সাতকানিয়া উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সাতকানিয়া
উপজেলা
সাতকানিয়া চট্টগ্রাম বিভাগ-এ অবস্থিত
সাতকানিয়া
সাতকানিয়া
সাতকানিয়া বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
সাতকানিয়া
সাতকানিয়া
বাংলাদেশে সাতকানিয়া উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৫′ উত্তর ৯২°৫′ পূর্ব / ২২.০৮৩° উত্তর ৯২.০৮৩° পূর্ব / 22.083; 92.083স্থানাঙ্ক: ২২°৫′ উত্তর ৯২°৫′ পূর্ব / ২২.০৮৩° উত্তর ৯২.০৮৩° পূর্ব / 22.083; 92.083 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলাচট্টগ্রাম জেলা
প্রতিষ্ঠাকাল১৯১৭
সংসদীয় আসন২৯১ চট্টগ্রাম-১৪ (আংশিক)
২৯২ চট্টগ্রাম-১৫ (আংশিক)
সরকার
 • সংসদ সদস্যনজরুল ইসলাম চৌধুরী (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ)
আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী (বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ)
আয়তন
 • মোট২৮২.৪০ বর্গকিমি (১০৯.০৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট৩,৮৪,৮০৬
 • জনঘনত্ব১,৪০০/বর্গকিমি (৩,৫০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬৭%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৪৩৮৬ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
২০ ১৫ ৮২
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

সাতকানিয়া বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার একটি উপজেলা। এই উপজেলা ব্যবসা কেন্দ্র হিসেবে সুপরিচিত।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলার আয়তন ২৮২.৪০ বর্গ কিলোমিটার। ২২°০১´ থেকে ২২°১৩´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°৫৭´ থেকে ৯২°১০´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ জুড়ে এ উপজেলার অবস্থান।[২] সাতকানিয়া উপজেলার উত্তরে চন্দনাইশ উপজেলা, উত্তর-পশ্চিমে আনোয়ারা উপজেলা, পশ্চিমে বাঁশখালী উপজেলা, দক্ষিণে লোহাগাড়া উপজেলা এবং পূর্বে বান্দরবান জেলার বান্দরবান সদর উপজেলা অবস্থিত । সমতল ভূমি, পাহাড় ও সাঙ্গু নদী ও ডলু নদী দ্বারা বেষ্টিত সাতকানিয়া উপজেলা চট্টগ্রাম জেলা সদর থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।[৩]

নামকরণ ও ইতিহাস[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ শাসনামলে প্রশাসনিক ও বিচার কাজের স্বার্থে এই এলাকায় আদালত ভবন স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে বর্তমানে অবস্থিত সাতকানিয়া-বাঁশখালী আদালত ভবনের নামে ৭ কানি ভূমি (২৮০ শতক) জনৈক পেঠান নামক এক জমিদার সরকারের অনুকূলে হস্তান্তর/দান করেন। তখন থেকে এ উপজেলার নামকরণ সাতকানিয়া হয় মর্মে জনশ্রুতি আছে। উল্লেখ্য ঐ সময় হতে বাঁশখালী, লোহাগাড়া ও সাতকানিয়া উপজেলা নিয়ে সাতকানিয়া সার্কেল নামে পরিচিত ছিল। সার্কেলকে আপগ্রেড করে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্যে পৃথক পৃথক উপজেলা সৃজনের মাধ্যমে ১৯৮৩ সালে সাতকানিয়া উপজেলা একটি স্বতন্ত্র উপজেলা হিসেবে পরিগণিত হয়[৪]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

১৯১৭ সালে সাতকানিয়া থানা গঠিত হয় এবং ১৯৮৩ সালে থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয়।[২] সাতকানিয়া উপজেলার আংশিক এলাকা চট্টগ্রাম-১৪চট্টগ্রাম-১৫ আসনের আওতাভুক্ত।

এ উপজেলা ১টি পৌরসভা, ১৭টি ইউনিয়ন, ৭৫টি গ্রাম ও ৭৩টি মৌজার সমন্বয়ে গঠিত।[৩] সম্পূর্ণ সাতকানিয়া উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম সাতকানিয়া থানার আওতাধীন।

পৌরসভা:
ইউনিয়নসমূহ:

