ঝালমুড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ঝালমুড়ি
Jhal Muri.jpg
ঝালমুড়ি
উৎপত্তিস্থল  বাংলাদেশ
প্রধান উপকরণ মুড়ি , চানাচুর , সরিষার তেল , লেবু , পেঁয়াজ , মরিচ , বুট , ধনে পাতা , টমেটো , বীট লবন[১][২]
রান্নার বই: ঝালমুড়ি  উইকিমিডিয়া কমন্সে মিডিয়া: ঝালমুড়ি সম্পর্কিত মিডিয়া রয়েছে

ঝালমুড়ি বাংলাদেশের সর্বত্র জনপ্রিয় একটি খাবার যা মুড়ি, চানাচুর ও অন্যান্য মসলা সংযোগে তৈরি হয়।[২] বিশেষ করে স্কুল, কলেজ অর্থাৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে এটি সাধারণত ফেরি করে বিক্রি করা হয়।

প্রস্তুত প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

Jhal Muri mosla.JPG

প্রথমে একটি বাটিতে মুড়ি, বুট আর চানাচুর নিতে হয়। পরে ধনে পাতা, পেঁয়াজ কুচি , মরিচ কুচি , লেবুর রস ছিটিয়ে দিতে হয়। সাথে পরিমান মত বীট লবন। এবার বাটিকে বারবার ঝাঁকি দিয়ে মুড়ি মাখাতে হয় | কখনও মাংসের ঝোল ব্যবহার করা হয় । সাথে টমেটো , পুদিনা পাতা, ধনে পাতা বা শসা ইত্যাদিও ব্যবহার করা যায় ।[২] ডাল বেশি দিয়ে অনেকে খেতে পছন্দ করে। অনেকে ডাল কম। সাধারনত মটরশুঁটি ডাল সিদ্ধ করে দেওয়া হয়। একে গুমনি বলা হয়।

পরিবেশন প্রণালী[সম্পাদনা]

পরিবেশনকালে সাধারনত কাগজ দিতে তৈরি ঠোঙ্গা ব্যবহার করা হয়। আবার কখন কখন বাটিতে করে খাওয়া হয়। কাগজের ত্রিকোনাকৃতি একটা পাত্র বানিয়ে দেওয়া হয়। আর খেতে চামচ হিসেবে ব্যাবহারের জন্য শক্ত কাগজ কেটে দেওয়া হয়। আবার অনেক জায়গায় স্পেশাল ঝালমুড়ি পাওয়া যায়। যার দাম একটু বেশি। মাংসও দেওয়া হয় অনেকসময়। পুরান ঢাকার মানুষ মাংস দেওয়া স্পেশাল ঝালমুড়ি পছন্দ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলার খাদ্য; লুবিনা আখতার; পৃষ্ঠা নং-২৩
  2. "ঝালমুড়ি বিক্রির তথ্য - সরকারী ই-তথ্যকোষ" ; www.infokosh.gov.bd