ঝারসুগুড়া জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ঝারসুগুড়া জেলা
ଝାରସୁଗୁଡ଼ା ଜିଲ୍ଲା
ওড়িশার জেলা
ওড়িশায় ঝারসুগুড়ার অবস্থান
ওড়িশায় ঝারসুগুড়ার অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যওড়িশা
প্রশাসনিক বিভাগউত্তর ওড়িশা বিভাগ
সদরদপ্তরঝারসুগুড়া
তহশিল
আয়তন
 • মোট২,১১৪ বর্গকিমি (৮১৬ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৫,৭৯,৫০৫
 • জনঘনত্ব২৭০/বর্গকিমি (৭১০/বর্গমাইল)
জনতাত্ত্বিক
 • সাক্ষরতা৭৮.৮৬ শতাংশ
 • লিঙ্গানুপাত৯৫৩
গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত১২৯৬ মিমি
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট
উল্লাপগড়ের কাছে পাহাড়ের দৃশ্য

ঝারসুগুড়া জেলা(ওড়িয়া: ଝାରସୁଗୁଡ଼ା ଜିଲ୍ଲା, প্রতিবর্ণী. ঝারসুগুড়া জিল্লা) পূর্ব ভারতে অবস্থিত ওড়িশা রাজ্যের ৩০ টি জেলার একটি জেলা৷ ৬ই পৌষ ১৪০০ বঙ্গাব্দে(২২শে ডিসেম্বর ১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দে) পূর্বতন সম্বলপুর জেলাটি থেকে নতুন জেলা ঝারসুগুড়া গঠিত হয়৷ জেলাটি ওড়িশার দক্ষিণ ওড়িশা বিভাগের অন্তর্গত৷ জেলাটির জেলাসদর ঝারসুগুড়া শহরে অবস্থিত এবং ঝারসুগুড়া মহকুমা নিয়ে গঠিত৷

নামকরণ[সম্পাদনা]

পুর্বতন সম্বলপুর জেলার অন্তর্গত এই অঞ্চলটির নাম ছিলো ঝারগুডা৷ সম্বলপুরের চৌহান রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা বলরাম দেব ঘন জঙ্গলাচ্ছাদিত ব্যাঘ্রসংকুল অঞ্চলটিতে নগরপত্তন করেন৷ ঘন জঙ্গলের উপস্থিতির জন্য ঝারগুডা নামটি এসেছে৷[১] কালক্রমে ঝারগুডা নামটি ঝারসুগুড়া নামে পরিবর্তিত হয়েছে৷ জেলাসদরের নামে জেলাটির নাম রাখা হয়৷

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

ভূপ্রকৃৃতি[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

দুর্ভাগ্যবশত এটি ভারতের অন্যতম দারিদ্রপ্রবণ জেলা।

অবস্থান[সম্পাদনা]

জেলাটির উত্তরে ওড়িশা রাজ্যের সুন্দরগড় জেলাজেলাটির উত্তর পূর্বে(ঈশান), পূর্বে, দক্ষিণ পূর্বে(অগ্নি) ও দক্ষিণে ওড়িশা রাজ্যের সম্বলপুর জেলাজেলাটির দক্ষিণ পশ্চিমে(নৈঋত) ওড়িশা রাজ্যের বারগড় জেলাজেলাটির পশ্চিমে ছত্তীসগঢ় রাজ্যের রায়গঢ় জেলাজেলাটির উত্তর পশ্চিমে(বায়ু) ওড়িশা রাজ্যের সুন্দরগড় জেলা[২]

জেলাটির আয়তন ২১১৪ বর্গ কিমি৷ রাজ্যের জেলায়তনভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ৩০ টি জেলার মধ্যে তম৷ জেলার আয়তনের অনুপাত ওড়িশা রাজ্যের ১.৩৫%৷

ভাষা[সম্পাদনা]

ঝারসুগুড়া জেলায় প্রচলিত ভাষাসমূহের পাইচিত্র তালিকা নিম্নরূপ -

২০১১ অনুযায়ী ঝারসুগুড়া জেলার ভাষাসমূহ[৩]

  ওড়িয়া (৭০.০৪%)
  হিন্দী (১১.৪৪%)
  কিসান (৬.২৪%)
  মুন্ডারি (২.২২%)
  খারিয়া (১.৮৬%)
  বাংলা (১.২৭%)
  নাগপুরি-সাদরি (১.১১%)
  কুরুখ/ওরাওঁ (০.৬২%)
  তেলুগু (০.৫৫%)
  অন্যান্য (৩.২২%)

এই জেলাতে বসবাসকারী সিংহভাগ ওড়িয়াভাষী সম্বলপুরি/কোশলি ভাষাতে সাবলীল৷

ধর্ম[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

মোট জনসংখ্যা ৫০৯৭১৬(২০০১ জনগণনা) ও ৫৭৯৫০৫(২০১১ জনগণনা)৷ রাজ্যে জনসংখ্যাভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ৩০ টি জেলার মধ্যে ২৭তম৷ ওড়িশা রাজ্যের ১.৩৮% লোক ঝারসুগুড়া জেলাতে বাস করেন৷ জেলার জনঘনত্ব ২০০১ সালে ২৪১ ছিলো এবং ২০১১ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ২৭৪ হয়েছে৷ জেলাটির ২০০১-২০১১ সালের মধ্যে জনসংখ্যা বৃৃদ্ধির হার ১৩.৬৯% , যা ১৯৯১-২০১১ সালের ১৫.২৫% বৃদ্ধির হারের থেকে কম৷ জেলাটিতে লিঙ্গানুপাত ২০১১ অনুযায়ী ৯৫৩(সমগ্র) এবং শিশু(০-৬ বৎ) লিঙ্গানুপাত ৯৪৩৷[৪]

নদনদী[সম্পাদনা]

পরিবহন ও যোগাযোগ[সম্পাদনা]

পর্যটন ও দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

ঐতিহ্য ও সংস্কৃৃতি[সম্পাদনা]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

জেলাটির স্বাক্ষরতা হার ৭০.৫৫%(২০০১) তথা ৭৮.৮৬%(২০১১)৷ পুরুষ স্বাক্ষরতার হার ৮২.০৮%(২০০১) তথা ৮৬.৬১%(২০১১)৷ নারী স্বাক্ষরতার হার ৫৮.৩৬%(২০০১) তথা ৭০.৭৩% (২০১১)৷ জেলাটিতে শিশুর অনুপাত সমগ্র জনসংখ্যার ১১.১৮%৷[৪]

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

সীমান্ত[সম্পাদনা]

বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]