ঝাড়খণ্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ঝাড়খণ্ড
झारखण्ड
ভারতের রাজ্য
বিহার ও ঝাড়খণ্ডের সরকারি প্রতীক
সীলমোহর
ভারতের মানচিত্রে ঝাড়খণ্ডের অবস্থান
ভারতের মানচিত্রে ঝাড়খণ্ডের অবস্থান
ঝাড়খণ্ডের মানচিত্র
ঝাড়খণ্ডের মানচিত্র
স্থানাঙ্ক (রাঁচি): ২৩°২১′ উত্তর ৮৫°২০′ পূর্ব / ২৩.৩৫° উত্তর ৮৫.৩৩° পূর্ব / 23.35; 85.33স্থানাঙ্ক: ২৩°২১′ উত্তর ৮৫°২০′ পূর্ব / ২৩.৩৫° উত্তর ৮৫.৩৩° পূর্ব / 23.35; 85.33
দেশ ভারত
অঞ্চল পূর্ব ভারত
প্রতিষ্ঠা ১৫ নভেম্বর ২০০০
রাজধানী রাঁচি
বৃহত্তম শহর জামশেদপুর
সরকার
 • রাজ্যপাল দ্রৌপদী মুর্মু
 • মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস
 • বিধানসভা এককক্ষীয় (৮১ আসন)
 • লোকসভা কেন্দ্র ১৪
 • হাইকোর্ট ঝাড়খণ্ড হাইকোর্ট
আয়তন
 • মোট ৭৯৭১৪ কিমি (৩০৭৭৮ বর্গমাইল)
এলাকার ক্রম ১৫শ
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট ৩,২৯,৮৮,১৩৪
 • ক্রম ১৩শ
 • ঘনত্ব ৪১৪/কিমি (১০৭০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চল ভা,প্র,স (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোড IN-JH
মানব উন্নয়ন সূচক বৃদ্ধি ০.৫১৩ (medium)
মানব উন্নয়ন সূচক অনুসারে স্থান ২৪শ (২০০৫)
সাক্ষরতা ৬৭.৬% (২৫শ)
সরকারি ভাষা[১] হিন্দি, বাংলা[২] (দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে)
ওয়েবসাইট http://www.jharkhand.gov.in/

ঝাড়খণ্ড (ভোজপুরী: झारखंड ঝাড়্‌খান্ড্‌, আ-ধ্ব-ব: [dʒʰaːɽkʰəɳɖ]) পূর্ব ভারতের একটি রাজ্য। এর রাজধানীর নাম রাঁচী। এটি বিহারের দক্ষিণাংশ থেকে আলাদা হয়ে ২০০০ সালের ১৫ নভেম্বর গঠিত হয়েছিল।[৩] এই রাজ্য নানা খনিজ সম্পদে পূর্ণ ৷ ঝাড়খণ্ডের পর্যটনকেন্দ্রগুলির মধ্যে বিখ্যাত কয়েকটি হল হলুদপুকুর, রাজমহল, নেতারহাট, হাজারীবাগ, মন্দারগিরি ইত্যাদি৷

বিভাগ এবং জেলাসমূহ[সম্পাদনা]

পালামৌ বিভাগ উত্তর ছোটনাগপুর বিভাগ দক্ষিণ ছোটনাগপুর বিভাগ কোলহান বিভাগ সাঁওতাল পরগনা বিভাগ

প্রধান শহরসমূহ[সম্পাদনা]

ঝাড়খণ্ডের বৃহত্তম নগর
(ভারতের ২০১১ সনের আদমশুমারি অনুযায়ী)[৪]
স্থান নগর জেলা জনসংখ্যা স্থান নগর জেলা জনসংখ্যা
জামশেদপুর
বোকারো
০১ জামশেদপুর পূর্ব সিংভূম ১,৩৩৯,৪৩৮ ০৬ ফুসরো বোকারো ১৮৫,৫৫৫
০২ ধানবাদ ধানবাদ ১,১৯৬,২১৪ ০৭ হাজারিবাগ হাজারিবাগ ১৫৩,৫৯৫
০৩ রাঁচি রাঁচি ১,১২০,৩৭৪ ০৮ গিরিডি গিরিডি ১৪৩,৬৩০
০৪ বোকারো সিটি বোকারো ৫৬৪,৩১৯ ০৯ রামগড় রামগড় ১৩২,৪২৫
০৫ দেওঘর দেওঘর ২০৩,১২৩ ১০ মেদিনীনগর পালামৌ ১২০,৩২৫

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

ধর্ম[সম্পাদনা]

এই রাজ্যে বেশকিছু সুপ্রাচীন মন্দির রয়েছে। তারমধ্যে দেওঘর জেলা-র বৈদ্যনাথ মন্দির, রামগড় জেলার ছিন্নমস্তা মন্দির ও রাঁচি জেলার মা দেউড়ি মন্দির প্রসিদ্ধ।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

ঝাড়খণ্ডে বিবিধ খেলাধুলা প্রচলিত। রাঁচি শহরের JSCA আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম-এ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এখানে রাঁচি শহরের বিরসা মুন্ডা হকি স্টেডিয়াম-এ হকির প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। হকি ইন্ডিয়া লীগ-এর রাঁচি রেইস দলের ঘরের মাঠও এটি। এখানে জামশেদপুর শহরের জেআরডি টাটা স্পোর্টস কমপ্লেক্স-এ ফুটবল প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে হয়। ইন্ডিয়ান সুপার লীগ-এর জামশেদপুর এফসি দলের ঘরের মাঠ এটি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Languages of Jharkhand" 
  2. http://www.bihardays.com/jharkhands-11-second-languages-will-create-new-jobs-enrich-national-culture/
  3. "Jharkhand – At a Glance" 
  4. "Jharkhand"। Office of the Registrar General and Census Commissioner। ১৮ মার্চ ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৭-২৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]