বাংলা ভাষাভাষী অনুযায়ী ভারতের রাজ্যসমূহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

নিচের তালিকাটি বাংলা-ভাষী জনসংখ্যা অনুযায়ী ভারতীয় রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির তালিকা।

২০১১[১][সম্পাদনা]

শতকরা হার অনুযায়ী ক্রম রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বাংলা-ভাষী জনসংখ্যার শতকরা হার বাংলাভাষীর সংখ্যা জনসংখ্যা অনুযায়ী ক্রম
পশ্চিমবঙ্গ ৮৬.২২% ৭৮৬৯৮৮৫২, চাকমা-১৭৫, হাজং-১৩ ১ম
ত্রিপুরা ৬৫.৭৩% ২৪১৪৭৭৪, চাকমা-৮৪২৬৯, হাজং-৮ ৪র্থ
অসম ২৮.৯২% ৯০২৪৩২৪, চাকমা-৩১৬৬, হাজং-২৭৫২১ ২য়
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ২৮.৪৯% ১০৮৪৩২ ১৪তম
মিজোরাম ৯.৮৩% ১০৭৮৪০, চাকমা-৯২৮৫০, হাজং-১ ১৫তম
ঝাড়খণ্ড ৯.৭৩% ৩২১৩৪২৩, চাকমা-৩, হাজং-১ ৩য়
মেঘালয় ৭.৮৪% ২৩২৫২৫, চাকমা-১৫৯, হাজং-৪১৪১৪ ১০ম
অরুণাচল প্রদেশ ৭.২৭% ১০০৫৭৯, চাকমা-৪৭০৭৩, হাজং-২৭১১ ১৬তম
নাগাল্যান্ড ৩.৭৮% ৭৪৭৫৩, চাকমা-১৫৬, হাজং-২ ২০তম
১০ দমন ও দিউ ২.১৫% ৫২৩২ ৩৩তম
১১ উত্তরাখণ্ড ১.৫০% ১৫০৯৩৩, চাকমা-৯ ১২তম
১২ দিল্লী ১.২৯% ২১৫৯৬০, চাকমা-১০৩, হাজং-৬ ১১তম
১৩ ওড়িশা ১.২০% ৫০৪৫৭০, চাকমা-৫, হাজং-১ ৬ষ্ঠ
১৪ সিক্কিম ১.১৪% ৬৯৮৬, চাকমা-২, হাজং-৫১ ৩০তম
১৫ মণিপুর ১.০৭% ৩০৬১১, চাকমা-৩১, হাজং-৭ ২৩তম
১৬ ছত্তীসগঢ় ০.৯৫% ২৪৩৫৯৭, চাকমা-৭, হাজং-৪ ৮ম
১৭ দাদরা ও নগর হাভেলি ০.৯১% ৩১১৬, চাকমা-৪ ৩৪তম
১৮ বিহার ০.৭৮% ৮১০৭৭১, চাকমা-১৮ ৫ম
১৯ চণ্ডীগড় ০.৫৯% ৬২৩৬, চাকমা-৫ ৩১তম
২০ গোয়া ০.৪৯% ৭০৯৯ ২৯তম
২১ লাদাখ ০.৪২% ১১৪৬ ৩৭তম
২২ মহারাষ্ট্র ০.৩৯% ৪৪২০৯০, চাকমা-৪৬, হাজং-৫ ৭ম
২৩ হরিয়ানা ০.২৮% ৭০৯৪৮, চাকমা-৭ ২১তম
২৪ লাক্ষাদ্বীপ ০.২২% ১৫০৯ ৩৫তম
২৫ জম্মু ও কাশ্মীর ০.১৫% ১৮৬৮৪, চাকমা-১২, হাজং-৪ ২৭তম
২৬ মধ্য প্রদেশ ০.১৫% ১০৯১৮৫, চাকমা-৬ ১৩তম
২৭ কর্ণাটক ০.১৪% ৮৭৯৬৩, চাকমা-৫২, হাজং-১ ১৭তম
২৮ গুজরাট ০.১৩% ৭৯৬৪৮, হাজং-৩ ১৯তম
২৯ উত্তর প্রদেশ ০.১২% ২৪১০০৭, চাকমা-১৮, হাজং-৮ ৯ম
৩০ রাজস্থান ০.১২% ৮১৬৫৮, চাকমা-৫৫, হাজং-১ ১৮তম
৩১ পুদুচ্চেরি ০.১২% ১৫০৯ ৩৫তম
৩২ তেলেঙ্গানা ০.১২% ৪৪১৪৫, চাকমা-৫, হাজং-১ ২২তম
৩৩ পাঞ্জাব ০.১০% ২৭০৩০, চাকমা-৩, হাজং-৫ ২৫তম
৩৪ কেরালা ০.০৯% ২৯০৬১ ২৪তম
৩৫ হিমাচল প্রদেশ ০.০৯% ৬২১৪, চাকমা-২, হাজং-৪ ৩২তম
৩৬ তামিলনাড়ু ০.০৩% ২২৯৬৯, চাকমা-৩৮ ২৬তম
৩৭ অন্ধ্রপ্রদেশ ০.০৩% ১৩৬৫৯, চাকমা-২ ২৮তম
ভারত ৮.০৩% ৯৭২৩৭৬৬৯, চাকমা-২২৮২৮১(০.০১৯%), হাজং-৭১৭৬৯(০.০০৬%) দ্বিতীয় প্রচলিত ভাষা

