হিন্দুধর্মে ঈশ্বর এবং লিঙ্গ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
হিন্দুধর্মে ঈশ্বরের লিঙ্গ কখনো কখনো একটি পুরুষ দেবতা হিসেবে কল্পণা করা হয়, যেমন কৃষ্ণ (বামে), বা নারী দেবী, যেমন লক্ষ্মী (মাঝে), বা উভলিঙ্গ যেমন অর্ধনারীশ্বর (শিব-পুরুষ ও পার্বতীর-নারী যৌগিক), অথবা নিরাকার এবং অলিঙ্গিক ব্রহ্ম (বৈশিক পরম সত্ত্বা ও একত্ব হিসেবে)

হিন্দুধর্মে ঈশ্বর ও লিঙ্গের ধারণাবিন্যাসের বৈচিত্র্যময় পন্থা বিদ্যমান। অনেক হিন্দু ধর্মাবলবম্বী অলিঙ্গিক, নৈর্ব্যক্তিক, পরম সত্ত্বা ব্রহ্মায় বিশ্বাস করেন। অন্যান্য হিন্দু ঐতিহ্যে ঈশ্বরকে উভলিঙ্গ (উভয় নারী এবং পুরুষ) কিংবা শুধু পুরুষ বা নারী হিসেবে কল্পনা করা হয়, যেখানে লিঙ্গ উপাসকগণ লিঙ্গযুক্ত ঈশ্বরের ধারণা অস্বীকার করেন না।[১][২]

শাক্তধর্মে ঈশ্বরকে নারী রূপে ধারণা করা হয়। ভক্তি ঐতিহ্যে পুরুষ এবং নারী উভয় দেবতা বিদ্যমান। প্রাচীন ও মধ্যযুগীয় ভারতীয় পুরাণে হিন্দু দেবসভায় প্রতিটি পুরুষ দেব একেকজন নারী দেবীর সঙ্গে যুগলাবদ্ধ অবস্থায় থাকেন।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বেদে ব্যাপকভাবে পুরুষ এবং নারী সত্ত্বার কথা উল্লেখ রয়েছে। আনুমানিক খ্রিষ্টীয় ২য় সহস্রাব্দে রচিত ঋগ্বেদের প্রারম্ভিক মন্ডলগুলোয় ঈশ্বরকে উভলিঙ্গ বলা হয়েছে। ঋগ্বেদের বিশ মন্ডলের মধ্যে ষষ্ঠ, সপ্তম ও দশম মন্ডলে ভোরের দেবী ঊষার প্রশংসা করা হয়েছে এবং দেবী ঊষাকে সর্বাজ্ঞে পূজা করার কথা ঘোষণা করা হয়েছে।[৪]

প্রাচীন বৈদিক সাহিত্যে ঊষা ব্যাতীত পৃথিবী, অদিতি (দেবতাদের মাতা, প্রাচুর্য), সরস্বতী (নদী, পুষ্টি), বাক (শব্দ, কথা), এবং নৃতির (মৃত্যু, ধ্বংস) কথা উল্লেখ রয়েছে। একইভাবে বেদে ইন্দ্র (বৃষ্টি, বাজ), অগ্নি (আগুন), বরুণ (সূর্য, আইন), সাবিত্রী (সূর্য), সোম (পানীয়) প্রভৃতি পুরুষ দেবতাদের স্পষ্টরূপে চিত্রায়িত করা হয়েছে। ঋগ্বেদে ইন্দ্র এবং অগ্নি এই দুই দেবতা সবচেয়ে বেশী উল্লিখিত হন এবং এরা উভয়ে পুরুষ। সূর্য তৃতীয় শ্রদ্ধেয় দেবতা এবং ইনিও পুরুষরূপে উল্লিখিত। সকল দেব-দেবীর প্রার্থনা প্রতীকী আগুন (অগ্নি যজ্ঞ) দ্বারা সংগঠিত হয়। মন্ত্র দ্বারা অগ্নির শক্তি প্রার্থনা করা হয়। দেবতা ইন্দ্র আগুনের শক্তি বৃদ্ধি করেন এবং দেবতা সূর্য আগুনের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। ম্যাক্স মুলার বলেন, ঋগ্বেদে দেবদেবীর মধ্যে কেউ উচ্চতর বা নিকৃষ্টতর নন। যখন মন্ত্রশক্তির মধ্যে পার্থক্য দেখা দেয়, তখন প্রায় সবাই সর্বোচ্চ এবং পরম হিসাবে প্রতিনিধিত্ব করেন।

