কাউখালী উপজেলা, রাঙ্গামাটি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কাউখালী
উপজেলা
কাউখালী বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
কাউখালী
কাউখালী
বাংলাদেশে কাউখালী উপজেলা, রাঙ্গামাটির অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৩২′৩″ উত্তর ৯২°০′৫১″ পূর্ব / ২২.৫৩৪১৭° উত্তর ৯২.০১৪১৭° পূর্ব / 22.53417; 92.01417স্থানাঙ্ক: ২২°৩২′৩″ উত্তর ৯২°০′৫১″ পূর্ব / ২২.৫৩৪১৭° উত্তর ৯২.০১৪১৭° পূর্ব / 22.53417; 92.01417 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলারাঙ্গামাটি জেলা
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৭৬
সংসদীয় আসন২৯৯ পার্বত্য রাঙ্গামাটি
সরকার
 • সংসদ সদস্যঊষাতন তালুকদার (স্বতন্ত্র)
আয়তন
 • মোট৩৩৯.২৯ কিমি (১৩১.০০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট৫৯,২৭৮
 • ঘনত্ব১৭০/কিমি (৪৫০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট৩৮.৯০%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৪৫১০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

কাউখালী বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা

আয়তন[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলার মোট আয়তন ৩৩৯.২৯ বর্গ কিলোমিটার।[২]

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

রাঙ্গামাটি জেলার সর্ব-পশ্চিমে ২২°২৯´ থেকে ২২°৪৪´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°৫৬´ থেকে ৯২°০৮´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ জুড়ে কাউখালী উপজেলার অবস্থান।[২] রাঙ্গামাটি জেলা সদর থেকে এ উপজেলার দূরত্ব প্রায় ৩৩ কিলোমিটার।[১] এ উপজেলার পূর্বে নানিয়ারচর উপজেলা, রাঙ্গামাটি সদর উপজেলাচট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলা; দক্ষিণে কাপ্তাই উপজেলাচট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলা; পশ্চিমে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান উপজেলাফটিকছড়ি উপজেলা এবং উত্তরে খাগড়াছড়ি জেলার লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা অবস্থিত।

নামকরণ[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলার নামকরণের উৎপত্তি সুনির্দিষ্টভাবে তেমন জানা না গেলেও সাধারণ মানুষের প্রচলিত বিশ্বাস এই যে, অতীতে এলাকার লোকজন অনেক স্থানে কুয়া বা গর্ত খনন করে সেই পানি খাবার ও অন্যান্য কাজে ব্যবহার করত। এ কুয়া বা গর্তের স্থানীয় নাম কাউ। শুষ্ক মৌসুমে ঐ কুয়া অনেক সময় পানিশূণ্য হয়ে যেত যার স্থানীয় নাম খালি। পরবর্তীতে উল্লেখিত শব্দ দুটির সমন্বয়ে উপজেলার নামকরণ হয় কাউখালী[৩]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

১৯৭৬ সালে কাউখালী থানা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৯৮৩ সালে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের ফলে কাউখালী উপজেলায় রূপান্তরিত হয়।[২] এ উপজেলায় ৪টি ইউনিয়ন রয়েছে। সম্পূর্ণ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম কাউখালী থানার আওতাধীন।

ইউনিয়নসমূহ:

[৪]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী কাউখালী উপজেলার জনসংখ্যা ৫৯,২৭৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৩০,২৯৫ জন এবং মহিলা ২৮,৯৮৩ জন।[১] মোট জনসংখ্যার ৩৫.৬৬% মুসলিম, ৩.৩৩% হিন্দু, ৬০.৫৩% বৌদ্ধ এবং ০.৪৮% খ্রিস্টান ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বী রয়েছে। এ উপজেলায় চাকমা, মারমা, তঞ্চঙ্গ্যা, ত্রিপুরা প্রভৃতি আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বসবাস রয়েছে।[২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলার স্বাক্ষরতার হার ৩৮.৯০%।[২] এ উপজেলায় ৩টি কলেজ, ৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩টি দাখিল মাদ্রাসা, ৫টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৫৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৪টি এবতেদায়ী মাদ্রাসা রয়েছে।[১]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলায় যোগাযোগের প্রধান সড়ক চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি মহাসড়ক। সব ধরণের যানবাহনে যোগাযোগ করা যায়।

নদ-নদী[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে কাউখালী খাল।[৫]

হাট-বাজার[সম্পাদনা]

কাউখালী উপজেলায় ৪টি হাট-বাজার রয়েছে। এগুলো হল কাউখালী বাজার, ঘাগড়া বাজার, চাইঞুরী বাজার এবং বার্মাছড়ি বাজার।[৬]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  • বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র
  • ঘাগড়া প্রাকৃতিক ঝর্ণা
  • পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুল
  • রাঙ্গামাটি ফুড প্রোডাক্টস

[৭]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  • চাইথোয়াই রোয়াজা (১৯৩০-১৯৯৪)
  • চিংকিউ রোয়াজা (১৯৫৬-)

[৮]

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলী[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালের ৯ ডিসেম্বর কাউখালী উপজেলার অন্তর্গত বেতবুনিয়া ও বালুখালীতে পাকবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখ লড়াইয়ে ২ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ১১ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বেতবুনিয়াস্থ চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কে কালভার্টের উপর পাকবাহিনীর জীপ গাড়িতে আক্রমণ চালায়। এতে গাড়ির ড্রাইভারসহ ২ জন পাক অফিসারের মৃত্যু ঘটে।[২]

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন
  • মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য ১ (ঘাগড়া)[২]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

সংসদীয় আসন
সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৯] সংসদ সদস্য[১০] রাজনৈতিক দল
২৯৯ পার্বত্য রাঙ্গামাটি রাঙ্গামাটি জেলা ঊষাতন তালুকদার স্বতন্ত্র
উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন
ক্রম নং পদবী নাম
০১ উপজেলা চেয়ারম্যান[১১] এস এম চৌধুরী
০২ ভাইস চেয়ারম্যান[১২] মংসুইউ চৌধুরী
০৩ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান[১৩] এ্যানি চাকমা কৃপা
০৪ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা[১৪] স্নেহাশীষ দাশ

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]