বরগুনা জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বরগুনা জেলা
Barguna
জেলা
বাংলাদেশে বরগুনা জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে বরগুনা জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°০৯′০৩″উত্তর ৯০°০৭′৩৫″পূর্ব / ২২.১৫০৮° উত্তর ৯০.১২৬৪° পূর্ব / 22.1508; 90.1264স্থানাঙ্ক: ২২°০৯′০৩″উত্তর ৯০°০৭′৩৫″পূর্ব / ২২.১৫০৮° উত্তর ৯০.১২৬৪° পূর্ব / 22.1508; 90.1264
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ বরিশাল বিভাগ
আয়তন
 • মোট ১৯৩৯.৩৯ কিমি (৭৪৮.৮০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (2011)
 • মোট ৯,২৭,৮৯০[১]
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৫৭.৬০ %
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট


বরগুনা জেলা বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চলের বরিশাল বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। ২০০৭ সালে ঘূর্ণিঝড় সিডর-এর আঘাতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জেলা।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

বরগুনা দক্ষিণাঞ্চলের জেলা। এর দক্ষিণে পটুয়াখালীবঙ্গোপসাগর, উত্তরে ঝালকাঠি, বরিশাল, পিরোজপুরপটুয়াখালী; পূর্বে পটুয়াখালী এবং পশ্চিমে পিরোজপুরবাগেরহাট

জেলা সদরে বরগুনা শহর। একটি পৌরসভা। ৯ ওয়ার্ড ও ১৮ মহল্লা।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

বরগুনা জেলার উপজেলা গুলি হল -

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে বরগুনা পটুয়াখালী জেলার অধীনে একটি মহকুমা হয় । ১৯৮৪ সালে দেশের প্রায় সকল মহকুমাকে জেলায় উন্নীত করা হলে বরগুনা জেলায় পরিণত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

বরগুনা এর অর্থনীতি কৃষিনির্ভর। প্রধান শস্য ধান ও বিভিন্ন ধরনের ডাল। একসময় পাট চাষ হত, কিন্তু তা অর্থকারী ফসল হিসেবে জনপ্রিয়তা হারিয়ে ফেলে। উপকূলবর্তী জেলা হওয়ায়, বরগুনার অনেকেই জেলের কাজ করে।

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

  • বেতাগীতে বিবিচিনি মসজিদ
  • তালতলীর বৌদ্ধ মন্দির ও বৌদ্ধ একাডেমি

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে জেলা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ২৫ জুন, ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]