ভারতীয় মহাকাব্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ভারতীয় মহাকাব্য হল ভারতীয় উপমহাদেশে রচিত মহাকাব্য, যাকে ঐতিহ্যগতভাবে কাব্য বলা হয়। মূলত সংস্কৃত ভাষায় রামায়ণমহাভারত রচিত হয়েছিল এবং পরে অন্যান্য অনেক ভারতীয় ভাষায় অনূদিত হয়েছিল। তামিল সাহিত্যের পাঁচটি মহাকাব্য ও সঙ্গম সাহিত্য এখন পর্যন্ত রচিত কিছু প্রাচীনতম মহাকাব্য।[১]

সংস্কৃত মহাকাব্য[সম্পাদনা]

প্রাচীন সংস্কৃত মহাকাব্য রামায়ণ ও মহাভারত একসাথে ইতিহাস ("লেখক নিজেই গল্প দেখেছেন") বা মহাকাব্য ("মহান রচনা"), হিন্দু শাস্ত্রের একটি নীতিমালা। প্রকৃতপক্ষে, মহাকাব্য রূপটি বিরাজমান এবং শ্লোক অতি সম্প্রতি পর্যন্ত হিন্দু সাহিত্যকর্মের পছন্দের রূপ হিসাবে রয়ে গেছে। বীর-ঈশ্বরের আরাধনা ভারতীয় সংস্কৃতির একটি কেন্দ্রীয় দিক, এবং এইভাবে সহজেই নিজেকে সাহিত্যিক ঐতিহ্যের কাছে জ্ঞাপন করে, যা মহাকাব্য ও সাহিত্যে প্রচুর পরিমাণে রয়েছে। পুরাণ হল ভারতের বহু হিন্দু দেব-দেবীর শ্লোক-রূপের ইতিহাসের একটি বিশাল সংগ্রহ, যা এই ঐতিহ্য অনুসরণ করে। অথর্ববেদ[২] ইতিহাস ও পুরাণের উল্লেখ করা হয়েছে এবং এটি চতুর্থ বেদ হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[৩]

তামিল মহাকাব্য[সম্পাদনা]

সঙ্গম-পরবর্তী সময় (দ্বিতীয় শতাব্দী-ষষ্ঠ শতাব্দী) দেখাগেছে বহু বড় বড় তামিল মহাকাব্য রচিত হতে, যার মধ্যে রয়েছে শিলাপ্পতিকারম (বা শিলাপ্পধিকারম), মনিমগালাই, শিবাকা চিন্তামণি, ভালাইয়াপাতিকুন্তালাকেশি। পাঁচটির মধ্যে মনিমগালাই ও কুন্তালাকেশি হল বৌদ্ধ ধর্মীয় সাহিত্যকর্ম, শিবাকা চিন্তামণি ও ভালাইয়াপাতি হল তামিল জৈন রচনা এবং শিলাপ্পতিকারমে নিরপেক্ষ ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। এগুলি খ্রিস্টীয় প্রথম শতাব্দী থেকে দশম শতাব্দীর সময়কালে লেখা হয়েছিল এবং তাদের রচনার যুগে মানুষের সামাজিক, ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা জীবনের ঐতিহাসিক প্রমাণ হিসাবে কাজ করে। সিভাকা সিনতামানি তামিল সাহিত্যে বিরুথা পা নামে দীর্ঘ শ্লোক প্রবর্তন করেন,[৪] যখন সিলাপাতিকরাম আকাভাল মিতার (একাত্তর) ব্যবহার করেন, যেটি সঙ্গম সাহিত্য থেকে গৃহীত একটি শৈলী।

পরবর্তীকালে, চোল যুগে, কম্বান (দ্বাদশ শতাব্দী) বাল্মীকি রামায়ণের উপর ভিত্তি করে কম্বা রামায়ণম লিখেছেন, যা সর্বশ্রেষ্ঠ তামিল মহাকাব্যগুলির মধ্যে একটি বলে বিবেচিত হয়। চেকীচাহরের থিরুথুন্দাত পুরানাম (বা পেরিয়া পুরানাম) হল শৈব ভক্তি সাধকদের মহান তামিল মহাকাব্য এবং তামিলনাড়ুর সংখ্যাগরিষ্ঠ শৈবদের ধর্মগ্রন্থের অংশ।

