শক্তিপীঠ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আদি শক্তিপীঠ

Kalighat1.jpgTaratarini maa.jpgKamakhya Temple.jpgTemple-Jagannath.jpg

কালীঘাটতারাতারিণী
কামাখ্যাবিমলা
সতীর শব স্কন্ধে শিব

শক্তিপীঠ হিন্দুধর্মের পবিত্রতম তীর্থগুলির অন্যতম। লোকবিশ্বাস অনুসারে, শক্তিপীঠ নামাঙ্কিত তীর্থগুলিতে দেবী দাক্ষায়ণী সতীর দেহের নানান অঙ্গ প্রস্তরীভূত অবস্থায় রক্ষিত আছে। সাধারণত ৫১টি শক্তিপীঠের কথা বলা হয়ে থাকলেও, শাস্ত্রভেদে পীঠের সংখ্যা ও অবস্থান নিয়ে মতভেদ আছে। পীঠনির্ণয় তন্ত্র গ্রন্থে শক্তিপীঠের সংখ্যা ৫১। শিবচরিত গ্রন্থে ৫১টি শক্তিপীঠের পাশাপাশি ২৬টি উপপীঠের কথাও বলা হয়েছে। কুব্জিকাতন্ত্র গ্রন্থে এই সংখ্যা ৪২। আবার জ্ঞানার্ণবতন্ত্র গ্রন্থে পীঠের সংখ্যা ৫০। ভারতীয় উপমহাদেশের[১] নানা স্থানে এই শক্তিপীঠগুলি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। কলকাতার কালীঘাট, বীরভূমের বক্রেশ্বর, নলহাটি; বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভবানীপুর ইত্যাদি বাংলার কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ শক্তিপীঠ।

কিংবদন্তি অনুসারে, সত্য যুগের কোনও এক সময়ে মহাদেবের উপর প্রতিশোধ নেয়ার জন্য দক্ষ রাজা বৃহস্পতি নামে এক যজ্ঞের আয়োজন করেছিলেন। দক্ষ তার কন্যা সতী দেবী তার(দক্ষর) ইচ্ছার বিরুদ্ধে 'যোগী' মহাদেবকে বিবাহ করায় ক্ষুব্ধ ছিলেন। দক্ষ মহাদেব ও সতী দেবী ছাড়া প্রায় সকল দেব-দেবীকে নিমন্ত্রন করেছিলেন। মহাদেবের অনিচ্ছা সত্ত্বেও সতী দেবী মহাদেবের অনুসারীদের সাথে নিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন।

কিন্ত্তু সতী দেবী আমন্ত্রিত অতিথি না হওয়ায় তাকে যথাযোগ্য সম্মান দেয়া হয়নি। অধিকন্ত্তু দক্ষ মহাদেবকে অপমান করেন। সতী দেবী তার স্বামীর প্রতি পিতার এ অপমান সহ্য করতে না পেরে তার যোগীর শক্তির উত্থান ঘটিয়ে আত্মাহুতি দেন।

শোকাহত মহাদেব রাগান্বিত হয়ে দক্ষর যজ্ঞ ভন্ডুল করেন এবং সতী দেবীর মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রলয় নৃত্য শুরু করেন। অন্যান্য দেবতা অনুরোধ করে এই নৃত্য থামান এবং বিষ্ণু দেব তার সুদর্শন চক্র দ্বারা সতী দেবীর মৃতদেহ ছেদন করেন। এতে সতী মাতার দেহখন্ডসমূহ ভারতীয় উপমহাদেশের বিভিন্ন জায়গায় পড়ে এবং পবিত্র পীঠস্থান শক্তিপীঠ হিসেবে পরিচিতি পায়।[২]

সকল শক্তিপীঠসমূহে শক্তিদেবী ভৈরবের সাথে অবস্থান করেন। শক্তিপীঠের সংখ্যা ৫১ টি।

চার আদি শক্তিপীঠ[সম্পাদনা]

