চন্দনাইশ পৌরসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চন্দনাইশ
পৌরসভা
চন্দনাইশ পৌরসভা
চন্দনাইশ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
চন্দনাইশ
চন্দনাইশ
বাংলাদেশে চন্দনাইশ পৌরসভার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°১১′৫৭″ উত্তর ৯২°০′২৮″ পূর্ব / ২২.১৯৯১৭° উত্তর ৯২.০০৭৭৮° পূর্ব / 22.19917; 92.00778স্থানাঙ্ক: ২২°১১′৫৭″ উত্তর ৯২°০′২৮″ পূর্ব / ২২.১৯৯১৭° উত্তর ৯২.০০৭৭৮° পূর্ব / 22.19917; 92.00778 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলাচট্টগ্রাম জেলা
উপজেলাচন্দনাইশ উপজেলা
সরকার
 • পৌর মেয়রমাহবুবুর রহমান খোকা
আয়তন
 • মোট১৭.০৮ বর্গকিমি (৬.৫৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৩৫,২৪৮
 • জনঘনত্ব২,১০০/বর্গকিমি (৫,৩০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬১.৪%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৪৩৮০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

চন্দনাইশ পৌরসভা বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার একটি পৌরসভা

আয়তন[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভার আয়তন ১৭.০৮ বর্গ কিলোমিটার।[১]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী চন্দনাইশ পৌরসভার মোট জনসংখ্যা ৩৫,২৪৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৭,০১৪ জন এবং মহিলা ১৮,২৩৪ জন। মোট পরিবার ৬,৮৫২টি।[২]

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ উপজেলার মধ্য-পশ্চিমাংশে চন্দনাইশ পৌরসভার অবস্থান। চট্টগ্রাম জেলা সদর থেকে এ পৌরসভার দূরত্ব ৩৫ কিলোমিটার।[১] এর উত্তরে কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়ন, জোয়ারা ইউনিয়নবরকল ইউনিয়ন; পশ্চিমে বরকল ইউনিয়নবরমা ইউনিয়ন; দক্ষিণে বরমা ইউনিয়নসাতবাড়িয়া ইউনিয়ন এবং পূর্বে সাতবাড়িয়া ইউনিয়নহাশিমপুর ইউনিয়ন অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ উপজেলার প্রাণকেন্দ্র চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরাকান সড়কের পাদদেশে ১৭.০৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে ২০০২ সালে চন্দনাইশ পৌরসভা গঠিত হয়। গাছবাড়িয়া, চন্দনাইশ, হারলা ও জোয়ারা মৌজাসমূহকে ৯টি ওয়ার্ডে বিভক্ত করা হয়। এটি একটি শ্রেণীর পৌরসভা। এ পৌরসভার প্রশাসনিক কার্যক্রম চন্দনাইশ থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ২৯১নং নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রাম-১৪ এর অংশ।

ওয়ার্ডভিত্তিক এ পৌরসভার এলাকাসমূহ হল:

ওয়ার্ড নং এলাকা/মহল্লার নাম
১নং ওয়ার্ড উত্তর গাছবাড়িয়া
২নং ওয়ার্ড পূর্ব চন্দনাইশ দীঘিরপাড়া
৩নং ওয়ার্ড পশ্চিম হারলা
৪নং ওয়ার্ড মধ্য হাশিমপুর
৫নং ওয়ার্ড দক্ষিণ হারলা
৬নং ওয়ার্ড দক্ষিণ জোয়ারা
৭নং ওয়ার্ড পূর্ব চন্দনাইশ
৮নং ওয়ার্ড দক্ষিণ গাছবাড়িয়া
৯নং ওয়ার্ড গাছবাড়িয়া

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী চন্দনাইশ পৌরসভার সাক্ষরতার হার ৬১.৪%।[২] এখানে ২টি কলেজ, ৩টি মাদ্রাসা, ৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।[১]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

কলেজ
মাদ্রাসা
মাধ্যমিক বিদ্যালয়
প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • উত্তর গাছবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • গাছবাড়িয়া বণিকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • গাছবাড়িয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • চন্দনাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • জোয়ারা বাণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ গাছবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ জোয়ারা বীরেন্দ্র লাল বড়ুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ জোয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ জোয়ারা জিহস ফকিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ পূর্ব জোয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দক্ষিণ হারলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • পশ্চিম হারলা নবী কুলছুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • পশ্চিম হারলা শচীন্দ্র সিকদার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • পূর্ব চন্দনাইশ দীঘিরপাড়া রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • পূর্ব চন্দনাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • মধ্য হাশিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • হারলা সমবায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভায় ১টি সরকারি হাসপাতাল রয়েছে।[১]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভায় যোগাযোগের প্রধান সড়ক আরাকান সড়ক (চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক)। সব ধরনের যানবাহনে যোগাযোগ করা যায়।

ধর্মীয় উপাসনালয়[সম্পাদনা]

চন্দনাই পৌরসভায় ৫১টি মসজিদ, ১৮টি মন্দির, ৩টি বিহার এবং ১টি গীর্জা রয়েছে।[১]

হাট-বাজার[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভার প্রধান প্রধান হাট/বাজারগুলো হল বাগিচা হাট, গাছবাড়িয়া খানহাট, নয়াহাট, খানহাট দৈনিক বাজার এবং চন্দনাইশ দৈনিক বাজার।[১]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভার দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে:[১]

  • কাঞ্চননগরস্থ চা বাগান ও পেয়ারা বাগান
  • খান দীঘি
  • খান জামে মসজিদ (বাগিচাহাট)
  • শাহ মাহছুম ফকির (রহ.) মাজার শরীফের পুকুরের গদালী

কৃতি ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

চন্দনাইশ পৌরসভার উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিগণের মধ্যে রয়েছেন:[১]

  • অলি আহমেদ –– বীর বিক্রম খেতাব প্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও রাজনীতিবিদ।
  • আবদুল করিম –– বীর বিক্রম খেতাব প্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা।
  • আহমদ ছফা –– কবি ও সাহিত্যিক।
  • ডাঃ নুরুল ইসলাম –– প্রাক্তন জাতীয় অধ্যাপক।
  • মীর মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন শিবলী –– উপ-পরিচালক, দুদক।
  • মির ইয়াসিন ঠাকুর এবং তার পুত্র হালিম ঠাকুর, মগদের রাজত্বকালে এই স্থানে আগমন করেন। সম্ভবত তিনিই প্রথম মুসলমান যিনি এ স্থানে আগমন করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

  • বর্তমান পৌর মেয়র: মাহবুবুর রহমান খোকা[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]