চণ্ডীগড়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চণ্ডীগড়
চণ্ডীগড়
স্থানাঙ্ক: ৩০°৪৫′ উত্তর ৭৬°৪৭′ পূর্ব / ৩০.৭৫° উত্তর ৭৬.৭৮° পূর্ব / 30.75; 76.78
এলাকার ক্রম 33
জনসংখ্যা
 • মোট ৯০০[১]
 • স্থান 29
 The city of Chandigarh comprises all of the union territory's area.

চন্ডীগড় (পাঞ্জাবি: ਚੰਡੀਗੜ੍ਹ, হিন্দি: चंडीगढ़ চাণ্ডীগাঢ়্‌, উচ্চারণ: /tʃəɳɖiːgəɽʰ/) ভারতের পাঞ্জাবহরিয়ানা রাজ্যের রাজধানী। তবে প্রশাসনিকভাবে চণ্ডীগড় এই দুইয়ের কোনটিরই অধীনস্থ নয়, এটি একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল। পাঞ্জাবের রাজ্যপাল চণ্ডীগড়েরও শাসনকর্তা। শহরটির নাম এসেছে নিকটেই হরিয়ানার পাঁচখুলা জেলার চণ্ডী মন্দিরের নামে। চণ্ডীগড়ের আক্ষরিক অর্থই হল দেবী চণ্ডীর গড় বা দুর্গ। পাঁচখুলা ও মোহালি চণ্ডীগড়ের উপকণ্ঠে দুটি উপ-শহর (satellite cities)। অনেকসময় এদের একত্রে চণ্ডীগড় শহরত্রয়ী অভিধা দেওয়া হয়।

চণ্ডীগড় শহর জীবনের উন্নত মানের জন্য ভারতীয় রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মধ্যে সর্বোচ্চ স্থানের অধিকারী (Human Development Index=0.674)। চণ্ডীগড় স্বাধীন ভারতের পরিকল্পিত শহরগুলির একটি। (ভারতের অন্যান্য পরিকল্পিত শহরগুলি হল এডুইন লুট্যেনের নয়া দিল্লী, উড়িষ্যার ভুবনেশ্বর, গুজরাটের গান্ধীনগর, এবং মহারাষ্ট্রের নবী মুম্বই যা যথাক্রমে পুরাতন শহর দিল্লী, কটক ও মুম্বাই-এর উপকণ্ঠে গড়ে তোলা হয়।)

সংক্ষিপ্ত ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৪৭ এর ভারত বিভাগের সময় পাঞ্জাব রাজ্যটিও ভারত ও পকিস্তানে আধাআধি ভাগ হয়। পুরাতন রাজধানী লাহোর পাকিস্তানের অংশে পড়লে ভারতীয় অংশটির জন্য এক নতুন রাজধানীর প্রয়োজন হয়। তদানীন্তন পাঞ্জাবের বর্তমান শহরগুলিকে রাজধানী হবার মত বিবেচনা না হওয়ায় একটি নতুন পরিকল্পিত শহর গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সদ্যস্বাধীন ভারতের সবকটি শহর প্রকল্পগুলির মধ্যে চণ্ডীগড় দ্রুত সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। তার কারণ হলঃ প্রথমতঃ এর অবস্থান দিল্লীর কাছে এবং অস্থির রাজ্য পাঞ্জাবের জন্য দ্রুত প্রশানিক কার্য নির্বাহের প্রয়োজনীয়তা ছিল; দ্বিতীয়তঃ এর উপর তদানীন্তন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী পণ্ডিত জওহরলাল নেহরুর ব্যক্তিগত নেকনজর ছিল। নতুন ভারতের দ্রষ্টা নেহরুর চোখে চণ্ডীগড় ছিল আধুনিকমনস্কতা ও প্রগতির প্রতিমূর্তি -- নেহরুর ভাষায় "দেশের অতীত প্রথার দাসত্ব শৃঙ্খল হতে মুক্ত, দেশের ভবিষ্যতের প্রতি আস্থার প্রতীক" ("unfettered by the traditions of the past, a symbol of the nation's faith in the future.")। ফরাসি বংশোদ্ভুত সুয়েডিয়-জাত নগর-স্থপতি লে কর্বুসিয়ার চণ্ডীগড়ের পরিকল্পনা শেষ করেন ১৯৫০ সালে। কিন্তু আসলে লে কর্বুসিয়ার ছিলেন শহরটির দ্বিতীয় রূপকার। শহরটির প্রথম "মাস্টার প্ল্যান" খসড়া করেন স্থাপত্য পরিকল্পনাবিদ আলবার্ট মেয়ার যিনি পোল্যান্ডীয় স্থপতি ম্যাথিউ নরউইকির সংগে কাজ করছিলেন। ১৯৫০ সালে নরউইকির অকালমৃত্যুর কারণেই লে কর্বুসিয়ারকে প্রকল্পটি সমাপ্ত করতে আহবান করা হয়।

১৯৬৬র ১লা মভেম্বর ভারতের রাজ্য হরিয়ানার জন্ম হয় পাঞ্জাবের হিন্দিভাষী-বহুল পূর্বাঞ্চল থেকে, পশ্চিমাংশের পঞ্জাবীভাষীরা থেকে যায় পাঞ্জাব রাজ্যে। কিন্তু চণ্ডীগড় শহরটি পড়ে যায় দুটির ভৌগোলিক ও ভাষাঅঞ্চলের সীমারেখার উপরেই, এবং দুটিরই প্রশাসনিক রাজধানী হিসাবে যাতে কাজ করতে পারে সেই জন্য একে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হিসাবে রাখা হয়। তা সত্ত্বেও ১৯৮৫ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর সঙ্গে অকালি দলের সন্ত হরচাঁদ সিংহ লংওয়ালের সাক্ষরিত চুক্তি অনুসারে অঞ্চলটিকে ১৯৮৬ সালে পাঞ্জাবের অন্তর্ভুক্ত করার কথা হয়েছিল, কথা ছিল চণ্ডীগরের জন্য আরেকটি নতুন রাজধানী তৈরি করা হবে। কিন্তু অন্তর্ভুক্তি স্থগিত রাখা হয় কারণ এর পরিবর্তে পাঞ্জাবের কিছু জেলাও হরিয়ানাতে হস্তান্তরিত হবার কথা ওঠে কিন্তু কর্যকর হয়ে ওঠেনি।

চণ্ডীগড়ের কয়েকজন বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  1. কপিল দেব- ক্রিকেটার। একদা চণ্ডীগড়ের সেক্টর ১৬র নিবাসী, এখন বাস দিল্লীর সুন্দরনগরে।
  2. পূণম ধিল্লো- অভিনেত্রী, একদা সেক্টর ৮ নিবাসী, এখন আবাস মুম্বইএ
  3. যশপাল ভট্টি- কার্টুনিস্ট, ব্যাঙ্গাভিনেতা, কৌতুকাভিনেতা
  4. হরমোহন ধাওয়ান - রাজনীতিক, একসময়ের ভারতীয় ক্যাবিনেট মন্ত্রী ছিলেন
  5. জীভ মিলখা সিং- গলফ খেলোয়াড়
  6. যুবরাজ সিংহ - ক্রিকেটার
  7. হরভজন সিংহ - ক্রিকেটার
  8. পুনীত ভির্ক- সাংবাদিক।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Census India

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]