ব্রাহ্মধর্ম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

ব্রাহ্মধর্ম হল ১৯শ শতাব্দীর বাংলার একটি ধর্মীয় আন্দোলন। এই আন্দোলন থেকেই সেকালের বাংলার নবজাগরণ, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রথম পর্যায় এবং বৃহত্তর ক্ষেত্রে হিন্দু সংস্কার আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটে। ব্রাহ্মধর্মের অনুগামীরা ‘ব্রাহ্ম’ নামে পরিচিত। ব্রাহ্মরা মূলত ভারতীয় বা বাংলাদেশী হন। রাজা রামমোহন রায় ব্রাহ্মসমাজ আন্দোলনের প্রথম প্রবক্তা। যুক্তিবাদের প্রয়োগের উপর অধিক গুরুত্ব আরোপ করে তিনি হিন্দু ধর্ম ও সামাজিক রীতিনীতিগুলি সংস্কারে উদ্যোগী হয়েছিলেন। তিনি নিজে একেশ্বরবাদী ধর্ম ও আধুনিক বিজ্ঞানের দ্বারা অনুপ্রাণিত হন।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ব্রাহ্মধর্মের প্রথম প্রবক্তা রাজা রামমোহন রায়

রামমোহন রায় ধর্মীয় সত্যের অনুসন্ধানে খোলা মনে সকল প্রধান ধর্মের ধর্মগ্রন্থগুলি অধ্যয়ন করেন। তিনি শুধুমাত্র সংস্কৃত ভাষায় বেদ অধ্যয়নই করেননি, বরং আরবি ভাষায় কুরআনহিব্রুগ্রিক ভাষায় বাইবেলও পড়েন। প্রতিটি ধর্মের মূলনীতিগুলি অধ্যয়ন করে তিনি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে, প্রতিটি ধর্মের উদ্দেশ্যই এক। তা হল, মানবজাতির নৈতিক পুনর্জাগরণ। তাই প্রতিটি ধর্মের নীতিগুলি পরিবর্তিত যুগের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাখ্যা ও পুনরায় পরীক্ষা করে দেখা প্রয়োজন। সেই জন্যই তিনি ভেবেছিলেন হিন্দুধর্ম পরিত্যাগ করে অন্য কোনো ধর্ম গ্রহণ করার আবশ্যকতা নেই। তিনি প্রতিটি ধর্মের বিশ্বজনীন নীতিশিক্ষাগুলি সংশ্লিষ্ট ধর্মের গোঁড়ামি, আনুষ্ঠানিকতা ও কুসংস্কারগুলি বাদ দিয়ে গ্রহণ করেন।[২]

রামমোহন রায় হিন্দুধর্মের ভিতর থেকেই উক্ত ধর্মকে সংস্কার করতে উদ্যোগী হলেও তাঁর উত্তরসূরি মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৮৫০ সালে বেদের অভ্রান্ততা ও অপৌরুষেত্ব অস্বীকার করেন। এর মাধ্যমে ব্রাহ্মসমাজ মূলধারার হিন্দুধর্ম থেকে বেরিয়ে আসে। দেবেন্দ্রনাথ কিছু হিন্দু রীতিনীতি রক্ষা করেছিলেন বটে, কিন্তু ব্রাহ্মদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ মতবিরোধের ফলে ব্রাহ্মসমাজ ভেঙে যায় এবং ১৮৭৮ সালে সাধারণ ব্রাহ্মসমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯০১ সালে ব্রিটিশ ভারতের প্রিভি কাউন্সিল ঘোষণা করে যে, “ব্রাহ্মদের অধিকাংশ হিন্দু নয়। তাঁদের নিজস্ব ধর্ম রয়েছে।”[৩]

দেবেন্দ্রনাথের ব্রাহ্মধর্মঃ বা ধর্মীয় ও নৈতিক বিধান ‘ব্রাহ্মধর্মের মৌলিক নীতি’তে পরিণত হয়। এই গ্রন্থে ব্রাহ্মদের কর্তব্যগুলি বিবৃত হয়েছে। সেই সঙ্গে ব্রাহ্মদের সভা বা উপাসনা সর্বদা ‘১৮৩০ সালের অছি নীতি’গুলির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করার ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও কালরেখা[সম্পাদনা]

