চাকমা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Chakma / Changma
Rega.JPG
মোট জনসংখ্যা
0.7 million
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চলসমূহ

Majority populations in Bangladesh, Burma and India In Bangladesh the Chakma's reside in the Chittagong Hill Tracts area.

Mostly found in the following Indian states: Mizoram, Arunachal Pradesh, Tripura
ভাষা
Changma or Chakma
ধর্ম
Theravada Buddhism

চাকমা / চাংমা রাঙামাটি, বান্দরবানখাগড়াছড়ি জেলায় বসবাসকারী বাংলাদেশের একটি প্রধান উপজাতি। চাংমারা বার্মার আরাকান রাজ্যে ডাইংনেট নামে পরিচিত । চাংমারা মঙ্গোলীয় জাতির একটি শাখা এবং বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী। বৌদ্ধপূর্ণিমা ছাড়া তাদের অন্যতম প্রধান আনন্দ উৎসব হচ্ছে বিজু। তাদের প্রধান জীবিকা কৃষি কাজ। জুম চাষের মাধ্যমে তারা বিভিন্ন খাদ্যশষ্য ও রবিশষ্য উৎপাদন করে থাকে।

চাকমাদের উৎপত্তিকাল, আদি নিবাস ও পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে তাদের আগমন ও ক্রমবিকাশ সম্পর্কে ষোড়শ শতকের আগের কোনো সুস্পষ্ট ইতিহাস পাওয়া যায়নি। তবে এ পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্য থেকে নিশ্চিত বলা যায়, সপ্তদশ শতাব্দীর প্রথমার্ধেও পার্বত্য চট্টগ্রামে চাকমাদের বসবাসের নজির আছে। ১৭২৫ সালে চাকমাদের চট্টগ্রামে আগমনের ইতিহাস প্রমাণ্য হিসাবে আছে। অষ্টম শতাব্দীর শুরুতে আপার অসমের ব্রহ্মপুত্রের তীরবর্তীতে চাকমা রাজ্যের রাজধানী ছিল চম্পক নগর । সময়ের পরিক্রমায় চাকমা রাজতন্ত্রে নানা উত্থান-পতন ও বর্মা-মোগলদের সঙ্গে সংঘর্ষের কারণে চাকমাদের আবাসস্থল এবং রাজ্য শঙ্খ নদীর তীরবর্তী হাঙ্গরকুল ও চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া হয়ে উত্তর-পূর্বে পার্বত্য চট্টগ্রামের দিকে ব্যাপ্ত হয়।

চাকমাদের ভাষার নামও চাকমা। চাকমাদের নিজস্ব বর্ণমালা রয়েছে। চাকমারা ৪৬টি গোজা ও বিভিন্ন গুথি বা গোষ্ঠীতে বিভক্ত। ১৯৯১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী পার্বত্য চট্টগ্রামে চাকমাদের সংখ্যা ২ লাখ ৩৯ হাজার ৪১৭ জন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] তবে বর্তমানে তা তিন লাখ ছাড়িয়ে গেছে বলে ধারণা করা হয়। চাকমারা আদি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। তবে তারা বৌদ্ধ হলেও কেউ কেউ আবার প্রকৃতি পূজারীও। চাকমারা জন্মান্তরবাদে বিশ্বাস করে। ক্রমাগত সৎকর্ম সাধনের মাধ্যমে নির্বাণ লাভ করা যায় বলে বিশ্বাস করে তারা।

চাকমা শব্দের উৎস[সম্পাদনা]

চাকমা শব্দটি এসেছে সংস্কৃতি শব্দ শক্তিমান থেকে।[১] বার্মার বৌদ্ধ রাজা বাগানের সময় এই নাম দেওয়া হয়েছিল। বার্মার রাজা চাকমাদের মন্ত্রী, উপদেষ্টা ও পালি ভাষার অনুবাদক হিসেবে নিযুক্ত করেন। রাজদরবারের চাকুরীজীবী হিসেবে চাকমাদের শক্তি তাঁদের সংখ্যার অনুপাতে অনেক বেশি ছিল। বর্তমানেও বার্মিজরা চাকমাদের শক অথবা থিত নামে উল্লেখ করে, যা শক্তিমান শব্দটির সংক্ষিপ্ত রূপ। পরবর্তীতে শব্দটি চাকমা শব্দতে রূপান্তরিত হয়।[২]

ধর্ম[সম্পাদনা]

বেশীর ভাগ চাকমা শত শত বছরের পুরাতন থেরবাদী বৌদ্ধ ধর্ম অনুসরণ করে। তাঁদের বৌদ্ধ ধর্ম পালনের মধ্যে হিন্দুধর্ম ও অন্যান্য প্রাচীন ধর্মের মিল পাওয়া যায়। দেশি-বিদেশি অনেক মিশনারী তাঁদের খ্রিস্টান বানানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। এটি চাকমাদের মধ্যে অসন্তোষ তৈরি করেছে।[৩]

প্রায় প্রত্যেক চাকমা গ্রামের বৌদ্ধ মন্দির বা কাং আছে। বৌদ্ধ সন্যাসীদের ভিক্ষু বলা হয়। তারা ধর্মীয় উৎসব ও অনুষ্ঠান তত্ত্বাবধায়ন করে। গ্রামবাসীরা ভিক্ষুদের খাবার, উপহার, ইত্যাদি দিয়ে সাহায্য করে।

চাকমারা হিন্দু দেব-দেবীর পূজাও করে থাকে। উদাহরণস্বরূপ, লক্ষীদেবীকে চাষাবাদের দেবী হিসেবে পূজা করা হয়। চাকমার বিশ্বাস করে কিছু আত্মা পৃথিবীতে জ্বর ও রোগব্যাধি নিয়ে আসে এবং এসব আত্মাদের সন্তুষ্ট রাখার জন্য এরা ছাগল, মুরগী, হাঁস, ইত্যাদি বলি দেয়। যদিও বৌদ্ধ বিশ্বাসমতে পশুবলি নিষিদ্ধ, সাধারণত বৌদ্ধ ভিক্ষুকরা এসব মানেন না।

ভাষা[সম্পাদনা]

মুল নিবন্ধ চাকমা ভাষা.