গ্রস উল্লেখ করেন, প্রাচীন ও মধ্যযুগের হিন্দু সাহিত্য ব্যাপকভাবে দেবতা, দেবী ও ঈশ্বরের উভলিঙ্গিক রূপ উপস্থাপন করে। এর ফলে একাধিক একেশ্বরবাদী ধর্মের মধ্যে বৈপরীত্য দেখা দেয়, যেখানে ঈশ্বর প্রায়ই "পুরুষের" সমার্থক এবং ঈশ্বরবাদ পুরুষবাদের পরিপূরক হয়ে থাকে। হিন্দুধর্মে দেবী-চিত্রাবলী এই অর্থ প্রকাশ করেনা যে পুরুষ দেবতাগণ নেই। বরং প্রাচীন সাহিত্যে পরস্পরের পরিপূরক হিসেবেই এই দুই লিঙ্গের উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। হিন্দুধর্মে দেবী শক্তিশালী, সুন্দরী, আত্মবিশ্বাসী এবং জীবনীশক্তির প্রতীক। পুরুষ দেবতাগণ সক্রিয় হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেন, আর নারী দেবীগণ তাঁদের অনুপ্রেরণাদায়ী। এখানে দেবীদের শিল্পকলা, সংস্কৃতি, শিক্ষাদান, আনন্দ, আধ্যাত্মিকতা এবং স্বাধীনতার পৃষ্ঠপোষক হিসাবে দেখানো হয়।

অর্থাৎ। প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যে ঈশ্বর কেবল পুরুষ বা নারীর ধারণা নয়। এখানে দেবতার উভলিঙ্গ ধারণাও পাওয়া যায়।

ব্রহ্মা[সম্পাদনা]

হিন্দুধর্মের প্রধান দার্শনিকগোষ্ঠী তাঁদের দর্শনের মূল হিসেবে পরম মহাজাগতিক সত্ত্বা ব্রহ্মাকে স্থান দান করেন, যিনি মূলত অলিঙ্গিক বিশেষ্য।[৫] জিমার উল্লেখ করেন, এই পরম মহাজাগতিক সত্ত্বা "লিঙ্গ নির্ণয়যকারী যোগ্যতা এবং সমস্ত সীমাবদ্ধতা ও ব্যক্তিস্বতন্ত্রিক বৈশিষ্ট্যের" উর্ধ্বে।[৫] ব্রহ্মা পরম মহাজাগতিক আত্মা, চরম বাস্তবতা, স্বয়ং অদ্বিতীয়। এটি একটি লোকোত্তর ধারণা, যেখানে সর্ব গুণাবলী, রূপ, লিঙ্গ, বৈশিষ্ট্য, ক্ষমতা, জ্ঞান এবং স্বয়ংসত্ত্বা অন্তর্ভুক্ত। ব্রহ্মার পরম মহাজাগতিক আত্মাস্বয়ং অদ্বিতীয়তার ধারণা বেদে এবং উপনিষদে, বিশেষত বৃহদারণ্যকোপনিষদ্‌[৬]ছান্দোগ্যোপনিষদে[৭] বিশদভবে পাওয়া যায়।

জিমার সংস্কৃত ভাষায় লিঙ্গের ধারণা এবং হিন্দুধর্মে ব্রহ্ম ও ঈশ্বরের ধারণার সম্পর্ক সুস্পষ্ট করেন এভাবে-

পৌরাণিক[সম্পাদনা]