  • ১৮২৮ : রামমোহন রায় ‘ব্রাহ্মসভা’ স্থাপন করেন।[৪]
  • ১৮২৯ : এশিয়াটিক সোসাইটি প্রথম দুই ভারতীয়কে সদস্যপদ দেন। এঁরা হলেন দ্বারকানাথ ঠাকুরপ্রসন্নকুমার ঠাকুর[৫]
  • ১৮৩০ : দ্বারকানাথ ঠাকুর, প্রসন্নকুমার ঠাকুর ও অন্যান্যরা একটি আইনি অছি নথির মাধ্যমে প্রথম ব্রাহ্ম উপাসনা মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।[৬] এই উপাসনা মন্দিরটি কলকাতার চিৎপুর (জোড়াসাঁকো) অঞ্চলে অবস্থিত ছিল। রামমোহন রায় ব্রিটেনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন।
  • ১৮৩৩ : ব্রিস্টলে রামমোহন রায়ের মৃত্যু ঘটে।
  • ১৮৩৯ :.৬ অক্টোবর দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর তত্ত্ববোধিনী সভা প্রতিষ্ঠা করেন।[৭]
  • ১৮৪৩ : তত্ত্ববোধিনী সভা ব্রাহ্মসভার সঙ্গে মিশে যায়।[৮] কলকাতা ব্রাহ্মসমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়। দ্বারকানাথ ঠাকুর রাজশক্তির বিরুদ্ধাচারণ করে গ্রেট ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে কোম্পানি স্থাপন করেন।[৯]
  • ১৮৫০ : দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর দুই খণ্ডে ব্রাহ্মধর্মঃ গ্রন্থটি প্রকাশ করেন। ব্রাহ্মধর্ম বেদের অভ্রান্ততা অস্বীকার করে হিন্দুধর্ম থেকে পৃথক হয়ে যায় এবং নতুন ধর্ম হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।
  • ১৮৫৫ : কেশবচন্দ্র সেন ব্রিটিশ ইন্ডিয়া সোসাইটি গঠন করেন। পরে তিনি জেমস লংচার্লস ডাল নামে দুই খ্রিস্টান মিশনারির সঙ্গে যুক্ত হন।[১০] ডাল ছিলেন একজন পর্যটক ইউনিটারিয়ান মিশনারি। তিনি বস্টনে ক্যারোলিন ওয়েলস হিলি ডাল নামে এক নারীবাদীর সঙ্গে বিবাহ-সংক্রান্ত সমস্যায় জড়িয়ে পড়ে মানসিক চাপের মধ্যে ছিলেন। পরে তিনি চিরকালের জন্য ভারতে চলে এসে তাঁর পত্নীকে ‘বস্টন বিবাহবিচ্ছেদ’ অনুমোদন করেন। তিনিই প্রথম ইউনিটারিয়ান মিশনারি যিনি বিদেশে ধর্মপ্রচার করেছিলেন।[১১]
  • ১৮৫৬ : দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর সিমলার পাহাড়ে যান।
  • .১৮৫৭ : দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ইউনিটারিয়ান প্রচারক চার্লস ডালকে জানান যে, ডালকে আর কলকাতা ব্রাহ্মসমাজে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না এবং “তিনিও সমাজে যিশুর নাম শুনবেন না।” ডাল তখন রামমোহন রায় সোসাইটি গঠন করে উদারপন্থী ব্রাহ্মদের দেবেন্দ্রনাথের কাছ থেকে সরিয়ে আনার উদ্যোগ নেন।[১২] কেশবচন্দ্র সেন কলকাতা ব্রাহ্মসমাজে যোগ দেন। দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর সেই সময় সিমলায় ছিলেন। সিপাহি বিদ্রোহ শুরু হয়। ব্রাহ্মসমাজের অছি পরিষদের প্রায় সকল সদস্য ব্রিটিশ রাজশক্তিকে সমর্থন করেন এবং বিদ্রোহীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
  • ১৮৬০ : চার্লস ডাল খোলাখুলি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরকে আক্রমণ করেন এবং থিওডোর পার্কার ও উইলিয়াম চ্যানিঙয়ের হিন্দুদের খ্রিস্টধর্মে দীক্ষিত করার পদ্ধতি অনুসারে উদারপন্থী ব্রাহ্ম নব্য-খ্রিস্টান গোষ্ঠীটিকে অনুমোদন করেন।[১২]
