পটুয়াখালী জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
পটুয়াখালী
জেলা
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
পটুয়াখালী বরিশাল বিভাগ-এ অবস্থিত
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পটুয়াখালী
পটুয়াখালী
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২১′১৫″ উত্তর ৯০°১৯′৫″ পূর্ব / ২২.৩৫৪১৭° উত্তর ৯০.৩১৮০৬° পূর্ব / 22.35417; 90.31806স্থানাঙ্ক: ২২°২১′১৫″ উত্তর ৯০°১৯′৫″ পূর্ব / ২২.৩৫৪১৭° উত্তর ৯০.৩১৮০৬° পূর্ব / 22.35417; 90.31806 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ বরিশাল বিভাগ
আয়তন
 • মোট ৩২২০.১৫ কিমি (১২৪৩.৩১ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট ১৫,৩৫,৮৫৪
 • ঘনত্ব ৪৮০/কিমি (১২০০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৬৫%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট অফিসিয়াল ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

পটুয়াখালী জেলা (ইংরেজি: Patuakhali District) বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। মেঘনা নদীর অববাহিকায় পললভূমি এবং কিছু চরাঞ্চল নিয়ে এই জেলা গঠিত।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলার উত্তরে বরিশাল জেলা, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর, পুর্বে ভোলা জেলা এবং পশ্চিমে বরগুনা জেলা অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলায় ৮টি উপজেলা রয়েছেঃ

উৎপাদিত ফল[সম্পাদনা]

পটুয়াখালী জেলায় অনেক ধরনের ফল উৎপাদিত হয় যেমনঃ[২]

  • আম
  • কাঁঠাল
  • পেয়ারা
  • জাম
  • পেঁপে
  • কলা
  • লিচু
  • লেবু
  • আনারস
  • বাদাম
  • নারিকেল
  • তরমুজ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে মহকুমা থেকে জেলায় পরিণত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

প্রাকৃতিক সম্পদ মৎস: পটুয়াখালী জেলা মৎস সম্পদে সমৃদ্ধ। নদী বিধৌত পটুয়াখালী জেলার খাল-বিল, পুকুর, নালা, নিম্নভূমি গুলো মৎস সম্পদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই জেলার নদী মোহনাগুলো ইলিশ মাছের জন্য বিখ্যাত। বনভূমি: পটুয়াখালী জেলার বনাঞ্চলের পরিমাণ খুবই কম। যেখানে বাংলাদেশের মোট ভূমির ১৫% বনভূমি সেখানে পটুয়াখালী জেলার মাত্র ২% বনাঞ্চল। বনাঞ্চলের উল্লেখযোগ্য গাছের নাম কেওড়া, গেওয়া, কাকড়া, বাবুল গোলপাতা ইত্যাদি। শিল্প ও ব্যবসা বাণিজ্যঃ ১। কুটির শিল্প ২। মৃৎশিল্প ৩। পাট শিল্প ৪। বিড়ি শিল্প ৬। মাছের ব্যবসা ৭। গাছের ব্যবসা ৮। চাল ও ডালের ব্যবসা।

পটুয়াখালীতে ব্যবসা-বানিজ্য দিন-দিন বিকশিত হচ্ছে। এখানে রয়েছে অটো রাইস মিল, রাইস মিল, ইট ভাটা, বিস্কুট ফ্যাক্টরী, সিনেমা হল, ফিলিং স্টেশন, ব্যাংক বীমা প্রতিষ্ঠান। উপজেলার অনেকলোক ব্যবসা-বাণিজ্যের সাথে জড়িত।

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (জুন, ২০১৪)। "Population Census 2011 (Barisal & Chittagong)"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ২৫ জুন, ২০১৪ 
  2. Bangladesh District Gazetteers:Bogra. Government of Bangladesh. 1979, pp. 16-16

http://www.patuakhali.gov.bd/education-institutes-শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের-তালিকা

আনুসঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]