মাগুরা জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাগুরা
জেলা
বাংলাদেশে মাগুরা জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে মাগুরা জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°২৪′ উত্তর ৮৯°২৪′ পূর্ব / ২৩.৪০০° উত্তর ৮৯.৪০০° পূর্ব / 23.400; 89.400স্থানাঙ্ক: ২৩°২৪′ উত্তর ৮৯°২৪′ পূর্ব / ২৩.৪০০° উত্তর ৮৯.৪০০° পূর্ব / 23.400; 89.400 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগখুলনা বিভাগ
আয়তন
 • মোট১০৪৮.৬১ কিমি (৪০৪.৮৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট৯,১৮,৪১৯
 • জনঘনত্ব৮৮০/কিমি (২৩০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট৫০.৬%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৭৬০০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৪০ ৫৫
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

মাগুরা জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। এটি খুলনা বিভাগের একটি জেলা।উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগের ক্ষেত্রে </ref> ট্যাগ যোগ করা হয়নি

১৮৫৬-৬০ সালের হাজরাপুরে নীলকুঠিকে কেন্দ্র করে নীল অভ্যুত্থান হয়। বরই, আমতলা নাহাটি ব্যপক নীল চাষের নিদর্শন। মহান মুক্তিযুদ্ধে জনগণ প্রায় ১৬টি ফ্রন্টে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মোকাবেলা করেছিল। এসব যুদ্ধ মোকাবেলা করতে গিয়ে অনেক মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়েছিলেন। লুৎফুন্নাহার হেলেনার বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা ও পরবর্তীতে তাঁর করুণ মৃত্যু জনগণ গর্বভরে স্মরণ করে।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদম শুমারি অনুযায়ী মোট জনসংখ্যা ৯ লক্ষ ১৮ হাজার ৪১৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ: ৫০.৫৬%, মহিলা: ৪৯.৪৪%।

স্থানীয়ভাবে প্রকাশিত পত্রিকা ও সাময়িকী[সম্পাদনা]

  • দৈনিক খেদমত (চলমান)
  • সাপ্তাহিক অঙ্গীকার (বিলুপ্ত)
  • গ্রামীণ বাংলা (বিলুপ্ত)
  • হিন্দু মুসলমান সম্মিলনী পত্রিকা-১৮৭৬
  • সাপ্তাহিক আনন্দ ১৯২৯
  • নবগঙ্গা ১৯৪১
  • সাপ্তাহিক বাংলার ডাক ১৯৭২ (বিলুপ্ত)
  • সাপ্তাহিক রূপসী বাংলা ১৯৭২ (বিলুপ্ত)
  • সাপ্তাহিক মাগুরা বার্তা ১৯৮৫ (বিলুপ্ত)
  • সাপ্তাহিক গণসংবাদ (বিলুপ্ত)এবং
  • পাক্ষিক নবকাল ১৯৭২ (বিলুপ্ত)
  • দৈনিক মাগুরা ২০১৫ (বিলুপ্ত)
  • মাগুরা বিত্তান্ত সাপ্তাহিক (বিলুপ্ত)

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • এ্যাডভোকেট সোহরাব
 হোসেন,এমএনএ,ক্যাবিনেট মন্ত্রী।

নদ-নদী[সম্পাদনা]

জেলায় অনেকগুলো নদী রয়েছে। নদীগুলো হচ্ছে গড়াই নদী, নবগঙ্গা নদী, ফটকি নদী, আলমখালি নদী, মধুমতি নদী, মুচিখালি নদী, মরাকুমার নদ, কুমার নদ, চিত্রা নদী, ভৈরব নদী, সিরাজপুর হাওর নদী, বেগবতী নদী[৩][৪]

আরোও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে মাগুরা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. http://www.magura.gov.bd/node/98652/
  3. ড. অশোক বিশ্বাস, বাংলাদেশের নদীকোষ, গতিধারা, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২০১১, পৃষ্ঠা ৩৯০, আইএসবিএন ৯৭৮-৯৮৪-৮৯৪৫-১৭-৯
  4. মানিক মোহাম্মদ রাজ্জাক, বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতি, কথাপ্রকাশ, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি, ২০১৫, পৃষ্ঠা ৬১২, ISBN 984-70120-0436-4.

বহিসংযোগ[সম্পাদনা]