নিম্বার্ক সম্প্রদায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নিম্বার্ক সম্প্রদায়
Nimbarka Symbol.jpg
নিম্বার্ক সম্প্রদায় শঙ্খ-চক্র উর্ধ্বপুন্দ্র
প্রতিষ্ঠাতা
নিম্বার্কচার্য্য
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
সারা বিশ্ব ব্যাপী নিম্বার্ক মন্দির ও ভক্ত বৃন্দ অবস্থিত
ভাষা
সংস্কৃত, হিন্দি, ব্রজভাষা, ইংরেজি, বাংলা, ইত্যাদি

নিম্বার্ক সম্প্রদায় (আইএএসটি: নিম্বার্ক সাম্প্রদায়, সংস্কৃত (निम्बार्क सम्मेलन), যাকে হামসা সম্প্রদায় এবং সনাকাদি সম্প্রদায়ী নামেও অভিহিত করা হয়। চার সম্প্রদায়ের মধ্যে অন্যতম হল নিম্বার্ক সম্প্রদায়। এটি নিম্বারকা (খ্রিস্টীয় সপ্তম শতাব্দী) দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তেলুগু ব্রাহ্মণ, যোগী, এবং দার্শনিক এবং দ্বৈতদ্বৈত (দ্বৈত-অদ্বৈত) বা দ্বৈতবাদী অ দ্বৈতবাদের বৈষ্ণব ভেদাভেদ ধর্মতত্ত্ব। দ্বৈতদ্বৈত বলেছেন যে মানুষ বা ঈশ্বর, ঈশ্বর বা পরম সত্তা থেকে উভয়ই পৃথক এবং ভিন্ন নয়।

গুরু পরম্পরা[সম্পাদনা]

নিম্বার্ক সম্প্রদায়ী প্রবর্তক শ্রী হংস ভগবান

নিম্বার্ক সম্প্রদায়কে কুমার সম্প্রদায়, হামসা সম্প্রদায়, এবং সনাকাদি সম্প্রদায় নামেও পরিচিত। ঐতিহ্য অনুসারে, নিম্বার্ক সংপ্রদায় দ্বৈত-অদ্বৈত দর্শন চার কুমারদের মধ্যে একটি শ্রী হংস ভগবানকে প্রকাশ করেছিলেন । হরি ভাগবনের দ্বারা; যিনি এটি শ্রী নারদ মুনির কাছে দিয়েছিলেন; এবং তারপরে নিম্বার্ক। চার কুমার, সনক, সানন্দনা, সানতানা এবং সনাত কুমারকে ঐতিহ্যগতভাবে ভগবান ব্রহ্মার চার মন-পুত্র হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এগুলি সৃষ্টির অগ্রগতির জন্য ব্রহ্ম দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল, তবে ব্রহ্মচ্যুত (ব্রহ্মচার্য) এর আজীবন ব্রত গ্রহণ করা বেছে নিয়েছিলেন, নামকরা যোগী হয়েছিলেন, যারা ব্রহ্মার কাছে স্থায়ীভাবে পাঁচ বছর বয়সের অবধি অনুরোধ করেছিলেন। আর্য সনত কুমার সংহিতি, রীরা কীরার উপাসনা সম্পর্কিত একটি গ্রন্থ, আর্য সনাত কুমার তন্ত্রের মতোই ভাইদের কাছেও দায়ী করা হয়েছে, যা পঞ্চরিত্র সাহিত্যের অংশ।

এই মহাবিশ্বের সৃষ্টি-পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে পৌরিকা সাহিত্যে বর্ণিত আছে, নারদ মুনির চার কুমারের ছোট ভাই, যিনি তাঁর বড় ভাইদের কাছ থেকে দীক্ষা নিয়েছিলেন। গুরু ও শিষ্য হিসাবে তাদের আলোচনা উপনিষদ গুলিতে চণ্ডোগ্য উপনিষদ, এবং নারদ পুরাণে এবং প্যারাকৃত সাহিত্যে একটি বিখ্যাত কথোপকথনের সাথে লিপিবদ্ধ আছে।

নারদ মুনি বৈষ্ণব সম্প্রদয়ের চারটিতেই প্রধান শিক্ষক হিসাবে লিপিবদ্ধ রয়েছে। ঐতিহ্য অনুসারে, তিনি আবার নিম্বার্ককৃতার্যকে পবিত্র ১৮-বর্ণিত আর্য গোপালা মন্ত্রের সূচনা করেছিলেন এবং তাঁকে যুগল উপাসনের দর্শনের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন, ঈশ্বরিক দম্পতি শ্রী রাধা কৃষ্ণ ভক্তিমূলক উপাসনা করেছিলেন। ঐতিহ্য অনুসারে, এই প্রথম বৃন্দাবনের গোপী ব্যতীত আর্য রদ্ধ কাঁচকে পৃথিবীর অন্য কেউ একসাথে উপাসনা করেছিলেন। আর্য নারদ মুনি তখন নিম্বার্ক শ্রী ভক্তী সূত্রে ভক্তিমূলক সেবার মর্ম শিক্ষা দিয়েছিলেন। আর্য নিম্বার্কচার্য্য বেদ, উপনিষদ এবং বাকী সমস্ত ধর্মগ্রন্থ ইতিমধ্যে জানতেন, তবে অবতার নারদ মুনির শিক্ষায় সিদ্ধি পাওয়া গেল।

