পাটিসাপটা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাটিসাপটা
পাটিসাপটা
ধরনপিঠে
উৎপত্তিস্থলবঙ্গ
অঞ্চল বা রাজ্যদক্ষিণ এশিয়া
প্রধান উপকরণময়দা, চালের গুড়ো, চিনি, দুধ, ক্ষীর, নারকোল
রন্ধনপ্রণালী: পাটিসাপটা  মিডিয়া: পাটিসাপটা

পাটিসাপটা একধরণের পিঠা যা বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে জনপ্রিয়। এটি ময়দা, চালের গুড়ো, চিনি, দুধ, ক্ষীর, নারকেল ইত্যাদি দিয়ে তৈরী করা হয়।[১] পাটিসাপটার পুর হিসেবে নারকেল এবং ক্ষীর - দুইই ব্যবহার করা হয়। বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় এর ছোটগল্প পুঁই মাচা-তে পাটিসাপটা পিঠার উল্লেখ আছে। [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পৌষ পার্বণে পাটিসাপটা

ষোল শতকের শেষের দিকে কবিকঙ্কন মুকুন্দরাম চক্রবর্তী রচিত চন্ডিকাব্যে এই পিঠার উল্লেখ পাওয়া যায়। [৩]

প্রস্তুত প্রণালী[সম্পাদনা]

গুড়ের পাটিসাপটা
  • ঝুনো নারকেল কুরো, গুড় বা চিনি অথবা ক্ষীর পাক করে পুর বানিয়ে নিতে হবে।
  • ময়দাতে দুধ, জল এবং একটু মিহি চালগুঁড়ো মিশিয়ে মন্ড পাকিয়ে গোল গোল লেচি করে নিতে হবে।
  • এবার লেচিগুলো ছোটো ছোটো গোল আকারে বেলে, অল্প পুর ভিতরে দিয়ে পাটির মত পাট করে নিতে হবে।
  • শেষ পাটে লবঙ্গ দিয়ে মুখ বন্ধ করে দিতে হবে। এখন একে পাট করা লম্বা আকারের দেখতে হবে।
  • এরপর একে ঘিয়ে ভেজে নিয়ে চিনির রসে কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখতে হবে।
  • রস থেকে তোলবার পর পাটিসাপটা পরিবেশন করা যাবে।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রায়, প্রণব (জুলাই, ১৯৮৭)। বাংলার খাবার। কলকাতা: সাহিত্যলোক। পৃষ্ঠা ৬৬।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  2. বন্দ্যোপাধ্যায়, বিভূতিভূষণ। বিভূতি রচনাবলী ৫। কলকাতা: মিত্র ও ঘোষ। পৃষ্ঠা ৩৮৪। 
  3. রায়, প্রণব (জুলাই, ১৯৮৭)। বাংলার খাবার। কলকাতা: সাহিত্যলোক। পৃষ্ঠা ৬৫।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)