জম্মু ও কাশ্মীর (কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জম্মু ও কাশ্মীর
প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল
দেশভারত
কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৩১ অক্টোবর ২০১৯
রাজধানীশ্রীনগর (মে-অক্টোবর)
জম্মু (নভেম্বর-এপ্রিল)[১]
জেলা২০
সরকার
 • শাসকজম্মু ও কাশ্মীর সরকার
 • লেফটেন্যান্ট গভর্নরগিরিশ চন্দ্র মুর্মু
 • মুখ্যমন্ত্রীপদ খালি রয়েছে
 • আইনসভাএককক্ষবিশিষ্ট
 • সংসদীয় নির্বাচনী এলাকারাজ্যসভা (৪)
লোকসভা (৫)
 • হাইকোর্টজম্মু ও কাশ্মীর হাইকোর্ট
আয়তন[ক]
 • মোট১২৫৫৩৫ কিমি (৪৮৪৬৯ বর্গমাইল)
সর্বোচ্চ উচ্চতা[২] (নুন পিক)৭১৩৫ মিটার (২৩৪০৯ ফুট)
সর্বনিন্ম উচ্চতা (Chenab River)২৪৭ মিটার (৮১০ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১,২২,৫৮,৪৩৩
 • জনঘনত্ব৯৮/কিমি (২৫০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডআইএন-জেকে
যানবাহন নিবন্ধনজেকে
কথিত ভাষাসমূহকাশ্মীরি, ডোগরী, পাঞ্জাবি, পাহাড়ি, গুজরি, দাদ্রি,[৩][৪] ভাদারবাহী,[৫] বতরি,[৬] শিনা,[৭] বুরুশেষকি,[৮] এবং খোয়ার[৯]
ওয়েবসাইটhttp://jkgad.nic.in/

জম্মু ও কাশ্মীর [খ] ভারতের প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল, এটি ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর অংশে অবস্থিত এবং কাশ্মীরের বৃহত্তর অঞ্চলের অংশ, যা ১৯৪৭ সাল থেকে ভারত, পাকিস্তান এবং চীনের মধ্যে বিরোধের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।[১১][১২] নিয়ন্ত্রণ রেখা জম্মু ও কাশ্মীরকে পশ্চিম ও উত্তরে যথাক্রমে পাকিস্তান-শাসিত অঞ্চল আজাদ কাশ্মীর এবং গিলগিত-বালতিস্তান থেকে পৃথক করে। প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটি হিমাচল প্রদেশ এবং পাঞ্জাব রাজ্যের উত্তরে এবং প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাদাখের পশ্চিমে অবস্থিত।

জম্মু ও কাশ্মীরের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গঠনের বিধানগুলি জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল, ২০১৯-এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল, যা আগস্ট ২০১৯ সালে ভারতের সংসদের উভয় কক্ষ থেকে পাস করে। বিলের উদ্দেশ্য ছিল জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্য পুনর্গঠন করে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা। দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ। অঞ্চল দুটি ৩১ অক্টোবর ২০১৯ সাল থেকে কার্যকর হবে।[১৩]

ব্যুৎপত্তি ও পরিভাষা[সম্পাদনা]

জম্মু ও কাশ্মীর দুটি অঞ্চল জুড়ে রয়েছে – জম্মু অঞ্চল এবং কাশ্মীর উপত্যকা। জম্মু অঞ্চলের নামকরণ করা হয়েছে এপিমনামস শহরটির নামে, যার পরিবর্তে এর প্রতিষ্ঠাতা রাজা জম্বু লোকানের নামে নামকরণ করেছিল, যিনি ৯ শতকে এই অঞ্চল শাসন করেছিলেন বলে বিশ্বাস করা হয়।[১৪] কাশ্মীর শব্দটি প্রাচীন সংস্কৃত ভাষা থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং এটি কাশ্মীরা (káśmīra) নামে অভিহিত হয়।[১৪] কাশ্মীরার একটি জনপ্রিয়, তবে অনিশ্চিত, স্থানীয় ব্যুৎপত্তিটি হ'ল এটি জল থেকে নির্গত ভূমি; আরেকটি অনিশ্চিত ব্যুৎপত্তি হিন্দু ঋষি কাশ্যপের নাম থেকে উদ্ভূত হয়েছে।[১৫]