নীচে রাজ্যভিত্তিক জেলা তালিকাতে সেই সকল জেলার উল্লেখ করা হলো যেখানে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা ওই জেলার জনসংখ্যার অন্তত ০.৫ শতাংশ।

পশ্চিমবঙ্গ[সম্পাদনা]

পশ্চিমবঙ্গ পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি বাঙালি অধ্যুষিত রাজ্য, যার ৮৬.২২% লোক বাংলাভাষী৷ রাজ্যটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি ১ ও ২, রঘুনাথগঞ্জ ১ ও ২, লালগোলা, সাগরদীঘি, ভগবানগোলা ১ ও ২, রাণীনগর ১ ও ২, জলঙ্গী, ডোমকল, জিয়াগঞ্জ-মুর্শিদাবাদ, নবগ্রাম, খড়গ্রাম, কান্দি, বহরমপুর, হরিহরপাড়া, নওদা, বেলডাঙ্গা ১ ও ২, ভরতপুর ১ ও ২ এবং বড়ঞা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাঁশকুড়া, কোলাঘাট, তমলুক, শহীদ মাতঙ্গিনী, নন্দকুমার, মহিষাদল, ময়না, পটাশপুর ১ ও ২, ভগবানপুর ১ ও ২, চণ্ডীপুর, সুতাহাটা, হলদিয়া, নন্দীগ্রাম ১ ও ২, খেজুরি ১ ও ২, কাঁথি ১ ও ২, দেশপ্রাণ, এগরা ১ ও ২ এবং রামনগর ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হলদিবাড়ি, মেখলিগঞ্জ, মাথাভাঙা ১ ও ২, কোচবিহার ১ ও ২, তুফানগঞ্জ ১ ও ২, দিনহাটা ১ ও ২, সিতাই এবং শীতলকুচি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটিতে করিমপুর ১ ও ২, তেহট্ট ১ ও ২, কালীগঞ্জ, নাকাশিপাড়া, চাপড়া, কৃৃষ্ণনগর ১ ও ২, নবদ্বীপ, কৃৃষ্ণগঞ্জ, হাঁসখালি, শান্তিপুর, রাণাঘাট ১ ও ২, চাকদহ এবং হরিণঘাটা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঠাকুরপুকুর-মহেশতলা, বজবজ ১ ও ২, বিষ্ণুপুর ১ ও ২, সোনারপুর, ভাঙড় ১ ও ২, ক্যানিং ১ ও ২, বারুইপুর, মগরাহাট ১ ও ২, ফলতা, ডায়মন্ড হারবার ১ ও ২, কুলপি, মন্দিরবাজার, মথুরাপুর ১ ও ২, জয়নগর ১ ও ২, কুলতলি, বাসন্তি, গোসাবা, কাকদ্বীপ, সাগর, নামখানা এবং পাথরপ্রতিমা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মুরারই ১ ও ২, নলহাটি ১ ও ২, রামপুরহাট ১ ও ২, ময়ূরেশ্বর ১ ও ২, মহম্মদবাজার, রাজনগর, সিউড়ি ১ ও ২, সাঁইথিয়া, লাভপুর, নানুর, বোলপুর-শান্তিনিকেতন, ইলামবাজার, দুবরাজপুর এবং খয়রাশোল ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ও ২, রতুয়া ১ ও ২, চাঁচল ১ ও ২, গাজোল, বামনগোলা, হবিবপুর, পুরানো মালদা, ইংরেজবাজার, মানিকচক এবং কালিয়াচক ১, ২ ও ৩ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শালতোড়া, মেজিয়া, গঙ্গাজলঘাটি, ছাতনা, ইন্দপুর, বাঁকুড়া ১ ও ২, বড়জোড়া, সোনামুখী, পাত্রসায়ের, ইন্দাস, কোতুলপুর, জয়পুর, বিষ্ণুপুর, ওন্দা, তালডাংরা, সিমলাপাল, খাতড়া, হিড়বাঁধ, রাণীবাঁধ, রাইপুর এবং