কন্নড় মহাকাব্য[সম্পাদনা]

কন্নড় মহাকাব্য প্রধানত জৈন ধর্মীয় সাহিত্য ও লিঙ্গায়ত সাহিত্য নিয়ে গঠিত। আসগা ৮৫৩ খ্রিস্টাব্দে জৈনধর্মের ২৪তম ও শেষ তীর্থঙ্কর মহাবীরের প্রথম সংস্কৃত ভাষার জীবনী হিসাবে ১৮ টি পর্বের বর্ধমান চরিত্র মহাকাব্যটি রচনা করেন,[৫] যদিও তাঁর কালিদাসের কুমারসম্ভব মহাকাব্যের কন্নড়-ভাষা সংস্করণ কর্ণাটক কুমারসম্ভব কাব্য হারিয়ে গেছে।[৬] এই সময়ের সবচেয়ে বিখ্যাত কবি হলেন পম্পা (৯০২-৯৭৫ খ্রিস্টাব্দ), কন্নড় ভাষার অন্যতম বিখ্যাত লেখক। তাঁর বিক্রমার্জুন বিজয়া (যাকে পম্পভারতা বলা হয়) আজও ধ্রুপদী হিসাবে প্রশংসিত। এটি ও তার অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কাজ আদি পুরাণা দিয়ে তিনি ভবিষ্যতের কন্নড় কবিদের জন্য কাব্যিক শ্রেষ্ঠত্বের একটি ধারা স্থাপন করেছিলেন। পূর্বের কাজটি হল সুপ্রসিদ্ধ মহাভারতের অভিযোজন এবং এটি কন্নড় ভাষায় এই ধরনের প্রথম অভিযোজন। তাঁর রচনা প্রবল মানবিক মনোভাব ও মর্যাদাপূর্ণ শৈলীর জন্য উল্লেখযোগ্য, পম্পা কন্নড় ভাষায় অন্যতম প্রভাবশালী লেখক ছিলেন। তিনি আদিকবি (প্রথম কবি) হিসেবে চিহ্নিত। এটা শুধুমাত্র কন্নড় ভাষায় আছে, যে ব্রাহ্মণ্য ঐতিহ্যের উপর ভিত্তি করে ও জৈন ঐতিহ্যের উপর ভিত্তি করে রামায়ণ ও মহাভারত রয়েছে।

মণিপুরী মহাকাব্য[সম্পাদনা]

উত্তর পূর্ব ভারতের ৩৫০০ বছরের পুরনো চীন-তিব্বতীয় ভাষা পরিবারের মৈতৈ ভাষায় মহাকাব্যের একটি সমৃদ্ধ ভান্ডার হয়েছে, বেশিরভাগই মৈতৈ লিপি পুয়ায় রচিত হয়েছে।

খম্বা থোইবি সকল মৈতৈ মহাকাব্যসমূহের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি প্রায় ৩৪,০০০ শ্লোক নিয়ে গঠিত, এমনকি এটি রামায়ণের চেয়েও দীর্ঘ। মহাকাব্যটির পনেরটি অধ্যায় (পান্দআপ) এবং ৫২ টি বিভাগ (তাংগাক্স) রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Datta, Amaresh (১৯৮৮)। Encyclopaedia of Indian Literature: devraj to jyoti - Amaresh Datta - Google Booksআইএসবিএন 9788126011940। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০২১ 
  2. Atharva Veda 11.7.24, 15.6.4
  3. Chāndogya Upaniṣad 7.1.2,4
  4. Datta 2004, p. 720
  5. Jain, Kailash Chand (১৯৯১)। Lord Mahāvīra and his times, Lala S. L. Jain Research SeriesMotilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 25। আইএসবিএন 81-208-0805-3 
  6. Jain, Kailash Chand (১৯৯১)। Lord Mahāvīra and his times, Lala S. L. Jain Research SeriesMotilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 59। আইএসবিএন 81-208-0805-3