পাকিস্তান সরকার এবং পাকিস্তানি সূত্রগুলি জম্মু ও কাশ্মীরকে "ভারতীয়-অধিকৃত কাশ্মীর" ("আইওকে") বা "ভারতীয় অধীন কাশ্মীর" (আইএইচকে) এর একটি অংশ হিসাবে উল্লেখ করে;[১৬][১৭] ভারত সরকার এবং ভারতীয় সরকারের পরিবর্তে সূত্রগুলি, পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণাধীন অঞ্চলটিকে "পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীর" ("পিওকে") বা "পাকিস্তান-অধীন কাশ্মীর" ("পিএইচকে") বলে উল্লেখ করেছে।[১৮][১৯] "ভারতীয় শাসিত কাশ্মীর" এবং "ভারতীয় নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর" প্রায়শই নিরপেক্ষ উৎস দ্বারা ব্যবহৃত হয়।[২০]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যকে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদে বিশেষ মর্যাদা দেওয়া হয়েছিল। ভারতের অন্যান্য রাজ্যের বিপরীতে, জম্মু ও কাশ্মীরের নিজস্ব গঠনতন্ত্র, পতাকা এবং প্রশাসনিক স্বায়ত্তশাসন ছিল।[২১] অন্যান্য রাজ্যের ভারতীয় নাগরিকদের জম্মু ও কাশ্মীরে জমি বা সম্পত্তি ক্রয়ের অনুমতি ছিল না।[২২]

জম্মু ও কাশ্মীরের তিনটি স্বতন্ত্র অঞ্চল ছিল: হিন্দু সংখ্যাগুরু জম্মু অঞ্চল, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীর উপত্যকা এবং বৌদ্ধ-অধ্যুষিত লাদাখ।[২৩] কাশ্মীরি উপত্যকায় অশান্তি ও সহিংসতা অব্যাহত ছিল এবং ১৯৮৭ সালে একটি বিতর্কিত রাজ্য নির্বাচনের পরে, একটি বিদ্রোহ স্বায়ত্তশাসন এবং অধিকারের প্রতিবাদে অব্যাহত ছিল।[২৩][২৪]

ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ২০১৪ সালের ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে ক্ষমতায় আসে এবং পাঁচ বছর পরে তাদের ২০১৯ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের প্রস্তাব অন্তর্ভুক্ত করা হয়, যাতে জম্মু ও কাশ্মীরকে অন্যান্য রাজ্যের সাথে সমান মর্যাদায় আনা যায়।[২৩]

আগস্ট ২০১৯ সালে ভারতের সংসদের উভয় সভায় ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করার প্রস্তাব পাস করা হয়। একই সময়ে, পুনর্গঠন আইনটিও পাস করা হয়, যা রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল, জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখের পুনর্গঠন করে।[২৫] পুনর্গঠনটি ৩১ অক্টোবর ২০১৯ সালে থেকে কার্যকর হয়।[১৩]

সরকার এবং রাজনীতি[সম্পাদনা]

জম্মু ও কাশ্মীরের প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটি ভারতের সংবিধানের ২৩৯ অনুচ্ছেদের অধীনে পরিচালিত হবে। মূলত পুদুচেরির কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটির জন্য প্রণীত ২৩৯এ অনুচ্ছেদটি জম্মু ও কাশ্মীরের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে।[২৬]

ভারতের রাষ্ট্রপতি কেন্দ্রশাসনের জন্য একজন লেফটেন্যান্ট গভর্নর নিযুক্ত করবেন জম্মু ও কাশ্মীরে।[২৬]

আইনসভা শাখাটি একটি আইনসভা পরিষদ হবে, যা ১০৭ থেকে ১১৪ সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত হবে, যার মেয়াদ পাঁচ বছর হবে। আইনসভায় "জনশৃঙ্খলা" এবং "পুলিশ" ব্যতীত রাজ্য তালিকার যে কোনও বিষয়ে আইন তৈরি করা যেতে পারে, যা ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে সুরক্ষিত থাকবে।[২৬]

