কর্ণাটক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
কর্ণাটক
ಕರ್ನಾಟಕ
State
কর্ণাটকের পতাকা
পতাকা
কর্ণাটকের অফিসিয়াল সীলমোহর
সীলমোহর
ভারতে কর্ণাটকের অবস্থান
ভারতে কর্ণাটকের অবস্থান
কর্ণাটকের মানচিত্র
কর্ণাটকের মানচিত্র
স্থানাঙ্ক (Bangalore): ১২°৫৮′১৩″ উত্তর ৭৭°৩৩′৩৭″ পূর্ব / ১২.৯৭০২১৪° উত্তর ৭৭.৫৬০২৯° পূর্ব / 12.970214; 77.56029স্থানাঙ্ক: ১২°৫৮′১৩″ উত্তর ৭৭°৩৩′৩৭″ পূর্ব / ১২.৯৭০২১৪° উত্তর ৭৭.৫৬০২৯° পূর্ব / 12.970214; 77.56029
দেশ ভারত
প্রতিষ্ঠা1956-11-01
রাজধানীবেঙ্গালুরু
বৃহত্তম শহরবেঙ্গালুরু
জেলা৩০
সরকার
 • রাজ্যপালবাজুভাই ভালা(২০১৪ থেকে)
 • মুখ্যমন্ত্রীডি ভি সদানন্দ গৌড়া
 • কর্ণাটক বিধানসভাদ্বিকক্ষীয় (২২৫ + ৭৫ আসন)
আয়তন[১]
 • মোট১৯১৭৯১ কিমি (৭৪০৫১ বর্গমাইল)
এলাকার ক্রম৮ম
জনসংখ্যা (২০০১)[২]
 • মোট৫,২৮,৫০,৫৬২
 • ক্রম৯ম
 • ঘনত্ব২৮০/কিমি (৭১০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলভারতীয় প্রমাণ সময় (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডIN-KA
মানব উন্নয়ন সূচকবৃদ্ধি 0.600 (medium)
মানব উন্নয়ন সূচক র্যাঙ্ক২৫তম (২০০৫)
সাক্ষরতা৬৯.৩% (১৮তম)
সরকারি ভাষাকন্নড়, ইংরেজি[৩][৪]
ওয়েবসাইটkarunadu.gov.in

কর্ণাটক (কন্নড়: ಕರ್ನಾಟಕ টেমপ্লেট:IPA-kn, কন্নড়িগাদের দেশ) হল দক্ষিণ পশ্চিম ভারতের একটি রাজ্য। ১৯৫৬ সালের ১ নভেম্বর রাজ্য পুনর্গঠন আইন বলে এই রাজ্য স্থাপিত হয়। রাজ্যটির আদি নাম ছিল মহীশূর রাজ্য। ১৯৭৩ সালে রাজ্যের নাম বদলে রাখা হয় কর্ণাটক

কর্ণাটকের পশ্চিমে আরব সাগর, উত্তর-পশ্চিমে গোয়া, উত্তরে মহারাষ্ট্র, পূর্বে অন্ধ্রপ্রদেশ, দক্ষিণ-পূর্বে তামিলনাড়ু এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে কেরল অবস্থিত। রাজ্যের মোট আয়তন ১,৯১,৯৭৬ বর্গকিলোমিটার (৭৪,১২২ মা) (ভারতের মোট ভৌগোলিক আয়তনের ৫.৮৩%)। কর্ণাটক আয়তনের হিসেবে ভারতের অষ্টম বৃহত্তম এবং জনসংখ্যার হিসেবে ভারতের নবম বৃহত্তম রাজ্য। এই রাজ্যে ৩০টি জেলা রয়েছে। রাজ্যের সরকারি তথা সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ভাষা কন্নড়

কর্ণাটক দুটি প্রধান নদী অববাহিকায় অবস্থিত। রাজ্যের উত্তরে রয়েছে কৃষ্ণা ও তার উপনদীগুলির (ভীমা, ঘটপ্রভা, বেদবতী, মালপ্রভাতুঙ্গভদ্রা)। দক্ষিণে রয়েছে কাবেরী ও তার উপনদীগুলির (হেমাবতী, শিমশা, অর্কবতী, লক্ষ্মণতীর্থ ও কবিনী) অববাহিকা। এই নদীগুলি পূর্ববাহী। সব কটিই বঙ্গোপসাগরে পড়েছে।

নাম বুৎপত্তি[সম্পাদনা]

কর্ণাটক নামটির বুৎপত্তি বিষয়ে মতভেদ রয়েছে। সাধারণভাবে মনে করা হয় কর্ণাটক নামটি এসেছে কন্নড় কারুনাডু শব্দদুটি থেকে। এর অর্থ উচ্চ ভূমি। অন্য মতে, কারু নাড়ু শব্দটির প্রকৃত অর্থ কৃষ্ণ ভূমি; কারণ কর্ণাটকের বায়ালুসীমে অঞ্চলে কালো কার্পাস মৃত্তিকা দেখা যায়। ব্রিটিশরা কৃষ্ণা নদীর দক্ষিণে দক্ষিণ ভারতের উভয় দিকেরই নাম দিয়েছিল কর্ণাটিক অঞ্চল[৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কর্ণাটকের ইতিহাস অতি প্রাচীন। এখানে প্রাচীন প্রস্তর যুগের নানা নিদর্শন পাওয়া গিয়েছে। প্রাচীন ও মধ্যযুগীয় ভারতের একাধিক শক্তিশালী সাম্রাজ্যের কেন্দ্র ছিল এই রাজ্য। এই সব সাম্রাজ্যের দার্শনিক ও চারণকবিরা যে সামাজিক, ধর্মীয় ও সাহিত্যিক আন্দোলনের সূচনা করেন, তার অস্তিত্ব আজও রয়েছে। ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতের দুটি ধারাতেই (কর্ণাটিকহিন্দুস্তানি) কর্ণাটকের অবদান রয়েছে। কন্নড় ভাষার লেখকেরা ভারতে সর্বাধিক সংখ্যক জ্ঞানপীঠ পুরস্কার লাভ করেছেন। এই রাজ্যের রাজধানী বেঙ্গালুরু বর্তমান ভারতের একটি অগ্রণী বাণিজ্যিক ও প্রযুক্তি কেন্দ্র।

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "State-wise break up of National Parks"Wildlife Institute of India। Government of India। ২০০৮-০৬-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৬-১২ 
  2. "Statistical Hand Book - Economic Indicators for All States"Government of Tamil Nadu: Department of Economics and Statistics। Government of Tamil Nadu। ২০০৭-০২-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০১ 
  3. "The Karnataka Official Language Act, 1963" (PDF)। Government of Karnataka। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১১ 
  4. Bopanna। "Sahyadri Education Trust vs State Of Karnataka on 4 July 1988"। Karnataka High Court। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১১ 
  5. See Lord Macaulay's life of Clive and James Tallboys Wheeler: Early History of British India, London (1878) p.98. The principal meaning is the western half of this area, but the rulers there controlled the Coromandel Coast as well.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]