কিছু গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় গ্রন্থাবলী যেমন শিব পুরাণ, দেবী ভাগবত, কলিকা পুরাণ এবং 'অষ্টশক্তি' শনাক্ত করে চারটি প্রধান শক্তিপীঠ (কেন্দ্র), যেমন বিমলা (পদ কান্ড) (ওড়িশার পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের অভ্যন্তরে), তারা তারিণী (স্থান কান্ড, পূর্ণগিরি, স্তন) (ওড়িশার বহরমপুরের নিকটে), কামাক্ষ্যা (যোনি কান্ড) (আসামের গৌহাটির নিকটে) এবং দক্ষিণা কালিকা (মুখ কান্ড) (কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ) যেগুলি সত্য যুগে সতী মাতার মৃতদেহ থেকে উৎপত্তি লাভ করেছিল।

চার আদি শক্তিপীঠের তালিকা[সম্পাদনা]

নিম্নের তালিকায়:

  • "শক্তি" অর্থাৎ প্রত্যেক "স্থানে" পূজিত দেবী, যিনি দক্ষিয়াণী, দুর্গা বা পার্বতীর বিভিন্ন রুপ;
  • "দেহ খন্ড বা অলঙ্কার" অর্থাৎ সতী দেবীর শরীরের বিভিন্ন অংশ বা অলঙ্কার যা শ্রী বিষ্ণুর সুদর্শন চক্র দ্বারা ছেদনের পর সেই "স্থানে" পতিত হয়েছিল এবং মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।
ক্রমিক নং স্থান দেহ খন্ড বা অলঙ্কার শক্তি
ওড়িশার পুরীতে (জগন্নাথ মন্দির চত্বরের ভিতরে) পদ বিমলা
বহরমপুর-ওড়িশার নিকট স্তন খন্ড তারা তারিণী
গৌহাটি-আসাম যোনী খন্ড কামাক্ষ্যা
কালীঘাট, কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ মুখ খন্ড দক্ষিণাকালী

এ চারটি ছাড়াও ধর্মীয় গ্রন্থাবলী দ্বারা স্বীকৃত আরো ৫২টি বিখ্যাত শক্তিপীঠ রয়েছে।

৫২ শক্তিপীঠ[সম্পাদনা]

নিম্নের তালিকায়:

