পটুয়াখালী জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
পটুয়াখালী
জেলা
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
পটুয়াখালী বরিশাল বিভাগ-এ অবস্থিত
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২১′১৫″ উত্তর ৯০°১৯′৫″ পূর্ব / ২২.৩৫৪১৭° উত্তর ৯০.৩১৮০৬° পূর্ব / 22.35417; 90.31806স্থানাঙ্ক: ২২°২১′১৫″ উত্তর ৯০°১৯′৫″ পূর্ব / ২২.৩৫৪১৭° উত্তর ৯০.৩১৮০৬° পূর্ব / 22.35417; 90.31806 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ বরিশাল বিভাগ
আয়তন
 • মোট ৩২২০.১৫ কিমি (১২৪৩.৩১ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট ১৫,৩৫,৮৫৪
 • ঘনত্ব ৪৮০/কিমি (১২০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৬৫%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
১০ ৭৮
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

পটুয়াখালী জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। মেঘনা নদীর অববাহিকায় পললভূমি এবং কিছু চরাঞ্চল নিয়ে এই জেলা গঠিত।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলার উত্তরে বরিশাল জেলা, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর, পুর্বে ভোলা জেলা এবং পশ্চিমে বরগুনা জেলা অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলায় ৮টি উপজেলা রয়েছেঃ

উৎপাদিত ফল[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলায় অনেক ধরনের ফল উৎপাদিত হয় যেমনঃ[২]

  • আম
  • কাঁঠাল
  • পেয়ারা
  • জাম
  • পেঁপে
  • কলা
  • লিচু
  • লেবু
  • আনারস
  • বাদাম
  • নারিকেল
  • তরমুজ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে মহকুমা থেকে জেলায় পরিণত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

প্রাকৃতিক সম্পদ মৎস: পটুয়াখালী জেলা মৎস্য সম্পদে সমৃদ্ধ। নদী বিধৌত পটুয়াখালী জেলার খাল-বিল, পুকুর, নালা, নিম্নভূমি গুলো মৎস সম্পদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই জেলার নদী মোহনাগুলো ইলিশ মাছের জন্য বিখ্যাত। বনভূমি: পটুয়াখালী জেলার বনাঞ্চলের পরিমাণ খুবই কম। যেখানে বাংলাদেশের মোট ভূমির ১৫% বনভূমি সেখানে পটুয়াখালী জেলার মাত্র ২% বনাঞ্চল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] বনাঞ্চলের উল্লেখযোগ্য গাছের নাম কেওড়া, গেওয়া, কাকড়া, বাবুল গোলপাতা ইত্যাদি।

শিল্প ও ব্যবসা বাণিজ্যঃ

  • কুটির শিল্প
  • মৃৎশিল্প
  • পাট শিল্প
  • বিড়ি শিল্প
  • মাছের ব্যবসায়
  • গাছের ব্যবসায়
  • চাল ও ডালের ব্যবসায়য়।

পটুয়াখালীতে ব্যবসা-বানিজ্য দিন দিন বিকশিত হচ্ছে। এখানে রয়েছে অটো রাইস মিল, রাইস মিল, ইট ভাটা, বিস্কুট ফ্যাক্টরী, সিনেমা হল, ফিলিং স্টেশন, ব্যাংক-বীমা প্রতিষ্ঠান।

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • মোহাম্মদ কেরামত আলী
  • আলতাফ হোসেন চৌধুরী
  • শাজাহান মিয়া
  • মাহবুবুর রহমান তালুকদার
  • সোহাগ গাজী
  • ডাক্তার কামরুন নেছা (ভাষা সৈনিক)
  • এ এন আনোয়ারা বেগম ( ভাষা সৈনিক)
  • এ্যাড: জেবুন নেছা ( ভাষা সৈনিক)

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (জুন, ২০১৪)। "Population Census 2011 (Barisal & Chittagong)" (PDF)। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |date= (সাহায্য)
  2. Bangladesh District Gazetteers:Bogra. Government of Bangladesh. 1979, pp. 16-16

http://www.patuakhali.gov.bd/education-institutes-শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের-তালিকা

আনুসঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]