মোয়াজ্জেম হোসেন রতন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোয়াজ্জেম হোসেন রতন
একাদশ জাতীয় সংসদ-এ সুনামগঞ্জ-১ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ – চলমান
পূর্বসূরীস্বয়ং
সংখ্যাগরিষ্ঠবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
১০ম জাতীয় সংসদে সুনামগঞ্জ-১ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৫ জানুয়ারি ২০১৪ – ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮
পূর্বসূরীস্বয়ং
সংখ্যাগরিষ্ঠবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
৯ম জাতীয় সংসদ-এ সুনামগঞ্জ-১ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ – ৪ জানুয়ারি ২০১৪
পূর্বসূরীনজির হোসেন
সংখ্যাগরিষ্ঠবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৩ জুন ১৯৭২
নওদা, ধর্মপাশা, সুনামগঞ্জ
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
ধর্মইসলাম

ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন (জন্ম: ১৩ জুন ১৯৭২)[১] হলেন একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ ও ধারাবাহিকভাবে তিনবার সুনামগঞ্জ-১ থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।।[২] ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সালে ঢাকায় ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দুদকের নির্দেশে রতনকে বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।[৩]

জন্ম ও শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

রতন ১৯৭২ সালের ১৩ জুলাই সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলার নওধার গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি প্রকৌশল বিষয়ে লেখাপড়া করেন। [৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

রতন ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ, ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-১ থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে সংসদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। [৫][৬] ২০০৮ সালে, নির্বাচনের প্রচারের সময় তার উপর হামলা হয়েছিল এবং তার গাড়িটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মীরা ভাঙচুর করেছিল। [৭] তিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য। [৮]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সালে ঢাকায় ক্যাসিনোকাণ্ডে অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। বাংলাদেশের গণমাধ্যমে তার নাম আসায় রতনসহ অন্তত ১০০ জনের সম্পদ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে ৫ সদস্য এ অনুসন্ধান দলে ছিলেন। [৯][১০] পরে এ অনুসন্ধান দলের সুপারিশে রতনকে বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এ বিষয়ে বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ শাখাকে দুদক অুনসন্ধান টিম ২৭ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে চিঠি প্রেরণ করে। [১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "১০ম জাতীয় সংসদের ২২৪ নং আসনের মাননীয় সংসদ সদস্যের জীবনী"www.parliament.gov.bd। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  2. "মাননীয় সংসদ সদস্য - সুনামগঞ্জ: ১"sunamganj.gov.bdমন্ত্রী পরিষদ বিভাগ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  3. "আ.লীগ সাংসদ রতনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৬ 
  4. "Mouazzam Hossain Ratan"Amarmp। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  5. "Mouazzam Hossain Ratan History"Amarmp। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  6. "Two-thirds of AL nominees confirmed"। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  7. "AL nominee chased as he starts mass contact"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ ডিসেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  8. "Complete project within this govt's tenure: JS body"theindependentbd.com। UNB। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  9. "Boishakhi Online | Latest online bangla world news bd | Sports photo video live"বৈশাখী টেলিভিশন। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৬ 
  10. "এমপি রতনের বিরুদ্ধে আ'লীগ নেতা শামীমের বক্তব্য ভাইরাল"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৬ 
  11. amadernotunshomoy.com (২০১৯-১০-২৪)। "ক্যাসিনোকা-ে জড়িত সুনামগঞ্জের এমপি রতনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা"Amadernotun Shomoy। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]