সুনামগঞ্জ জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ
জেলা
সুনামগঞ্জ
বাংলাদেশে সুনামগঞ্জ জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে সুনামগঞ্জ জেলার অবস্থান
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ সিলেট বিভাগ-এ অবস্থিত
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ
সুনামগঞ্জ • ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ
বাংলাদেশে সুনামগঞ্জ জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৫°১′৫১″ উত্তর ৯১°২৪′১৪″ পূর্ব / ২৫.০৩০৮৩° উত্তর ৯১.৪০৩৮৯° পূর্ব / 25.03083; 91.40389স্থানাঙ্ক: ২৫°১′৫১″ উত্তর ৯১°২৪′১৪″ পূর্ব / ২৫.০৩০৮৩° উত্তর ৯১.৪০৩৮৯° পূর্ব / 25.03083; 91.40389 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ সিলেট বিভাগ
জেলা পরিষদ সুনামগঞ্জ জেলা
সরকার
 • চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ)
আয়তন
 • মোট ৩৭৪৭.১৮ কিমি (১৪৪৬.৭৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১৪)[১]
 • মোট ২৪,৬৭,৯৬৮
 • ঘনত্ব ৬৬০/কিমি (১৭০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৪৯.৭৫%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড ৩০০০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৬০ ৯০
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

সুনামগঞ্জ জেলা (ইংরেজি: Sunamganj, সিলেটি: ꠡꠥꠘꠣꠝꠉꠘ꠆ꠎ) বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল । কিংবদন্তী এবং ঐতিহাসিক তথ্যাবলী থেকে অনুমান করা হয়, সুনামগঞ্জ জেলার সমগ্র অঞ্চল প্রাচিন কামরূপ বা প্রাগজ্যোতিষপুর রাজ্যের অন্তর্গত ছিল । ১৮৭৭ খ্রিস্টাব্দে সুনামগঞ্জ জেলাকে মহকুমায় ও ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে সুনামগঞ্জ মহকুমাকে জেলায় উন্নীত করা হয় । [২]

নামকরণ[সম্পাদনা]

‘সুনামদি’ নামক জনৈক মোগল সিপাহীর নামানুসারে সুনামগঞ্জের নামকরণ করা হয়েছিল বলে জানা যায়। ‘সুনামদি’ (সুনাম উদ্দিনের আঞ্চলিক রূপ) নামক উক্ত মোগল সৈন্যের কোন এক যুদ্ধে বীরোচিত কৃতিত্বের জন্য সম্রাট কর্তৃক সুনামদিকে এখানে কিছু ভূমি পুরস্কার হিসাবে দান করা হয়। তাঁর দানস্বরূপ প্রাপ্ত ভূমিতে তাঁরই নামে সুনামগঞ্জ বাজারটি স্থাপিত হয়েছিল। এভাবে সুনামগঞ্জ নামের ও স্থানের উৎপত্তি হয়েছিল বলে মনে করা হয়ে থাকে।[৩]

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

উত্তরে খাসিয়া ও জৈন্তিয়া পাহাড়, পূর্বে সিলেট জেলা, দক্ষিণে হবিগঞ্জ জেলা, পশ্চিমে নেত্রকোনা জেলাকিশোরগঞ্জ জেলা

উপজেলাসমূহ[সম্পাদনা]

সুনামগঞ্জ জেলার উপজেলাগুলো হচ্ছে:

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীনকাল থেকে বহু ভাষাভাষী জাতি, বর্ণ ও ধর্ম নিয়ে বেড়ে উঠেছে সার্বভৌম বাংলাদেশের বর্তমান সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ অঞ্চল । পৌরাণিক যুগে প্রাচীন কামরূপ বা প্রাগজ্যোতিষপুর রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল সুনামগঞ্জ । সুনামগঞ্জের লাউড় পর্বতে কামরূপ রাজ্যের উপরাজধানী স্থাপন করেছিলেন রাজা ভগদত্ত । রাজা ভগদত্তের শাসনামলে সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলাসহ বাংলাদেশের ঢাকা এবং ময়মনসিংহ জেলার মধ্যবর্তী অঞ্চল লাউড় রাজ্যের অধীন শাসিত হত । লাউড়ের গড়ের ভগ্নাবশেষ আজও অত্র অঞ্চলে বিদ্যমান, যা রাজা ভগদত্তের বাড়ি বলে জনশ্রুতিতে ব্যক্ত ।[৪]