[৫]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী সাতকানিয়া উপজেলার লোকসংখ্যা ৩,৮৪,৮০৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১,৯০,৯৪১ জন এবং মহিলা ১,৯৩,৮৬৫ জন। বাৎসরিক জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৭%। মোট জনসংখ্যার ৮৯% মুসলিম, ১০% হিন্দু এবং ১% বৌদ্ধ ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বী। এ উপজেলায় মগ আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বসবাস রয়েছে।[৩]

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলার সাক্ষরতার হার ৬৭%। এ উপজেলায় ৬টি কলেজ (১টি মহিলা কলেজ সহ), ১টি কামিল মাদ্রাসা, ৫টি ফাজিল মাদ্রাসা, ৫টি আলিম মাদ্রাসা, ২১টি দাখিল মাদ্রাসা, ৩৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় (৫টি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ), ৩টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১০৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৫টি রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৭টি কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৪টি কওমী মাদ্রাসা ও ৪৪টি কিন্ডারগার্টেন রয়েছে।[৩]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলায় ৩১ শয্যাবিশিষ্ট ১টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ৫টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র, ১৩টি পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র, ৬টি কমিউনিটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ১টি দাতব্য চিকিৎসালয় ও ৪টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে।[৩]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

প্রধান কৃষি ফসল

ধান, আলু, মরিচ, বেগুনটমেটো

শিল্প

আইস ফ্যাক্টরী (২৬টি), কাঠ শিল্প (১টি), চাল কল (১৯০টি), আটা কল (২০টি) এবং কল ঢালাই (৩৫টি)

কুটিরশিল্প

বাঁশের (১৭৬৪টি), সেলাই (৫০০টি), পাট কাজ (৩০০টি), কাঠের কাজ (২৫৩টি), স্বর্ণকার (১৮০টি), কুমার (১৭৭টি), কামার (১৪৫টি), বয়ন (১৩১টি), কারচুপি কাজ (২৫টি), উলের কাজ (২০টি), থ্রেড (৩০টি), নকশী কণ্ঠ, মাছ ধরার জাল বুনন ইত্যাদি

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলায় যোগাযোগের প্রধান সড়ক চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক। এছাড়া এ উপজেলায় ১১০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা, ১৩৪ কিলোমিটার আধা পাকা রাস্তা, ৪৫৩ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা ও ৩৯ নটিক্যাল মাইল নৌপথ রয়েছে।[৩]

ধর্মীয় উপাসনালয়[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলায় ১০২৫টি মসজিদ, ১৮টি মাজার/দরগাহ, ৬১টি মন্দির ও ৮টি বৌদ্ধ বিহার রয়েছে।[২]

নদ-নদী[সম্পাদনা]

সাতকানিয়া উপজেলার উত্তর সীমান্ত দিয়ে বয়ে চলেছে সাঙ্গু নদী[২] এছাড়া রয়েছে ডলু নদী সহ আরো ৮টি ছোট-বড় নদী ও খাল৷

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

দর্শনীয় স্থানসমূহ হলো
[৬]
  • বায়তুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার
  • হলুদিয়া প্রান্তিক লেক
  • আলিশা ডেসটিনি প্রজেক্ট
  • কেঁওচিয়া বন গবেষণা প্রকল্প
  • চরতী বেলগাঁও চা বাগান
  • দরবারে আলিয়া গারাংগিয়া
  • সাঙ্গু নদীর পাড় ও বৈতরণী-শীলঘাটার পাহাড়ী এলাকা
  • আমিলাইশ বিল ও চরাঞ্চল
  • মাহালিয়া জলাশয়
  • সত্যপীরের দরগাহ
  • ন্যাচারাল পার্ক
  • দারোগা মসজিদ ও ঠাকুর দীঘি
  • ডলু খাল
  • আনিস বাড়ী জামে মসজিদ
  • তালতল নলুয়া রোড
  • মির্জাখীল দরবার শরীফ
  • সোনাকানিয়া মঞ্জিলের দরগাহ
  • মাঝের মসজিদ
  • মক্কার বলীখেলা এর মাঠ
  • কাজীর জামে মসজিদ
  • রিল্যাক্স পার্ক
প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ[২]
  • দারোগা মসজিদ (সাতকানিয়া) (পঞ্চদশ শতাব্দী)
  • ডেপুটি মসজিদ (সোনাকানিয়া) (পঞ্চদশ শতাব্দী)
  • মূর্তি সম্বলিত মুদ্রা ও ঠাকুর দীঘি (সাতকানিয়া) (ত্রয়োদশ শতাব্দী)
  • কোতওয়াল দীঘি (সোনাকানিয়া) (ত্রয়োদশ শতাব্দী)
  • শিবমন্দির (ঢেমশা)
  • বোমং হাট গির্জা (বাজালিয়া)
  • হিন্দুপাড়া মন্দির (কাঞ্চনা)
  • আকবরবাড়ী জামে মসজিদ (১৬৮০সাল)