একজন মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদকে লেফটেন্যান্ট গভর্নর আইনসভার সদস্যপদ থেকে নিয়োগ করবেন। তাদের ভূমিকা হ'ল বিধানসভার এখতিয়ারের অধীনে বিষয়গুলির কার্যনির্বাহনে লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে পরামর্শ দেওয়া। অন্যান্য বিষয়ে, লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে তার নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ করার ক্ষমতা দেওয়া হবে। লেফটেন্যান্ট গভর্নরের অধ্যাদেশ জারি করার ক্ষমতাও থাকবে, যার বিধানসভার আইনগুলির মতোই শক্তি থাকবে।[২৬]

কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটি জম্মু ও কাশ্মীর হাইকোর্টের আওতাধীন থাকবে, যা লাদাখের জন্য উচ্চ আদালতেরও দায়িত্ব পালন করবে।[২৬] সরকার দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের জন্য পৃথক পুলিশ বাহিনী গঠন না করা অবধি বিদ্যমান জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ কর্তৃক পুলিশ পরিষেবা সরবরাহ অব্যাহত থাকবে।[২৭]

ভারতের সংসদ[সম্পাদনা]

জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের সংসদের (লোকসভা) নিম্ন সভায় পাঁচ সদস্য (সংসদ সদস্য) এবং উচ্চ সভায় (রাজ্যসভা) চার সদস্যকে প্রেরণ করে।

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

জম্মু ও কাশ্মীরের প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির জেলাগুলি

জম্মু ও কাশ্মীরের প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটি দুটি বিভাগ নিয়ে গঠিত: জম্মু বিভাগ এবং কাশ্মীর বিভাগ। দুটি বিভাগ আরও ২০ টি জেলায় বিভক্ত।[২৮]

বিভাগ জেলার নাম সদরদপ্তর আয়তন (বর্গ কিমি) জনসংখ্যা
২০০১ জনগণনা
জনসংখ্যা
২০১১ জনগণনা
জম্মু জম্মু জেলা জম্মু ৩,০৯৭ ১৩,৪৩,৭৫৬ ১৫,২৬,৪০৬
ডোডা জেলা ডোডা ২,৩০৬ ৩,২০,২৫৬ ৪,০৯,৫৭৬
কিশ্তওয়ার জেলা কিশ্তওয়ার ১,৬৪৪ ১,৯০,৮৪৩ ২,৩১,০৩৭
রাজৌরি জেলা রাজৌরি ২,৬৩০ ৪,৮৩,২৮৪ ৬,১৯,২৬৬
রেয়াসি জেলা রেয়াসি ১,৭১৯ ২,৬৮,৪৪১ ৩,১৪,৭১৪
উধমপুর জেলা উধমপুর ৪,৫৫০ ৪,৭৫,০৬৮ ৫,৫৫,৩৫৭
রামবন জেলা রামবন ১,৩২৯ ১,৮০,৮৩০ ২,৮৩,৩১৩
কাঠুয়া জেলা কাঠুয়া ২,৬৫১ ৫,৫০,০৮৪ ৬,১৫,৭১১
সাম্বা জেলা সাম্বা ৯০৪ ২,৪৫,০১৬ ৩,১৮,৬১১
পুঞ্চ জেলা পুঞ্চ ১,৬৭৪ ৩,৭২,৬১৩ ৪,৭৬,৮২০
মোট ২৬,২৯৩ ৪৪,৩০,১৯১ ৫৩,৫০,৮১১
কাশ্মীর উপত্যকা শ্রীনগর জেলা শ্রীনগর ২,২২৮ ৯,৯০,৫৪৮ ১২,৫০,১৭৩
অনন্তনাগ জেলা অনন্তনাগ ৩,৯৮৪ ৭,৩৪,৫৪৯ ১০,৬৯,৭৪৯
কুলগাম জেলা কুলগাম ১,০৬৭ ৪,৩৭,৮৮৫ ৪,২৩,১৮১
পুলওয়ামা জেলা পুলওয়ামা ১,৩৯৮ ৪,৪১,২৭৫ ৫,৭০,০৬০
শোপিয়ান জেলা শোপিয়ান ৬১২.৮৭ ২,১১,৩৩২ ২,৬৫,৯৬০
বুডগাম জেলা বুডগাম ১,৩৭১ ৬,২৯,৩০৯ ৭,৫৫,৩৩১
গান্দারবাল জেলা গান্দারবাল ২৫৯ ২,১১,৮৯৯ ২,৯৭,০০৩
বান্দিপুর জেলা বান্দিপুর ৩৯৮ ৩,১৬,৪৩৬ ৩,৮৫,০৯৯
বারমুলা জেলা বারমুলা ৪,৫৮৮ ৮,৫৩,৩৪৪ ১০,১৫,৫০৩
কুপওয়ারা জেলা কুপওয়ারা ২,৩৭৯ ৬,৫০,৩৯৩ ৮,৭৫,৫৬৪
মোট ১৫,৯৪৮ ৫৪,৭৬,৯৭০ ৬৯,০৭,৬২৩
মোট ৪২,২৪১
পাকিস্তান ও চীন দ্বারা দখলকৃত এলাকা সহ ১,২৫,৫৩৫ বর্গ কিলোমিটার
৯৯,০৭,১৬১ ১,২২,৫৮,৪৩৩

