রসগোল্লা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
রসগোল্লা
Bengali Rasgula.jpg
একটি পাত্র ভর্তি রসগোল্লা
অন্যান্য নাম রসগোল্লা
বাংলার রসগোল্লা
রান্নার বই: রসগোল্লা  উইকিমিডিয়া কমন্সে মিডিয়া: রসগোল্লা সম্পর্কিত মিডিয়া রয়েছে

</ref> ভারত

| region = পশ্চিমবঙ্গ, বাংলাদেশ, | main_ingredient = ছানা, চিনি | variations = [[কলকাতোল্লা , কলকাতার স্পঞ্জি রসগোল্লা }} রসগোল্লা সাদা রঙের এক প্রকার ছানার মিষ্টি। এটি চিনি বা গুড় দিয়ে তৈরি হয়। সবার কাছেই রসগোল্লা একটি জনপ্রিয় মিষ্টি। ছানা (তার মধ্যে অনেক সময় সুজির পুর দেওয়া হয়) পাকিয়ে গরম রসে ডুবিয়ে এটি প্রস্তুত করা হয়। রসগোল্লা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশার বিরোধ বহু দিনের। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে পশ্চিমবঙ্গ সরকার রসগোল্লার জিআই ট্যাগ লাভ করে। [১] ফলে রসগোল্লার উৎপত্তি যে বাংলায় তা প্রতিষ্ঠা পায়। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কর্মকর্তারা বলছেন যে তারা শুধু 'ভৌগলিক সূচক' বা 'ভৌগলিক ইঙ্গিত' (জিআই) ট্যাগের জন্য অনুরোধ করেছিলেন, যা স্থানীয় রসগোল্লা 'বাংলার রসগোল্লা' (বেঙ্গল রসগোল্লা) নামেও পরিচিত করে [২] এবং বলেছিল যে "উড়িষ্যার সাথে কোন দ্বন্দ্ব নেই। আমাদের রসগোল্লা পরিচয় রক্ষা করার জন্য আমরা যা চাই তা আমাদের রঙিন, জমিন, স্বাদ, রসের সামগ্রী এবং উত্পাদন পদ্ধতির উভয় দিক থেকে ভিন্ন। [৩]

নাম[সম্পাদনা]

বাংলার রসগোল্লা
রসগোল্লা

এই সুস্বাদু খাদ্যটি রসগোল্লা বা বাংলার রসগোল্লা নামে বেশি পরিচিত ও বিখ্যাত তবে ওড়িশার অনেকে ক্ষীর থেকে তৈরি শুষ্ক প্রকৃতির মিষ্টিকে ওড়িশার সরগোল্লা বলে থাকে। রাজগোল্লা শব্দটি রস ("মিষ্টি তরল") এবং গোল্লা ("বল") শব্দ থেকে উদ্ভূত হয়। [৪] রসগোল্লা বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন উচ্চারনে উচ্চারিত হয়: রাশগুল্লা (সিলেট), রাশগোল্লা [৫] রসোগ্লোল্লা, [৬] রোশোগলা, [৭] রাজগোলার [৮] রাসগোলার [৯] এবং রাশবরী বা রাশবাড়ি (নেপালি)। [১০]

স্পঞ্জ রসগোল্লা[সম্পাদনা]

স্পঞ্জ রসগোল্লা, রসগোল্লা সদৃশ রসে ডোবা রসালো মিষ্টি। যা স্পঞ্জের মতো নরম।

১৮৬৮ সালে কলকাতার নবীন চন্দ্র দাস প্রথম ঐতিহ্যবাহী রসগোল্লার বদলে এই ধরনের রসগোল্লা তৈরি করেন বলে জানা যায়।

কিছুকথা[সম্পাদনা]

মিষ্টি হল বাঙালি জীবনের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। বাঙালিদের যেকোন অনুষ্ঠান মিষ্টি ছাড়া অপূর্ণ থেকে যায়। এর মধ্যে রসগোল্লার স্থান সবার উপরে।।

রসগোল্লা ইতিহাস[সম্পাদনা]

