কাজী আনোয়ার হোসেন (চিত্রশিল্পী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কাজী আনোয়ার হোসেন
Kazi Anowar Hossain.jpg
১৯৮৫ সালে নিজ বাসায় কাজী আনোয়ার হোসেন
জন্ম(১৯৪১-০১-০১)১ জানুয়ারি ১৯৪১[১]
মৃত্যুফেব্রুয়ারি ৮, ২০০৭(২০০৭-০২-০৮)[১]
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
যেখানের শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাচিত্রশিল্পী
কার্যকাল১৯৬৫ - ২০০৭
দাম্পত্য সঙ্গীমোসাম্মৎ সুফিয়া আনোয়ার[১]
সন্তানকাজী ফারহানা হোসেন (কন্যা)
কাজী সোহিনী আক্তার (কন্যা)
কাজী আশিকুর হোসেন (পুত্র)
কাজী মসিউর হোসেন (পুত্র)
পিতা-মাতাকাজী আবুল হোসেন (পিতা)
মোসাম্মৎ অহিদুন্নেছার (মাতা)
পুরস্কারএকুশে পদক (মরণোত্তর)

কাজী আনোয়ার হোসেন (১ জানুয়ারি ১৯৪১ - ৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৭) ছিলেন বাংলাদেশের একজন চিত্রশিল্পী যিনি গ্রাম বাংলার চিরায়ত চিত্রাঙ্কনে বিশেষ পরিচিত ছিলেন।[১] শিল্পকলায় বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০১৬ সালে তাকে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করে।

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

কাজী আনোয়ার হোসেন বর্তমান বাংলাদেশের গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া থানার কুরপালা গ্রামে ১৯৪১ সালের ১লা জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম কাজী আবুল হোসেন এবং মাতার নাম আহিদুন্নেছা। পুলিশ ইন্সপেক্টর পিতা এবং গৃহীনি মাতার ১৩ সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করলেও পিতার চাকুরীসূত্রে তিনি মাদারীপুরে বেড়ে উঠেন। মাধ্যমিকে পড়া অবস্থাতেই তার চিত্রশিল্পে হাতেখড়ি। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারম্নকলা ইনষ্টিটিউটি থেকে ১৯৬৪ সালে স্নাতক উত্তীর্ণের পর পুরুপুরি চিত্রশিল্পতে মনোনিবেশ করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

কর্মজীবনের প্রথম দিকে তিনি চিরায়ত গ্রাম বাংলার ছবি আঁকেন এবং পরবর্তীতে মিনিয়েচার ছবি আঁকতে বেশি পছন্দ করতেন। তার আঁকা ছবি বিভিন্ন সময় দেশ ও দেশের বাইরে ২২টিরও বেশি সাথে একক ও যৌথভাবে প্রদর্শিত হয়েছিল।[২] ১৯৮৮ সালের বন্যার সময়ে তিনি ছবি এঁকে বিক্রি করে উপার্জিত অর্থ বর্নাত্যদের জন্য দান করেন।[১] বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশ সফরে এলে রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান তারই আঁকা একটি নৌকার ছবি ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে উপহার হিসেবে দিয়েছিলন[৩] এবং সেসময় শেখ মুজিবুর রহমান কাজী আনোয়ার হোসেনকে “নৌকা আনোয়ার” হিসেবে উপাধি দেন।[১][৪] ৮ই ফেব্রুয়ারি ২০০৭ সালে মৃত্যুর পূর্বে তিনি তার আঁকা ২০০০-এর বেশি শিল্পকর্ম রেখে যান।[১][৫]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তার কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ সরকার ২০১৬ সালে তাকে শিল্পকলায় একুশে পদকে ভূষিত করে।[৪]

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় ছবি সংরক্ষণ[সম্পাদনা]

২০১৭ সালে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে কাজী আনোয়ার হোসেনের চিত্রকর্ম সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়। সারাদেশব্যপী ৬০টি জেলায় তার চিত্রকর্ম প্রদর্শন ও সংরক্ষণ করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশ সরকার দেশের বাইরেও বিভিন্ন দূতাবাসে তার আঁকা চিত্রকর্ম প্রদর্শন করে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]