এছাড়াও, এই অঞ্চলটিতে বেশ কয়েকটি দাবিকৃত অথচ প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণের বাইরে কিছু জেলা রয়েছে, যার মধ্যে গিলগিট, লাদাখ (উত্তরের অংশ- বাল্টিস্তান নিয়ে গঠিত), গিলগিত ওয়াজারত, চিলাস, উপজাতি অঞ্চল, মোজাফফারাবাদ, পুঞ্চ (পশ্চিম অংশ) এবং মিরপুর রয়েছে।[২৯]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. পাকিস্তান কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরগিলগিত-বালতিস্তান-এর ৭৮,১১৪ বর্গকিলোমিটার (৩০,১৬০ মা) এলাক এবং গণপ্রজাতন্ত্রী চীন কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত ৫,১৮০ বর্গকিলোমিটার (২,০০০ মা) শকসগাম উপত্যকাকে মোট অঞ্চলটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
  2. Pronounced variably as /ˈæm/ and /ˈʌm/; /kæʃˈmɪər/ and /ˌkæʃmɪər/.[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Desk, The Hindu Net (৮ মে ২০১৭)। "What is the Darbar Move in J&K all about?"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ১০ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  2. "Saser Kangri - AAC Publications - Search The American Alpine Journal and Accidents"Publications.americanalpineclub.org। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  3. Khan, N. (৬ আগস্ট ২০১২)। The Parchment of Kashmir: History, Society, and Polity (ইংরেজি ভাষায়)। Springer। পৃষ্ঠা 184। আইএসবিএন 9781137029584। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  4. Aggarwal, J. C.; Agrawal, S. P. (১৯৯৫)। Modern History of Jammu and Kashmir: Ancient times to Shimla Agreement (ইংরেজি ভাষায়)। Concept Publishing Company। আইএসবিএন 9788170225577। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  5. "Bhadrawahi"Ethnologue.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০১৯ 
  6. Bateri (ইংরেজি ভাষায়)। 
  7. Crane, Robert I. (১৯৫৬)। Area Handbook on Jammu and Kashmir State (English ভাষায়)। University of Chicago for the Human Relations Area Files। পৃষ্ঠা 179। Shina is the most eastern of these languages and in some of its dialects such as the Brokpa of Dah and Hanu and the dialect of Dras, it impinges upon the area of the Sino-Tibetan language family and has been affected by Tibetan with an overlay of words and idioms. 
  8. "Pakistan's "Burushaski" Language Finds New Relatives"Npr.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০১৯ 
  9. Simons, Gary F.; Fennig, Charles D. (২০১৭)। Ethnologue: Languages of the World, Twentieth Edition (English ভাষায়)। Dallas: SIL International 
  10. Jones, Daniel (২০০৩) [1917], Peter Roach; James Hartmann; Jane Setter, সম্পাদকগণ, English Pronouncing Dictionary, Cambridge: Cambridge University Press, আইএসবিএন 978-3-12-539683-8 
  11. Akhtar, Rais; Kirk, William, Jammu and Kashmir, State, India, Encyclopaedia Britannica, সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১৯  (subscription required) Quote: "Jammu and Kashmir, state of India, located in the northern part of the Indian subcontinent in the vicinity of the Karakoram and westernmost Himalayan mountain ranges. The state is part of the larger region of Kashmir, which has been the subject of dispute between India, Pakistan, and China since the partition of the subcontinent in 1947."