হিন্দু পুরাণে অসংখ্য দেবদেবী অন্তর্ভুক্ত। এই রূপক কাহিণীগুলো বিশ্বাস ও মূল্যবোধ দিয়ে ঈশ্বর ও লিঙ্গের সমন্বয় করে। উদাহরণস্বরূপ। বিষ্ণু পুরাণে এধরনের পৌরাণিক পাঠ রয়েছে যেখানে পুরুষ দেবতার সঙ্গে নারী দেবীর নাম প্রতীকীরূপ দ্বারা বর্ণনা করা হয়। গল্পের একটি উদ্ধৃতাংশ নিম্নরূপঃ[৮]

উদাহরণ[সম্পাদনা]

শ্রুতি ও অদ্বৈত[সম্পাদনা]

শ্রুতি ঐতিহ্য কখনও কখনও অদ্বৈতবাদ অনুসরণ করে এবং নৈর্ব্যক্তিক, পরম, নিরাকার, অলিঙ্গিক ব্রহ্মার নারী-পুরুষ সব রূপেই বিশ্বাস করে। ঈশ্বর হিসেবে ব্রহ্মা নির্গুণ ও স্বগুণ উভয়ই। অদ্বৈত বেদান্তে ব্রহ্মাই ঈশ্বর। শ্রুতি মতামত অনুযায়ী, স্বগুণ ব্রহ্মা ঐশ্বরিক বৈশিষ্ট্য বা এরূপ যেকোন বেশিষ্ট্যের অধিকারী হতে পারে।

শিব ও বিষ্ণু[সম্পাদনা]

বৈষ্ণব এবং শৈবধর্মে যথাক্রমে বিষ্ণু ও শিব পুরুষ রূপে মূর্ত হয়। এসব ধর্মমতে ঈশ্বর লিঙ্গের ধারণার উর্ধ্বে থাকেন এবং পুরুষরূপ পূজা (উপাসনা) করার জন্য একটি প্রতীক হিসাবে ব্যবহৃত হয়। অবশ্য প্রতীক কেবল পুরুষরূপেই সীমাবদ্ধ নয়। এটা বিভিন্ন রূপ ও আকার হতে পারে। যেমন, শৈব এবং বৈষ্ণবমতে ঈশ্বর নারী-পুরুষ চিত্ররূপেও পূজিত হন, উদাহ্রনঃ শিবলিঙ্গ, শালগ্রাম ইত্যাদি। এসব সাহিত্যে লিঙ্গহীন হিসাবে ঈশ্বরের প্রকৃত নীতিকে বিষ্ণু সহস্রনাম স্তোত্র হিসেবে জপ করা হয়।

এভাবে, বিষ্ণু সহস্রনাম স্তোত্রে প্রথম কয়েক নাম কেবল বিষ্ণুর বৈশিষ্ট্যই বর্ণনা করেনা, বরং এগুলো অপুরুষবাচকও হয়।

শক্তি[সম্পাদনা]

শাক্তমত হিন্দুধর্মের একটি সম্প্রদায় যারা শক্তি অথবা দেবী মাতার পুং বা উভলিঙ্গিক দেবত্ব প্রত্যাখ্যান না করেই তাঁর সকল রূপের আরাধনা করে (এটা অবশ্য শক্তির অনুপস্থিতিতে নিষ্ক্রিয় বলে গণ্য করা হয়)। এক্ষেত্রে বিশুদ্ধ শাক্তমতে, মহাদেবী বা দেবীর পূজা করা হয়। এন এন ভট্টাচার্য ব্যাখ্যা করেছেন যে যারা একটি নারীবাদ হিসাবে এককভাবে পরম সত্ত্বার উপাসনা করে, তাঁদের শাক্ত বলা হয়।

শৈব দার্শনিকগণ, যেমন শিব সুব্রামানিয়াম বলেন, শক্তমতের বিকল্প ব্যাখ্যা হলো, নারীরূপই পুংরূপের একমাত্র বাহন।

রাধা ও কৃষ্ণ[সম্পাদনা]