নিম্বার্ক গ্রন্থ[সম্পাদনা]

দার্শনিক[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আর ও দেখুন[সম্পাদনা]

নিম্বার্ক সম্প্রদায়ী দেবাচার্য্য গণ[সম্পাদনা]

  • শ্রীনিম্বার্ক সম্প্রদায়ের আচার্য্য পরম্পরা

(১) শ্রীহংস ভগবান

(২) শ্রীশ্রীসনকাদি ভগবান

(৩) দেবর্ষি নারদ ভগবান

(৪) শ্রীনিম্বার্ক ভগবান

(৫) শ্রীশ্রীনিবাসাচার্য্যজী মহারাজ

(৬) শ্রীবিশ্বাচার্য্যজী মহারাজ

(৭) শ্রীপুরুষোত্তমাচার্য্যজী মহারাজ

(৮) শ্রীবিলাসাচার্য্যজী মহারাজ

(৯) শ্রীস্বরূপাচার্য্যজী মহারাজ

(১০) শ্রীমাধবাচার্য্যজী মহারাজ

(১১) শ্রীবলভদ্রাচার্য্যজী মহারাজ

(১২) শ্রীপদ্মাচার্য্যজী মহারাজ

(১৩) শ্রীশ্যামাচার্য্যজী মহারাজ

(১৪)শ্রী গোপালাচার্য্যজী মহারাজ

(১৫)শ্রীকৃপাচার্য্যজী মহারাজ

(১৬) শ্রীদেবাচার্য্যজী মহারাজ

(১৭) শ্রীসুন্দর ভট্টাচার্য্যজী মহারাজ

(১৮) শ্রীপদ্মনাভ ভট্ট মহারাজ

(১৯) শ্রীউপেন্দ্র ভট্ট মহারাজ

(২০) শ্রীরামচন্দ্র ভট্ট মহারাজ

(২১) শ্রীবামন ভট্ট মহারাজ

(২২) শ্রীকৃষ্ণ ভট্ট মহারাজ

(২৩) শ্রীপদ্মাকর ভট্ট মহারাজ

(২৪) শ্রীশ্রবণ ভট্ট মহারাজ

(২৫) শ্রীভূরি ভট্ট মহারাজ

(২৬) শ্রীমাধব ভট্ট মহারাজ

(২৭) শ্রীশ্যাম ভট্ট মহারাজ

(২৮) শ্রীগোপাল ভট্ট মহারাজ

(২৯) শ্রীবলভদ্র ভট্টাচার্য্যজী মহারাজ

(৩০) শ্রীগোপীনাথ ভট্ট মহারাজ

(৩১) শ্রীকেশব ভট্ট মহারাজ

(৩২) শ্রীগাঙ্গল ভট্ট মহারাজ

(৩৩) শ্রীজগদ্বিজয়ী শ্রীকেশব কাশ্মীরী ভট্ট মহারাজ

(৩৪) আদিবাণীকার শ্রীশ্রীভট্টাচার্য্যজী মহারাজ

(৩৫) মহাবাণীকার শ্রীহরিদাস দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৩৬) শ্রীস্বভুরাম দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৩৭) শ্রীকর্ণহর দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৩৮) শ্রীপরমানন্দ দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৩৯) শ্রীচতুর চিন্তামণি দেবাচার্য্যজী (নাগাজী) মহারাজ

(৪০) শ্রীমোহন দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৪১) শ্রীজগন্নাথ দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৪২) শ্রীমাখন দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৪৩) শ্রীহরি দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৪৪) শ্রীমথুরা দেবাচার্য্যজী মহারাজ

(৪৫) শ্রীশ্যামলদাসজী মহারাজ

(৪৬) শ্রীহংসদাসজী মহারাজ

(৪৭) শ্রীহীরাদাসজী মহারাজ

(৪৮) শ্রীমোহনদাসজী মহারাজ

(৪৯) শ্রীনেনাদাসজী মহারাজ ব্রজবিদেহী

(৫০) কাষ্ঠকৌপীন প্রবর্ত্তক শ্রীইন্দ্রদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫১) শ্রীবজরংদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫২) শ্রীগোপালদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫৩) শ্রীদেবদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫৪) ব্রজবিদেহী চতুঃ সম্প্রদায়ের শ্রীমহন্ত শ্রীরামদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫৫) ব্রজবিদেহী চতুঃ সম্প্রদায়ের শ্রীমহন্ত শ্রীসন্তদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫৬) ব্রজবিদেহী চতুঃ সম্প্রদায়ের শ্রীমহন্ত শ্রীধনঞ্জয়দাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

(৫৭) বর্তমান ব্রজবিদেহী চতুঃ সম্প্রদায়ের শ্রীমহন্ত শ্রী শ্রী ১০৮ স্বামী রাসবিহারীদাসজী কাঠিয়া বাবাজী মহারাজ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]