সারেঙ্গা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বাগদা, বনগাঁ, গাইঘাটা, স্বরূপনগর, হাবরা ১ ও ২, আমডাঙা, বারাকপুর ১ ও ২, বারাসাত ১ ও ২, দেগঙ্গা, বাদুড়িয়া, বসিরহাট ১ ও ২, হাড়োয়া, রাজারহাট, মিনাখাঁ, সন্দেশখালি ১ ও ২, হাসনাবাদ এবং হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গোঘাট ১ ও ২, আরামবাগ, পুরশুড়া, তারকেশ্বর, ধনিয়াখালি, পাণ্ডুয়া, বলাগড়, চুঁচুড়া-মগরা, পোলবা-দাদপুর, হরিপাল, সিঙ্গুর, শ্রীরামপুর-উত্তরপাড়া, চণ্ডীতলা ১ ও ২, জাঙ্গিপাড়া এবং খানাকুল ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বিনপুর ১ ও ২, ঝাড়গ্রাম, জামবনী, গোপীবল্লভপুর ১ ও ২, নয়াগ্রাম, সাঁকরাইল, গড়বেতা ১ ও ২, চন্দ্রকোণা ১ ও ২, দাসপুর ১ ও ২, কেশপুর, শালবনী, মেদিনীপুর , খড়গপুর ১ ও ২, ডেবরা, পিংলা, সবং, নারায়ণগড়, কেশিয়াড়ী, দাঁতন ১ ও ২ এবং মোহনপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির উদয়নারায়ণপুর, আমতা ১ ও ২,জগৎবল্লভপুর, ডোমজুড়, বালি-জগাছা, সাঁকরাইল, পাঁচলা, উলুবেড়িয়া ১ ও ২, বাগনান ১ ও ২ এবং শ্যামপুর ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কুশমণ্ডি, গঙ্গারামপুর, বংশিহারী, হরিরামপুর, তপন, কুমারগঞ্জ, হিলি এবং বালুরঘাট ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির জয়পুর, পুরুলিয়া ১ ও ২, পাড়া, রঘুনাথপুর ১ ও ২, নেতুড়িয়া, সাঁতুড়ি, কাশীপুর, হুড়া, পুঞ্চা, আড়ষা, ঝালদা ১ ও ২, বাঘমুণ্ডি, বলরামপুর, বড়বাজার, মানবাজার ১ ও ২ এবং বান্দোয়ান ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির সালানপুর, বরবানি, জামুরিয়া, রাণীগঞ্জ, অন্ডাল, পান্ডবেশ্বর, দুর্গাপুর, কাঁকসা, আউশগ্রাম ১ ও ২, মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম ১ ও ২, কাটোয়া ১ ও ২, পূর্বস্থলী ১ ও ২, মন্তেশ্বর, ভাতার, গলসি ১ ও ২, বর্ধমান ১ ও ২, মেমারি ১ ও ২, কালনা ১ ও ২, জামালপুর, রাইনা ১ ও ২ এবং খণ্ডঘোষ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির করণদিঘি, গোয়ালপোখর ২, চোপড়া, রায়গঞ্জ, হেমতাবাদ, কালিয়াগঞ্জ এবং ইটাহার ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কুমারগ্রাম, আলিপুরদুয়ার ১ ও ২, ফালাকাটা, রাজগঞ্জ, মাল, ধুপগুড়ি, ময়নাগুড়ি এবং জলপাইগুড়ি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মাটিগাড়া, নাকশালবাড়ি, খড়িবাড়ি এবং ফাঁসিদেওয়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷ সমগ্র জেলাটি নেপালীভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