  • "শক্তি" অর্থাৎ প্রত্যেক "স্থানে" পূজিত দেবী, যিনি দক্ষিয়াণী, দুর্গা বা পার্বতীর বিভিন্ন রুপ;
  • "ভৈরব" অর্থাৎ ঐ দেবীর স্বামী (সঙ্গী), যারা প্রত্যেকেই শিবের বিভিন্ন অবতার (রুপ);
  • "দেহ খন্ড বা অলঙ্কার" অর্থাৎ সতী দেবীর শরীরের বিভিন্ন অংশ বা অলঙ্কার যা শ্রী বিষ্ণুর সুদর্শন চক্র দ্বারা ছেদনের পর সেই "স্থানে" পতিত হয়েছিল এবং মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ।
ক্রমিক নং স্থান দেহ খন্ড বা অলঙ্কার শক্তি ভৈরব
বৈদ্যনাথধাম, দেবঘর, ঝাড়খন্ড, ভারত হৃদয় বা হৃদপিন্ড জয়দুর্গা বৈদ্যনাথ
নাইনাতিভু, জাফনা, শ্রীলঙ্কা নূপুর ইন্দ্রাক্ষী রাক্ষসেশ্বর
সুক্কর স্টেশনের নিকট, করাচী, পাকিস্তান চক্ষু মহিষমর্দিনী ক্রোধিশ
সুগন্ধা, শিকারপুর, গৌরনদী, সন্ধ্যা নদীর তীরে, বরিশাল শহর হতে ২০ কি.মি. দূরে, বাংলাদেশ নাসিকা সুগন্ধা ত্রয়ম্বক
অমরনাথ, কাশ্মীর, শ্রীনগর হতে পহলগাম এর মধ্য দিয়ে বাসে ৯৪ কি.মি., ভারত গলা মহামায়া ত্রিসন্ধ্যেশ্বর
জ্বালামুখী, কাঙ্গড়া, হিমাচল প্রদেশ, ভারত জিহ্বা সিদ্ধিদা (অম্বিকা) উন্মত্ত ভৈরব
জালংধর, পাঞ্জাব, ভারত বাম বক্ষ ত্রিপুরমালিনী ভীষণ
গুহেশ্বরী মন্দির, পশুপতিনাথ মন্দিরের নিকট, নেপাল উভয় হাঁটু মহাশিরা কাপালী
মানস, মানসরোবর হ্রদে কৈলাশ পর্বতের পাদদেশে, তিব্বত ডান হাত দক্ষিয়ানী অমর
১০ বর্ধমান, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত নাভি মাতা সর্বমঙ্গলা দেবী ভগবান শিব/মহাদেব
১১ গন্ধকী, মুক্তিনাথ মন্দির, গন্ধকী নদী তীরে, পোখরা, নেপাল মস্তিষ্ক গন্ধকী চণ্ডী চক্রপাণি
১২ বেহুলা, কেতুগ্রাম, অজয় নদীর তীরে, কটোয়া হতে ৮ কি.মি., বর্ধমান জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত বাম হাত বেহুলা দেবী ভীরুক
১৩ উজ্জনি, গুস্করা স্টেশন হতে ১৬ কি.মি., বর্ধমান জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ডান কব্জি মঙ্গল চন্দ্রিকা কপিলাম্বর
১৪ উদয়পুর, রাধাকিশোরপুর গ্রামের নিকট পাহাড় চূড়ায়, উদয়পুর, ত্রিপুরা, ভারত ডান পা ত্রিপুরা সুন্দরী ত্রিপুরেশ
১৫ চন্দ্রনাথ মন্দির, চন্দ্রনাথ পর্বত শিখর, সীতাকুণ্ড স্টেশনের নিকট, চট্টগ্রাম জেলা, বাংলাদেশ ডান হাত ভবানী চন্দ্রশেখর
১৬ জলপেশ মন্দিরের নিকট, জলপাইগুড়ি জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত বাম পা ভ্রামরী অম্বর
১৭ কামগিরি, কামাক্ষ্যা, নীলাচল পর্বত, গৌহাটি, আসাম, ভারত যোনী কামাক্ষ্যা উমানন্দ
১৮ যোগাধ্যা, খীরগ্রাম, বর্ধমান জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ডান পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুল যোগাধ্যা ক্ষীর খন্ডক
১৯ কালীপীঠ, কালীঘাট, কলকাতা , পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ডান পায়ের আঙ্গুল কালিকা নকুলেশ্বর
২০ প্রয়াগ, সঙ্গমের নিকট, এলাহাবাদ, উত্তর প্রদেশ, ভারত হাতের আঙ্গুল ললিতা/মাধবেশ্বরী ভব
২১ জয়ন্তীয়া, কালাজোড় গ্রাম, জয়ন্তীয়া থানা, সিলেট জেলা, বাংলাদেশ বাম জঙ্ঘা জয়ন্তী ক্রমাদিশ্বর
২২ কিরীট, কিরীটকোন গ্রাম, লালবাগ কোর্ট রোড স্টেশন হতে ৩ কি.মি., মুর্শিদাবাদ জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত মুকুট বিমলা সাংবর্ত
২৩ বারাণসী, গঙ্গাতীরে মনিকর্ণিকা ঘাট, কাশী, উত্তর প্রদেশ, ভারত কানের দুল বিশালাক্ষী ও মনিকর্ণী কালভৈরব
২৪ কন্যাশ্রম, কন্যাকুমারী, ভদ্রকালী মন্দির, কুমারী মন্দির, তামিলনাড়ু, ভারত পীঠ সর্বাণী নিমিষ
২৫ বর্তমান কুরুক্ষেত্র বা প্রাচীন থানেশ্বর, হরিয়ানা, ভারত গোড়ালির হাড় বা গুল্ফ সাবিত্রী স্থনু
২৬ মণিবন্ধ, অজমের এর ১১ কি.মি. উত্তর-পশ্চিমে, পুষ্করের নিকট গায়ত্রী পর্বতে, রাজস্থান, ভারত দুই হাতের বালা গায়ত্রী সর্বানন্দ
