সরস্বতী (দেবী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরস্বতী
হিন্দু দেবতা
Saraswati with Vitarka Mudra.JPG
দেবনাগরী सरस्वती
সংস্কৃত লিপ্যন্তর Sarasvatī
পালি লিপ্যন্তর:सरस्वती
তামিল লিপি சரஸ்வதி
গোত্র দেবী
অধিকার জ্ঞান, সংগীত, শিল্পকলা ও বৈদিক সরস্বতী নদী
অধিষ্ঠান ব্রহ্মলোক
মন্ত্র ওঁ ঐং সরস্বত্যৈ স্বাহা
অস্ত্র বীণা, পুস্তক
দাম্পত্যসঙ্গী ব্রহ্মা
বাহন রাজহংস অথবা ময়ূর

সরস্বতী (উচ্চারণ: [sə.rəs.ʋə.t̪iː]; সংস্কৃত: सरस्वती, sarasvatī; থাই ভাষা: สุรัสวดี Sarasawatee; জাপানি ভাষা: 弁才天/ 弁財天 Benzaiten) জ্ঞান, সঙ্গীত ও শিল্পকলার হিন্দু দেবীঋগ্বেদে তিনি বৈদিক সরস্বতী নদীর অভিন্ন এক রূপ। তিনি হিন্দু সৃষ্টিদেবতা ব্রহ্মার পত্নী এবং লক্ষ্মীপার্বতীর সঙ্গে একযোগে ত্রিদেবী নামে পরিচিতা। উল্লেখ্য এই ত্রিদেবী যথাক্রমে ত্রিমূর্তি সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মা, পালনকর্তা বিষ্ণু ও সংহারকর্তা শিবের পত্নী। হিন্দুদের বিশ্বাস, সরস্বতী প্রাচীনতম হিন্দু ধর্মগ্রন্থ বেদ প্রসব করেন। হিন্দুধর্ম ছাড়াও খ্রিস্টীয় চতুর্থ-পঞ্চম শতকে রচিত মহাযান বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থ মহাযান সূত্র-এও সরস্বতীর উল্লেখ পাওয়া যায়।

মূর্তিকল্প[সম্পাদনা]

রাজা রবি বর্মা অঙ্কিত চতুর্ভূজা ময়ূরবাহনা সরস্বতী

ধ্যানমন্ত্রে বর্ণিত মূর্তিকল্পটিতে দেবী সরস্বতীকে শ্বেতবর্ণা, শ্বেত পদ্মে আসীনা, মুক্তার হারে ভুষিতা, পদ্মলোচনা ও বীণাপুস্তকধারিণী এক দিব্য নারীমূর্তিরূপে কল্পনা করা হয়েছে। বলা হয়েছে,

ওঁ তরুণশকলমিন্দোর্বিভ্রতী শুভ্রকান্তিঃ কুচভরনমিতাঙ্গী সন্নিষণ্ণা সিতাব্জে।
নিজকরকমলোদ্যল্লেখনীপুস্তকশ্রীঃ সকলবিভবসিদ্ধৈ পাতু বাগ্দেবতা নঃ।।

অর্থাৎ, “চন্দ্রের নূতন কলাধারিণী, শুভ্রকান্তি, কুচভরনমিতাঙ্গী, শ্বেত পদ্মাসনে (উত্তমরূপে) আসীনা, হস্তে ধৃত লেখনী ও পুস্তকের দ্বারা শোভমানা বাগ্‌দেবী সকল বিভবপ্রাপ্তির জন্য আমাদিগকে রক্ষা করুন।” [১]

আবার পদ্মপুরাণ-এ উল্লিখিত সরস্বতীস্তোত্রম্-এ বর্ণিত হয়েছে,

শ্বেতপদ্মাসনা দেবী শ্বেতপুষ্পোপশোভিতা।
শ্বেতাম্বরধরা নিত্যা শ্বেতগন্ধানুলেপনা।।১
শ্বেতাক্ষসূত্রহস্তা চ শ্বেতচন্দনচর্চিতা।
শ্বেতবীণাধরা শুভ্রা শ্বেতালঙ্কারভূষিতা।।২
ইত্যাদি

অর্থাৎ, “দেবী সরস্বতী আদ্যন্তবিহীনা, শ্বেতপদ্মে আসীনা, শ্বেতপুষ্পে শোভিতা, শ্বেতবস্ত্র-পরিহিতা এবং শ্বেতগন্ধে অনুলিপ্তা।১ অধিকন্তু তাঁহার হস্তে শ্বেত রুদ্রাক্ষের মালা; তিনি শ্বেতচন্দনে চর্চিতা, শ্বেতবীণাধারিণী, শুভ্রবর্ণা এবং শ্বেত অলঙ্কারে ভূষিতা।২”[২]

ধ্যান বা স্তোত্রবন্দনায় উল্লেখ না থাকলেও সরস্বতী ক্ষেত্রভেদে দ্বিভূজা অথবা চতুর্ভূজা এবং মরালবাহনা অথবা ময়ূরবাহনা। উত্তর ও দক্ষিণ ভারতে সাধারণত ময়ূরবাহনা চতুর্ভূজা সরস্বতী পূজিত হন। ইনি অক্ষমালা, কমণ্ডলু, বীণা ও বেদপুস্তকধারিণী। বাংলা তথা পূর্বভারতে সরস্বতী দ্বিভূজা ও রাজহংসের পৃষ্ঠে আসীনা।

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. সরস্বতীধ্যানম্: স্তবকুসুমাঞ্জলি, স্বামী গম্ভীরানন্দ সম্পাদিত, উদ্বোধন কার্যালয়, কলকাতা, ১৯৬১, পৃষ্ঠা ৩৫৪
  2. সরস্বতীস্তোত্রম্ (২): স্তবকুসুমাঞ্জলি, স্বামী গম্ভীরানন্দ সম্পাদিত, উদ্বোধন কার্যালয়, কলকাতা, ১৯৬১, পৃষ্ঠা ৩৫৬-৫৭