ত্রিপুরা[সম্পাদনা]

ত্রিপুরা ভারতের একটি বাঙালি জাতি সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্য৷ রাজ্যটির আদিনিবাসীরা মুলত ত্রিপুরি ভাষাগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত হলেও দেশভাগের সময় ভারতে আশ্রিত বৈধ শরণার্থী, যারা প্রধানত বাঙালী, তারা রাজ্যটিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে[২]৷ ২০১১ খ্রিষ্টাব্দের জনগণনা অনুযায়ী ত্রিপুরা রাজ্যটিতে ৬৫.৭৩ শতাংশ বাঙালী বাস করেন৷ রাজ্যটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির ধর্মনগর, কুমারঘাট ও কৈলাসহর পৌরসভাসহ কদমতলা, কুমারহাট, পেচারথল, গৌরনগর ও পানিসাগর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির রাণীরবাজার, বিশালগড়, সোনামুড়া, খোয়াই, তেলিয়ামুড়া পৌরসভা ও আগরতলা পৌরনিগমসহ জিরানিয়া, ডুকলি, বিশালগড়, মেলাঘর, বক্সনগর, খোয়াই, তেলিয়ামুড়া, কল্যাণপুর কাঁঠালিয়া ও মোহনপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শান্তিরবাজার, বেলোনিয়া, উদয়পুর, অমরপুর ও সাব্রুম পৌরসভাসহ বোকাফা, ঋষ্যমুখ, রাজনগর, মাতারবাড়ী ও কাঁকড়াবন সাতচাঁদ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কমলপুর পৌরসভা ও আম্বাসা পৌরসভা সহ সালেমা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷ জেলাটি বাঙালী সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও একক সংখ্যাগরিষ্ঠ নয় এবং প্রায় সমসংখ্যক ত্রিপুরী ভাষাগোষ্ঠী সহাবস্থান করে৷

আসাম[সম্পাদনা]

আসাম ভারতের উত্তর-পূর্বে(ঈশান কোণ) অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ও সরকারী ভাষা অসমীয়া হলেও বাংলা দ্বিতীয় বৃৃহত্তম প্রচলিত ভাষা, যা ২৮.৯২ শতাংশ লোকের মাতৃৃভাষা৷ এটি আসামের দক্ষিণে অবস্থিত বরাক উপত্যকা বিভাগের দাপ্তরিক ভাষা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির করিমগঞ্জ, বদরপুর, নিলামবাজার, পাথারকান্দিরামকৃষ্ণনগর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হাইলাকান্দি, আলগাপুর, লালাকাটলীছড়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শিলচর, কাটিগোরা, উধারবন্দ, সোনাইলক্ষীপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বড়নগর(অংশ), কলগাছিয়া, বাগবোর, চেঙ্গা, বরপেটাসারথেবাড়ি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ডালগাঁও(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির সৃজনগ্রাম ও বিজনি(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বিজনি(অংশ) ও কোকড়াঝাড়(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির লক্ষীপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গোঁসাইগাঁও(অংশ) ও দক্ষিণ শালমারা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হোজাইলংকা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ।