  • ১৮৬৬ : প্রগতিশীল বিচ্ছিন্ন গোষ্ঠীটির থেকে নিজেদের পৃথক করার জন্য ব্রাহ্মসমাজের প্রথম অংশ ও কলকাতা ব্রাহ্মসমাজের নাম হয় ‘আদি ব্রাহ্মসমাজ’।
  • ১৮৭১ : আদি ব্রাহ্মসমাজের নেতারা বিতর্কিত ‘ব্রাহ্ম বিবাহ বিল, ১৮৭১’-এর পরিপ্রেক্ষিতে খোলাখুলিভাবে প্রগতিশীল গোষ্ঠীটির বিরোধিতা করেন। দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেন, “আমরা প্রথমে ব্রাহ্ম, পরে ভারতীয় বা হিন্দু।”
  • ১৮৭২ : বিবাহ-সংক্রান্ত বিলটি বাহ্যিকভাবে ব্রাহ্মদের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ না করে ‘১৮৭২ সালের বিশেষ বিবাহ আইন (আইন তিন)’ হিসেবে পাস করা হয়। এই আইনে বলা হয় যে, এই আইনে বিয়ে করতে হলে ‘আমি হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান বা ইহুদি নই’ বলে ঘোষণা করা বাধ্যতামূলক। এর মাধ্যমে এটি একমাত্র ব্রাহ্মদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য করা হয়।
  • ১৮৭৮ : ব্রাহ্মসমাজের বিভক্ত অংশটি আবার ভেঙে যায়। এই অংশের অধিকাংশ সভ্য মধ্যপন্থী সাধারণ ব্রাহ্মসমাজ গঠন করেন। আদি ব্রাহ্মসমাজের দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও রাজনারায়ণ বসু তাঁদের আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাগত জানান। সাধারণ ব্রাহ্মসমাজের বিশিষ্ট নেতারা ছিলেন শিবনাথ শাস্ত্রী, আনন্দমোহন বসুশিবচন্দ্র দেব[১৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Chambers Dictionary Of World History. Editor BP Lenman. Chambers. 2000.
  2. Ahmed, AF Salahuddin (২০১২)। "Brahma Sabha"। in Islam, Sirajul; Jamal, Ahmed A.। Banglapedia: National Encyclopedia of Bangladesh (Second সংস্করণ)। Asiatic Society of Bangladesh 
  3. Official website http://brahmosamaj.org/ "In 1901 (Bhagwan Koer & Ors v J.C.Bose & Ors, 31 Cal 11, 30 ELR IA 249) the Privy Council (Britain's highest judicial authority) upholds the finding of the High Court of the Punjab that the vast majority of Brahmo religionists are not Hindus and have their own religion"
  4. 403 Forbidden
  5. Heritage Institute of India - article by Dr. Gautam Chatterjee
  6. brahmosamaj.org - Banian "Trust" Deed Chitpore Road Brahmo Sabha
  7. Mohanta, Sambaru Chandra (২০০৩)। "Tattvabodhini Sabha"। in Islam, Sirajul; Jamal, Ahmed A.। Banglapedia: National Encyclopedia of Bangladesh (First সংস্করণ)। Asiatic Society of Bangladesh। ৪ অক্টোবর ২০০৬-এ মূল থেকে আর্কাইভকৃত|archiveurl= |url= প্রয়োজন (সাহায্য) 
  8. http://www.nau.edu/cline/courses/Hay_-_Leaders_of_hindu_reform_and_revival_PDF.pdf
  9. http://www.ccsindia.org/lssreader/14lssreader.pdf
  10. Shivanath Shastri's Brahmo History (1911) p.114
  11. "Daughter of Boston: The Extraordinary Diary of Caroline Dall", by Helen Deese. p.xv"
  12. " Charles Dall
  13. Primary Source: History of Brahmo Samaj by Sivanath Sastri 1911, Secondary Source: Official website brahmosamaj.org

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]