মেঘনাদ সাহা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মেঘনাথ সাহা
Dr-Meghnad-Saha.jpg
মেঘনাথ সাহা
জন্ম (১৮৯৩-১০-০৬)৬ অক্টোবর ১৮৯৩
শহরতলী, ঢাকা, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু ১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৬(১৯৫৬-০২-১৬) (৬২ বছর)
দিল্লি, ভারত
বাসস্থান ভারত
জাতীয়তা ভারতীয়
কর্মক্ষেত্র পদার্থবিদ্যা এবং গণিত
প্রতিষ্ঠান এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়
ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন
ইন্ডিয়ান এ্যাসোসিয়েশন ফর দ্যা কাল্টিভেশন অব সায়েন্স
প্রাক্তন ছাত্র ঢাকা কলেজ
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচিতির কারণ থার্মাল আয়ানসেশন
সাহা আয়নিজেশন ইকুয়েশন

মেঘনাদ সাহা FRS (অক্টোবর ৬, ১৮৯৩ফেব্রুয়ারি ১৬, ১৯৫৬) ছিলেন একজন জ্যোতির্পদার্থবিজ্ঞানী যিনি পদার্থবিজ্ঞানে থার্মাল আয়নাইজেসন তত্ত্বের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে বিখ্যাত। তার আবিষ্কৃত সাহা আয়োনাইজেসন সমীকরণ নক্ষত্রের রাসায়নিক ও ভৌত ধর্মাবলী ব্যাখ্যায় ব্যবহৃত হয়।

জীবনী[সম্পাদনা]

বার্লিনে তরুণ মেঘনাদ সাহা।

মেঘনাদ সাহার জন্ম ১৮৯৩ সালের ৬ অক্টোবর ঢাকার কাছে শ্যাওড়াতলী গ্রামে। গরীব ঘরে জন্ম তার। বাবা জগন্নাথ সাহা ছিলেন মুদি। ছেলেবেলায় সাভারের অধরচন্দ্র উচ্চবিদ্যালয় এ পড়েন এক আত্মীয়ের বাড়িতে ঝুটা কাজের বিনিময়ে থেকে। অর্থাভাবে বহুপ্রতিকূলতার মাঝে তিনি ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে তার স্কুল শিক্ষা সম্পন্ন করেন এবং পরে ঢাকা কলেজে অধ্যায়ন করেন। তিনি কলকাতা প্রেসিডেন্সী কলেজে সত্যেন্দ্রনাথ বসুপ্রশান্ত চন্দ্র মহালনবিশের সহপাঠী এবং আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসুআচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায়ের ছাত্র ছিলেন। ধর্মীয় মতাদর্শে তিনি ছিলেন নাস্তিক[১][২]

গবেষণা[সম্পাদনা]

মেঘনাদ সাহার মূর্তি, রাজাবাজার বিজ্ঞান কলেজ

মেঘনাদ সাহা পরমাণু বিজ্ঞান, আয়ন মণ্ডল, পঞ্জিকা সংস্কার, বন্যা প্রতিরোধ ও নদী পরিকল্পনা বিষয়ে গবেষণা করেন। তাপীয় আয়নবাদ (Thermal Ionaisation) সংক্রান্ত তত্ত্ব উদ্ভাবন করে জ্যোতির্পদার্থবিজ্ঞানে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন। মেঘনাদ সাহা সম্পর্কে আলবার্ট আইনস্টাইনের উক্তি[৩]:

রচিত গ্রন্থাবলী[সম্পাদনা]

  • The Principle of Relativity
  • Treatise on Heat
  • Treatise on Modern Physics
  • Junior Textbook of Heat with Metereology

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৫৬ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. Santimay Chatterjee, Enakshi Chatterjee (১৯৮৪)। Meghnad Saha, scientist with a vision। National Book Trust, India। পৃ: ৫। "Even though he later came to be known as an atheist, Saha was well-versed in all religious texts— though his interest in them was purely academic." 
  2. Robert S. Anderson (২০১০)। Nucleus and Nation: Scientists, International Networks, and Power in India। University of Chicago Press। পৃ: ৬০২। আইএসবিএন 9780226019758। "a self-described atheist, saha loved swimming in the river and his devout wife loved the sanctity of the spot. swimming and walking were among the few things they could do together." 
  3. বাংলা একাডেমী চরিতাভিধান, দ্বিতীয় সংস্করণ আইএসবিএন ৯৮৪-০৭-৩৫১০-১

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]