শক্তি ও শক্তিমানের সাধারণ ভেদ হলো শেষেমেষ উভয়ই একই বলে স্বীকৃত হয়।[৯] প্রতিটি দেবতার সঙ্গী, 'স্ত্রী' বা শক্তি রয়েছে এবং এই শক্তি ছাড়া কখনও কখনও তাঁরা মৌলিক ক্ষমতাহীন।[১০] কিছু ভক্তিমতে হিন্দুধর্মের উপাসকগণ ঈশ্বরকে একজোড়া হিসাবে উভয় লিঙ্গের উপাসনা করেন।[১১][১২]

বৈষ্ণব দৃষ্টিকোণ থেকে ঐশ্বরিক নারী শক্তিকে শক্তির একটি মহান উৎস হিসেবে বোঝা হয়, যেমন শক্তিমান। সীতা রামের জন্য; লক্ষ্মী নারায়ণের জন্যে; রাধা তাঁর কৃষ্ণের জন্য সৃষ্টি হয়েছেন। এ হিসেবে সঙ্গীনীগণই তাঁদের সঙ্গীর শক্তির উৎস।[১৩][১৪][১৫]

মণিপুরী বৈষ্ণবদের বিশিষ্ট বৈশিষ্ট্য হল, দুই লিঙ্গ পূজা একসঙ্গে করা হয়। উপাসকগণ শুধু কৃষ্ণ বা শুধু রাধার উপাসনা করেন না, বরং একত্রে রাধা-কৃষ্ণর উপাসনা করেন। এই মতের ধর্মীয় উৎসব হলো পল্লী অনুষ্ঠান রাস উৎসব[১৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. John Renard (1999), Responses to 101 Questions on Hinduism, Paulist, আইএসবিএন ৯৭৮-০৮০৯১৩৮৪৫৬, pages 74-76
  2. গুগল বইয়ে What is Hinduism?, পৃ. PR17,, Hinduism Today, Hawaii
  3. The Concept of Shakti: Hinduism as a Liberating Force for Women
  4. Rigveda Hymn VI.64.5, HH Wilson (Translator), Trubner & Co London, page 7
  5. Heinrich Robert Zimmer (1972), Myths and Symbols in Indian Art and Civilization, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১০১৭৭৮৫, pages 123-128
  6. Original Sanskrit: बृहदारण्यकोपनिषद् Wikisource;
    English Translation Hymn 1.4.10: Brihadaranyaka Upanishad - 1.4.10 pages 145-146;
    English Translation Hymn 4.4.5: Brihadaranyaka Upanishad - 4.4.5 pages 712-713;
  7. Original Sanskrit: सर्वं खल्विदं ब्रह्म तज्जलानिति शान्त उपासीत । अथ खलु क्रतुमयः पुरुषो यथाक्रतुरस्मिँल्लोके पुरुषो भवति तथेतः प्रेत्य भवति स क्रतुं कुर्वीत ॥ १ ॥ (छान्दोग्योपनिषद् Wikisource);
    English Translation 1: All this indeed is Brahman. From It the universe comes forth, in It the universe merges, and in It the universe breathes. Therefore a man should meditate on Brahman with a calm mind. Now, a man consists of free will. As he wills in this world, so does he become. Let him, with this knowledge in mind, form his free will. (Chandogya Upanishad The Sandilya Doctrine - 3.14.1);
    English Translation 2: Chandogya Upanishad III.xiv.1 GN Jha (Translator), page 151
  8. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; vp নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  9. Surendranath Dasgupta,A History of Indian Philosophy (1991) p. 31
  10. Santilata Dei, Del Santilata, Vaisnavism in Orissa (1988) p. 167
  11. Beck, Guy L. (২০০৫)। Alternative Krishnas: regional and vernacular variations on a Hindu deity। Albany, N.Y: State University of New York Press। পৃ: p. 68আইএসবিএন 0-7914-6415-6 
  12. Kakoli Basak, (1991) Rabindranath Tagore, a Humanist - p. 11
  13. Rosen 2002, পৃ. 54
  14. Dave Symmons (1998), This is Hinduism, Nelson Thornes, আইএসবিএন ৯৭৮-০৭৪৮৭৩০৯৩৩, page 20
  15. Stella Kramrisch (1975), The Indian Great Goddess, History of Religions, Vol. 14, No. 4, pages 260-263
  16. Schwartz 2004, পৃ. 35