২৭ শ্রীশৈল, জৈনপুর গ্রাম, দক্ষিণ সুরমা, সিলেট শহরের ৩ কি.মি. উত্তর-পূর্বে, বাংলাদেশ গলা মহালক্ষ্মী সম্বরানন্দ
২৮ কঙ্কালীতলা, কোপই নদী তীরে, বোলপুর স্টেশন হতে ১০ কি.মি. উত্তর-পূর্বে, বীরভূম জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত অস্থি বা হাড় দেবগর্ভা রুরু
২৯ কালমাধব, পাহাড়ের উপরে গুহার ভিতর শোন নদীর তীরে, অমরকন্টক, মধ্য প্রদেশ, ভারত বাম নিতম্ব কালী অসিতাঙ্গ
৩০ শোন্দেশ, অমরকন্টক, নর্মদা নদীর উত্স এর নিকট, মধ্য প্রদেশ, ভারত ডান নিতম্ব নর্মদা ভদ্রসেন
৩১ রামগিরি, চিত্রকুট, জানসী-মাণিকপুর রেলওয়ে লাইনে, উত্তর প্রদেশ, ভারত ডান বক্ষ বা স্তন শিবানী চন্দা
৩২ বৃন্দাবন, ভূতেশ্বর মহাদেব মন্দির, মথুরার নিকট বৃন্দাবন, উত্তর প্রদেশ, ভারত কেশগুচ্ছ/চূড়ামণি উমা ভূতেশ
৩৩ শুচি, শুচিতীর্থম শিব মন্দির, কন্যাকুমারী ত্রিভানড্রাম রোড, তামিলনাড়ু, ভারত উপরের দাঁতসমূহ নারায়ণী সংহার
৩৪ পঞ্চসাগর, অজ্ঞাত (হরিদ্বারের নিকট বলে মনে করা হয়) নীচের দাঁতসমূহ বরাহী মহারুদ্র
৩৫ ভবানীপুর, করতোয়া নদীর তীরে, শেরপুর উপজেলা হতে ২৮ কি.মি. দূরে, বগুড়া জেলা, বাংলাদেশ বাম পায়ের নূপুর অর্পনা বামন
৩৬ শ্রীপর্বত, লডাখের নিকট, কাশ্মীর, ভারত; মতান্তরে: শ্রীশৈল, কুর্ণুল জেলা, অন্ধ্র প্রদেশ, ভারত ডান পায়ের নূপুর শ্রীসুন্দরী সুন্দরানন্দ
৩৭ বিভাষ, তামলুক, পূর্ব মেদিনীপুর জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত বাম পায়ের নূপুর কপালিনী (ভীমরুপ) সর্বানন্দ
৩৮ প্রভাস, বেরাবল স্টেশন হতে ৪ কি.মি. সোমনাথ মন্দিরের নিকট, জুনাগড় জেলা, গুজরাট, ভারত পাকস্থলী চন্দ্রভাগা বক্রতুণ্ড
৩৯ ভৈরব পর্বত, শিপ্রা নদী তীরে ভৈরব পাহাড়ে, উজ্জয়িনী শহর হতে একটু দূর, মধ্য প্রদেশ, ভারত উপরের ওষ্ঠ অবন্তী লম্বকর্ণ
৪০ বাণী, নাসিক, মহারাষ্ট্র, ভারত চিবুক/থুতনি ভ্রামরী বিকৃতাক্ষ
৪১ সর্বশৈল বা গোদাবরীতীর, কোটিলিঙ্গেশ্বর মন্দির, গোদাবরী নদী তীর, রাজামুন্দ্রী, অন্ধ্র প্রদেশ, ভারত গাল রাকিনী বা বিশ্বেশ্বরী বত্সনাভ বা দণ্ডপাণি
৪২ বিরাট, ভরতপুরের নিকট, রাজস্থান, ভারত বাম পায়ের আঙ্গুল অম্বিকা অমৃতেশ্বর
৪৩ রত্নাবলী, রত্নাকর নদী তীর, খানাকুল-কৃষ্ণনগর, হুগলী জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ডান স্কন্ধ বা কাঁধ কুমারী শিব
৪৪ মিথিলা, জনকপুর রেলওয়ে স্টেশনের নিকট, ভারত-নেপাল সীমান্তে বাম স্কন্ধ বা কাঁধ উমা মহোদর
৪৫ নলহাটী, নলহাটী স্টেশনের নিকট, বীরভূম জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত শ্বাসনালীসহ কন্ঠনালী কালিকা দেবী যোগেশ
৪৬ কর্নাট, কঙ্গরা, হিমাচল প্রদেশ, ভারত উভয় কর্ণ বা কান জয়দুর্গা অভিরু
৪৭ বক্রেশ্বর, পাপহর নদী তীরে, শিউরী শহর হতে ২৪ কি.মি., দুবরাজপুর রেলওয়ে স্টেশন হতে ৭ কি.মি., বীরভূম জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ভ্রুযুগলের মধ্যবর্তী অংশ মহিষমর্দিনী বক্রনাথ
৪৮ যশোরেশ্বরী, ঈশ্বরীপুর, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা জেলা, বাংলাদেশ হাতের তালু ও পায়ের পাতা যশোরেশ্বরী চন্দা
৪৯ অট্টহাস গ্রাম, দক্ষিণীদিহি, বর্ধমান জেলা, কাটোয়া রেলওয়ে স্টেশনের নিকট, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ওষ্ঠ বা ঠোঁট ফুল্লরা বিশ্বেশ
৫০ নন্দিকেশ্বরী মন্দির, সাঁইথিয়া, বীরভূম জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত গলার হার (অলঙ্কার) নন্দিনী নন্দিকেশ্বর
৫১ হিংলাজ বা হিঙ্গুল, করাচী হতে প্রায় ১২৫ কি.মি. উত্তর-পূর্বে, পাকিস্তান ব্রহ্মারন্ধ্র (মস্তিষ্কের অংশ) কোট্টরী ভীমলোচন
৫২ তারাপীঠ (বা তারাপুর), দ্বারকা নদীর তীরে, রামপুরহাট শহর হতে ৬ কি.মি দূরে, বীরভূম জেলা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত তৃতীয় নয়ন বা নয়নতারা