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী[সম্পাদনা]

  • আশার প্রতীক
  • মাসিক সাতকানিয়া লোহাগাড়া বার্তা
  • সাপ্তাহিক মাইনী
  • সাপ্তাহিক পূর্ববাংলা[২]

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালে যুদ্ধের মাধ্যমে চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থান হানাদার মুক্ত হয়েছিল। এরই ধারাবাহিকতায় সাতকানিয়া উপজেলাও পাক হানাদার মুক্ত হয়। সেই যুদ্ধে সাতকানিয়ার ১৭৯জন বীর মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে শহীদ হয়েছিলেন সাতকানিয়ার ২১ জন বীর সন্তান।[৭] ১৯৭১ সালের ৮ আগস্ট পাকিস্তানিরা সাতকানিয়া বাজার ও সতীপাড়া থেকে ১৭ জন নিরীহ লোককে ধরে নিয়ে হত্যা করে এবং দক্ষিণ সাতকানিয়ার বণিকপাড়ায় লুটপাট করে এবং বেশকিছু বাড়িঘরে অগ্নি সংযোগ করে। পরবর্তীতে পাকবাহিনী ২৪ জন নিরীহ লোককে হত্যা করে।[২]

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন

মুক্তিযুদ্ধের স্মরণে সাতকানিয়ায় স্থাপিত হয়েছে একটি স্মৃতিফলক।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

সংসদীয় আসন
সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৮] সংসদ সদস্য[৯][১০][১১][১২][১৩] রাজনৈতিক দল
২৯১ চট্টগ্রাম-১৪ চন্দনাইশ উপজেলা ও সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়া, কেঁওচিয়া, কালিয়াইশ, ধর্মপুর, বাজালিয়াপুরানগড় ইউনিয়ন নজরুল ইসলাম চৌধুরী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
২৯২ চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া উপজেলার চরতী, নলুয়া, কাঞ্চনা, আমিলাইশ, এওচিয়া, মাদার্শা, ঢেমশা, পশ্চিম ঢেমশা, ছদাহা, সাতকানিয়াসোনাকানিয়া ইউনিয়ন এবং লোহাগাড়া উপজেলা আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন
ক্রম নং পদবী নাম
০১ উপজেলা চেয়ারম্যান[১৪] এম. এ মোতালেব
০২ ভাইস চেয়ারম্যান[১৫] সালাহউদ্দিন হাসান চৌধুরী
০৩ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান[১৬] আনজুমানা আরা
০৪ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা[১৭] মোঃ আব্দুস সালাম চৌধুরী

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "এক নজরে সাতকানিয়া"satkania.chittagong.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  2. "সাতকানিয়া উপজেলা - বাংলাপিডিয়া"bn.banglapedia.org 
  3. "এক নজরে সাতকানিয়া - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  4. "সাতকানিয়া উপজেলার পটভূমি - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  5. "ইউনিয়নসমূহ - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  6. "দর্শনীয়স্থান - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  7. "মুক্তিযুদ্ধে সাতকানিয়া"। বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। 
  8. "Election Commission Bangladesh - Home page"www.ecs.org.bd 
  9. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  10. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  11. "একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল"প্রথম আলো। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  12. "জয় পেলেন যারা"দৈনিক আমাদের সময়। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  13. "আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  14. "এম. এ মোতালেব - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  15. "সালাহউদ্দিন হাসান চৌধুরী - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  16. "আনজুমান আরা - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 
  17. "উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা - সাতকানিয়া উপজেলা - সাতকানিয়া উপজেলা"satkania.chittagong.gov.bd 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]