বিষয়বস্তুতে চলুন

পঞ্চমকার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

পঞ্চমকার (সংস্কৃত: पञ्चमकार) বা পঞ্চতত্ত্ব হলো তান্ত্রিক অনুশীলনে পাঁচটি সীমালঙ্ঘনকারী পদার্থের জন্য তান্ত্রিক শব্দ। এগুলো হলো মদ্য (মদ), মাংস (প্রাণীর মাংস), মৎস্য (মাছ), মুদ্রা (শস্যকণা) ও মৈথুন (যৌনকর্ম)।

ট্যাবু-ব্রেকিং উপাদানগুলি কেবল "বামপন্থ"-এর তান্ত্রিকদের (বামাচারী) দ্বারা অনুশীলন করা হয়, যেখানে "ডানপন্থ"-এর তান্ত্রিকরা (দক্ষিণাচারী) এগুলির বিরোধিতা করেন।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মহানির্বাণতন্ত্র মতে, পুরুষদের তিনটি শ্রেণি: পশু, বীর ও দিব্য। গুণের ক্রিয়াকলাপ যা এই ধরনের প্রভাব উৎপাদন করে স্থূল পদার্থের স্থলে প্রাণীর প্রবণতা প্রভাবিত করে; তিনটি প্রধান শারীরিক ক্রিয়াকলাপে উদ্ভাসিত: খাওয়া দাওয়া, যার দ্বারা অন্নময় কোষ বজায় থাকে; এবং যৌন মিলন, যার দ্বারা এটি পুনরুৎপাদন করা হয়। এই ক্রিয়াকলাপসমূহ পঞ্চতত্ত্ব বা পঞ্চমকার -এর বিষয়, কারণ এগুলিকে অশ্লীলভাবে বলা হয় — যেমন: মদ্য (মদ), মাষ (মাংস), মৎস্য (মাছ), মুদ্রা (শুষ্ক শস্য) ও মৈথুন। সাধারণ বিবেচনায় মুদ্রার অর্থ "আচার" এবং অঙ্গভঙ্গী বা উপাসনা ও হঠযোগে দেহের অবস্থানসমূহ তবে এটি পাঁচটি উপাদানের মধ্যে একটি হিসাবে এটি ভাজা শস্য। তান্ত্রিকরা পাঁচটি উপাদানকে পঞ্চতত্ত্ব, কুলদ্রব্য, কুলতত্ত্ব ও মদের জন্য কারণবারি বা তীর্থবারির মতো বিশেষ নাম দিয়েছেন, পঞ্চম উপাদানটিকে সাধারণত "লতা-সাধন" (নারী বা শক্তি সহ সাধনা) বলা হয়। তামসিক (পশ্বাচার), রাজসিক (বীরাচার) বা দিব্যাচার বা সাত্ত্বিক সাধনার অংশ হিসাবে এই পাঁচটি উপাদানগুলির বিভিন্ন অর্থ রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

উৎস[সম্পাদনা]

  • Anandamurti, Shrii Shrii (১৯৯৩)। Discourses on Tantra। Ananda Marga। 
  • Anandamurti, Shrii Shrii (১৯৮৫)। Namah Shiváya Shántáya। Ananda Press। 
  • Avalon, Arthur (১৯১৩)। "Introduction"। Mahanirvana Tantra 
  • Rawson, Philip (১৯৭৮)। The Art of Tantra। Thames & Hudson। 
  • White, David Gordon (২০০৬) [2003]। Kiss of the Yogini: 'Tantric Sex' in its South Asian Contexts। University of Chicago Press। পৃষ্ঠা 83–85। আইএসবিএন 978-0226894843