১৮ মহাশক্তিপীঠ[সম্পাদনা]

আদি শঙ্কর লিখিত অষ্টাদশ শক্তিপীঠ স্তোত্রমমহাশক্তিপীঠ বলে উল্লেখিত ১৮ শক্তিপীঠের তালিকা নিম্নরুপ:

ক্রমিক নং স্থান পতিত দেহ খন্ড শক্তির নাম
ত্রিনকোমালী (শ্রীলঙ্কা) কুঁচকি শঙ্করী দেবী
কাঞ্চীপুরম (তামিলনাড়ু) পৃষ্ঠদেশের অংম কামাক্ষী দেবী
প্রদ্যুম্না (পশ্চিমবঙ্গ) উদরের অংম শ্রুখলা দেবী
মহীশূর (কর্ণাটক) চুল চামুন্ডেশ্বরী দেবী
আলমপুর (অন্ধ্রপ্রদেশ) উপরের দাঁত জগুলম্বা দেবী
শ্রীশৈলম (অন্ধ্রপ্রদেশ) গ্রীবার অংম ব্রমারম্ভা দেবী
কোলহাপুর (মহারাষ্ট্র) চক্ষু মহালক্ষ্মী দেবী[৩]
নান্দেড় (মহারাষ্ট্র) দক্ষিণ হস্ত একাবীরিকা দেবী
উজ্জয়িন (মধ্যপ্রদেশ) উপরের ওষ্ঠ মহাকালী দেবী
১০ পীঠপুরম (অন্ধ্রপ্রদেশ) বাম হস্ত পুরুহুটিকা দেবী
১১ জাজপুর (ওড়িশা) নাভি বীরজা/গিরিজা দেবী
১২ দ্রাক্ষরমন (অন্ধ্রপ্রদেশ) বাম গাল মণিকম্ব দেবী
১৩ গৌহাটি (আসাম) যোনিদ্বার কামরুপা দেবী
১৪ প্রয়াগ (উত্তর প্রদেশ) হাতের অঙ্গুলি মাধবেশ্বরী দেবী
১৫ কাঙ্গরা (হিমাচল প্রদেশ) মাথার অংশ বৈষ্ণবী দেবী
১৬ গয়া (বিহার) স্তনের অংশ সর্বমঙ্গলা দেবী
১৭ বারাণসী (উত্তর প্রদেশ) কব্জি/মণিবন্ধ বিশালাক্ষী দেবী
১৮ কাশ্মীর দক্ষিণ হস্ত সরস্বতী দেবী

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]