জেলাটির ভওরাগুড়ি ও গোলকগঞ্জ(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মায়ং ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বড়নগর(অংশ) ও রঙ্গিয়া(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঢেকীয়াজুলি(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গরাইমারি, চামারিয়া ও নাগেরবেড়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঢেকীয়াজুলি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ[সম্পাদনা]

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ভারতের পূর্বে বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত একটি দ্বীপরাজ্য তথা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ অঞ্চলটিতে সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা বাংলা, যা ২৮.৪৯% লোকের মাতৃৃভাষা৷ সর্বাধিক প্রচলিত হলেও অন্যান্য অনেক ভাষাগোষ্ঠীর উপস্থিতি থাকায় বাংলা ভাষা এ অঞ্চলের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেনি, বরং হিন্দীইংরাজী এখানকার মর্যাদাপ্রাপ্ত সরকারী ভাষা৷ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির ডিগলিপুর, মায়াবন্দররঙ্গত ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ফেরারগঞ্জ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

মিজোরাম[সম্পাদনা]

মিজোরাম উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যের একটি৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা হলো মিজো ভাষা৷ রাজ্যটির জনসংখ্যার ৯.৮৩% বাঙালী হলেও তাদের মধ্যে সিংহভাগই চাকমা উপজাতিভুক্ত৷ মিজোরামে জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির চংতে ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ যার অধিকাংশই চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

জেলাটির পশ্চিম বুঙ্ঘমুন ও লুংসেন ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ যার অধিকাংশই চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

অধিকাংশ বাঙালি চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

ঝাড়খণ্ড[সম্পাদনা]

ঝাড়খন্ড পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অন্তর্দেশীয়ভাবে সর্বাধিক সীমানা ভাগ করে৷ রাজ্যটি হিন্দীভাষী প্রধান হলেও স্থানীয় ভাষা যেমন সাদরি, কুরমালী, খোরঠা প্রভৃতি হিন্দীর উপজাতিক উপভাষা হিসাবে পরিগণিত হয়৷ স্বাধীনতা-পরবর্তী বাংলা-বিহার অমিমাংশিত ভুমিবণ্টনের দরুণ জন্মলগ্ন থেকেই ঝাড়খণ্ডের পূর্বাংশ বাঙালীবহুল৷[৩] রাজ্যটির ৯.৭৩% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির চাণ্ডিল, ইছাগড়, কুকড়ু, নিমডি, গমহারিয়াসরাইকেল্লা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাকুড় ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বোরাম, পতমদা, ঘাটশিলা, পোটকা, ধলভূমগড়, চাকুলিয়াবাহারাগোরা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির নালা ও কুণ্ডহিত ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাথনা, উধুয়ারাজমহল ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বালিয়াপুর ও নিরসা-চিরকুন্ডা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির চন্দনকিয়ারী ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

মেঘালয়[সম্পাদনা]

মেঘালয় উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ রাজ্যটি বহুভাষিক হলেও মুলত খাসি, গারোজয়ন্তিয়া (বা প্নার) ভাষাভাষীর লোক দেখতে পাওয়া যায়৷ রাজ্যটিতে ৭.৮৪% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির সেলসেলা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

অরুণাচল প্রদেশ[সম্পাদনা]

অরুণাচল প্রদেশ উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ রাজ্যটি বহুভাষিক৷ রাজ্যটিতে ৭.২৭% লোকের মাতৃভাষা বাংলা হলেও তাদের মধ্যে সিংহভাগই চাকমা উপজাতিভুক্ত৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির মিয়াউ ও দিয়ুঁ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

নাগাল্যান্ড[সম্পাদনা]

নাগাল্যান্ড উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ এটি একটি জনজাতি অধ্যুষিত বহুভাষিক রাজ্য৷ রাজ্যটিতে ৩.৭৮% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির নিহোখু ও ডিমাপুর সদর ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

