নানিয়ারচর উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
নানিয়ারচর
উপজেলা
নানিয়ারচর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
নানিয়ারচর
নানিয়ারচর
বাংলাদেশে নানিয়ারচর উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৫১′৩৯″ উত্তর ৯২°৬′৫৭″ পূর্ব / ২২.৮৬০৮৩° উত্তর ৯২.১১৫৮৩° পূর্ব / 22.86083; 92.11583স্থানাঙ্ক: ২২°৫১′৩৯″ উত্তর ৯২°৬′৫৭″ পূর্ব / ২২.৮৬০৮৩° উত্তর ৯২.১১৫৮৩° পূর্ব / 22.86083; 92.11583 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগ
জেলা রাঙ্গামাটি জেলা
প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৭৯
সংসদীয় আসন ২৯৯ পার্বত্য রাঙ্গামাটি
সরকার
 • সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার (স্বতন্ত্র)
আয়তন
 • মোট ৩৯৩.৬৮ কিমি (১৫২.০০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট ৪২,৯৬৫
 • ঘনত্ব ১১০/কিমি (২৮০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৩৮.৪০%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড ৪৫২০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

নানিয়ারচর বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা

আয়তন[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলার মোট আয়তন ৩৯৩.৬৮ বর্গ কিলোমিটার।[২]

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

রাঙ্গামাটি জেলার পশ্চিমাংশে ২২°৪৩´ থেকে ২২°৫৭´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯২°০২´ থেকে ৯২°১১´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ জুড়ে নানিয়ারচর উপজেলার অবস্থান।[২] রাঙ্গামাটি জেলা সদর থেকে এ উপজেলার দূরত্ব প্রায় ৪৫ কিলোমিটার।[১] এ উপজেলার পূর্বে লংগদু উপজেলা, দক্ষিণে রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা, পশ্চিমে কাউখালী উপজেলাখাগড়াছড়ি জেলার লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা এবং উত্তরে খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি উপজেলা অবস্থিত।

নামকরণ[সম্পাদনা]

উচ্চ ব্রক্ষ্মের রাজা অরুণ যুগের পতনের পর আরাকানদের কর্তৃক নিপীড়িত ও অত্যাচারিত হয়ে চাকমারা ১৪১৮ খ্রিষ্টাব্দে তৈনছড়ি নদীকূলে মাত্র ১২টি গ্রামে বসতি স্থাপন করে। কিন্তু পরে ঐসব এলাকায় মগ ও পর্তুগীজদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পেয়ে ষোড়শ শতাব্দীতে তারা পার্বত্য চট্টগ্রামের গভীর অরণ্যে বসতি স্থাপন করে। কিংবদন্তি আছে যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে বসতি স্থাপনকারী নান্যা নামের একব্যক্তি চেঙ্গী নদী বিধৌত চরের সত্ত্বাধিকারী ছিলেন বিধায় তার নামের সাথে সমন্বয় রেখে নান্যারচর নামকরণ করা হয়, যা বর্তমানে নানিয়ারচর নামে রুপান্তরিত হয়েছে।[১]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

১৯৭৯ সালে নানিয়ারচর থানা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৯৮৩ সালে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের ফলে নানিয়ারচর উপজেলায় রূপান্তরিত হয়।[২] এ উপজেলায় ৪টি ইউনিয়ন রয়েছে। সম্পূর্ণ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম নানিয়ারচর থানার আওতাধীন।

ইউনিয়নসমূহ:

[১]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী নানিয়ারচর উপজেলার জনসংখ্যা ৪২,৯৬৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২২,১৩০ জন এবং মহিলা ২০,৮৩৫ জন।[১] মোট জনসংখ্যার ১৪.৬৫% মুসলিম, ২.৪৬% হিন্দু, ৮১.৮৭% বৌদ্ধ এবং ১.০২% খ্রিস্টান ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বী রয়েছে। এ উপজেলায় চাকমা ও মারমা আদিবাসী জনগোষ্ঠীর আধিক্য রয়েছে।[২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলার স্বাক্ষরতার হার ৩৮.৪০%।[২] এ উপজেলায় ১টি কলেজ, ৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১টি দাখিল মাদ্রাসা, ৮টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১টি এবতেদায়ী মাদ্রাসা রয়েছে।[১]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলায় যোগাযোগের প্রধান সড়ক রাঙ্গামাটি-মহালছড়ি সড়ক এবং লংগদু-নানিয়ারচর সড়ক। প্রধান যোগাযোগ মাধ্যম সিএনজি চালিত অটোরিক্সা। এছাড়া এ উপজেলায় যোগাযোগের অন্যতম প্রধান মাধ্যম নৌপথ। রাঙ্গামাটি থেকে কাপ্তাই হ্রদের উপর দিয়ে বিভিন্ন নৌযান যোগে এ উপজেলায় যাওয়া যায়।

নদ-নদী[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলার মধ্য দিয়ে চেঙ্গি নদী প্রবাহিত হয়ে কাপ্তাই হ্রদে পতিত হয়েছে।[৩] এ উপজেলার প্রায় এক পঞ্চমাংশ জুড়ে কাপ্তাই হ্রদের অংশবিশেষ অবস্থিত।[২]

হাট-বাজার[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলায় ৬টি হাট-বাজার রয়েছে। এগুলো হল বাকছড়ি ছানার বাজার, বগাছড়ি বন্ধু বাজার, টিএন্ডটি বাজার, নানিয়ারচর বাজার, ঘিলাছড়ি বাজার এবং ইসলামপুর বউ বাজার।[৪]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  • বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতিসৌধ
  • রত্নাঙ্কুর বৌদ্ধ বিহার

[৫][৬]

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলী[সম্পাদনা]

নানিয়ারচর উপজেলার বুড়িঘাট ইউনিয়নের কদমতলী গ্রামে পাকবাহিনীর সাথে মুক্তিবাহিনীর সংঘর্ষে অনেক লোক হতাহত হয়। ১৯৭১ সালে পাকবাহিনীর সাথে সম্মুখ লড়াইয়ে মুক্তিবাহিনীর ল্যান্স নায়েক বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ শাহাদাত বরণ করেন।[২]

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন
  • বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতিসৌধ[২]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

সংসদীয় আসন
সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৭] সংসদ সদস্য[৮] রাজনৈতিক দল
২৯৯ পার্বত্য রাঙ্গামাটি রাঙ্গামাটি জেলা ঊষাতন তালুকদার স্বতন্ত্র
উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন
ক্রম নং পদবী নাম
০১ উপজেলা চেয়ারম্যান[৯] এডভোকেট শক্তিমান চাকমা
০২ ভাইস চেয়ারম্যান[১০] রণ বিকাশ চাকমা
০৩ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান[১০] কোয়ালিটি চাকমা
০৪ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা[১১] মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন তালুকদার

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]