রসগোল্লা

যতদূর জানা যায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গে প্রথম রসগোল্লা প্রস্তুত করা হয়েছিল। আমরা সবাই জানি নবীন চন্দ্র দাস আধুনিক রশিগোলার আবিষ্কর্তা ছিলেন এবং তিনি ইতিহাসে জনপ্রিয় কণ্ঠে রসগোল্লার কলম্বাসের সাথে যুক্ত হয়েছেন। বাগবাজারের নবীন দাস। ১৪ শতকের শেষভাগে ১৫ শতকের ভক্তি আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ভীষণাভক্তি বৃদ্ধি লাভের সময় মিষ্টিটির প্রাচীনতা নাদিয়াতে ফিরে আসত। এর পর এই রসগোল্লা জনপ্রিয় হয়ে, পাশের রাজ্যগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে। তবে কলকাতায় এটি উল্লেখযোগ্যভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করে। রসগোল্লা নদীয়া থেকে কলকাতা ও ওড়িশায় ছড়িয়ে পড়ে।[১১]

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে রসগোল্লার আদি উৎপত্তিস্থল বর্তমান বাংলাদেশের বরিশাল অঞ্চলে। বিশেষ করে, পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় পর্তুগীজদের সময় সেখানকার ময়রাগণ ছানা, চিনি, দুধ ও সুজি দিয়ে গোলাকার একধরণের মিষ্টান্ন তৈরি করেন যা ক্ষীরমোহন বা রসগোল্লা নামে পরিচিত। পরবর্তীতে বরিশাল এলাকার হিন্দু ময়রাগণের বংশধর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ তথা কলকাতা কিংবা ওড়িশায় বিস্তার লাভ করে।

বাংলা সাহিত্যেও এই রসগোল্লাকে নিয়ে রচিত হয়েছে সরেস সাহিত্যকর্ম। বিশিষ্ট রম্য সাহিত্যিক সৈয়দ মুজতবা আলী রচনা করেছেন বিখ্যাত রম্যগল্প "রসগোল্লা" যা ইউরোপের বহু দেশে সমাদৃত হয়েছে।

তবে রসগোল্লার আদি জন্ম নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ আর উড়িষ্যার মধ্যে একটি মামলা চলছে যায় নিষ্পত্তি এখনও হয়নি। তবে রসগোল্লার জিআই ট্যাগ পশ্চিমবঙ্গ লাভ করেছে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আধুনিক জনপ্রিয়তা[সম্পাদনা]

১৯৩০ সালে, নবীন চন্দ্রের পুত্র কৃষ্ণচন্দ্র দাসের ভ্যাকুয়াম প্যাকিংয়ের প্রবর্তনের ফলে রসগোল্লার বিরাট বাজার পাওয়া যায়, যা কলকাতার বাইরে এবং পরবর্তীতে ভারতে বাইরে খাবারটি রপ্তানি করা সম্ভব হয়। [১২] কৃষ্ণ চন্দ্রের পুত্র সরদার চরণ দাশ কে.সি. প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৪৬ সালে দাস প্রাইভ লিমিটেডের কোম্পানি। [১৩] সরদার চরন এর ছোটো বন্ধুর পুত্র দেবেন্দ্রনাথ কে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন দস গ্রেডসন ইন ১৯৫৬।

আজ, প্লাস্টিকের ক্যনে ভরা রসগোলা ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ জুড়ে পাওয়া যায়, পাশাপাশি উপমহাদেশের বাইরে দক্ষিণ এশিয়ার মুদি দোকানেও পাওয়া যায়। নেপালের রাজবাড়ী নামে রাশবুলি নামে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে রসগোল্লা। [১০]

ভারতীয় মহাকাশ সংস্থা, ইসরো ২০১৬ সালে পরিকল্পিত মনুষ্য অভিযানে ভারতীয় মহাকাশচারীদের জন্য নিরূদিত রসগোল্লা এবং অন্যান্য খাবারের উদ্ভাবন করছে। [১৪]

পুষ্টি[সম্পাদনা]

সাধারণত, ১০০ গ্রাম রাসগোল্লায় ১৮৬ ক্যালরি শক্তি থাকে, যার মধ্যে ১৫৩ ক্যালরি কার্বোহাইড্রেট আকারে থাকে। এতে ১.৮৫ গ্রাম চর্বি এবং ৪ গ্রাম প্রোটিন রয়েছে। [১৫]

ভৌগলিক ইঙ্গিত (জিআই) ট্যাগ[সম্পাদনা]