দমন ও দিউ[সম্পাদনা]

দমন ও দিউ পশ্চিম ভারতে অবস্থিত একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ এর সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা গুজরাটি৷ রাজ্যটিতে ২.১৫% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

উত্তরাখণ্ড[সম্পাদনা]

উত্তরাখণ্ড উত্তর ভারতে অবস্থিত হিমালয় পর্বতসঙ্কুল একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির প্রচলিত দুটি প্রধান ভাষা হলো গাড়োয়ালী ভাষাকুমায়ূনী ভাষা এবং হিন্দী ভাষা রাজ্যটির সরকারী ও সংযোগী ভাষা৷ রাজ্যটিতে ১.৫০% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

দিল্লী[সম্পাদনা]

(২০১১ তে দিল্লীর ৯ টি জেলার তথ্যের ওপর নির্ধারিত)

দিল্লী উত্তর ভারতে অবস্থিত ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের জাতীয় রাজধানী অঞ্চল। এটির প্রধান ও সরকারী ভাষা হিন্দী ও সহ সরকারী ভাষা ইংরাজী৷ জাতীয় রাজধানী অঞ্চলে ১.২৯% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

  • ১) দক্ষিণ দিল্লী জেলা - ৬৭৯০৫(২.৪৯%)
  • ২) নতুন দিল্লী জেলা - ৩৩০৭(২.৩৩%)
  • ৩) পূর্ব দিল্লী জেলা - ২৯৭০৬(১.৭৪%)
  • ৪) দক্ষিণ পশ্চিম দিল্লী জেলা - ৩৯১৪২(১.৭১%)
  • ৫) কেন্দ্রীয় দিল্লী জেলা - ৭৪১০(১.২৭%)
  • ৬) উত্তর পশ্চিম দিল্লী জেলা - ৩২৩৫৩(০.৮৯%)
  • ৭) উত্তর পূর্ব দিল্লী জেলা - ১৫২২৪(০.৬৮%)
  • ৮) পশ্চিম দিল্লী জেলা - ১৬৬৭৫(০.৬৬%)
  • ৯) উত্তর দিল্লী জেলা - ৪২৩৮(০.৪৮%)

ওড়িশা[সম্পাদনা]

ওড়িশা বা উড়িষ্যা পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির মুখ্য ও সরকারী ভাষা ওড়িয়া৷ রাজ্যটিতে ১.২০% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির কালিমেলা ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

সিকিম[সম্পাদনা]

সিকিম উত্তর পূর্ব ভারতে অবস্থিত হিমালয় পর্বতসংকুল একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি প্রধান ভাষা নেপালী হলেও একাধিক পাহাড়ি জনজাতির বাস সিকিম৷ রাজ্যটিতে ১.১৪% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

মণিপুর[সম্পাদনা]

মণিপুর উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ এটি একটি মণিপুরী জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত রাজ্য হলেও একাধিক অন্যান্য ভাষাভাষীর বাস এই জেলাতে৷ রাজ্যটিতে ১.০৭% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

এই জেলার জিরিবাম ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

ছত্তীসগঢ়[সম্পাদনা]

ছত্তীসগঢ় মধ্যভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির প্রধান ভাষা ছত্তীসগঢ়ী, তাছাড়া সরগুজিয়াগোণ্ডি ভাষাও প্রচলিত এবং দাপ্তরিক ভাষা হিন্দী৷ রাজ্যটিতে ০.৯৫% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির পখাঞ্জুর ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

দাদরা ও নগর হাভেলি[সম্পাদনা]

দাদরা ও নগর হাভেলি পশ্চিম ভারতে অবস্থিত একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ ভিলি ভাষা এই অঞ্চলের সর্বাধিক প্রচলিত হলেও সরকারীভাবে হিন্দীগুজরাটী ভাষাও মান্যতাপ্রাপ্ত৷ অঞ্চলটিতে ০.৯১% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷

বিহার[সম্পাদনা]

