বাংলা একাডেমি পুরস্কার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলা একাডেমি পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয় কবিতা, উপন্যাস, নাটক, প্রবন্ধ, ছোটগল্প, শিশুসাহিত্যে অবদানের জন্য
দেশ বাংলাদেশ
পুরস্কার দাতা বাংলা একাডেমি
প্রথম পুরস্কার প্রদান ১৯৬০-বর্তমান
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট banglaacademy.org.bd/btech/

বাংলা একাডেমি পুরস্কার ১৯৬০ সালে প্রবর্তন করা হয়। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য এই পুরস্কার প্রদান করা হয়।[১] ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন শাখায় বছরে ৯ জনকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে বছরে ২ জনকে এই পুরস্কার প্রদানের নিয়ম করা হয়। ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ থেকে চারটি শাখায় পুরস্কার দেয়া শুরু হয়। ১৯৮৫, ১৯৯৭ এবং ২০০০ খ্রিষ্টাব্দ - এই তিনবার এই পুরস্কার দেওয়া হয়নি।

পরিচ্ছেদসমূহ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৫৫ সালের ৩ ডিসেম্বর বাংলা একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৬০ সালের ২৬ জুলাই তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর দি বেংগলি একাডেমি (এমেন্টমেন্ট) অর্ডিন্যান্স জারি করেন। এর মাধ্যমে একাডেমির কার্যক্রমে কিছু পরিবর্তন আসে।[২] তাদের কার্যাবলী সংশোধিত হয়ে সাহিত্য পুরস্কার প্রদান এবং বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রবর্তন এবং ফেলো, জীবনসদস্য ও সদস্যপদ প্রদান যোগ করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় ১৯৬০ সাল থেকে বাংলা একাডেমি বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য পুরস্কার দিয়ে আসছে।[৩]

পুরস্কারের ক্ষেত্র[সম্পাদনা]

১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৫ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৮ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৬৯ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭২ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৬ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৭ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৮ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৭৯ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮২খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৫ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

এ বছর কেউ পুরস্কার পাননি।

১৯৮৬ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৭ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৮ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • আজীজুল হক (সামগ্রিক অবদান)
  • সৈয়দ আকরম হোসেন (সামগ্রিক অবদান)

১৯৯০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • ড. মোহাম্মদ আবদুল কাইউম (সামগ্রিক অবদান)
  • জাহানারা ইমাম (সামগ্রিক অবদান)

১৯৯১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯২ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • ড. ওয়াকিল আহমদ (সামগ্রিক অবদান)
  • সিকদার আমিনুল হক (সামগ্রিক অবদান)

১৯৯৫ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯৭ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

এ বছর কেউ পুরস্কার পাননি।

১৯৯৮ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০০০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

এ বছর কেউ পুরস্কার পাননি।

২০০১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • কায়সুল হক (কবিতা)
  • শামসুজ্জামান খান (গবেষণা)
  • আলী ইমাম (শিশু সাহিত্য)

২০০২ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • জাহিদুল হক (কবিতা)
  • মোবারক হোসেন খান (গবেষণা)
  • আবু সালেহ (শিশু সাহিত্য)

২০০৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • আবদুল হাই শিকদার (কবিতা)
  • সাঈদ-উর-রহমান (গবেষণা)
  • মুশাররাফ করিম (শিশু সাহিত্য)

২০০৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০০৫ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • মকবুলা মনজুর (উপন্যাস)
  • রেজাউদ্দিন স্টালিন (কবিতা)
  • আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া (গবেষণা)
  • ফখরুজ্জামান চৌধুরী (অনুবাদ)

২০০৬ খ্রিস্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০০৭ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০০৮ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

  • ড. মাহবুব সাদিক (কবিতা)
  • ড. করম্নণাময় গোস্বামী (প্রবন্ধ ও গবেষণা)
  • হেলেনা খান (শিশুসাহিত্য)।

২০০৯ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০০৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৯ ফেব্রুয়ারি ৬ জনকে পুরস্কার দেওয়ার তালিকা চূড়ান্ত হয়। ২৭ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁদের হাতে এ পদক তুলে দেয়া হয়।[৫] পুরস্কারের মূল্য এক লক্ষ টাকা।[৬] পুরস্কার পেয়েছেন-

  • রফিকুল হক - শিশুসাহিত্য
  • আনোয়ারা সৈয়দ হক - কথাসাহিত্য
  • অরুণাভ সরকার - কবিতা
  • রবিউল হুসাইন - কবিতা
  • আবুল আহসান চৌধুরী (গবেষণা)
  • সুশান্ত মজুমদার (কথাসাহিত্য)

২০১০ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০১০ খ্রিষ্টাব্দে ৬ জনকে পুরস্কার দেওয়া হয়। পুরস্কার পেয়েছেন-

  • রুবী রহমান (কবিতা)
  • নাসির আহমেদ (কবিতা)
  • বুলবুল চৌধুরী (কথাসাহিত্য)
  • ড. অজয় রায় (বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি)
  • অধ্যাপক খান সারওয়ার মুরশিদ (প্রবন্ধ ও গবেষণা)
  • শাহজাহান কিবরিয়া (শিশুসাহিত্য)

২০১১ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০১১ সালে ৯টি বিভাগে এই পুরস্কার দেয়া হয় এবং উপযুক্ত নাট্যকার কাউকে পাওয়া না যাওয়ায় এই বিভাগে পুরস্কার দেয়া হয়নি।[৭]

২০১২ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০১৩ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০১৪ খ্রিষ্টাব্দ[সম্পাদনা]

২০১৫ সাল[সম্পাদনা]

২০১৬ সালের ২৮ জানুয়ারি তারিখে ২০১৫ সালের জন্য ‘বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার’ ঘোষনা করা হয়, যা নিম্নোক্ত ১১ জন সাহিত্যিককে প্রদান করা হয়েছেঃ[১১]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার"বাংলাদেশ প্রতিদিন (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  2. "বাংলা একাডেমির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস"বাংলা একাডেমি। ঢাকা, বাংলাদেশ। 
  3. "বাংলা একাডেমি কার্যাবলি"বাংলা একাডেমি। ঢাকা, বাংলাদেশ। 
  4. "বাংলা সাহিত্যের রাজকুমারী’র লেখালেখি নিয়ে কথা"নতুনদেশ ডটকম। সংগৃহীত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  5. "বাংলা একাডেমি পদক ২০০৯"। দৈনিক কালের কণ্ঠ (ঢাকা, বাংলাদেশ)। মার্চ ১, ২০১০। পৃ: ১৪। 
  6. "বাংলা একাডেমি পুরস্কার"দৈনিক প্রথম আলো (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১০। 
  7. "বাংলা একাডেমি পুরস্কার ঘোষনা"দৈনিক প্রথম আলো (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১২। 
  8. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ঘোষণা"দৈনিক জনকণ্ঠ (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৯-০২-২০১৩। 
  9. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ঘোষণা"দৈনিক ইত্তেফাক (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৯ জানুয়ারি ২০১৪। 
  10. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার"দৈনিক সমকাল। ৩০ জানুয়ারি ২০১৫। সংগৃহীত ২৯ জানুয়ারি ২০১৬ 
  11. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন ১১ জন"দৈনিক প্রথম আলো। ২৮ জানুয়ারি ২০১৬। সংগৃহীত ২৯ জানুয়ারি ২০১৬ 
  12. "বাংলা একাডেমি পুরস্কার পাওয়ায় তাজুলকে সংবর্ধনা"দৈনিক ভোরের কাগজ। ২১ মার্চ ২০১৬। সংগৃহীত ২৯ জানুয়ারি ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]