  12. Jan·Osma鈔czyk, Edmund; Osmańczyk, Edmund Jan (২০০৩), Encyclopedia of the United Nations and International Agreements: G to M, Taylor & Francis, পৃষ্ঠা 1191–, আইএসবিএন 978-0-415-93922-5  Quote: "Jammu and Kashmir: Territory in northwestern India, subject to a dispute between India and Pakistan. It has borders with Pakistan and China."
  13. Ministry of Home Affairs (৯ আগস্ট ২০১৯), "In exercise of the powers conferred by clause a of section 2 of the Jammu and Kashmir Reorganisation Act." (PDF), The Gazette of India, সংগ্রহের তারিখ ৯ আগস্ট ২০১৯ 
  14. "A Comparative Dictionary of the Indo-Aryan Languages"। Dsalsrv02.uchicago.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৫-২৯ 
  15. Snedden, Christopher (২০১৫), Understanding Kashmir and Kashmiris, Oxford University Press, পৃষ্ঠা 22–, আইএসবিএন 978-1-84904-342-7 
  16. Zain, Ali (১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "Pakistani flag hoisted, pro-freedom slogans chanted in Indian Occupied Kashmir – Daily Pakistan Global"। En.dailypakistan.com.pk। ১৮ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৫ 
  17. "Pakistani flag hoisted once again in Indian Occupied Kashmir"Dunya News। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৫ 
  18. Snedden, Christopher (২০১৩)। Kashmir: The Unwritten History। HarperCollins India। পৃষ্ঠা 2–3। আইএসবিএন 978-9350298985 
  19. "The enigma of terminology"The Hindu। ২৭ জানুয়ারি ২০১৪। ১৬ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  20. South Asia: fourth report of session 2006–07 by By Great Britain: Parliament: House of Commons: Foreign Affairs Committee page 37
  21. K. Venkataramanan (৫ আগস্ট ২০১৯), "How the status of Jammu and Kashmir is being changed", The Hindu 
  22. "Article 370 and 35(A) revoked: How it would change the face of Kashmir"The Economic Times। ৫ আগস্ট ২০১৯। 
  23. Article 370: What happened with Kashmir and why it matters. BBC (2019-08-06). Retrieved 2019-08-07.
  24. Jeelani, Mushtaq A. (২৫ জুন ২০০১)। "Kashmir: A History Littered With Rigged Elections"Media Monitors Network। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  25. "Parliament Live | Lok Sabha passes Jammu and Kashmir Reorganisation Bill, Ayes: 370, Noes 70"Thehindu.com। ৬ আগস্ট ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০১৯ 
  26. Jammu & Kashmir Reorganisation Bill passed by Rajya Sabha: Key takeaways, The Indian Express, 5 August 2019.
  27. Ratan, Devesh; Johri, Iti (৭ আগস্ট ২০১৯)। "Salient Features Of Jammu & Kashmir Reorganization Bill [Read Bill]"LiveLaw.in: All about law। সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১৯ 
  28. "Ministry of Home Affairs:: Department of Jammu & Kashmir Affairs"। ৮ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০০৮ 
  29. Singh, Yudhbir; Jammu University Seismic Network. Jammu University. 8-13 January 2012. Retrieved 4 September 2019.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]