সুনাম উদ্দিন নামে জনৈক সিপাহী একটি গঞ্জ বা বাজার প্রতিষ্ঠা করেন। পরে উপজেলা, মহকুমা ও জেলা শহরে রুপান্তরিত হয়। বর্তমান সুনামগঞ্জ জেলার নাম ছিল বনগাঁও। ১৮৭৭ সালে সুনামগঞ্জ মহকুমা প্রতিষ্ঠত হয়। ১৯৮৪ সালে জেলায় রুপান্তরিত হয়। জেলায় মোট ৮১টি ইউনিয়ন এবং ২৭৭৩টি গ্রাম আছে। জেলার প্রথম হাইস্কুল সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৮৭ সাল সুনামগঞ্জ সদরে, দ্বিতীয় হাইস্কুল দিরাই উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৫ সালে দিরাই উপজেলায়, তৃতীয় হাইস্কুল ব্রজন্নাথ উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৯ সালে জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁওয়ে। ১৯৪৪ সালে প্রতিষ্ঠা হয় সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

মাথাপিছু আয় ৩৫৯০ ডলার

সুনামগঞ্জ জেলায় জেলেদের জীবন

মুলতঃ পাথর শিল্প, মৎস্য, ধান, সিমেন্ট শিল্প।

জেলার শিক্ষাব্যবস্থা[সম্পাদনা]

সুনামগঞ্জ জেলার স্বাক্ষরতার হার ৪৯.৭৫%। সুনামগঞ্জ জেলায় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য জেলায় অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সড়ক, রেল ও নৌপথ[সম্পাদনা]

  • সড়ক যোগাযোগ

সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কটিই জেলার সড়ক যোগাযোগের প্রধানতম পথ। এ পথেই রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য জেলার সাথে সরাসরি যোগাযোগ রক্ষা হয়। সুনামগঞ্জ-জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা হয়ে নেত্রকোনা জেলার সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের নিমিত্তে সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকল্প নির্মাণাধীন। এছাড়া সুনামগঞ্জ-ছাতক আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-দিরাই আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর-তাহিরপুর আঞ্চলিক সড়ক, সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর আঞ্চলিক সড়কের মাধ্যমে জেলার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে উপজেলাগুলো।

  • রেল যোগাযোগ

জেলার ছাতক উপজেলার সাথে সিলেটের রেল যোগাযোগ রয়েছে। রাজধানী ঢাকার সাথে সরাসরি রেল যোগাযোগ স্থাপনে সিলেট-ছাতক হয়ে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত রেলপথ পরিকল্পনাধীন।

  • নৌ যোগাযোগ

প্রাচীন কাল থেকে সুনামগঞ্জের সাথে ঢাকা শহরের নৌ যোগাযোগ ছিল। সুরমা নদী হয়ে এ যোগাযোগ এখনো অব্যাহত আছে।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

থাম্ব|টাঙ্গুয়ার হাওর, সুনামগঞ্জ থাম্ব|টাঙ্গুয়ার হাওর থাম্ব|নীলাদ্রি লেক, তাহিরপুর, সুনামগঞ্জ থাম্ব|নীলাদ্রি লেক

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

আলোকচিত্রে হাসন রাজা যাদুঘর।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে সুনামগঞ্জ"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. সিলেট বিভাগের ইতিবৃত্ত: মোহাম্মদ মমিনুল হক, গ্রন্থ প্রকাশকাল: সেপ্টেম্বর ২০০১।
  3. জেলা তথ্য বাতায়ন
  4. শ্রীহট্টের ইতিবৃত্ত পূর্বাংশ, দ্বিতীয় ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড, দ্বিতীয় অধ্যায়, গ্রন্থকার - অচ্যুতচরণ চৌধুরী তত্ত্বনিধি; প্রকাশক: মোস্তফা সেলিম; উৎস প্রকাশন, ২০০৪।
  5. Ram Kanai Das' rendition of folk songs
  6. "একুশে পদক পাচ্ছেন সুনামগঞ্জের সুষমা দাস"sunamkantha.com। ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৭ 

২. https://plus.google.com/117434696679425377785

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]