রাজিয়া মাহবুব; বিশিষ্ট সাহিত্যিক ৷
  • স্টুয়ার্ড মুজিবর রহমান; আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার তিন(৩) নম্বর আসামী ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ৷
  • মৌলভী আচমত আলী খান (১৯০৭-৯৩খ্রি.); এমপিএ, এমপি; বঙ্গীয় গভর্ণর মেডেল(১৯৪৩) প্রাপ্ত ৷
  • প্রফেসর ড. জিল্লুর রহমান খান; রাষ্ট্রবিজ্ঞান গবেষক ও লেখক ৷
  • আব্দুল মান্নান শিকদার; ভাষা সৈনিক; প্রাক্তন এমপি ও প্রতিমন্ত্রী ৷
  • সৈয়দ আবুল হোসেন - রাজনীতিবিদ;
  • শাহজাহান খান - রাজনীতিবিদ;[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
  • আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম - রাজনীতিবিদ।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
  • বাসুদেব দাশগুপ্ত - হাংরি আন্দোলন এর বিশিষ্ট ঔপন্যাসিক

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ[সম্পাদনা]

মাদারিপুর জেলায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখা সব মিলিয়ে ২১৩টি। শিক্ষার হার - ৪৮ %

  • বিশ্ববিদ্যালয়: ৬
  • কলেজ : ১৪
  • মাধ্যমিক বিদ্যালয়: ১৩৮
  • মাদ্রাসা : ৬১

উপজেলাসমূহ[সম্পাদনা]

  1. মাদারিপুর সদর
  2. শিবচর
  3. কালকিনি
  4. রাজৈর
  5. ডাসার(থানা)

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

পর্বতের বাগান-মস্তফাপুর, প্রণবানন্দের মন্দির- বাজিতপুর, গণেশ পাগলের মন্দির- কদমবাড়ী, রাজারাম রায়ের বাড়ি- খালিয়া, সেনাপতির দিঘি, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়ি- মাইজপাড়া, নারায়ণ মন্দির-পািনছত্র, মাদারিপুর শকুনী দিঘি, শাহ মাদার (রঃ) দরগাহ শরীফ ৷

আনুষঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

বাড়তি পঠন[সম্পাদনা]

  1. আনন্দনাথ রায়ের ফরিদপুরের ইতিহাস (সংগ্রহ ও সম্পাদনা: ড. তপন বাগচী), গতিধারা প্রকাশনী, ঢাকা, ২০০৭।
  2. আনম আবদুস সোবহান, বৃহত্তর ফরিদপুরের ইতিহাস, সূর্যমুখী প্রকাশনী, ফরিদপুর, ১৯৯৬।
  3. মু. মতিয়ার রহমান, অপ্রভ্রষ্ট অপভ্রংশ শামান্দার : মাদারীপুর জেলার ইতিকথা, গতিধারা প্রকাশনী, ঢাকা, ২০১০।
  4. বাশার মাহমুদ, শাহমান্দারের ঘাট, গাংচীল প্রকাশনী, ঢাকা, ২০১০।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে মাদারিপুর"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ২৬ জুন, ২০১৪ 
  2. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৩৯৭, ISBN 978-984-8945-17-9

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]