বিহার পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি একাধিক বৃৃহৎ ভাষার সমন্বয়ে গঠিত, তারমধ্যে মৈথিলী ভাষা, সুরজাপুরী ভাষা, ভোজপুরি ভাষা, মাগধী ভাষা, অঙ্গিকা ভাষা ইত্যাদি উল্লেখ্য৷ মৈথিলীরহিত অন্যান্য ভাষাগুলি হিন্দুস্তানী ভাষার অন্তর্ভুক্ত করে রাজ্যটির সরকারী ভাষা হিসাবে হিন্দী কে প্রতিষ্ঠিত করা হয়৷ রাজ্যটির ০.৭৮% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির আমদাবাদ ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

চণ্ডীগড়[সম্পাদনা]

চণ্ডীগড় উত্তর ভারতের পাঞ্জাবহরিয়ানার মধ্যবর্তী একটি বিশেষ অঞ্চল ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ অঞ্চলটির সরকারী ভাষা ইংরাজী৷ হিন্দী এখানকার সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা ও পাঞ্জাবি ভাষা দ্বিতীয়৷ অঞ্চলটির ০.৫৯% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷

গোয়া[সম্পাদনা]

গোয়া ভারতের পশ্চিমে অবস্থিত একটি ছোট রাজ্য৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ও সরকারী ভাষাটি হলো কোঙ্কণী৷ রাজ্যটিতে ০.৪৯% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

অন্যান্য[সম্পাদনা]

২০০১[সম্পাদনা]

এই তালিকায় কেবলমাত্র সেই রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের নাম দেওয়া হয়েছে যেখানকার জনসংখ্যার কমপক্ষে ১% মানুষ বাংলা-ভাষী।[৪]

রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বাংলা-ভাষী জনসংখ্যার শতকরা হার জনসংখ্যা
পশ্চিমবঙ্গ ৮৫.৩৪% ৬,৮৩,৬৯,২৫৫
ত্রিপুরা ৬৭.৩৫% ২১,৪৭,৯৯৪
অসম ২৭.৯১% ৭৩,৪৩,৩৩৮
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ২৫.৯৫% ৯১,৫৮২
ঝাড়খণ্ড ৯.৬৯% ২৬,০৭,৬০১
অরুণাচল প্রদেশ ৯.৪% ৯৭,১৪৯
মিজোরাম ৯.১৮% ৮০,৩৮৯
মেঘালয় ৮.০৪% ৯৭,৩৭৮
নাগাল্যান্ড ৩.২৬% ৫৮,৮৯০
দিল্লি ১.৫১% ২,০৮,৪১৪
উত্তরাখণ্ড ১.৪৫% ১,২৩,১৯০
ওড়িশা ১.৩৪% ৪,৯০,৮৫৭
মণিপুর ১.৩% ২৭,১০০
সিক্কিম ১.১৮% ৬,৩২০
দমন ও দিউ ১.১৬% ১,৮১০
ছত্তীসগঢ় ১% ২,০৮,৬৬৯
জম্মু ও কাশ্মীর ১৪,৪১৬
হিমাচল প্রদেশ ৪,৭৭২
পাঞ্জাব ২০,৬৫৫
চণ্ডীগড় ৫,৪৯১
হরিয়ানা ৩৯,১৯৯
রাজস্থান ৫৪,১৭২
উত্তরপ্রদেশ ১,৮১,৬৩৪
বিহার ৪,৪৩,৪২৬
মধ্যপ্রদেশ ১,০৫,৩৯৯
গুজরাট ৪০,৭৮০
দাদরা ও নগর হাভেলি ১,৩৮২
মহারাষ্ট্র ৩,১০,১৩৭
অন্ধ্রপ্রদেশ ৪১,২৯৩
কর্ণাটক ৪১,২৫৬
গোয়া ৪,১১১
লক্ষদ্বীপ ২৪
কেরল ৩,৩৮৭
তামিলনাড়ু ৮,৮০৫
পুদুচেরি ১,১৮০
ভারত ৮.২% ৮,৩৩,৬৯,৭৬৯

পাদটীকা[সম্পাদনা]