বাঘাইছড়ি উপজেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
বাঘাইছড়ি
উপজেলা
বাঘাইছড়ি বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
বাঘাইছড়ি
বাঘাইছড়ি
বাংলাদেশে বাঘাইছড়ি উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°৯′১৬″ উত্তর ৯২°১১′১৭″ পূর্ব / ২৩.১৫৪৪৪° উত্তর ৯২.১৮৮০৬° পূর্ব / 23.15444; 92.18806স্থানাঙ্ক: ২৩°৯′১৬″ উত্তর ৯২°১১′১৭″ পূর্ব / ২৩.১৫৪৪৪° উত্তর ৯২.১৮৮০৬° পূর্ব / 23.15444; 92.18806 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগ
জেলা রাঙ্গামাটি জেলা
সংসদীয় আসন ২৯৯ তম রাঙ্গামাটি পার্বত্য সংসদ আসন
সরকার
 • সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার (স্বতন্ত্র)
আয়তন
 • মোট ১৯৩১.২৮ কিমি (৭৪৫.৬৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট ৯৪,৩৮০
 • ঘনত্ব ৪৯/কিমি (১৩০/বর্গমাইল)
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৭০%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড ৪৫৯০
ওয়েবসাইট প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

বাঘাইছড়ি উপজেলা বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

এর উত্তরে ভারতের ত্রিপুরামিজোরাম রাজ্য, দক্ষিণে লংগদু উপজেলা, পূর্বে ভারতের মিজোরাম রাজ্য, পশ্চিমে খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলা অবস্থিত।

আয়তন: ১৯৩১.২৮ বর্গ কি:মি:(৭৪৫.৬৭ বর্গ মাইল)

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাঘাইছড়ি আয়তনে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম উপজেলা। এখানে বাংলাদেশের প্রকৃতিক সৌন্দর্যময় পর্যটন সাজেক অবস্থিত। এই এলাকার লোকজন শান্ত,ও খোশ গল্প প্রিয়। এখানে কৃষি, জেলে,কামার, বিভিন্ন ব্যবসায়ী এবং বহু পেশার লোক বসবাস করে। পাবর্ত্য এলাকা হলেও এখানে বসতি এলাকা বেশির ভাগই সমতল।যার কারণে সমতল ভুমি কৃষিরা চাষাবাদ করে। পাশ দিয়ে কাচালং নদী বয়ে যাওয়ার কারণে প্রতি বছর কিছু লোককে বন্যার যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়।বাঘাইছড়ি উপজেলা এলাকা পূর্বে রিজার্ভ ফরেষ্ট ছিল। এর অধিকাংশ এলাকা কাচালং ও মাচালং নামে পরিচিত। ১৯৬০ সালে কাপ্তাই জলবিদ্যুত এর বাধেঁর কাজ শেষ হওয়ার পর রাঙ্গামাটি শহরের আশে পাশের নীচু অংশের এবং রাঙ্গামাটি ,বরকল,লংগদু,বিলাইছড়ি,জুরাছড়ি,নানিয়ারচর এবং কাপ্তাই এ ৭ টি এলাকার অধিবাসিবৃন্দকে পাকিস্তান সরকার কাচালং নদীর দুই পাশে তাদের অনিচ্ছা সত্ত্বেও কাচালং এলাকায় পূনর্বাসিত করে। সে কারণে ১৯৬৩ সালে প্রায় ১০,০০০ চাকমা অধিবাসি ভারতের বিভিন্ন অংশে চলে যায়। বাঘাইছড়ি এলাকা পূর্বে রামগড় মহকুমার দীঘিনালা থানার অধীনে ছিল। অত্র এলাকার অধিবাসীদের পায়ে হেঁটে দীঘিনালা যাওয়া-আসা অনেক কঠিন এবং সময় সাপেক্ষ হওয়াতে ১৯৬৮ সালের ৮ ই আগষ্ট রাঙ্গামাটি সদর মহকুমার আওতায় বাঘাইছড়ি থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীকালে ১৯৮৩ সালের ২৪ শে মার্চ তারিখে এ থানাকে উপজেলায় উন্নীত করা হয়। এ উপজেলার কাচালং এলাকা গভীর অরণ্যে ঢাকা ছিলো বলে এখানে বাঘের উপদ্রব বেশি ছিল। সে সাথে এ উপজেলায় বিভিন্ন পাহাড়ী ছড়া থাকায় এর নামকরণ করা হয় বাঘাইছড়ি।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

১টি পৌরসভা "বাঘাইছড়ি" ও ৮টি ইউনিয়ন "মারিশ্যা,রুপকারি,বাঘাইছড়ি,সারোয়াতলি,আমতলি,খেদারমারা,বঙ্গলতলি ও সাজেক।"

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

মোট জনসংখ্যা ৯৪,৩৮০ জন। জনসংখ্যার ঘনত্ব ৪৯/বর্গ কি:মি:(১৩০/বর্গমাইল)

শিক্ষা[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

এই উপজেলায় সাধারণত নদী ও সড়ক উভয় পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। প্রধান যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যম বাস। যা ঢাকা শহরের সাথে সংযোগ সাকুল্য।বর্তমানে মারিশ্যা সড়ক হতে দিঘিনালা, খাগড়াছড়ি হয়ে ফেনী হয়ে ঢাকার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া ও কাচালং নদী পথ হয়ে রাঙ্গামাটি শহর হয়ে ও ঢাকা এবং বিভাগীয় শহরে যাওয়া যায়।

বাজার[সম্পাদনা]

বাঘাইছড়ি উপজেলায় মোট ০৪ টি সাপ্তাহিক বাজার রয়েছে। যথা ঃ ১) মারিশ্যা বাজার ২) দুরছড়ি বাজার ৩) করেঙ্গাতলী বাজার ৪) বাঘাইহাট বাজার।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "এক নজরে বাঘাইছড়ি"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। জুন, ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ : ৫ জুলাই ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]