চাকমা মূল কথ্য ভাষা তিব্বত বারম্যান ভাষা বংশের অন্তর্গত। কিছু চাকমার কথার মধ্যে প্রতিবেশি চাঁটগাঁইয়া ভাষার প্রভাব লক্ষ্য করা যায়, যেটি মূলত পূর্ব ইন্দো আরিয়ান ভাষা বংশের একটি ভাষা এবং এটি আসামী ভাষার সাথে সম্পর্কযুক্ত। অনেক ভাষাবিদ মনে করেন, আধুনিক চাকমা ভাষা (চাংমা ভাজ অথবা চাংমা হধা নামে পরিচিত) পূর্ব ইন্দো-আরিয়ান ভাষার অংশ। চাকমা ভাষার লিখিত হয় এর নিজস্ব লিপি চাকমা লিপিতে। চাকমা লিপি অঝোপথ নামেও পরিচিত।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

চাকমাদের হস্তশিল্প ও বুননশিল্প হলো চট্টগ্রাম পার্বত্য অঞ্চল ভ্রমণকারীদের প্রধান আকর্ষন

চাকমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি, লোক সাহিত্য, সাহিত্য ও ঐতিহ্য আছে। চাকমারা কোমর জড়ানো গোড়ালি পর্যন্ত পোশাক পরে যাকে ফিনন বলা হয়। কোমরের উপর অংশকে বলা হয় হাডি। হাডি আর ফিনন সাধারণত রঙবেরঙের বিভিন্ন নকশার হয়। এই নকশা প্রথমে আলাম নামে পরিচিত এক টুকরা কাপড়ের উপর সেলাই করা হয়।

উৎসব[সম্পাদনা]

চাকমাদের সবচেয়ে বড় জাতিগত উৎসব বিজু। বাংলা বছরের শেষ দুদিন ও নতুন বছরের প্রথম দিন এ উৎসব পালন করা হয়। বাংলা বছরের শেষ দিনের আগের দিনকে বলা হয় ফুল বিজু এবং শেষ দিনকে বলা হয় চৈত্র সংক্রান্তি বা মূল বিজু। ফুল বিজুর দিন সকাল বেলা চাকমারা ঘর-বাড়ি পরিষ্কার করে ফুল দিয়ে সাজায়, বুড়ো-বুড়িদের গোসল করায়, নতুন কাপড় দেয়। রাতে বসে পরের দিনের পাচন তরকারি রান্নার জন্য সব্জি কাটতে বসে যা কমপক্ষে ৫টি এবং বেশি হলে ৩২ রকম সব্জির মিশেলে রান্না করা হয়। পরের দিন মূল বিজু, এদিন চাকমা তরুণ-তরুণীরা খুব ভোরে উঠে কলা পাতায় করে কিছু ফুল পানিতে ভাসিয়ে দেন। তারপর সবাই বিশেষ করে ছোটোরা নতুন জামা-কাপড় পরে বাড়ি বাড়ি ঘুরতে থাকে। তবে গ্রাম গুলোতে প্রাচীনকালের মতোন করে ঘিলা খারা (খেলা) হয়। পরের দিন নতুন বছর বা গয্যে পয্যে, নতুন বছরের দিন সবাই মন্দিরে যায়, খাবার দান করে, ভালো কাজ করে, বৃদ্ধদের কাছ থেকে আশীষ নেয়।

চাকমা লোকসাহিত্য বেশ সমৃদ্ধশালী। তাদের লোক কাহিনীকে বলা হয় উবগীদ। চাকমাদের তাল্লিক শাস্ত্র বা চিকিৎসা শাস্ত্র অনেক সমৃদ্ধ। আর বয়ন শিল্পে চাকমা রমণীদের সুখ্যাতি জগৎ জুড়ে।

একসময় জুম চাষের ওপর নির্ভরশীল এ জনগোষ্ঠী এখন নিজ প্রচেষ্টা ও রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় শিক্ষা-দীক্ষায় বেশ এগিয়ে গেছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে অগ্রসর আদিবাসী জনগোষ্ঠী হিসেবে তাই সহজেই বিশেষভাবে পরিচিত চাকমারা। পার্বত্য চট্টগ্রাম যে তিনটি সার্কলে বিভক্ত এর অন্যতম চাকমা সার্কল। বর্তমানে (২০১২) চাকমা সার্কলের চিফ বা চাকমা প্রধান হিসেবে খ্যাত ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় বর্তমান তত্ত্ববধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার বিশেষ সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gutman, Pamela (১৯৭৬)। Ancient Arakan। Australian National University Press। পৃ: 14। 
  2. Buchanan, Francis (১৯৯২)। Francis Buchanan in Southeast Bengal। Dhaka University Press। পৃ: 104। আইএসবিএন 984-05-1192-0 
  3. Talukdar, S.P. (২০১০)। Genesis of Indigenous Chakma Buddhists and Their Pulverization Worldwide। Kalpaz Publications। আইএসবিএন 9788178357584