২০১৫ সালে, পশ্চিমবঙ্গ "বাংলার রাসগোল্লা" (বাংলা রাসগোল্লা) -এর জন্য একটি ভৌগোলিক নির্দেশিকা (জিআই) অবস্থা জন্য আবেদন করেছিল। সরকার স্পষ্ট করে বলে যে ওড়িশার সাথে কোন দ্বন্দ্ব ছিল না এবং তার আবেদন শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট রূপের জন্য ছিল যা উড়িষ্যাতে উত্পাদিত বৈকল্পিক থেকে "রঙিন, জমিন, স্বাদ, রস উপাদান এবং উৎপাদন পদ্ধতি" উভয়ই ছিল। [১৬] ১৪ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে, ভারতের জিআই রেজিস্ট্রি বাংলার রসগোল্লা জন্য পশ্চিমবঙ্গকে জিআই স্থিতি মঞ্জুর করে। [১৭] [১৮]

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কর্তৃক সংবাদ সম্পর্কে একটি টুইটের প্রেক্ষিতে দেখা যায় যে, মিষ্টিদের উৎপত্তি সম্পর্কে বিতর্ক পশ্চিমবঙ্গের পক্ষে স্থির করা হয়েছিল। যাইহোক, জিআই ট্যাগ শুধুমাত্র বাংলার রাসগোলার জন্য দেওয়া হয়েছিল, এটি একটি শব্দ যা পশ্চিমবঙ্গে মিষ্টি উত্পাদনের জন্য বোঝায়। চেন্নাইয়ের জিআই রেজিস্ট্রার অফিসটি স্পষ্ট করে দিয়েছিল যে জিআই ট্যাগ রাসগোল্লার জন্য একটি জেনেরিক টার্ম ছিল না এবং মিষ্টি এর উৎপত্তি সম্পর্কে বিতর্কের অপব্যবহার ছিল না। অফিসটিও উল্লিখিত হয়েছে যে উড়িষ্যা কোন জিআই ট্যাগের জন্য এতদূর প্রয়োগ করেনি, তবে এটি প্রয়োজনীয় প্রমাণ উপস্থাপন করে জিআই ট্যাগও পেতে পারে। [১৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Finally, West Bengal Wins The Fight With Odisha Over Origin Of Rosogolla, Gets GI Tag"। Outlook India। ১৪ Nov ২০১৭। সংগৃহীত ১৪ নভেম্বর ২০১৭ 
  2. "Our Claim Only On A Variety Of Rasogolla, No Dispute With Odisha: West Bengal"। সংগৃহীত ২০১৬-১০-০২ 
  3. "Our Claim Only On A Variety Of Rasogolla, No Dispute With Odisha: West Bengal"NDTVPress Trust Of India। ২৭ জুলাই ২০১৬। সংগৃহীত ২৪ আগস্ট ২০১৬ 
  4. "Rasgulla@Oxford Dictionaries" (Hindi ভাষায়)। India: Oxford University Press। সংগৃহীত ২৮ আগস্ট ২০১৫ 
  5. Deepika Sahu (২ জুলাই ২০১২)। "Discover Odisha's 'sweet' magic"The Times of India 
  6. "History of rossogolla now just a click away"The Times of India। ১৫ মার্চ ২০১৩। 
  7. "Of luchi, rolls & roshogolla in Durga puja"। Daily Bhaskar। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। 
  8. "Rasagola originated in Odisha- Did you know?"। Zee News। ৩০ জুলাই ২০১৫। 
  9. Sonali Pattnaik (১৮ জুলাই ২০১৩)। "How to make…Rasagolla"The Hindu 
  10. Alan Davidson (২১ সেপ্টেম্বর ২০০৬)। The Oxford Companion to Food। OUP Oxford। পৃ: 1880। আইএসবিএন 978-0-19-101825-1 
  11. "The rasogolla’s journey, from Nadia to Odisha and Kolkata"। Times of India। ১৫ নভেম্বর ২০১৭। সংগৃহীত ১৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  12. Piyasree Dasgupta (২৯ অক্টোবর ২০১১)। "Sticky Sweet Success"। Indian Express। 
  13. Bishwanath Ghosh (২৯ অক্টোবর ২০১৪)। Longing, Belonging: An Outsider At Home In Calcutta। Westland। পৃ: ১৭৭। আইএসবিএন 978-93-84030-60-5 
  14. Ram Kumar Ramaswamy (১৬ জুন ২০১২)। "Isro astronauts to savour idlis, rasgullas in space"Asian Age 
  15. Nutrition Information For Rasgulla. Livestrong.Com. Retrieved on 6 December 2012.
  16. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; NDTV_claim_2016 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  17. "GI tag of Banglar Rasogolla" 
  18. "Sweet War: This GI tag is for Banglar Rosogolla, it is not about the origin"The New Indian Express। ১৪ নভেম্বর ২০১৭। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

বিবিসি বাংলা বাঙ্গালীনেট